Barta24

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

যুক্তরাষ্ট্র রাষ্ট্রদূতের ইউএসএআইডি’র উন্নয়ন কার্যক্রম পরিদর্শন

যুক্তরাষ্ট্র রাষ্ট্রদূতের ইউএসএআইডি’র উন্নয়ন কার্যক্রম পরিদর্শন
ছবি: বার্তা২৪.কম
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

খুলনা : বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্ল আর. মিলার যশোর ও খুলনায় তার প্রথম সফর শেষ করেছেন। 

বুধবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সফর শেষ করেন রাষ্ট্রদূত আর্ল আর. মিলার। এ সফরে তিনি ইউএসএআইডি’র কৃষি, শ্রম ও খাদ্য সহায়তা বিষয়ক কিছু গুরুত্বপূর্ণ কর্মসূচি পরিদর্শন করেন এবং খুলনা আমেরিকান কর্নারে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। রাষ্ট্রদূত মিলারের সঙ্গে ছিলেন ইউএসএআইডি’র ডেপুটি মিশন পরিচালক জেইনা সালাহি।

রাষ্ট্রদূত ও তার সফর সঙ্গীরা যশোরে সরকারি কর্মকর্তা, কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ ও ইউএসএআইডি’র কর্মসূচিগুলোতে অংশগ্রহণকারী লোকজনের সঙ্গে সাক্ষাত করেন।

সরাসরি মানুষের কাছ থেকে ইউএসএআইডি’র উন্নয়ন কর্মসূচিগুলোর প্রভাব সম্পর্কে জানা ছিল তাদের এ সফরের উদ্দেশ্য। এসব কর্মসূচি কিভাবে কৃষিতে উৎপাদনশীলতা ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি জোরদার করছে যশোরে তা দেখেন রাষ্ট্রদূত।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/14/1550083814560.jpg

সেখানে ‘জনতা ইঞ্জিনিয়ারিং’ ও ‘দি মেটাল প্রাইভেট লিমিটেড’ এর মতো বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করছে ইউএসএআইডি। যুক্তরাষ্ট্র সরকারের প্রতিনিধি দলটি স্থানীয় ফুলচাষীদের সঙ্গে দেখা করেন।

নতুন আরও কিছু জাতের ফুল চাষ ও উন্নত কৃষি পদ্ধতির মাধ্যমে তারা উৎপাদন বাড়িয়েছেন। এজন্য ইউএসএআইডির কর্মসূচির আওতায় প্রশিক্ষণ নিয়েছেন ওই ফুলচাষীরা। প্রতিনিধিদলটি স্থানীয় কার্প প্রজাতির মাছের সবচেয়ে উৎপাদনশীল ও শক্তিশালী জাত তৈরির কাজে নিয়োজিত মৎস্যবিজ্ঞানীদের সঙ্গেও সাক্ষাত করেন। এ জাতের মাছ সংশ্লিষ্ট অঞ্চলের খাদ্য নিরাপত্তা এবং অর্থনৈতিক সম্ভাবনা বাড়াবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/14/1550083839870.jpg

রাষ্ট্রদূত মিলার ‘ফল আর্মিওয়ার্ম’ পোকার হুমকির বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউটের (বারি) বিজ্ঞানীদের সঙ্গে প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিয়ে আলোচনা করেন। বাংলাদেশে সম্প্রতি আসা এ পতঙ্গটি বিভিন্ন ধরনের ফসলের ক্ষতি করতে পারে। এ নিয়ে বৈঠকের পর রাষ্ট্রদূত সাংবাদিকদের বলেন, ‘কৃষকদের সচেতন করা এবং পতঙ্গটি দমনের উপায় বের করতে কৃষি মন্ত্রণালয় ও অন্যান্য সংস্থার ব্যাপক কর্মতৎপরতায় আমি সন্তুষ্ট। তাদের গৃহীত কার্যক্রমের মধ্যে রয়েছে কৃষকদের ফল আর্মিওয়ার্ম দমনে সহায়তা করতে বিশেষ করে পোকামাকড় নিয়ন্ত্রণের উপকরণসহ নতুন পণ্যের নিবন্ধন প্রক্রিয়া দ্রুততর করা।’

খুলনায় রাষ্ট্রদূত মিলার ইউএসএআইডি’র কর্মসূচি ‘নব যাত্রা’র উপকারভোগীদের সঙ্গে কথা বলেন। দারিদ্র্য, ক্ষুধা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় এমন মানুষদের জন্যই এ কর্মসূচিটি পরিচালিত হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Feb/14/1550083860306.jpg

‘নব যাত্রা’র উপকারভোগীরা ইউএসএআইডি থেকে শেখা প্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে কীভাবে খাদ্য উৎপাদনে তাদের স্বনির্ভরতা বাড়াচ্ছে রাষ্ট্রদূত তা সচক্ষে দেখেন। 

প্রতিনিধিদলটি এর পরে একটি চিংড়ি ও মৎস্য প্রক্রিয়াজাতকরণ প্ল্যান্ট পরিদর্শন করেন। এ শিল্পটি সম্পর্কে ধারণা পেতে ও সেখানকার শ্রম পরিস্থিতি জানতে সেখানে যান তারা।

যুক্তরাষ্ট্র সরকার মনে করে, অর্থনৈতিক ও গণতান্ত্রিক ক্ষেত্রে একটি দেশের সাফল্যের জন্য শ্রমমানের উন্নয়ন করা ও কর্মী অধিকার সমুন্নত রাখা দুটিই খুব জরুরি। ইউএসএআইডির সহায়তাপুষ্ট স্থানীয় ‘ওয়ার্কার্স কমিউনিটি সেন্টার’ পরিদর্শনের মধ্য দিয়ে রাষ্ট্রদূত মিলারের সফর শেষ হয়।

