Barta24

মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬

English

অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ১৩ লাখ টাকা ছিনতাই, আটক ২

অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ১৩ লাখ টাকা ছিনতাই, আটক ২
আটককৃত দুই দুর্বৃত্ত, ছবি: সংগৃহীত
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
হবিগঞ্জ
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে পারকুল বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রের শ্রমিকদের বেতন দেয়ার সময় অফিসে প্রবেশ করে প্রায় ১৩ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় পুলিশ দুই ছিনতাইকারীকে আটক করে। পরে তাদের কাছ থেকে সাড়ে ৭ লাখ টাকা উদ্ধার করলেও বাকি টাকা উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

বুধবার (১৫ মে) সন্ধ্যায় নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের পারকুল গ্রামে বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার বিকেলে কোম্পানীর শ্রমিকদের বেতন প্রদান করছিলো ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বেঙ্গল ইলেক্টিক লিঃ। এ সময় একই এলাকার সহিদ মিয়া ও সাজু মিয়াসহ ১০/১২ জন দুর্বৃত্ত অফিসের ভেতর প্রবেশ করে কর্মকর্তাদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে নেয়।

পরে তারা নগদ ১২ লাখ ২৬ হাজার লাখ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে বিষয়টি শুনে ছিনতাইকারীদের গ্রেফতারে অভিযান চালিয়ে রাত ৮টার দিকে পুলিশ সহিদ মিয়া ও সাজু মিয়াকে আটক করে। এ সময় তাদের কাছ থেকে ৭ লাখ ৫৬ হাজার টাকা উদ্ধার করলেও বাকি টাকাগুলো উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

বেঙ্গল ইলেক্টিক লিঃ কোম্পানির প্রতিনিধি ইমন আহমেদ বলেন- ‘আমাদের কোম্পানিতে প্রায় ৭শ’ শ্রমিক কাজ করেন। তাদের বেতনের ১২ লাখ ২৬ হাজার টাকা ছিনতাই হয়। পরে পুলিশ দুইজনকে গ্রেফতার করে তাদেও কাছ থেকে ৭ লাখ ৫৬ হাজার টাকা উদ্ধার করে। বর্তমানে ওই টাকাগুলো নবীগঞ্জ থানার জিম্মায় রয়েছে।’

এই ব্যপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তৌহিদ বিন হাসান বলেন, ‘একদল লোক পাওয়ার প্ল্যান্টের কাজে নিয়োজিত একটি কোম্পানির টাকা ছিনতাই করে। পরে পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে ২ জনকে আটক করেছে।’

নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল হোসেন জানান, পুলিশ দুই ছিনতাইকারীকে আটক করেছে। এ সময় তাদের কাছ থেকে ৭ লাখ ৫৬ হাজার উদ্ধার করেছে। ঘটনার সাথে জড়িত বাকি দুর্বৃত্তদের আটক ও বাকি টাকা উদ্ধার করতে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :

হজে গিয়ে নিখোঁজ সুরুতুন নেছা

হজে গিয়ে নিখোঁজ সুরুতুন নেছা
নিখোঁজ সুরুতুন নেছা (বামে) ছবি: সংগৃহীত

সৌদি আরবে পবিত্র হজ পালনে গিয়ে ৯দিন ধরে নিখোঁজ রয়েছেন মোছা. সুরুতুন নেছা (৬০)।

তিনি সুনামগঞ্জ জেলার জামালগঞ্জ উপজেলার দূর্লভপুর গ্রামের মো. রজব আলীর স্ত্রী। স্বামী-স্ত্রী একসঙ্গে হজে যান। কিন্তু স্বামী মো. রজব আলী সুরুতুন নেছাকে হারিয়ে ফেলেন। এদিকে পরিবারের সদস্যরা কোনো খোঁজ না পেয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েছেন।

সুরুতুন নেছার ছেলে ইয়াকবির আফিন্দী বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, গত ১১আগস্ট থেকে সুরুতুন নেছা নিখোঁজ রয়েছেন। সুরুতুন নেছা বাংলাদেশ থেকে সিলেটের শাহপরান ট্রাভেল এজেন্সির মাধ্যমে গত ২৮ জুলাই জেদ্দা এয়ার লাইন্সে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর থেকে পবিত্র হজ পালনের জন্য সৌদি আরবে যান।

তিনি আরো জানান, গত ১১ আগস্ট রাতে সৌদি আরবের মিনায় তার স্বামী রজব আলী পাথর মারতে যাওয়ার সময় সুরুতুন নেছাকে তাবুতে বসিয়ে রেখে যান। পাথর মারা শেষ করে তাবুতে ফিরে এসে স্বামী তার স্ত্রী সুরুতুন নেছাকে আর খুঁজে পাননি।

