Barta24

বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

English

সাভারে বকেয়া বেতনের দাবিতে শ্রমিকদের বিক্ষোভ

সাভারে বকেয়া বেতনের দাবিতে শ্রমিকদের বিক্ষোভ
বেতনের দাবিতে শ্রমিকদের বিক্ষোভ, ছবি: বার্তা২৪
উপজেলা করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা (সাভার)


  • Font increase
  • Font Decrease

সাভারের আশুলিয়ায় বকেয়া বেতনের দাবিতে দ্বিতীয় দিনের মতো সেঞ্চুরি ডিজাইন এন্ড ফ্যাশন কারখানায় কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ করেছে শ্রমিকরা। দাবি না মানায় কারখানার এক কর্মকর্তাকে রাত ৮টা পর্যন্ত অবরুদ্ধ করে রাখে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা।

বুধবার (১৫ মে) সকালে সাভারের কলমা এলাকায় সেঞ্চুরি ডিজাইন এন্ড ফ্যাশন কারখানায় দ্বিতীয় দিনের মতো বকেয়া ৫ মাসের বেতনের দাবিতে কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ শুরু করে শ্রমিকরা। দিন শেষে বকেয়া বেতন পরিশোধ না করায় রাত ৮টা পর্যন্ত কর্মসূচি অব্যাহত রেখে কারখানার কর্মকর্তা সৈয়দ সাজ্জাদ হোসেনকে অবরুদ্ধ করে রাখেন শ্রমিকরা।

বার্তা২৪

কারখানাটির শ্রমিক মেকানিক্স আব্দুস সাত্তার বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে মালিকপক্ষ আমাদের বেতন পরিশোধ করবে বলে একাধিকবার সময় নিয়েও বেতন পরিশোধ করেনি। আমরা এই কারখানা ছেড়ে অন্যত্র চলে যেতে চাইলে মালিকপক্ষ আমাদের ২ মাসের বেতন কেটে রাখার হুমকি দেয়। এখন পাঁচ মাস ধরে বেতন না পেয়ে আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। বেতন পাওয়ার আশায় আমরা ইতোমধ্যে বিভিন্ন জায়গা থেকে ধার দেনা করে খেয়ে বসে আছি। ঈদের আগে সব দেনা পরিশোধ করে দেয়ার জন্য পাওনাদারদেরকে সময় দিয়েছি। কিন্তু মালিকপক্ষ আমাদের বেতন পরিশোধ না করে বিভিন্নভাবে তালবাহানা করে যাচ্ছে। এরই মধ্যে গত দুইদিন আগে মালিকপক্ষ ১৮০ টি মেশিন বিক্রি করে দিয়েছে। যে কোনো মুহূর্তে তারা কারখানা বন্ধ করে পালিয়ে যেতে পারে। তাই বাধ্য হয়ে আমরা বেতন আদায়ের জন্য কারখানায় অবস্থান নিয়েছি।’

কারখানার মার্চেন্ডাইজার সৈয়দ সাজ্জাদ হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘সামনে আমাদের একটি শিপমেন্ট রয়েছে। এ শিপমেন্ট হয়ে গেলে আমরা শ্রমিকদের বেতন পরিশোধ করতে পারব। এছাড়াও শ্রমিকদের বেতন পরিশোধের বিকল্প পদ্ধতি হিসেবে আমরা ব্যাংক থেকে লোণ নেয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। খুব শিগগিরি কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে শ্রমিকদের বকেয়া বেতন পরিশোধ করা হবে।’

আশুলিয়া শিল্প-পুলিশের পরিচালক সানা সামিনুর রহমান মালিক পক্ষের বরাত দিয়ে বার্তা২৪.কমকে বলেন, আগামী রোববারের মধ্যে শ্রমিকরা তাদের পাওনা টাকা পাবে বলে জানিয়েছে মালিক পক্ষ।

আপনার মতামত লিখুন :

