Barta24

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

ক্ষতিগ্রস্ত হাঁস খামারি কাশেমের পাশে ছাত্রলীগ

ক্ষতিগ্রস্ত হাঁস খামারি কাশেমের পাশে ছাত্রলীগ
ক্ষতিগ্রস্ত হাঁস খামারি কাশেমের পাশে ছাত্রলীগ, ছবি: বার্তা২৪.কম
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
নেত্রকোনা
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলার বলাইশিমুল ইউনিয়নের ছবিলা গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত হাঁস খামারি শারীরিক প্রতিবন্ধী আবুল কাশেমের পাশে দাঁড়িয়েছে ছাত্রলীগ। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রব্বানীর নির্দেশে মঙ্গলবার (১১ জুন) বিকেলে নেত্রকোনা জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সম্পাদক সোবায়েল আহমদ খান আবুল কাশেমের হাতে ২শ হাঁসের মূল্য বাবদ ২৮ হাজার টাকা তুলে দেন।

রোববার (৯ জুন) আবুল কাশেমের ৪১৩টি হাঁস বিষ দিয়ে মেরে ফেলার অভিযোগ উঠে। গত রোববার বিকেলে উপজেলার বলাইশিমুল ইউনিয়নের ছবিলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি তাৎক্ষণিক পুলিশকে জানান ওই খামারি আবুল কাশেম।

এসব হাঁসের দেওয়া ডিমের উপার্জনে শারীরিক প্রতিবন্ধী আবুল কাশেম সংসার চালাতেন। মরে যাওয়া হাঁসের বাজার মূল্য প্রায় আড়াই লাখ টাকা ছিল বলে জানান তিনি।

ঘটনার বিষয়ে হাঁস খামারের মালিক আবুল কাশেম জানান, রোববার সকালে প্রতিদিনের মতো ১৭শ’ হাঁসকে হাওড়ের পরিত্যক্ত খাবার খেতে ছেড়ে দেন। হাঁসগুলো বাড়ির খামার থেকে বেরিয়ে পাশের একটি পরিত্যক্ত ধান ক্ষেতে খাবার খায়। খাবার খাওয়ার কয়েক মিনিট পরেই হাঁসগুলো মারা যেতে শুরু করে।

আবুল কাশেমের ধারণা, ওই ধান ক্ষেতে কেউ হয়ত শত্রুতাবশত বিষ দিয়ে রেখেছিল। এজন্য হাঁসগুলো এক এক করে দ্রুত মারা যায়।

প্রতিবন্ধী খামারির হাঁস মারা যাওয়ার বিষয়টি নজরে এলে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী তার ফেইসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন। ওই স্ট্যাটাসে তিনি লিখেন, ‘নেত্রকোণার কেন্দুয়া উপজেলার বলাইশিমুল ইউনিয়নের ছবিলা গ্রামের হতদরিদ্র আবুল কাশেম। শারীরিক প্রতিবন্ধী কাশেম ভাই কায়িক শ্রমের কাজ করতে পারেন না বলেই মোটা সুদে ঋণ করে হাঁসের খামার করেছিলেন ভাগ্য ফেরানোর আশায়। বিধি বাম! দুর্বৃত্তদের প্রয়োগ করা বিষে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে তার বেঁচে থাকার অবলম্বন প্রায় ৮০০ হাঁস!’

‘আমরা বাংলাদেশ ছাত্রলীগ পরিবার অসহায় আবুল কাশেম ভাইয়ের পাশে দাঁড়াব। সারা দেশের লাখো লাখো ছাত্রলীগ কর্মীর মাঝে আমরা ৮শ’ কর্মী যদি একটি করে হাঁসের দায়িত্ব নেই, কাশেম ভাইয়ের পরিবার আবার বাঁচার অবলম্বন পাবে।’

‘আমি আজ কথা বলেছি তার সাথে, ইনশাআল্লাহ- আমরা সবাই মিলে কাশেম ভাইয়ের পাশে থাকবো। দ্রুতই ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে তাকে ৮শ’ হাঁস কিনে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে। মানুষ মানুষের জন্য, জীবন জীবনের জন্য।’

জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সোবায়েল আহমেদ খান গোলাম রব্বানীর নির্দেশে মঙ্গলবার বিকেলে আবুল কাশেমের বাড়িতে যেয়ে ২শ’ হাঁসের দাম ২৮ হাজার টাকা তার হাতে তুলে দেন। এ সময় তার সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন- উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা শহিদুল হক ফকির, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ফজলু মিয়া, জেলা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক সৈয়দ আল রাকিব, সদস্য সাইফুল ইসলাম শুভ্র, মো. করিম, ওবায়দুর রহমান খান, সাইফুল ইসলাম লালন, জাহিদ হাসান প্রান্ত, তানভীর হাসান বাধন, জাহিদুল হাসান জিকু, তাকবির হোসেন, সাদ সাদেক, আব্দুল্লাহ আল মামুন, মো. মুরসালিন, রাকিব তুষার, মাহফুজুর রহমান পিয়াস, সানোয়ার সাকলাইন, সারিমূল ইসলাম সানি ও সানিমূল ইসলাম তুহিন প্রমুখ।

এ প্রসঙ্গে খামার মালিক আবুল কাশেম জানান, ছাত্রলীগ নেতার সঙ্গে কথা হয়েছে। তারা আমাকে হাঁস কেনার টাকা দিয়েছেন। আমি এখন ছেলে-মেয়ে নিয়ে চলতে পারবো।