ওয়ার্ল্ডফিশ, এসিডিআই/ভিওসিএ (ভোকা), সিআইএমএমওয়াইটি (সিমিট) উইনরক ইন্টারন্যাশনাল এবং ওয়ার্ল্ডভিশন বাংলাদেশ ও বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউটের (বারি)সহ অন্যান্য সহযোগীদের সহায়তায় প্রতিনিধিদলটির এ সফরের আয়োজন করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন :

না.গঞ্জে আ.লীগ নেত্রীকে কুপিয়ে হত্যা

না.গঞ্জে আ.লীগ নেত্রীকে কুপিয়ে হত্যা
বিউটি আক্তার কুট্টি। ছবি: সংগৃহীত

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার পশ্চিমগাঁও এলাকায় আওয়ামী লীগ নেত্রী ও কায়েতপাড়া ইউনিয়নের সংরক্ষিত ইউপি সদস্য বিউটি আক্তার কুট্টিকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

বুধবার (২৬ জুন) সকালে এ ঘটনা ঘটে। নিহত বিউটি উপজেলার পশ্চিমগাঁও এলাকার মৃত হাসান মুহুরীর স্ত্রী। এছাড়া কায়েতপাড়া ইউনিয়নের ৭, ৮, ৯নং ওয়ার্ডের নারী ইউপি সদস্য ছিলেন তিনি।

জানা গেছে, সকালে বিউটি পশ্চিমগাঁও এলাকা দিয়ে হাঁটছিলেন। হঠাৎ তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে দুর্বৃত্তরা। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি।

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল হাসান এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

বৃষ্টি নেই আষাঢ়েও, বিপাকে পাট চাষিরা

বৃষ্টি নেই আষাঢ়েও, বিপাকে পাট চাষিরা
পানির অভাবে শুকিয়ে যাচ্ছে পাটগাছের মূল/ছবি: বার্তা২৪.কম

ধার-দেনা করে অন্যের জমি বর্গা নিয়ে পাট বুনেছিলাম (চাষ)। পাটের আবাদ ভালো হলে দাম ভালো পাব, অন্যের দেনা মিটিয়ে লাভ হবে এই আশায়। এখন বৃষ্টি না হওয়ায় পাটের আগা (মূল) শুকিয়ে যাচ্ছে, পাট গাছ বড় হচ্ছে না। আষাঢ় মাসের  ১০ দিন পার হলেও দেখা মিলছে না বৃষ্টির। এখন পাট নিয়ে মহাচিন্তায় আছি। কথাগুলো বলছিলেন সদর উপজেলার সিমানন্দপুর গ্রামের পাটচাষি ইশারত শেখ।

জানা গেছে, নড়াইলে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে পাটের আবাদ হলেও হাসি নেই কৃষকদের মুখে। পাট চাষ এখন কৃষকের গলার ফাঁস হয়ে দেখা দিয়েছে। জমিতে পানি না থাকায় মাটি ফেটে চৌচির হয়ে যাচ্ছে। হতাশ হয়ে পড়ছেন পাট চাষিরা। বেশি জমিতে পাটের আবাদ হলেও উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হওয়া নিয়ে সংশয়ে রয়েছে খোদ কৃষি বিভাগ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/26/1561525094563.jpg

সদর উপজেলার ফেদি গ্রামের তরিকুল ইসলাম বলেন, গত বছর পাটের দাম ভালো পাওয়ায় এ বছর আরও বেশি জমিতে পাটের আবাদ করা হয়েছে। কিন্তু এখন জমিতে পানির খুব প্রয়োজন হলেও বৃষ্টি হচ্ছে না। বৃষ্টি না হওয়ার কারণে পাটের আগা শুকিয়ে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

লোহাগড়া উপজেলার পদ্মবিলা গ্রামের রতন বিশ্বাস বলেন, আষাঢ়-শ্রাবণ মাস বৃষ্টির সময় হলেও এ বছর বৃষ্টি হচ্ছে না। বৃষ্টির পানি না পাওয়ার কারণে পাট বড় হচ্ছে না। পাট যতটুকু বড় হয়েছে কেটে যে জাগ (পানিতে পচানো) দেব সে পানিও খাল-বিলে নেই।

কালিয়া উপজেলার পুরুলিয়া এলাকার আবির হোসেন বলেন, আষাঢ় মাষেও বৃষ্টি হচ্ছে না এমন অবস্থা আর কয়েকদিন চলতে থাকলে জমিতেই পাটগাছ শুকিয়ে নষ্ট হয়ে যাবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/26/1561525112220.jpg

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক চিন্ময় রায় বলেন, বিগত সময়ে পাটের নায্য মূল্য পাওয়ায় কৃষকরা পাট চাষে আগ্রহী হয়েছে। চলতি মৌসুমে জেলায় পাট আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২০ হাজার ৬১০ হেক্টর জমিতে আবাদ হয়েছে ২০ হাজার ৯৫০ হেক্টর জমিতে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩৪০ হেক্টর বেশি জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, পাটের জমিতে পানি না পাওয়ায় পাটগাছ ঠিকমত বৃদ্ধি পাচ্ছে না। এই মুহূর্তে পাটের জমিতে পানির খুবই প্রয়োজন। পানি না পেলে পাটের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা করছেন এই কৃষিবিদ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র