Barta24

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

আড়তে কেমিক্যাল দিয়ে আম পাকানোয় জরিমানা

আড়তে কেমিক্যাল দিয়ে আম পাকানোয় জরিমানা
পুলিশের একটি দল আড়তে অভিযান চালায় / ছবি: বার্তা২৪
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
চাঁপাইনবাবগঞ্জ


  • Font increase
  • Font Decrease

কেমিক্যাল দিয়ে আম পাকানোর অপরাধে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার কানসাট আম বাজারে মেহেরুল নামে এক আড়ত মালিককে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। একই সঙ্গে সেখান থেকে জব্দ করা দুই মণ আম ধ্বংস করা হয়।

শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-অপারেশন) আতিকুল ইসলাম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শিবগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরমন হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল সোমবার (১০ জুন) দুপুরে আমের আড়তে অভিযান চালায়। এ সময় আম পাকানোর কেমিক্যাল ও স্প্রে মেশিনসহ মেহেরুলকে নামের এক আড়তদারকে আটক করা হয়। সেখান থেকে দুই মণ আম জব্দ করা হয়।

তিনি আরও জানান, পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বরমন হোসেন মেহেরুলকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন। অভিযানের সময় শিবগঞ্জ থানা পুলিশসহ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আমিনুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :

শেরপুর-জামালপুর মহাসড়কে হাঁটু পানি

শেরপুর-জামালপুর মহাসড়কে হাঁটু পানি
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম।

পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদে পানি বৃদ্ধির ফলে শেরপুরে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের পুরাতন ভাঙন অংশ দিয়ে পানি দ্রুতবেগে প্রবেশ করায় চরাঞ্চলের নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্র নদের পানি শেরপুর ফেরিঘাট পয়েন্টে ১ মিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমা ছুঁই ছুঁই করছে। এতে শেরপুর-জামালপুর মহাসড়কের পোড়ার দোকান কজওয়ের (ডাইভারশন) উপর দিয়ে প্রবলবেগে বন্যার পানি প্রবাহিত হচ্ছে। স্থানীয়রা হাঁটু পানি মাড়িয়ে ঝুঁকি নিয়ে ওই মহাসড়ক দিয়ে চলাচল করছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/18/1563438434171.jpg

এদিকে ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করলেও যেকোনো সময় শেরপুর থেকে জামালপুর হয়ে রাজধানী ঢাকা ও উত্তরাঞ্চলের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হতে পারে।

স্থানীয়রা বলছেন, হঠাৎ করে গত রাত থেকে এই ডাইভারশনে পানি এসেছে। এতে আতঙ্কে আছেন তারা। যেকোনো মুহূর্তে বন্ধ হয়ে যেতে পারে শেরপুর-জামালপুর রুটে যানবাহন চলাচল।

স্থানীয় রহমত আলী, মজিবর রহমান, খলিলুর রহমানসহ অনেকে জানান, বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকাল থেকে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে তারা আতঙ্কে আছেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/18/1563438456420.jpg

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মাজহারুল ইসলাম বলেন, ‘শুনেছি গতরাত থেকে ডাইভারশন দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। তবে যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় পানি উন্নয়ন বোর্ড প্রস্তুত রয়েছে।’

এদিকে অবিরাম বর্ষণ ও উজানের পাহাড়ি ঢলে শেরপুরের ৫ উপজেলার ৩৫টি ইউনিয়নের ২ শতাধিক গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এতে পানিবন্দী রয়েছে প্রায় লক্ষাধিক মানুষ। এছাড়া পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ৫২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। গত ৫ দিনে বন্যার পানিতে ডুবে ৬ জনের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।

আদালতে হাজিরা দিলেন সাবেক এম‌পি রানা

আদালতে হাজিরা দিলেন সাবেক এম‌পি রানা
সাবেক সংসদ সদস্য আমানুর রহমান খান রানা, ছবি: সংগৃহীত

আওয়ামী ল‌ীগ নেতা ফারুক আহ‌ম্মেদ হত্যা মামলায় উচ্চ আদালতে জা‌মিনে মুক্ত হওয়ার পর নিম্ন আদালতে হা‌জিরা দিয়েছেন ঘাটাইল-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য (এম‌পি) আমানুর রহমান খান রানা।

বৃহস্প‌তিবার (১৮ জুলাই) দুপুরে টাঙ্গেইলের প্রথম অতি‌রিক্ত জেলা ও দায়রা জজ রা‌শেদ কবীরের বিচা‌রিক আদাল‌তে হা‌জিরা দেন তিনি। এ সময় চি‌কিৎসক ‌মোজা‌ম্মেল হো‌সে‌নের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়। প‌রে আসামি পক্ষ থে‌কে চি‌কিৎসক‌কে জেরা করা হয়।

টাঙ্গাইল জজ কো‌র্টের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর মোহসীন শিকদার ও টাঙ্গাইল আদাল‌তের কোর্ট ইন্সপেক্টর তানভীর আহ‌ম্মেদ জানান, চি‌কিৎসক মোজা‌ম্মেল হো‌সেনের সাক্ষ্যগ্রহণ শে‌ষে আসামি পক্ষ থে‌কে তা‌কে জে‌রা করা হয়। এ নি‌য়ে মোট ১৮ জ‌ন সাক্ষির সাক্ষ্যগ্রহণ সম্পন্ন হল।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ১৮ জানুয়ারি জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ফারুক আহম্মে‌দের গুলিবিদ্ধ মরদেহ তার কলেজপাড়া এলাকার বাসার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়। ঘটনার তিনদিন পর তার স্ত্রী নাহার আহমেদ বাদী হয়ে টাঙ্গাইল সদর থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। ২০১৪ সালের আগস্টে গোয়েন্দা পুলিশের তদন্তে এই হত্যায় তৎকালীন সাংসদ আমানুর ও তার ভাইদের জাড়িত থাকার বিষয়টি বের হয়ে আসে।

২০১৬ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি তদন্ত শেষে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় গোয়েন্দা পুলিশ। এই মামলায় আমানুর ছাড়াও তার তিন ভাই টাঙ্গাইল পৌরসভার সাবেক মেয়র সহিদুর রহমান খান মুক্তি, ব্যবসায়ী নেতা জাহিদুর রহমান খান কাকন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সানিয়াত খান বাপ্পাসহ ১৪ জন আসামি রয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র