স্বচ্ছ নির্বাচনে উদাহরণ তৈরি করল পোশাক শ্রমিকরা

স্বচ্ছ নির্বাচনে উদাহরণ তৈরি করল পোশাক শ্রমিকরা
ভোট দিচ্ছেন পোশাক শ্রমিকরা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

গাজীপুর থেকে: কারখানায় উৎপাদন চলছে পুরোদমে। সুইং মেশিনে সেলাই হচ্ছে নামী ব্র্যান্ডের পোশাক। আবার একইসঙ্গে চলছে ভোট উৎসব।

বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) সরেজমিনে এমন দৃশ্যই দেখা গেল গাজীপুরে চন্দ্রায় ইন্টারস্টফ এ্যাপারেলস লিমিটেড নামে তৈরি পোশাক কারখানায়।  

নিরাপত্তার নামে নেই কোনো কড়াকড়ি। কিংবা কাউকে ভোট দেবার বিষয়ে চাপাচাপিও নেই। চারপাশে কর্মমুখর পরিবেশ। শ্রমিকরা যাচ্ছেন পোলিং কেন্দ্রে। স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সে নিজের ভোট দিচ্ছেন। আবার ফিরে এসে নিজের কাজে যোগ দিচ্ছেন। সব মিলিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/22/1566460238260.jpg
কর্মকর্তারা নজরদারি করছেন

 

পার্টিসিপেশন কমিটি (পিসি) নামে পরিচিত শ্রমিক ও মালিক অংশগ্রহণকারী প্রতিনিধি নির্বাচন ঘিরে শ্রমিকদের চোখে মুখে নতুন দিনের সোনালী স্বপ্ন।

রোজিনা খাতুন নামে এক অপারেটর জানান, আমাগো ইলেকশন থাইকা সবার অনেক কিছু শেখার আছে। এ ইলেকশনে স্যাররা (কর্মকর্তারা) যেভাবে নজরদারি করছেন ভোট শেষ হইলে পরে কেউ কারচুপির অভিযোগ করতে পারে না।

নির্বাচন নিয়ে কথা হয় নির্বাচন কমিশনার ও কারখানার জেনারেল ম্যানেজার আমজাদ হোসেনের সঙ্গে।

তিনি জানান, ৪ হাজার ৬০০ শ্রমিক স্বচ্ছ ব্যালট বাক্সে ভোট দিয়ে তাদের প্রতিনিধি নির্বাচন করবেন। এদের সংখ্যা হবে ১৮ জন। এদের মধ্য থেকেই আবার একজনকে নির্বাচিত করা হবে সহ-সভাপতি হিসেবে।

কারখানার একজন পরিচালক পদাধিকার বলে সভাপতি। আর সহ-সভাপতি ও নির্বাচিত কমিটির সদস্যরা মিলেই নির্ধারণ করেন কারখানার কর্ম পরিবেশ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/22/1566460330151.jpg

 

তিনি বলেন, এর মাধ্যমে কেবল শ্রমিকদের মধ্যে গণতান্ত্রিক পরিবেশের চর্চা হচ্ছে না, তারা নিজেরাও সচেতন হচ্ছেন। তাদের অধিকার সুরক্ষায় কার্যকর ব্যবস্থা নিতে পারবেন যিনি তাকেই যোগ্য প্রতিনিধি নির্বাচন করছেন।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও কারখানার জেনারেল ম্যানেজার (ওয়্যারহাউজ) আনজুর হোসেন জানান, বৈশ্বিক কারণে বাংলাদেশে তৈরি পোশাক কারখানার মান বেড়েছে। শ্রম আইন ও বিভিন্ন বিদেশি ক্রেতাদের বেঁধে দেয়া শর্ত অনুযায়ী এখন কারখানায় পার্টিসিপেশন কমিটি (পিসি) নামে পরিচিত  শ্রমিক ও মালিক অংশগ্রহণকারী প্রতিনিধি নির্বাচন করতে হচ্ছে। এটা অবশ্য আমাদের কারখানায় নতুন নয়। এর আগেও এমন তিনটি নির্বাচন হয়েছে।

