Barta24

বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ৬ ভাদ্র ১৪২৬

English

কিশোর বয়সেই মানসিক হাসপাতালে ছিলেন 'সেফুদা'

কিশোর বয়সেই মানসিক হাসপাতালে ছিলেন 'সেফুদা'
সেফাতউল্লাহ ওরফে 'সেফুদা', ছবি: সংগৃহীত
মনিরুজ্জামান বাবলু
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
চাঁদপুর
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

মুসলমানদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরআন শরিফ ও মহানবী মুহাম্মদ (সা:) কি নিয়ে অশ্লীল মন্তব্যকারী সেফাতউল্লাহ ওরফে 'সেফুদা' বাবার ত্যাজ্যপুত্র। ২৫ বছর পূর্বে তাকে ত্যাজ্যপুত্র ঘোষণা করেন তার বাবা হাজী আলী আকবর। তাকে একবার 'পাগলা গারদ' ও জেলখানায় রাখা হয়েছিল বলে তার পরিবার সূত্রে জানা যায়।

সেফুদা চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার ১৩ নং সূচি পাড়া উত্তর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ড চেড়িয়ারা গ্রামের মৃত হাজী আলী আকবরের পুত্র। সেফুদার বাবা তিনটি বিয়ে করেন। সব ঘরে মিলে সেফুদার ভাই-বোন ১৫ জনের অধিক। সেফুদার আপন ভাই-বোনের সংখ্যা ৮ জন বলে জানা গেছে। তবে কারও সাথে সেফুদার সর্ম্পক নেই।

পারিবারিক জীবনে সেফুদার এক সন্তান রয়েছে। সেও আছে ইংল্যান্ডে। তার স্ত্রী ঢাকায় থাকেন। প্রায় ২২ বছর পূর্বে সেফুদা অস্ট্রিয়ার ভিয়েনায় চলে যায়। পরিবারের অবাধ্য এই সেফুদা একজন মানসিক বিকারগ্রস্ত প্রতিবন্ধী বলে স্থানীয় এলাকাবাসী জানান।

শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) সকালে শাহরাস্তি উপজেলার চেড়িয়ারা গ্রামের সেফুদার বড় ভাই শামছুল আলম মজুমদারের সাথে কথা হয়।

শামছুল আলম মজুমদার বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'কিশোর বয়সে সেফাতকে আমার বাবা পাবনা পাগলা গারদে দিয়ে আসে। সেখানে কয়েক মাস তাকে চিকিৎসা দেওয়া হয়। সে মাঝেমধ্যে বাড়িতে ফোন করে। ফোন করেই আমাদের গালিগালাজ করে।'

তিনি বার্তা২৪.কম-কে জানান, ছোটবেলা থেকেই সেফুদা পরিবারের অবাধ্য হয়ে চলতো। তাকে একবার পাগলা গারদ ও জেলখানায় রাখা হয়েছিল। তার বাবা হাজী আলী আকবর কোন সম্পত্তি তাকে দেয়নি। ত্যাজ্যপুত্র হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিলেন। এমনকি হাজী আলী আকবর মারা যাওয়ার সময় দেশে আসেনি এই সেফুদা। পরিবারের কারও সাথে তার যোগাযোগ নেই।

এদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বহুল আলোচিত-সমালোচিত সেফাত উল্লাহ সেফুদাকে দেশে অথবা বিদেশে আইনের হাতে তুলে দিতে পারলে দুই লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেছেন ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেল।

স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছেন, 'এই পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ ধর্মগ্রন্থ পবিত্র কোরআন শরিফ অবমাননাকারী সেফাত উল্লাহ সেফুকে দেশ এবং বিদেশের মাটিতে যারা আইনের আওতায় সোপর্দ করতে পারবে, তাদের জন্য ছাগলনাইয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে নগদ দুই লাখ টাকা পুরস্কার প্রদান করা হবে।'

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক লাইভে এসে সেফাত উল্লাহ পবিত্র কোরআন শরিফ নিয়ে অবমাননাকর বক্তব্য দেয়। বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠে।

এদিকে শুক্রবার সকাল ১১টায় সেফুদা ফের ফেসবুক লাইভে এসে বলেছিলেন, 'এটি কোরআন শরীফ ছিল না। এটি একটি বই। এক কবি উপহার দিয়েছিল।' তবে রাগে-ক্ষোভে কথাগুলো বলেছেন বলে দাবি করেন।

 

আপনার মতামত লিখুন :

'গ্রেনেড হামলায় তারেকের ফাঁসি হওয়া উচিত'

'গ্রেনেড হামলায় তারেকের ফাঁসি হওয়া উচিত'
বক্তব্য রাখছেন রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী আলহাজ কাজী কেরামত আলী, ছবি: সংগৃহীত

