Barta24

মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

যশোরে মাদরাসা ছাত্র হত্যা: পলাতক শিক্ষক গ্রেফতার

যশোরে মাদরাসা ছাত্র হত্যা: পলাতক শিক্ষক গ্রেফতার
গ্রেফতার শিক্ষক হাফিজুর / ছবি: সংগৃহীত
আজিজুল হক
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বেনাপোল (যশোর)
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

বলাৎকারে ব্যর্থ হয়ে আক্রশে খুন হওয়া মাদরাসা ছাত্র শাহাপরান (১১) হত্যা মামলার পালাতক আসামি শিক্ষক হাফিজুরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার (১২জুন) দুপুর ১টায় শার্শা থানা পুলিশ এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানায়।

এর আগে ভোরে খুলনা জেলার দিঘলিয়া উপজেলার একটি কওমি মাদরাসার ভেতর থেকে হাফিজুরকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত আসামি হাফিজুর বেনাপোলের কাগজপুকুর খেদাপাড়া হেফজুল কোরান হাফিজিয়া মাদরাসার শিক্ষক। হত্যাকাণ্ডের শিকার ছাত্র ওই মাদরাসার ছাত্র এবং কাগজপুকুর গ্রামের শাহাজান আলীর ছেলে।

সংবাদ সম্মেলনে শার্শার নাভারণ সার্কেলের সহকারী পুলশি সুপার জুয়লে ইমরান জানান, অভিযুক্ত মাদরাসা শিক্ষক হাফিজুরকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, তিনি অনেকদিন ধরে ছাত্র শাহাপরানকে বলাৎকারের চেষ্টা করে আসছিল। কিন্তু বার বার ব্যর্থ হয়। এক পর্যায়ে হাফিজুর তার আক্রোশ মেটাতে ছাত্র শাহাপনারকে বেড়ানোর কথা বলে গত ৩১ মে শার্শার গোগা গ্রামে নিয়ে যান। পরে তাকে নিজ ঘরে শ্বাসরোধে হত্যা করে মহাদেহ খাটের নিচে রাখে। পরে ঘরে তালা ঝুলিয়ে পালিয়ে যান হাফিজুর।

তিনি আরও জানান, ২ জুন ওই ঘর থেকে দুর্গন্ধ ছড়ালে প্রতিবেশিরা পুলিশকে খবর দেয়। এ সময় পুলিশ এসে ছাত্রের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করে।

পুলিশের এ কর্মকর্তা জানান, ঘটনার পর থেকে বিভিন্ন স্থানে আসামিকে আটকের জন্য অভিযান চালানো হয়। তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে অভিযান পরিচালানা করলেও তাকে আটক করা যায়নি। অবশেষে বুধবার ভোরে দিঘলিয়া উপজেলার একটি কওমি মাদরাসা থেকে শিক্ষক হাফিজুরকে গ্রেফতার করা হয়।

এদিকে এ হত্যার ঘটনায় উপযুক্ত বিচার দাবি করে আসছেন শাহাপরানের পরিবার। তারা বলেন, সততা আর আদর্শ নিয়ে মানুষ গড়ার স্বপ্নে ছেলেকে মাদরাসায় ভর্তি করেছিলাম। কিন্তু আমাদের সব স্বপ্ন ওই শিক্ষকের লালসার কাছে মিথ্যা হয়ে গেছে। আর কাউকে যেন এমনভাবে জীবন দিতে না হয়।

এ জন্য উপযুক্ত বিচার দাবি করেন শাহপরানের পরিবারের সদস্যরা।

এদিকে শিক্ষক হাফিজুরকে আটকের আগে তার আত্মীয় স্বজনকে আটক করে পুলিশের বিপুল পরিমাণে অর্থ বাণিজ্য হয়েছে, এমন গুঞ্জন এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। এ বিষয়ে সহকারী পুলিশ সুপার জুয়েল ইমরান বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘আমিও শুনেছি। কিন্তু যাদের নিকট থেকে অর্থ বাণিজ্য হয়েছে, তাদের আমি ডেকে জিজ্ঞাসা করলে এর কোনো সত্যতা মেলেনি।’