সিলেটের শাহপরান ট্রাভেল এজেন্সির পরিচালক মোহাম্মদ যুবায়ের বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, নিখোঁজ নারী সুরুতুন নেছাকে পাওয়ার জন্য আমরা সব জায়গায় লোক পাঠিয়েছি। এর মধ্যে বাংলাদেশ ও সৌদি আরবের হজ ট্রাভেলসকে জানায়। তারাও তাদের মাধ্যমে সব জায়গায় যোগাযোগ করছে। আমাদের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

বরগুনায় পানিবন্দি ৪০ পরিবারের ২০০ মানুষ

বরগুনায় পানিবন্দি ৪০ পরিবারের ২০০ মানুষ
সদর উপজেলার অনিন্দিতা আশ্রয়ণ, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বরগুনার সদর উপজেলার অনিন্দিতা আশ্রয়ণের ৪০টি পরিবারের পানিবন্দি হয়ে আছে। পায়রা নদীর বেড়িবাঁধ অবৈধভাবে কেটে ফেলার ফলে ২০০ মানুষ পানিবন্দি হয়ে আছেন।

সোমবার (১৯ আগস্ট) বিকেলে সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার বুড়িরচর ইউনিয়নের পূর্ব বুড়িরচর পায়রা নদী পাড়ের বেড়িবাঁধের উপরে সিইআইপি-০১ প্রকল্পের আওতায় চায়না ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সিকো স্লুইজ নির্মানে চার'শ ফুট বেড়িবাঁধ কেটে ফেলে। এতে বেড়িবাঁধ সংলগ্ন অনিন্দিতা আশ্রয়ণ প্রকল্পে জোয়ারের পানিতে ৪০টি পরিবারের প্রায় ২০০ মানুষ প্রতিনিয়ত জোয়ারের পানিতে পানিবন্দি হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। আশ্রয়ণ সংলগ্ন বাঁধ না থাকায় পায়রা নদীর জোয়ারের পানিতে আশ্রয়ণের ঘরগুলো মেঝে পর্যন্ত তলিয়ে যায়। এ অবস্থায় শিশুসহ নারী পুরুষ সবাই পানিবন্দি হয়ে আছেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566251953023.jpg

 

এদিকে বেড়িবাঁধ কেটে মাটি দ্বারা স্লুইজের পাশের প্রাচীর ভরাট দিয়েছেন চায়না ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সিকো যার কারণে জোয়ারের পানি নদীতে যেতে পারে না।

আশ্রয়ণের বাসিন্দা কহিনুর বেগম জানান, পায়রা নদীর পানিতে আমরা ভাসছি। ছোট বাচ্চাদের কোলে নিয়ে দাঁড়িয়ে রাত কাটাই। ঘরে পানি ওঠায় বসার জায়গাটুকু পর্যন্ত থাকেনা। বাথরুম, পাকঘর পানিতে তলিয়ে যায়। হাঁস, মুরগী, গরু, ছাগল কোথায় রাখবো? আশ্রয়ণের চারদিকে শুধু পানি। আমরা গরীব, তাই আমাদের দুঃখ দুর্দশা কারও চোখে পড়েনা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566251980438.jpg

 

অনিন্দিতা আশ্রয়ণ প্রকল্পের সভাপতি সেলিম মিয়া বলেন, চায়নার সিকো কোম্পানি আশ্রয়ণ সংলগ্ন বেড়িবাঁধ কেটে ফেলায় জোয়ারের পানিতে আশ্রয়ণ সম্পূর্ণ তলিয়ে যায়। আমরা সমবায় সমিতি লি: এর আওতায় সকল সদস্যরা চাঁদা তুলে আশ্রয়ণের একটি পুকুরে মাছের চাষ করি। সেই পুকুরের সব মাছ জোয়ারের পানিতে ভাসিয়ে নিয়ে গেছে। টয়লেট অকেজো, মহিলারা টয়লেটে যেতে পারছেনা। প্রতি জোয়ারে পাকঘর পানিতে তলিয়ে গেলে রান্না বন্ধ হয়ে যায়। কি খেয়ে আমরা বাঁচবো?

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566252003369.jpg

 

এ বিষয়ে সিইআইপি-০১ প্রকল্পের সিএসই গিয়াস উদ্দিন জানান, বিষয়টি আমার কাছে জানানোর পরে ঘটনাস্থলে আমাদের প্রতিনিধি পাঠানো হয়েছে। দ্রুত এ সমস্যার সমাধান করা হবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566252024488.jpg

 

এ বিষয়ে বরগুনার জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ বলেন, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও পানি উন্নয়ন বোর্ডকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে, ওখানের জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে সেটি নিরসন করবে। খুব দ্রুত আশ্রয়ণ প্রকল্পের সকল পরিবার সুন্দর পরিবেশে থাকতে পারবে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র