Barta24

বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯, ২ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

ঈদের ছুটিতে রাঙামাটিতে বেড়েছে পর্যটকদের পদচারণা

ঈদের ছুটিতে রাঙামাটিতে বেড়েছে পর্যটকদের পদচারণা
সুভলং ঝরনা দেখতে আসছেন দর্শনার্থীরা / ছবি: শাদরুল আবেদীন
আলমগীর মানিক
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
রাঙামাটি


  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশের দক্ষিণ পূর্বের সীমান্তবর্তী আয়তনে সবচেয়ে বড় জেলা রাঙামাটি। চারিদিকে সবুজের সমারোহ আর পাহাড় ঘেরা এ জেলায় রয়েছে এশিয়ার বৃহত্তম কৃত্রিম হ্রদ কাপ্তাই হ্রদ। নৈসর্গিক সৌন্দর্যের অনুপম আধাঁরের রাঙামাটি জেলা তার বৈচিত্রময়তার কারণে আকর্ষণীয় স্থান হিসেবে পর্যটকদের মনে স্থান করে নিয়েছে। তাই কাপ্তাই হ্রদ ও পাহাড়ের নৈসর্গিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে ঈদের ছুটিতে দেশি-বিদেশি অনেক পর্যটক এখন রাঙামাটিতে। অনেকেই তাদের পরিবার-পরিজন নিয়ে ঘুরতে এসেছে এই পর্যটন শহরে।

প্রতিদিন গড়ে কয়েক হাজার পর্যটক বর্তমানে রাঙামাটিতে প্রবেশ করছেন বলে নিরাপত্তা চেকপোস্টগুলো থেকে প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/07/1559880906383.jpg
পলওয়েল পার্ক, ছবি: বার্তা২৪

 

এদিকে, পর্যটকদের আগমন উপলক্ষে হোটলে-মোটেলগুলো সাজানো হয়েছে নব সাজে। তবে ভালো মানের হোটেলে সিট না পেয়ে অনেকে বিভিন্ন ধরনের হোটেলে রাত কাটাচ্ছেন।

ঈদের ছুটিতে পাহাড়ি এ জেলায় আগত পর্যটকদের কাছে পর্যটন কমপ্লেক্সের দিকেই আকর্ষণ বেশি। তবে দর্শনার্থীরা বেশি ভিড় জমাচ্ছেন দুই পাহাড়ের মাঝখানের ঝুলন্ত সেতুতে। এরপরই পর্যটকদের আগ্রহ বেশি মনোমুগ্ধকর ঝরনা, জেলা পুলিশের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত পলওয়েল পার্ক, জেলা প্রশাসকের বাংলো, বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফের সমাধি সৌধ, বালুখালী কৃষি খামার, কাপ্তাই জলবিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র, কর্ণফুলী পেপার মিল ও কাপ্তাই জাতীয় উদ্যানের দিকে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/07/1559880936033.jpg
দু’পাহাড়ের মাঝখানে ঝুলন্ত সেতু, বার্তা২৪

 

ইতোমধ্যে কাপ্তাই লেকে পর্যটকদের আকর্ষণ বাড়াতে বিভিন্ন পর্যটন স্পট তৈরি করা হয়েছে। এর মধ্যে পেদা টিং টিং, গাং সাবারাং, মেজাং, সুভলং ঝরনা, সুবলং বাজার, মারমেট, চাং পাংসহ অন্যতম।

স্পিড বোট ও দেশীয় নৌ-যান নিয়ে কাপ্তাই হ্রদে ভ্রমণ করে সৌন্দর্য উপভোগ করছেন তারা। তবে অপার সম্ভাবনাময় রাঙামাটির বর্তমান পর্যটন স্পটগুলো নিয়ে কিছুটা আশাহত দর্শনার্থীরা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/07/1559880959620.jpg
পাহাড় থেকে রাঙামাটি লেক, ছবি: বার্তা২৪

 

আগত একাধিক পর্যটক জানালেন, রাঙামাটিতে আরও অনেক কিছু করার যথেষ্ট সুযোগ থাকলেও বান্দরবান-খাগড়াছড়ির তুলনায় রাঙামাটির পর্যটন সেক্টর সেভাবে উন্নয়ন হয়নি।

এ বিষয়ে রাঙামাটি পর্যটন করপোরেশনের ম্যানেজার সৃজন বিকাশ বড়ুয়া বার্তা২৪.কমকে জানিয়েছেন, ঈদের ছুটিতে থেকে রাঙামাটিতে বিপুল সংখ্যক পর্যটক বেড়াতে এসেছেন। করপোরেশনের সবগুলো রুম বুকিং থাকায় আগত পর্যটকদের অনেকেই অন্যত্র থাকতে হচ্ছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/07/1559881163017.jpg
পলওয়েল পার্কের লেক পাড়ে বিশ্রাম নিচ্ছেন দর্শনার্থীরা, ছবি: বার্তা২৪

