Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

ছুরিকাঘাতে আহত যুবকের মৃত্যু, প্রতিবাদে বাড়িতে আগুন

ছুরিকাঘাতে আহত যুবকের মৃত্যু, প্রতিবাদে বাড়িতে আগুন
নিহত আনোয়ার হোসেন আনু, ছবি: বার্তা২৪.কম
ডিসট্রিক্ট করেসপনডেন্ট
নরসিংদী
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

নরসিংদীর পলাশ উপজেলার ডাংগা এলাকায় মাছ বিক্রির টাকা চাইতে গিয়ে ছুরিকাঘাতে আহত এক যুবক মারা গেছেন। তার নাম আনোয়ার হোসেন (আনু)। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার (১৭এপ্রিল) তিনি মারা যান। 

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. সাবের উল হাই জানান, ডাংগা ইউনিয়নের শান্তানপাড়া এলাকার শামসুউদ্দিনের ছেলে আনোয়ার হোসেন আনু একই এলাকার আকবর হোসেনের ছেলে আবুল কালামের কাছে বাকিতে মাছ বিক্রি করেন।

পরে মাছ বিক্রির টাকা চাইতে গেলে আবুল কালাম ও তার ভাই আলামিনের সঙ্গে ঝগড়া বাধে। এক পর্যায়ে আনোয়ার হোসেন আনুকে ছুরিকাঘাত করে। আনুর চিৎকারে এলাকাবাসী তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজে ভর্তি করে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/17/1555507633582.jpgঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২২ দিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার (১৭ এপ্রিল) সকালে আনু মারা যায়। আনুর মৃত্যুর খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে এলকাবাসী হামলাকারী কালাম মিয়ার বাড়িঘরে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়।

পলাশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মকবুল হোসেন মোল্লা জানানমাছ বিক্রির পাওনা টাকা চাইতে গেলে গত মাসের ২৫ মার্চ কালাম ও তার ভাই আল-আমিন মিলে আনু মিয়াকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। 

এ ঘটনায় আনুর পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। অবশেষে ২২ দিন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর বুধবার সকালে আনু মারা যায়। তার মৃত্যুতে উত্তেজিত গ্রামবাসী অভিযুক্ত কালামের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ করে।

তিনি আরও জানান, ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত কালাম ও তার ভাই আল-আমিন মিয়া পলাতক রয়েছেন। তাদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশ অভিযান অব্যাহত রেখেছে। 

আপনার মতামত লিখুন :

শিশুর মাথা কাটার ঘটনার সঙ্গে পদ্মা সেতু গুজবের সম্পর্ক নেই

শিশুর মাথা কাটার ঘটনার সঙ্গে পদ্মা সেতু গুজবের সম্পর্ক নেই
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর

নেত্রকোনায় শিশুর মাথা কাটার ঘটনার সঙ্গে পদ্মা সেতু গুজবের কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার জয়দেব চৌধুরী।

শুক্রবার (১৯ জুলাই) দুপুরে নেত্রকোনা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, গত বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) দুপুরে নেত্রকোনা পৌর শহরের কাটলি এলাকার বাসিন্দা রইছ উদ্দিনের ছেলে শিশু সজিব মিয়াকে (৭) নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। হত্যাকারী একই এলাকার বাসিন্দা এখলাছ মিয়ার ছেলে রবিন মিয়া (৩০)। এ হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করে ফেসবুকসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেলে ধরা ও পদ্মা সেতুর গুজবের সাথে মিশিয়ে মিথ্যা অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। এটি নিতান্তই বিভ্রান্তিমূলক ও অসত্য। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তদন্তাধীন বিষয়ে মনগড়া ও অসত্য তথ্য দিয়ে প্রচার-প্রচারণা চালানো ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপরাধ। ঘটনাটির সাথে পদ্মা সেতু গুজবের কোনো সম্পৃক্ততা নেই।

পদ্মা সেতু ও ছেলে ধরা সংক্রান্ত গুজবে কান না দিতে নেত্রকোনা তথা দেশবাসীকে অনুরোধ জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন: নেত্রকোনায় শিশু ও অভিভাবকদের মধ্যে ‘মাথা কাটা’ আতঙ্ক

আরও পড়ুন: ব্যাগের ভেতর শিশুর মাথা, গণধোলাইয়ে যুবকের মৃত্যু

আরও পড়ুন: নেত্রকোনায় ছেলে ধরা সন্দেহে যুবক আটক

কেন্দুয়ায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় বৃদ্ধা নিহত

কেন্দুয়ায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় বৃদ্ধা নিহত
প্রতীকী ছবি

নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় জুবেদা আক্তার (৬৫) নামে এক বৃদ্ধা মারা গেছেন। শুক্রবার (১৯ জুলাই) দুপুরে কেন্দুয়া পৌর শহরের কমলপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত জুবেদা আক্তার কমলপুর গ্রামের মৃত সাহাব উদ্দিনের স্ত্রী।

স্থানীয়রা জানান, দুপুরে জুবেদা আক্তার তার বাবার বাড়ি কেন্দুয়া পৌর শহরের বাদে আঠারবাড়ি গ্রাম থেকে অটোরিকশায় স্বামীর বাড়ি কমলপুর গ্রামে যাচ্ছিলেন। কমলপুর এলাকায় গিয়ে অটোরিকশা থেকে নামলে একটি মোটরসাইকেল তাকে ধাক্কা দেয়। এতে মারাত্মক আহত তিনি। পরে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে দুপুর ২টার দিকে চিকিৎসক ডা. পিয়াস পাল তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

কেন্দুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ রাশেদুজ্জামান জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র