Barta24

শনিবার, ১৭ আগস্ট ২০১৯, ১ ভাদ্র ১৪২৬

English

থাপ্পড়ের ভয় দেখিয়ে ভিক্ষুকের টাকা ছিনতাই

থাপ্পড়ের ভয় দেখিয়ে ভিক্ষুকের টাকা ছিনতাই
টাকা ছিনতাই হওয়া ভিক্ষুক লাতু মিয়া, ছবি: সংগৃহীত
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
নোয়াখালী


  • Font increase
  • Font Decrease

ফেনীর পরশুরাম, ফুলগাজী ও ছাগলনাইয়া এলাকার পরিচিত ভিক্ষুক শতবর্ষী বৃদ্ধ লাতু মিয়া। তিনি কুমিল্লা জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার বাসিন্দা। জীবন-জীবিকার তাগিদে ঘুরে ঘুরে ভিক্ষা করেন। ভিক্ষা করা ছাড়া উপায় নেই এ বৃদ্ধের।

কিন্তু গতকাল মঙ্গলবার (১১ জুন) রাতে ভিক্ষাবৃত্তি করে জমানো ১৯ হাজার টাকা 'থাপ্পড়ের' ভয় দেখিয়ে হাতিয়ে নেয় ছিনতাইকারীরা।

বুধবার (১২ জুন) সারাদিন টাকার জন্য কাঁদতে কাঁদতে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে বার বার মূর্ছা যান লতু মিয়া। দুবেলা দুমুঠো খাবারের জন্য কঙ্কাল সদৃশ এই বৃদ্ধ ভিক্ষা করে আসছেন দীর্ঘদিন ধরে। ভিক্ষা করে রাতে ওই এলাকার দোকানের সামনেই ঘুমিয়ে পড়েন।

ভিক্ষুক লাতু মিয়া জানান, প্রতিদিনের মতো মঙ্গলবারও সারাদিন ভিক্ষা করে রাতে ক্লান্ত শরীরে বিশ্রাম নিতে ঘুমের জন্য প্রস্তু হচ্ছিলেন। এমন সময় রাত সাড়ে ১১টার দিকে অজ্ঞাত দুইজন মোটরসাইকেল আরোহী লাতু মিয়াকে 'টাইগার ড্রিংকস' খেতে দেয়। কিন্তু লাতু মিয়া খেতে অনীহা দেখালে ছিনতাইকারীদের একজন তাকে থাপ্পড় মারার ভয় দেখায় এবং এ সময় অপর ছিনতাইকারীরা তার ব্যাগে থাকা সাড়ে ১৯ হাজার টাকা ছিনতাই করে নিয়ে যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যবসায়ী বলেন, 'এসব রুটে চলাচলকারী বাস, সিএনজি অটোরিকশার যাত্রীদের কাছে ভিক্ষা করে জীবিকা নির্বাহ করতেন তিনি। দিনভর ভিক্ষাবৃত্তি শেষে রাতে সদর হাসপাতাল মোড় (একরাম চত্বর) এলাকার বিভিন্ন দোকানের সামনেই ঘুমিয়ে যেতেন।'

ফেনী মডেল থানার (ওসি) তদন্ত সাজেদুল ইসলাম জানান, বিষয়টি তিনি অবহিত হয়েছেন। তবে অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার মতামত লিখুন :

রংপুরে যাত্রীবাহী বাস খাদে, নিহত ১, আহত ৪০

রংপুরে যাত্রীবাহী বাস খাদে, নিহত ১, আহত ৪০
দুর্ঘটনার পরবর্তী উদ্ধার কার্যক্রম চলছে, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

রংপুরে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে যাত্রীবাহী একটি বাস খাদে পড়ে এক জনের মৃত্যু হয়েছে। এ দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ৪০ জন যাত্রী। আহতদের রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার (১৬ আগস্ট) রাত পৌনে এগারোটার দিকে রংপুর মহানগরীর হাজিরহাট মন্থনা এলাকায় এ দুর্ঘটনাটি ঘটেছে।

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে দুঘর্টনার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আরপিএমপির সহকারী পুলিশ কমিশনার (পরশুরাম জোন) শেখ মো. জিন্নাহ আল মাহমুদ।

