Barta24

মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

শাশুড়িকে খুন করে পালানো কনস্টেবল আটক

শাশুড়িকে খুন করে পালানো কনস্টেবল আটক
আটক সিআইডি কনস্টেবল, ছবি: বার্তা২৪.কম
ডিস্ট্রিক করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
চুয়াডাঙ্গা


  • Font increase
  • Font Decrease

শাশুড়িকে খুন করে পালিয়ে যাওয়া চুয়াডাঙ্গার সিআইডির কনস্টেবল অসীম ভট্টাচার্যকে আটক করেছে পুলিশ।

বুধবার (১২ জুন) চুয়াডাঙ্গা শহরের ঘোড়ামাড়া ব্রিজের কাছে অবৈধ মোটর সাইকেল অভিযান পরিচালনা করার সময়ই তাকে আটক করা হয়।

চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কানাই লাল সরকার বার্তা২৪.কম-কে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, 'আলমডাঙ্গা উপজেলা শহরের মাদরাসা পাড়ায় অসীম ও তার স্ত্রী ফাল্গুনী ভাড়া থাকতেন। শাশুড়িকে খুন করার পর পালিয়ে যান অসীম। অসীম এখন আইনি হেফাজতে আছে। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার প্রক্রিয়া চলছে।'

এদিকে শনিবার (৮ জুন) পারিবারিক বিরোধের জেরে শ্বশুর বাড়িতে গিয়ে স্ত্রী ফাল্গুনীকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করেন অসীম। এ সময় শাশুড়ি (শেফালি অধিকারী) অসীমকে থামানোর চেষ্টা করলে, অসীম তাকে নৃশংসভাবে খুন করেন।

আপনার মতামত লিখুন :

কক্সবাজারে দেয়াল চাপায় শ্রমিকের মৃত্যু

কক্সবাজারে দেয়াল চাপায় শ্রমিকের মৃত্যু
ছবি: সংগৃহীত

কক্সবাজারে দেয়াল চাপায় মাহমুদুল্লাহ (৪০) নামে এক শ্রমিক নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন আরও এক শ্রমিক।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) বেলা পৌনে ১১টার দিকে আইনজীবি সমিতির কার্যালয়ে সংস্কার কাজ করতে গিয়ে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মাহমুদুল্লাহ কক্সবাজির সদর উপজেলার পিএমখালীর মুচনীয়া পাড়ার মৃত জাকির হোসেনের ছেলে।

কক্সবাজার সদর হাসপাতাল পুলিশ বক্সের ইনচার্জ নুর উদ্দিন বার্তা২৪.কম-কে এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, 'দেয়াল চাপায় গুরুতর আহত এক শ্রমিককে হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার পরিবারকে খবর দেয়া হয়েছে। তারা এলে লাশ হস্তান্তর করা হবে।'

টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিন মানবপাচারকারী নিহত

টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিন মানবপাচারকারী নিহত
ছবি প্রতীকী

কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের সঙ্গে 'বন্দুকযুদ্ধে' তিন মানব পাচারকারী নিহত হয়েছেন। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে তিনটি এলজি ও ১৫টি কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) ভোরে উপজেলার মহেশখালীয়া পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- টেকনাফের সাবরাং নয়াপাড়ার আব্দুর শুক্কুরের ছেলে কোরবান আলী (৩০), পৌরসভার কে কে পাড়ার আলী হোসেনের ছেলে আব্দুল কাদের (২৫) ও একই এলাকার সুলতান আহমদের ছেলে আব্দুর রহমান (৩০)।

টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'রোহিঙ্গা পাচারে জড়িত এ তিনজনকে আটকের উদ্দেশে গেলে তাদের সহযোগীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। আত্মরক্ষার্থে পুলিশ পাল্টা গুলি চালায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে এসব অস্ত্রসহ তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।'

নিহতদের মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে বলেও জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র