সোবায়েল আহমদ খান জানান, কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী ভাইয়ের সাথে কথা বলে তার পক্ষে তিনি এই সহায়তা করেছেন।

আপনার মতামত লিখুন :

অর্থ আত্মসাৎ: এলাকাবাসীর ধাওয়ায় পালালেন প্রকল্প পরিচালক

অর্থ আত্মসাৎ: এলাকাবাসীর ধাওয়ায় পালালেন প্রকল্প পরিচালক
ছবি: সংগৃহীত

বিদ্যালয়ের মাঠ মাটি দিয়ে ভরাট প্রকল্পের অর্থ আত্মসাৎ করার অভিযোগে উঠেছে প্রকল্প পরিচালক আব্দুল হান্নান শেখের বিরুদ্ধে। এতে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী ধাওয়া দিলে মোটরসাইকেল ফেলে পালান তিনি। বুধবার (২৬ জুন) নড়াইল সদর উপজেলার রঘুনাথপুরে এ ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজা সদর উপজেলার রঘুনাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠ ভরাট কাজের জন্য ৫০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেন। কিন্তু প্রকল্প পরিচালক দায়সারাভাবে কাজ করে বাকি টাকা আত্মসাৎ করেন। মাঠটি যথাযথভাবে ভরাট করতে বার বার অনুরোধ করা হলেও তিনি শোনেননি। এমনকি বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি ও স্থানীয় এলাকাবাসী তাকে সভায় ডাকলে তিনি হাজির হননি। এতে এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন।

আরও জানা গেছে, বুধবার সকালে ওই বিদ্যালয়ের পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন আব্দুল হান্নান শেখ। তাকে দেখে এলাকাবাসী ধাওয়া করলে তিনি মোটরসাইকেল ফেলে পালিয়ে যান।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এফ এম আকবর হোসেন বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'শুনেছি মাঠ ভরাট কাজের প্রকল্প কমিটিতে আমাকে রাখা হয়েছে। তবে আমাকে কিছুই জানানো হয়নি। এ কমিটির পিআইসি আব্দুল হান্নান শেখ একাই কাজ করছেন। তিনি সামান্য কিছু মাটি দিয়ে দায়সারাভাবে কাজ শেষ করতে চেয়েছেন।'

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আবু বক্কার ফকির বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'আব্দুল হান্নান শেখ কাউকে কিছু না বলে রাতের আঁধারে বিদ্যালয়ের মাঠে মাটি ভরাটের কাজ করেছেন। সামান্য মাটি দিয়ে বাকি টাকা আত্মসাৎ করেছেন।'

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে আব্দুল হান্নান শেখ বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'কাজ এখনও শেষ হয়নি। এ পর্যন্ত ৩০ হাজার টাকার মতো খরচ হয়েছে। বাকি কাজ শিগগিরই শেষ করা হবে।'

ঝুঁকিপূর্ণ ভবন, বিদ্যালয় বিমুখ শিক্ষার্থীরা!

ঝুঁকিপূর্ণ ভবন, বিদ্যালয় বিমুখ শিক্ষার্থীরা!
কাগমারিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার ৪৪ নং কাগমারিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ও পরিত্যক্ত ভবনে ক্লাস করতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। ফলে ভবনটি ধসে পড়ার আশঙ্কায় বিদ্যালয়ে আসতে চায় না শিক্ষার্থীরা।

উপজেলা শিক্ষা কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ১৮৮২ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। বিদ্যালয়ে একটি টিনশেড বিল্ডিং ও দুটি পাকাভবন রয়েছে। এরমধ্যে একটি ভবনে ৪টি কক্ষ, যা ২০০১ সালে নির্মিত হয়। কিন্তু ১৪ বছর পর ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় ২০১৫ সালে ভবনটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ। বর্তমানে বিদ্যালয়ে ২৬৩ শিক্ষার্থী রয়েছে।

ঝুঁকিপূর্ণ ওই ভবন ছাড়াও বিদ্যালয়টিতে একটি পাকা ও একটি টিনশেড ভবন রয়েছে। পাকা ভবনের অর্ধেক অংশে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের ক্লাস করানো হয় এবং বাকি অংশে শিক্ষকরা অফিস হিসেবে ব্যবহার করেন। টিনশেড ভবনের দুটি কক্ষে অন্য শ্রেণির ক্লাস হয়।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/26/1561564748695.jpg
সরেজমিনে দেখা গেছে, ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের কলাম থেকে বিম ফেটে গেছে, পলেস্তরা খসে খসে পড়ছে। ভবনটির উত্তর ও পশ্চিম পাশে দেবে গেছে। এছাড়া বৃষ্টি হলেই ছাদ দিয়ে চুয়ে চুয়ে পানি পড়ে। ফলে যেকোনো মুহূর্তে দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা। এতে বিদ্যালয় বিমুখ হচ্ছে শিক্ষার্থীরা।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দিলআরা আফরোজ বার্তা২৪.কমকে বলেন, শিক্ষার্থীদের বসার জন্য পর্যাপ্ত জায়গা না থাকায় বাধ্য হয়ে পরিত্যক্ত ভবনে ক্লাস নিতে হচ্ছে। তবে ভবন ভেঙে পড়ার আশঙ্কায় শিক্ষার্থীরা নিয়মিত বিদ্যালয়ে আসছে না। নতুন ভবন নির্মাণের জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করা হয়েছে।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা শাহনেওয়াজ পারভীন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ভবনটি পরিত্যক্ত ঘোষণার বিষয়টি আমার জানা নেই। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মাণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র