Barta24

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

বান্দরবানে গোলা বিস্ফোরণে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২, আহত ১০

বান্দরবানে গোলা বিস্ফোরণে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২, আহত ১০
বান্দরবানে সেনাবাহিনীর প্রশিক্ষণ অঞ্চলে গোলা বিস্ফোরণে আহত সেনা সদস্যদের হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে, ছবি: বার্তা২৪.কম
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
বান্দরবান


  • Font increase
  • Font Decrease

বান্দরবানের হলুদিয়ায় সেনাবাহিনীর প্রশিক্ষণ রেঞ্জে পরিত্যক্ত গোলা বিস্ফোরণে নিহতের সংখ্যা বেড়ে দুইজনে দাড়িয়েছে। এ ঘটনায় আরও ১০ সেনাবাহিনী সদস্য আহত হয়েছেন। শুক্রবার (১৭ মে) দুপুরে  এই দুর্ঘটনা ঘটে।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও স্থানীয়রা জানায়, বান্দরবান সদর উপজেলার সূয়ালক ইউনিয়নের হলুদিয়ায় সেনাবাহিনীর ফায়ারিং রেঞ্জে (প্রশিক্ষণ এলাকায়) প্রশিক্ষণের সময় নিক্ষেপ করা অবিস্ফোরিত পরিত্যক্ত একটি গোলা বিস্ফোরিত হয়। এতে দুই সেনা সদস্য মারা যায়। এদের মধ্যে জাহেদুল ইসলাম (২৯) বিস্ফোরণের পর ঘটনাস্থলে এবং নিপুন চাকমা (২৮) হেলিকপ্টারে চট্টগ্রামে নেয়ার পথে মারা যায়।

নিহত সৈনিকেরা কুমিল্লা ১৬ প্যারা ব্যাটেলিয়ানের সদস্য।   

এ ঘটনায় সেনাবাহিনীর আরও ১০ জন সদস্য আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে পাঁচজনের নাম পাওয়া গেছে। তারা হলেন সেনা সদস্য মোস্তাফিজ, রাজু, হাসান, আরিফ এবং তারিকুল। অন্যদের নাম পাওয়া যায়নি।

খবর পেয়ে সেনাবাহিনীর সদস্যরা বিস্ফোরণে হতাহতদের উদ্ধার করে চট্টগ্রামের বায়তুল ইজ্জত বর্ডার গার্ড বিজিবি হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রামের সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নেয়া হয়।

এদিকে ঘটনাস্থলে নিহত সৈনিকের মরদেহ বান্দরবান সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ব্যাটেলিয়ান কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোস্তাফিজুর রহমান।

সেনাবাহিনীর ৬৯ রিজিয়নের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা জানান, কয়েকদিনের মধ্যে ফায়ারিং রেঞ্জে সেনাবাহিনীর নতুনভাবে প্রশিক্ষণ শুরুর কথা রয়েছে। প্রশিক্ষণের জন্য সংরক্ষিত ফায়ারিং অঞ্চলের ঝাড়-জঙ্গল এবং আগাছা পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার কাজ করছিলেন সেনাবাহিনীর সদস্যরা।

এ সময় পূর্বে প্রশিক্ষণ চলাকালে নিক্ষেপ করা পরিত্যক্ত অবিস্ফোরিত একটি গোলা বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয়ে দুই  সেনা সদস্য মারা গেছেন। এ ঘটনায় আরও ১০ জন সেনা সদস্য আহত হন।

এ বিষয়ে পুলিশ সুপার জাকির হোসেন মজুমদার বলেন, হলুদিয়ায় সেনবাহিনীর প্রশিক্ষণ এলাকায় পরিত্যক্ত গোলা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এতে দুই সেনা সদস্য মারা গেছেন। আরও বেশকয়েকজন সেনা সদস্য আহত হয়েছে। হতাহতদের উদ্ধার করে চট্টগ্রামের সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

 

আপনার মতামত লিখুন :

বিষ দিয়ে ফিশারি পুকুরের মাছ নিধনের অভিযোগ

বিষ দিয়ে ফিশারি পুকুরের মাছ নিধনের অভিযোগ
বিষ দিয়ে মেরে ফেলা হয় মাছ, ছবি: বার্তা২৪

নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় ফিশারি পুকুরে বিষ দিয়ে মাছ নিধনের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মাথায় হাত পড়েছে ক্ষতিগ্রস্ত ফিশারি মালিক আনিছুর রহমানের।

খবর পেয়ে বুধবার (২৬ জুন) দুপুরে নেত্রকোনার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (কেন্দুয়া সার্কেল) মাহমুদুল হাসান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

এর আগে মঙ্গলবার (২৫ জুন) রাতের যেকোনো সময় উপজেলার নওপাড়া ইউনিয়নের দুর্গাপুর গ্রামের ওই পুকুরটিতে বিষ দিয়ে মাছ নিধন করে দুর্বৃত্তরা।

পুকুরের মালিক আনিছুর রহমান বলেন, ৪০ শতক পুকুরে কৈ মাছের চাষ করেছিলাম। অল্প দিনের মধ্যেই মাছগুলো বিক্রি করার উপযোগী হতো। কিন্তু বুধবার (২৬ জুন) ভোর বেলায় পুকুর পাড়ে গিয়ে দেখি মাছগুলো মরে ভেসে উঠছে। রাতের আঁধারে দুর্বৃত্তরা বিষ জাতীয় কিছু দিয়ে মাছগুলো মেরে ফেলেছে। এতে আমার ৭/৮ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ করবেন বলেও তিনি জানান।

নেত্রকোনার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (কেন্দুয়া সার্কেল) মাহমুদুল হাসান জানান, ঘটনাটি দুঃখজনক। থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নৈশ প্রহরী হত্যা মামলায় গ্রেফতার ২

নৈশ প্রহরী হত্যা মামলায় গ্রেফতার ২
আটক দুই আসামি, ছবি: সংগৃহীত

নড়াইল হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজের নৈশ প্রহরী ও মোটরসাইকেল চালক আ. মান্নানকে (৫০) কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িত দুই আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বুধবার (২৬ জুন) পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিং এ তথ্য জানান পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন। এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল সদর) মোঃ শরফুদ্দিনসহ কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

তবে গ্রেফতারকৃতদের সঙ্গে গণমাধ্যমকর্মীদের এসময় কথা বলতে দেওয়া হয়নি। পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন জানান, গত ৯ জুন রোববার রাত সাড়ে ১১টার দিকে নড়াইল হোমিও প্যাথিক মেডিকেল কলেজের নৈশ প্রহরী আঃ মান্নান মোটরসাইকেলে ২জন যাত্রী নিয়ে গোবরা থেকে ১০০ টাকায় ভাড়ায় রূপগঞ্জ বাজারে উদ্দেশ্যে আসেন।

নড়াইল শহরের এসএম সুলতান সেতু এলাকার জোড়া পাম্প (পিষণ ও সরদার ফিলিং ষ্টেশন) সংলগ্ন টিপু সুলতানের বাড়ির কাছে আসলে যাত্রীবেশী যশোরের বেজপাড়া এলাকার ঝন্টু শেখের ছেলে মোঃ বিপ্লব শেখ(১৯) ও যশোরের রামনগর মোল্যা পাড়ার আব্দুল জব্বারের পুত্র মো. নাঈম ইসলাম নাঈম (২০) মোটরসাইকেল কেড়ে নেয়ার জন্য মান্নানকে চাকু দিয়ে বেপরোয়াভাবে কুপিয়ে হত্যা করে।

সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হরিদাস রায় বলেন, বুধবার দুপুরে গ্রেফতারকৃতদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র