 

এদিকে রাঙামাটিতে আগত পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে রাঙামাটির জেলা পুলিশের পাশাপাশি টুরিস্ট পুলিশের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা। ঝুলন্ত ব্রিজের ঘাটে একটি হেল্প ডেস্ক খোলা হয়েছে জানিয়ে টুরিস্ট পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) জহিরুল ইসলাম বার্তা২৪.কমকে জানান, পর্যটকদের কোনো প্রকার ঝামেলায় পড়লে বা সহযোগিতার প্রয়োজন হলে হেল্প ডেস্কের মাধ্যমে তাৎক্ষণিক সহযোগিতা নিতে পারবেন।

সুবলং ঝরনায় যাওয়ার পথেই হ্রদের লাগোয়া দ্বীপে অবস্থিত জুম রেস্তোরার পরিচালক সুনয়ন ত্রিপুরা দীপু বার্তা২৪.কমকে জানান, ঈদের পরদিন থেকে পর্যটকরা আসতে শুরু করেছে। এতে করে তাদের আয়ও বেড়েছে কিছুটা। কিন্তু হ্রদের পানি কম থাকায় পর্যটকরা ভালোভাবে নৌ ভ্রমণ করতে পারছেন না।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/07/1559881338533.jpg
গোধূলি বেলায় ট্রলারে ভ্রমণ করছেন পর্যটকরা, ছবি: বার্তা২৪

 

রাঙামাটি পর্যটন কমপ্লেক্সের নৌযান ঘাট সূত্রে জানা গেছে, কাপ্তাই লেকে ভ্রমণের জন্য দেড় হাজারের বেশি নৌ-যান রয়েছে। এর মধ্যে শুধু রাঙামাটি পর্যটন কমপ্লেক্সের নৌ-যান ঘাটে দুই শতাধিক নৌযান রয়েছে। এ ছাড়া শহরের রিজার্ভ বাজার, রাজবাড়ি ঘাট, শিল্পকলা ঘাট, সমতা ঘাট ও ফিশারি ঘাট থেকেও পর্যটকদের জন্য নৌযান ভাড়া দেওয়া হয়। তবে সম্প্রতি কাপ্তাই লেকে পানি কমে যাওয়ায় নৌ-চলাচল বেশ সীমিত হয়ে যায়। এতে পর্যটকের সংখ্যাও কমে যাবে বলে পর্যটন ব্যবসায়ের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের ধারণা। তবে ছুটিকালীন সময়ে ভালোভাবে বৃষ্টি হলে লেকের পানি বেড়ে গেলে পর্যটকদের ভ্রমণের সুবিধা বাড়তে পারে।

২০১৭ সালে রাঙামাটিতে ভয়াবহ পাহাড়ধসের পর পর্যটকের সংখ্যা কমে যায়। তবে গত বছরে ঈদ ও পূজার ছুটিতে পর্যটকের সংখ্যা বেড়ে যায়। পর্যটকদের আকর্ষণ কাপ্তাই লেকে পানি সংকট সৃষ্টি হওয়ায় লঞ্চ, ট্রলার ও নৌকা চলাচল সীমিত হয়। এ কারণে টানা ছুটিতে রাঙামাটিতে পর্যটকের আগমন নিয়ে নানা আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/07/1559881509577.jpg
পলওয়েল পার্কে ঘুরছেন দর্শনার্থীরা, ছবি: বার্তা২৪ 

 

এ বিষয়ে পর্যটক কমপ্লেক্স নৌঘাটের নৌযান সমিতির সভাপতি মো. রমজান আলী বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘আমরা খুবই চিন্তায় রয়েছি। নৌযান চলাচলে জন্য তেমন পানি নেই। পানি না থাকলে লেকের ভ্রমণেও তেমন আকর্ষণ থাকে না। তবে আশা করছি দু’য়েকদিনের মধ্যে বৃষ্টি হলে লেকের পানি বেড়ে যাবে। তখন পর্যটনের জন্যও সুবিধা হবে।’

রাঙামাটি হোটেল-মোটেল মালিক সমিতির সভাপতি মো. মঈন উদ্দিন বার্তা২৪.কমকে সেলিম বলেন, ‘অন্যান্য বছরের তুলনায় এবারের ঈদের টানা ছুটিতে হোটেল-মোটেলগুলোতে আগাম বুকিং বেশি হয়নি। এখন পর্যন্ত মাত্র ৫০ শতাংশ বুকিং হয়েছে। আমরা আশা করছি দু’য়েক দিন থেকে কমপক্ষে ৭০-৮০ শতাংশ কক্ষ বুকিং হবে। যেহেতু ঈদের ছুটির পর সরকারি ছুটি রয়েছে, তাই পর্যটক আরও আসবে।’

