Barta24

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

বগুড়ায় বাস-ট্রাক সংঘর্ষে শ্রমিক নিহত

বগুড়ায় বাস-ট্রাক সংঘর্ষে শ্রমিক নিহত
বাস-ট্রাকের ফাইল ফটো, ছবি: বার্তা২৪
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
বগুড়া


  • Font increase
  • Font Decrease

বগুড়ার শেরপুরে বাস-ট্রাক সংঘর্ষে মহাসড়ক মেরামত কাজে নিয়োজিত এক শ্রমিক নিহত এবং অপর দুইজন আহত হয়েছেন।

সোমবার (১০ জুন) বেলা ১২টার দিকে বগুড়া-ঢাকা মহাসড়কে শেরপুর উপজেলার ছোনকা এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় নিহত ফরিদ উদ্দিন (৪৫) শাজাহানপুর উপজেলার চকভালী গ্রামের শাহাদৎ হোসেনের ছেলে।

জানা গেছে, ঢাকা থেকে নীলফামারীগামী বাস সাথী পরিবহন (ঢাকা মেট্রো ব ১৪-১১৪০) এর সঙ্গে বিপরীতমুখী ঢাকাগামী ট্রাক (বগুড়া-ট ১১-১৪৯৪) এর সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ সময় দুটি গাড়ির সামনের অংশ দুমড়ে মুচড়ে যাওয়ার পাশাপাশি মহাসড়ক মেরামত কাজে নিয়োজিত শ্রমিকদেরকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই ফরিদ উদ্দিন মারা যায়।

শেরপুর ফায়ার সার্ভিসের ষ্টেশন অফিসার রতন হোসেন বার্তা ২৪.কমকে জানান, এ ঘটনায় আহত বরাত উদ্দিন (২৫) ওমাসুদ রানাকে (২৬) বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :

চাঁদপুরের বাজারেও ড্রাগন ফল

চাঁদপুরের বাজারেও ড্রাগন ফল
হাজীগঞ্জ বাজারে ড্রাগন ফল/ ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

দেশীয় ফলের বাজারে নতুন আগমন বাহারি জাতের ড্রাগন ফলের। আষাঢ়ে বাজারে আসা এই ফল নজর কেড়েছে চাঁদপুরের ক্রেতা সাধারণের। গোলাপি রংয়ের থাইল্যান্ড ও চীনা জাতের ফলটি খেতে খুবই সুস্বাদু।

চাঁদপুরের কয়েকটি বাজারে ড্রাগন ফল বিক্রি করতে দেখা গেছে। গত বছরের তুলনায় এবার দাম বেশি। জেলার ব্যবসায়িক প্রাণকেন্দ্র হাজীগঞ্জ বাজারে দেখা যায়, প্রতি কেজি ৩০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) দুপুরে হাজীগঞ্জ বাজারের ড্রাগন ফল বিক্রেতা দিদার হোসেনের সাথে কথা হয়। দিদার হোসেন বলেন, ‘চলতি মৌসুমে দুই বার মোকাম করেছি। ড্রাগন ফলের চাহিদা আছে। তবে দাম বেশি হওয়ায় সবাই কিনতে পারেন না।‘

তিনি জানান, এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রায় ৪০০ কেজি ড্রাগন ফল হাজীগঞ্জ বাজারে বিক্রি হয়েছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/18/1563443833104.gif

বিক্রেতার সাথে কথা বলার সময় দেখা যায়, ড্রাগন ফল দেখে বিস্মিত হলেন হাজীগঞ্জ উপজেলার হাটিলা ইউনিয়নের গৃহবধূ বিথি বেগম। তার দেড় বছরের কন্যা সন্তানকে নিয়ে হাজীগঞ্জ বাজারে আসেন। তিনি ড্রাগন ফল দেখে বলেন, ‘এগুলো দেখতে সুন্দর। কখনও খাইনি। দামও বেশি। কিনার মতো টাকা নাই।’

পরে উপস্থিত দুইজন মিলে ঐ গৃহবধূকে আধা কেজি ড্রাগন ফল ক্রয় করে দেন। এতে কৌতূহল ভরা চোখে খুশি মনে তা গ্রহণ করেন ঐ গৃহবধূ।

ড্রাগন ফলের আরেক ক্রেতা খালেকুজ্জামান শামীম বলেন, ‘এক কেজি ড্রাগন ফল ক্রয় করেছি। সন্তানদের এই ফল সম্পর্কে ধারণা দেওয়া যাবে।’

ড্রাগন ফলের বিক্রেতার কাছেই পাওয়া যায় হাজীগঞ্জ থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা মো. আলমগীর হোসেন রনিকে। তিনে নিজেও এই ড্রাগন ফল খেয়েছেন বলে জানান। তিনি বলেন, ‘ড্রাগন ফল সুস্বাদু একটি ফল। এই ফল স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী।’

কুষ্টিয়ায় শিক্ষিকার শ্লীলতাহানি: অধ্যক্ষের ১০ বছর কারাদণ্ড

কুষ্টিয়ায় শিক্ষিকার শ্লীলতাহানি: অধ্যক্ষের ১০ বছর কারাদণ্ড
আদালতে হাজির হন দণ্ডপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ, ছবি: সংগৃহীত

কুষ্টিয়ায় শিক্ষিকার শ্লীলতাহানির চেষ্টার অভিযোগে সেলিম চৌধুরী নামে এক কলেজের অধ্যক্ষের ১০ বছরের কারাদণ্ডদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে জরিমানা অনাদায়ে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) দুপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক মুন্সী মো. মশিয়ার রহমান এ রায় ঘোষণা করেন। দণ্ডপ্রাপ্ত সেলিম কুষ্টিয়া বড়বাজার এলাকার মাসুদ রুমী ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ ও কুষ্টিয়া শহরের আহম্মেদ লেন আদর্শ কলেজ মোড় এলাকার চৌধুরী আব্দুল আলীর ছেলে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালের ৩০ মার্চ মাসুদ রুমী ডিগ্রি কলেজের একটি কক্ষে একই কলেজের ইসলামের ইতিহাস বিভাগের এক শিক্ষিকার শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে অধ্যক্ষ সেলিম চৌধুরী। এ ঘটনায় ওই শিক্ষিকা বাদী হয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। কুষ্টিয়া মডেল থানা পুলিশ ২০১৪ সালের ১৩ আগস্ট আদালতে চার্জশিট দাখিল করে। দীর্ঘ শুনানির পর আদালত আজ এই রায় ঘোষণা করেন।

কুষ্টিয়া জজ কোর্টের পিপি (নারী ও শিশু) আকরাম হোসেন দুলাল রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র