Barta24

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

স্ত্রীর সঙ্গে অভিমান করে স্বামীর আত্মহত্যা

স্ত্রীর সঙ্গে অভিমান করে স্বামীর আত্মহত্যা
ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বরিশাল
বার্তা ২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

বরিশালে স্ত্রীর সাথে অভিমান করে গলায় ফাঁস দিয়ে চন্দন দেবনাথ (৩৫) নামের এক কাঠমিস্ত্রি আত্মহত্যা করেছেন।

নিহত চন্দন নগরীর ভাটিখানা বাজার এলাকার শুকরঞ্জন দেবনাথর ছেলে।

সোমবার (১৪ জানুয়ারি) সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মেট্রোপলিটন কাউনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন।

নিহতের পরিবারের বরাত দিয়ে তিনি জানান, রোববার (১৩ জানুয়ারি) রাতে স্ত্রীর সাথে পারিবারিক বিষয় নিয়ে চন্দন দেবনাথের ঝগড়া হয়। এজন্য ভাটিখানা বাজার এলাকার নিজ ঘরের দরজা বন্ধ করে ফ্যানের সাথে দড়ি পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি।

ওসি আরও জানান, খবর পেয়ে পুলিশ চন্দনের মৃত দেহ উদ্ধার করে । পরে সুরতহাল শেষে ময়না তদন্তের জন্য বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে মর্গে পাঠানো হয়েছে।

আনোয়ার আরও বলেন, পরিবারের পক্ষ থেকে আত্মহত্যা দাবী করা হলেও মৃত্যুর সঠিক কারণ ময়না তদন্তে বেরিয়ে আসবে।

আপনার মতামত লিখুন :

শেরপুর-জামালপুর মহাসড়কে হাঁটু পানি

শেরপুর-জামালপুর মহাসড়কে হাঁটু পানি
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম।

পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদে পানি বৃদ্ধির ফলে শেরপুরে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের পুরাতন ভাঙন অংশ দিয়ে পানি দ্রুতবেগে প্রবেশ করায় চরাঞ্চলের নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় ব্রহ্মপুত্র নদের পানি শেরপুর ফেরিঘাট পয়েন্টে ১ মিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমা ছুঁই ছুঁই করছে। এতে শেরপুর-জামালপুর মহাসড়কের পোড়ার দোকান কজওয়ের (ডাইভারশন) উপর দিয়ে প্রবলবেগে বন্যার পানি প্রবাহিত হচ্ছে। স্থানীয়রা হাঁটু পানি মাড়িয়ে ঝুঁকি নিয়ে ওই মহাসড়ক দিয়ে চলাচল করছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/18/1563438434171.jpg

এদিকে ঝুঁকি নিয়ে যানবাহন চলাচল করলেও যেকোনো সময় শেরপুর থেকে জামালপুর হয়ে রাজধানী ঢাকা ও উত্তরাঞ্চলের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হতে পারে।

স্থানীয়রা বলছেন, হঠাৎ করে গত রাত থেকে এই ডাইভারশনে পানি এসেছে। এতে আতঙ্কে আছেন তারা। যেকোনো মুহূর্তে বন্ধ হয়ে যেতে পারে শেরপুর-জামালপুর রুটে যানবাহন চলাচল।

স্থানীয় রহমত আলী, মজিবর রহমান, খলিলুর রহমানসহ অনেকে জানান, বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সকাল থেকে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে তারা আতঙ্কে আছেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/18/1563438456420.jpg

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মাজহারুল ইসলাম বলেন, ‘শুনেছি গতরাত থেকে ডাইভারশন দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। তবে যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় পানি উন্নয়ন বোর্ড প্রস্তুত রয়েছে।’

এদিকে অবিরাম বর্ষণ ও উজানের পাহাড়ি ঢলে শেরপুরের ৫ উপজেলার ৩৫টি ইউনিয়নের ২ শতাধিক গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এতে পানিবন্দী রয়েছে প্রায় লক্ষাধিক মানুষ। এছাড়া পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ৫২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। গত ৫ দিনে বন্যার পানিতে ডুবে ৬ জনের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।

আদালতে হাজিরা দিলেন সাবেক এম‌পি রানা

আদালতে হাজিরা দিলেন সাবেক এম‌পি রানা
সাবেক সংসদ সদস্য আমানুর রহমান খান রানা, ছবি: সংগৃহীত

আওয়ামী ল‌ীগ নেতা ফারুক আহ‌ম্মেদ হত্যা মামলায় উচ্চ আদালতে জা‌মিনে মুক্ত হওয়ার পর নিম্ন আদালতে হা‌জিরা দিয়েছেন ঘাটাইল-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য (এম‌পি) আমানুর রহমান খান রানা।

বৃহস্প‌তিবার (১৮ জুলাই) দুপুরে টাঙ্গেইলের প্রথম অতি‌রিক্ত জেলা ও দায়রা জজ রা‌শেদ কবীরের বিচা‌রিক আদাল‌তে হা‌জিরা দেন তিনি। এ সময় চি‌কিৎসক ‌মোজা‌ম্মেল হো‌সে‌নের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়। প‌রে আসামি পক্ষ থে‌কে চি‌কিৎসক‌কে জেরা করা হয়।

টাঙ্গাইল জজ কো‌র্টের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর মোহসীন শিকদার ও টাঙ্গাইল আদাল‌তের কোর্ট ইন্সপেক্টর তানভীর আহ‌ম্মেদ জানান, চি‌কিৎসক মোজা‌ম্মেল হো‌সেনের সাক্ষ্যগ্রহণ শে‌ষে আসামি পক্ষ থে‌কে তা‌কে জে‌রা করা হয়। এ নি‌য়ে মোট ১৮ জ‌ন সাক্ষির সাক্ষ্যগ্রহণ সম্পন্ন হল।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ১৮ জানুয়ারি জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ফারুক আহম্মে‌দের গুলিবিদ্ধ মরদেহ তার কলেজপাড়া এলাকার বাসার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়। ঘটনার তিনদিন পর তার স্ত্রী নাহার আহমেদ বাদী হয়ে টাঙ্গাইল সদর থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। ২০১৪ সালের আগস্টে গোয়েন্দা পুলিশের তদন্তে এই হত্যায় তৎকালীন সাংসদ আমানুর ও তার ভাইদের জাড়িত থাকার বিষয়টি বের হয়ে আসে।

২০১৬ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি তদন্ত শেষে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় গোয়েন্দা পুলিশ। এই মামলায় আমানুর ছাড়াও তার তিন ভাই টাঙ্গাইল পৌরসভার সাবেক মেয়র সহিদুর রহমান খান মুক্তি, ব্যবসায়ী নেতা জাহিদুর রহমান খান কাকন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সানিয়াত খান বাপ্পাসহ ১৪ জন আসামি রয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র