আপনার মতামত লিখুন :

গৌরীপুরে ছাত্রলীগের কমিটি বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন

গৌরীপুরে ছাত্রলীগের কমিটি বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর

ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলা ও পৌরশাখা ছাত্রলীগের সদ্য ঘোষিত কমিটি বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন করা হয়েছে। বুধবার (১৭ জুলাই) বিকালে পৌর শহরের কৃষ্ণচূড়া চত্বরে ঘণ্টাব্যাপী এই কর্মসূচি পালন করেন সদ্য সাবেক কমিটির নেতাকর্মীরা।

মানববন্ধনে বক্তব্য দেন উপজেলা ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সভাপতি মিজানুর রহমান, সাবেক সহ-সভাপতি নাজিমুল ইসলাম শুভ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এসএম জিল্লুর রহমান, পৌর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি উত্তম সরকার, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আহাদ রিগান, গৌরীপুর সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ওয়াসিকুল ইসলাম রবিন, সহনাটী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি এস আলামিন পিন্টু, রামগোপালপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মুনসুর, গৌরীপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ফারুক আহমেদ, অচিন্তপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মো. জুয়েল রানা প্রমুখ।

বক্তরা বলেন, গঠনতন্ত্র অমান্য করে বয়ষোর্ধ্ব, বিবাহিত, ইউনিয়নের বাসিন্দাকে পৌর কমিটিতে অর্ন্তভুক্ত করা হয়েছে। এছাড়া হত্যা মামলার আসামি দিয়ে ছাত্রলীগের উপজেলা ও পৌর শাখার দু’টি কমিটি গঠন করা হয়েছে। অচিরেই এই দুই কমিটি বাতিল না করলে কঠোর আন্দোলনের কর্মসূচি দেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, গত ৯ জুলাই গৌরীপুর উপজেলা শাখা ছাত্রলীগের নতুন কমিটিতে সভাপতি পদে আল মুক্তাদির ও সাধারণ সম্পাদক পদে ইমতিয়াজ সুলতান জনি এবং পৌরশাখা ছাত্রলীগের নতুন কমিটিতে সভাপতি পদে আল হোসাইন ও সাধারণ সম্পাদক পদে মোফাজ্জল হোসেনকে মনোনীত করে কমিটি ঘোষণা করে জেলা ছাত্রলীগ। তারপর থেকেই কমিটিকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে কেন্দ্রীয় নেতাদের প্রতি কমিটি বাতিলের দাবি জানিয়ে আসছে সদ্য সাবেক হওয়া নেতাকর্মীরা।

আরও পড়ুন: গৌরীপুরে ছাত্রলীগের কমিটি বাতিলের দাবিতে একাংশের অবস্থান

সম্পত্তির দাবিতে আদিবাসীদের অবস্থান কর্মসূচী

সম্পত্তির দাবিতে আদিবাসীদের অবস্থান কর্মসূচী
রংপুরে অবস্থান কর্মসূচী পালন করেছে আদিবাসীরা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম এর রিকুইজিশন করা এক হাজার ৮৫০ একর সম্পত্তি আদিবাসীদের ফেরত দেয়া সহ ৭ দফা দাবিতে রংপুরে অবস্থান কর্মসূচী পালন করেছে আদিবাসীরা।

বুধবার (১৭ জুলাই) দুপুরে বাংলাদেশ পুলিশের রংপুর রেঞ্জ ডিআইজি কার্যালয়ের সামনে এই অবস্থান কর্মসূচী পালিত হয়। এ সময় দোষীদের দ্রুত বিচারের দাবিতে ডিআইজিকে স্মারকলিপিও দেন তারা।

সাহেবগঞ্জ-বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটির আয়োজনে অবস্থান কর্মসূচীতে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, 'প্রায় ৩ বছর ধরে পিবিআই মামলার তদন্ত করলেও এখনও চার্জশিট প্রদান করেনি। দ্রুত আদিবাসী সাঁওতাল হত্যা, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় সুষ্ঠু ও দ্রুত তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দাবি জানান তারা।

অবস্থান কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন, সাহেবগঞ্জ- বাগদাফার্ম ভূমি উদ্ধার সংগ্রাম কমিটির আহবায়ক ফিলিমন বাসফে, আদিবাসী নেতা রাফায়েল হাসদা, আদিবাসী-বাঙালী সংহতি পরিষদের আহবায়ক অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম বাবু প্রমুখ।

২০১৬ সালে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ বাগদাফার্মে বসবাসরত আদিবাসীদের ওপর উচ্ছেদের নামে হামলা চালায় প্রশাসন ও প্রভাবশালীরা। হামলার ঘটনায় তিন আদিবাসী সহ অনেকে গুরুতর আহত হয়েছিলেন। 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র