দুই বছর মেয়াদী এই কমিটি শ্রমিকদের অধিকার, মর্যাদা রক্ষার পাশাপাশি কারখানার উৎপাদনশীলতা বজায় রাখতে ভূমিকা রাখবে বলে বলেন আনজুর হোসেন।

কারখানার সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার (মার্কেটিং ও মার্সেন্ডাইজিং) এস এম শফিকুর রহমান, এ ধরনের নির্বাচন কারখানার কর্ম পরিবেশকে নি:সন্দেহে উন্নত করে। কারখানার উৎপাদনশীলতা বাড়লে শ্রমিকদের সুযোগ সুবিধা বাড়ে। শিল্প রক্ষায় মালিক-শ্রমিক সুসম্পর্ক রক্ষা জরুরি। আর এ নির্বাচন সেই বন্ধনকে আরো জোরদার করবে বলে আশা করছেন এস এম শফিকুর রহমান।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/22/1566460353553.jpg
ভোট দিচ্ছেন শ্রমিকরা 

 

কারখানার সিনিয়র কাটারম্যান, শ্রমিক ও মালিক অংশগ্রহণকারী প্রতিনিধি কমিটির বিগত সহ-সভাপতি তুহিন হোসেন এবারও নির্বাচনে প্রার্থী।

তিনি জানান, এ নির্বাচন শ্রমিকদের সচেতনতা তৈরির পাশাপাশি তাদের অধিকার ও মর্যাদা রক্ষার বিষয়ে কার্যকর ভূমিকা পালন করেছে।

তিনি জানান, শ্রমিকরাই যে কারখানার প্রাণ আর শ্রমবান্ধব পরিবেশ রক্ষায় মালিকদের পাশাপাশি শ্রমিকদেরও কিছু দায়িত্ব রয়েছে সে বিষয়ে তারা সচেতন হচ্ছেন। তৈরি পোশাক খাত নিয়ে কোন ষড়যন্ত্র বা অস্থিতিশীলতা তৈরির অপচেষ্টা হলে পুলিশ কিংবা আইন শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনী এগিয়ে আসার আগেই নিজের প্রতিষ্ঠান রক্ষায় নির্ভয়ে সামনে এসে দাঁড়ান শ্রমিকরা।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার আনজুর হোসেন বলেন, তৈরি পোশাক কারখানা ও ভবিষ্যতের জন্য একটা বড় সুরক্ষার দেয়াল তৈরি করতে পারে। সৃষ্টি করতে পারে তৈরি পোশাক খাতে নতুন দিগন্ত।  

বাংলাদেশ এখনো বিপদমুক্ত নয়: ইনু

বাংলাদেশ এখনো বিপদমুক্ত নয়: ইনু
কুষ্টিয়ায় সাবেক তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

সাবেক তথ্যমন্ত্রী ও জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেছেন, '২১শে আগস্টের খুনিদের আড়াল করা এবং খুনিদের পক্ষে সাফাই গাওয়ার অপচেষ্টা চলছে। তাই বাংলাদেশ এখনো বিপদমুক্ত নয়।'

বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) সকালে কুষ্টিয়া সার্কিট হাউজে জেলা জাসদের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, 'মহাজোটের ঐক্যের কারণে বিএনপি-জামায়াত জঙ্গিরা কোণঠাসা হয়েছে, কিন্তু এখনো খুনি-জঙ্গি রক্ষার রাজনীতি অনেকে পরিত্যাগ করেনি এবং রাজনৈতিকভাবে আত্মসমর্পণ করেনি।'

এ সময় কেন্দ্রীয় জাসদের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আলীম স্বপন, জেলা জাসদ সভাপতি গোলাম মহসীন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমানসহ জাসদ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র