তিনি জানান, রাত পৌনে এগারোটার দিকে তেতুলিয়া থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী কান্তি পরিবহন বাসটি হাজিরহাট মন্থনা এলাকায় পৌঁছালে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলে আনিছুর ররহমান আনিছ (৪০) নামের একজন নিহত হয়েছেন। তিনি দিনাজপুরের মৃত খলিলুর রহমানের ছেলে।

এদিকে, দুর্ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আহতদের উদ্ধার করে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (রাত ১২টা ১০ মিনিট) ঘটনাস্থল থেকে অন্তত ৪০ জনকে উদ্ধার করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ওই পুলিশ কর্মকর্তা জানান, আহতদের মধ্যে চারজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। দুর্ঘটনা কবলিত বাসটি উদ্ধার করে থানায় নেয়ার প্রস্তুতি চলছে। বাসে থাকা যাত্রীদের বেশির ভাগই তেতুলিয়া, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর ও নীলফামারী জেলার যাত্রী। তারা ঈদের ছুটি শেষে ঢাকায় ফিরছিলেন।

ভূমি ক্ষয়ে হুমকিতে 'শুভ সন্ধ্যা' সৈকত

ভূমি ক্ষয়ে হুমকিতে 'শুভ সন্ধ্যা' সৈকত
ভূমি ক্ষয়ে হুমকিতে সমুদ্র সৈকত, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বর্ষা মৌসুমের শুরু থেকে তীব্র ভূমি ক্ষয়ে হুমকির মুখে পড়েছে বরগুনার তালতলী উপজেলার সম্ভাবনাময় ‘শুভ সন্ধ্যা’ সমুদ্র সৈকত। হারিয়ে যাচ্ছে সৈকতের সৌন্দর্য বর্ধনকারী ঝাউবন। টানা বৃষ্টি ও জোয়ারের তীব্র স্রোতে সৈকতের কোল ঘেঁষা ঝাউ গাছের নিচ থেকে বালু সরে যাওয়াতে ভেঙে গেছে দুই কিলোমিটার এলাকা।

স্থানীয়রা সমুদ্র সৈকতটি রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন।

ভূমি ক্ষয়ে হুমকিতে 'শুভ সন্ধ্যা' সৈকত

জানা গেছে, ২০১৭ সালে সাবেক ইউএনও বদরুদ্দোজা শুভর নাম অনুসারে সৈকতটির নামকরণ করা হয়। এই উপজেলার নলবুনিয়া একায় বিশাল বালুভূমিতে শুভ সন্ধ্যা পিকনিক স্পট নামকরণ করা হয়। এরপর বেশি সময় লাগেনি এটা পর্যটন কেন্দ্রে রূপ নিতে। এখানে প্রতিদিন দেশ বিদেশ থেকে হাজারও পর্যটক আসেন। ইতোমধ্যেই শুরু হয়েছে পর্যটন এলাকার রাস্তা নির্মাণের কাজ। ঝাউ বাগানের ভেতর দিয়ে কিছু দূর হেঁটে গেলেই দেখা যাবে বিশাল বালু ভূমি, যা খুবই দৃষ্টিনন্দন।

শুক্রবার (১৬ আগস্ট) শুভ সন্ধ্যা সমুদ্র সৈকত ঘুরে দেখা গেছে, সৈকতের প্রতিটি ঝাউ গাছের নিচ থেকে বালু সরে গেছে। সৈকত ঘেঁষা বনাঞ্চলের বিভিন্ন প্রজাতির শত শত গাছ উপড়ে পড়ে আছে। এভাবে ভূমিক্ষয় অব্যাহত থাকলে এ পর্যটন এলাকা দ্রুত বিলুপ্ত হবে। এতে একদিকে যেমন পরিবেশ ভারসাম্যহীন হয়ে পড়বে অপর দিকে পর্যটক শূন্য হয়ে যাবে সৈকতটি।

ভূমি ক্ষয়ে হুমকিতে 'শুভ সন্ধ্যা' সৈকত

তালতলী রেঞ্জের বন কর্মকর্তা নয়ন মিত্র বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘প্রতি বছরই বর্ষা ও জোয়ারের স্রোতে ভাঙতে ঝাউ বাগান। এ বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষের কাছে চিঠি দেওয়া হয়েছে। আশা করছি, খুব দ্রুত জিও ব্যাগ দিয়ে এলাকাটি বাঁধাই করা হবে।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র