Alexa

সঙ্গীত গুরু খালিদ হোসেনের দাফন সম্পন্ন

সঙ্গীত গুরু খালিদ হোসেনের দাফন সম্পন্ন

সঙ্গীত গুরু খালিদ হোসেনের নামাজে জানাজা, ছবি: বার্তা২৪.কম

একুশে পদকপ্রাপ্ত নজরুল সঙ্গীতের বরেণ্য শিল্পী, গবেষক, স্বরলিপিকার ও সঙ্গীত গুরু খালিদ হোসেনের দাফন সম্পন্ন হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) রাত ১০টা কুষ্টিয়া পৌর গোরস্থানে তৃতীয় নামাজে জানাজা শেষে তার দাফন সম্পন্ন হয়।

জানাজা নামাজে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং স্থানীয় সাংসদ মাহবুব আলম হানিফের প্রতিনিধি আতাউর রহমান আতা, কুষ্টিয়া জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শাহিন সরকারসহ সাংস্কৃতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ এতে অংশ নেয়।

বুধবার ১০টা ১৫ মিনিটে রাজধানীর জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) তিনি ইন্তেকাল করেন।

খালিদ হোসেনের বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর। বেশ কয়েক বছর ধরে তিনি হৃদরোগে ভুগছিলেন।

খালিদ হোসেনের জন্ম ১৯৩৫ সালের ৪ ডিসেম্বর ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কৃষ্ণনগরে। দেশ ভাগের পর মা-বাবার সঙ্গে তিনি চলে আসেন কুষ্টিয়ার কোর্টপাড়ায়। ১৯৬৪ সাল থেকে তিনি স্থায়ীভাবে ঢাকায় ছিলেন।
নজরুলসঙ্গীতের শিক্ষকতার সাথে জড়িত ছিলেন দীর্ঘ দিন। দেশে ও বিদেশে রয়েছে তার অসংখ্য ছাত্রছাত্রী। তিনি একুশে পদক পেয়েছেন ২০০০ সালে।

এ ছাড়া পেয়েছেন নজরুল একাডেমি পদক, শিল্পকলা একাডেমি পদক, কলকাতা থেকে চুরুলিয়া পদকসহ অসংখ্য সম্মাননা। খালিদ হোসেনের গাওয়া নজরুলসঙ্গীতের ছয়টি অ্যালবাম প্রকাশিত হয়েছে। আরও আছে একটি আধুনিক গানের অ্যালবাম ও ইসলামি গানের ১২টি অ্যালবাম।

খালিদ হোসেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় কবি কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় এবং দেশের সব মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড ও বাংলাদেশ টেক্সট বুক বোর্ডে সঙ্গীত নিয়ে প্রশিক্ষক ও নিরীক্ষকের দায়িত্ব পালন করেছেন।

আপনার মতামত লিখুন :