গ্রেনেড হামলা বাংলার জাতির জন্য একটি শোকাবহ দিন। আওয়ামী লীগকে নিশ্চিহ্ন করার জন্য সেদিন এই হামলা করা হয়। আর গ্রেনেড হামলার মূল নায়ক তারেক রহমান। গ্রেনেড হামলা মামলায় তার ফাঁসি হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছেন রাজবাড়ী-২ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী আলহাজ কাজী কেরামত আলী।

বুধবার (২১ আগস্ট) বিকালে জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে দলীয় কার্যালয়ে এ সব কথা বলেন তিনি।

এ সময় তিনি আরও বলেন, ‘তারেক রহমানের আসল উদ্দেশ্য ছিল শেখ হাসিনাকে হত্যা করা। কিন্তু আল্লাহর অশেষ রহমতে সেদিন শেখ হাসিনা বেঁচে যান। এ হামলায় আইভি রহমানসহ ২৪জন নিহত ও বহু নেতাকর্মী আহত হয়েছিলেন। আহতরা আজও স্প্রিন্টারের আঘাতে সেদিনের করুণ স্মৃতি বয়ে বেড়াচ্ছেন।'

সভার শুরুতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও গ্রেনেড হামলায় নিহত আইভি রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন দলটির নেতাকর্মীরা।

জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শেখ আব্দুস সোবাহান এর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী, সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফকির আব্দুল জব্বার, পৌর মেয়র মহম্মদ আলী চৌধুরী, হেদায়েত আলী সোহরাব, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও সাবেক সংরক্ষিত আসনের এমপি কামরুন নাহার চৌধুরী লাভলী, সদর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ মোঃ ওহিদুজ্জামান, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট উজির আলী প্রমুখ।

মিষ্টিমুখ করে নতুন ঘরে উঠলেন মিরিকজান

মিষ্টিমুখ করে নতুন ঘরে উঠলেন মিরিকজান
নতুন ঘরে উঠলেন সত্তরোর্ধ্ব মিরিকজান, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

মাল্টিমিডিয়া অনলাইন নিউজপোর্টাল বার্তাটোয়েন্টিফর.কমে খবর প্রকাশের পর ময়মনসিংহের গৌরীপুরের সত্তরোর্ধ্ব পক্ষাঘাতগ্রস্ত অসহায় বৃদ্ধা মিরিকজানের নতুন টিনশেড ঘরে ঠাঁই হয়েছে।

বুধবার (২১ আগস্ট) সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফারহানা করিম ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোফাজ্জল হোসেন খান রঙিন ফিতা কেটে মিরিকজানের নতুন ঘর উদ্বোধন করেন। মিরিকজানকে মিষ্টিমুখ করিয়ে নতুন ঘরে প্রবেশ করানো হয়। আনন্দে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি।

মিরিকজানের বাড়ি গৌরীপুর পৌর শহরের চকপাড়া গ্রামে। তিনি ওই গ্রামের মৃত মগর আলী ওরফে মকবুলের স্ত্রী।

মিরিকজান বলেন, ‘আমার ঘর ছিল না। আমি ঘর পাইছি। যারা আমারে ঘর বানাইয়্যা দিছে আমি তাদের সবার জন্য দোয়া করি। সবাইরে আল্লাহ ভালা রাহুক।’

গত ২২ জুন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমে ‘সব হারিয়ে নতুন ঘর চান মিরিকজান’ শিরোনামে একটি মানবিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এই প্রতিবেদনের সূত্র ধরে স্থানীয় চকপাড়া গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল করিম ললী মিরিকজানের ঘর নির্মাণের জন্য ব্যক্তিগত জমি দেন।

অপরদিকে প্রকাশিত সংবাদটি দৃষ্টিগোচর হওয়ার পর মিরিকজানের ঘর নির্মাণে অর্থয়ান করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা চেয়ারম্যান ও ডু সামথিং ফাউন্ডেশন। ঘর নির্মাণ কাজ বাস্তবায়ন করেন গৌরীপুর উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদ।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফারহানা করিম বলেন, ‘বার্তাটোয়ন্টিফোর.কমে খবর প্রকাশের পর উপজেলা প্রশাসন ও ডু সামথিং ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে মিরিকজানের জন্য নতুন ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। আজকে ঘর উদ্বোধন করা হয়েছে। মানবিক প্রতিবেদন প্রকাশের জন্য বার্তা২৪.কমকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’

উল্লেখ্য, এর আগে ২২ জুন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমে ‘সব হারিয়ে নতুন ঘর চান মিরিকজান’ শিরোনামে খবর প্রকাশের পর হুইল চেয়ার, নতুন কাপড় ও চালের বস্তা সহযোগিতা পান তিনি।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র