আপনার মতামত লিখুন :

মহাসড়কের মাঝে বিদ্যুতের ১৪ খুঁটি, মারাত্মক দুর্ঘটনা ঝুঁকি

মহাসড়কের মাঝে বিদ্যুতের ১৪ খুঁটি, মারাত্মক দুর্ঘটনা ঝুঁকি
ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের মাঝে বিদ্যুতের খুঁটি। ছবি: বার্তা২৪.কম

গত ৬ মাস ধরে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের গোপালগঞ্জের বেদগ্রাম এলাকায় হাই ভোল্টেজ বিদ্যুৎ লাইনের অন্তত ১৪টি খুঁটি রেখেই সড়ক বিভাগের রাস্তা প্রশস্তকরণ কাজ চলছে। এর ফলে মারাত্মক দুর্ঘটনা ঝুঁকিতে রয়েছে এ সড়কে চলাচলকারী যানবাহন।

সড়ক বিভাগ বলছে, খুঁটি অপসারণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন তারা। আর এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হয়নি বিদ্যুৎ বিভাগ।

প্রায় ৭ কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের গোপালগঞ্জের বেদগ্রাম এলাকায় চৌরাস্তা নির্মাণের কাজ করছে সড়ক বিভাগ।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি সারাদেশের সড়ক-মহাসড়কে থাকা সব ধরনের খুঁটি ৬০ দিনের মধ্যে অপসারণের নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। কিন্তু গোপালগঞ্জের সড়ক-মহাসড়কের কোথাও খুঁটি অপসারণ করেনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। রাস্তার উপর খুঁটি রেখেই কাজ দ্রুত চালিয়ে যাচ্ছে সড়ক বিভাগের ঠিকাদার।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/25/1561445379482.jpg

শিডিউল অনুযায়ী এ মাসের মধ্যে কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। সড়ক প্রশস্তকরণ কাজ শেষ পর্যায়ে হলেও রাস্তার মাঝে অন্তত ১৪টি বৈদ্যুতিক খুঁটি থাকায় মারাত্মক দুর্ঘটনা ঝুঁকিতে রয়েছে এ পথে চলাচলকারীরা।

বৈদ্যুতিক খুঁটি সরানোর ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে বলে জানান সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শরীফুল আলম। তবে, এ বিষয়ে বক্তব্য দিতে রাজি হননি বিদ্যুৎ বিভাগের (ওজোপাডিকো) নির্বাহী প্রকৌশলী মামুনর রশীদ।

হাইকোর্টের নির্দেশনা মেনে দ্রুত খুঁটি অপসারণসহ নিয়ম মেনে উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন করার দাবি এলাকাবাসীর।

কক্সবাজারে দেয়াল চাপায় শ্রমিকের মৃত্যু

কক্সবাজারে দেয়াল চাপায় শ্রমিকের মৃত্যু
ছবি: সংগৃহীত

কক্সবাজারে দেয়াল চাপায় মাহমুদুল্লাহ (৪০) নামে এক শ্রমিক নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন আরও এক শ্রমিক।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) বেলা পৌনে ১১টার দিকে আইনজীবি সমিতির কার্যালয়ে সংস্কার কাজ করতে গিয়ে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত মাহমুদুল্লাহ কক্সবাজির সদর উপজেলার পিএমখালীর মুচনীয়া পাড়ার মৃত জাকির হোসেনের ছেলে।

কক্সবাজার সদর হাসপাতাল পুলিশ বক্সের ইনচার্জ নুর উদ্দিন বার্তা২৪.কম-কে এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, 'দেয়াল চাপায় গুরুতর আহত এক শ্রমিককে হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার পরিবারকে খবর দেয়া হয়েছে। তারা এলে লাশ হস্তান্তর করা হবে।'

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র