Barta24

সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

English

৬৪ জেলায় ঘুরছেন ৪ ভ্রমণকন্যা

৬৪ জেলায় ঘুরছেন ৪ ভ্রমণকন্যা
৬৪ জেলায় ঘুরছেন ৪ ভ্রমণকন্যা। ছবি: বার্তা২৪.কম
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
ঠাকুরগাঁও
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

‘ট্রাভেলেটস অফ বাংলাদেশ' ভ্রমণ পিপাসু নারীদের জন্য সর্ববৃহৎ একটি সংগঠন। এই সংগঠন কর্তৃক আয়োজিত কর্ণফুলী প্রেজেন্টস `নারীদের চোখে বাংলাদেশ' কর্মসূচির মাধ্যমে ৪ জন ভ্রমণকারী মেয়ে স্কুটিতে করে ক্রমান্বয়ে ঘুরছেন ৬৪ জেলায়। এই ভ্রমণের অংশ হিসেবে এখন তারা এসেছেন ঠাকুরগাঁওয়ে।

সেই সঙ্গে প্রতিটি জেলার মতো তারা রোববার (১৩ জানুয়ারি) দুপুরে ঠাকুরগাঁও সিএম আইয়ুব বালিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে করেছেন মেয়েদের আত্মরক্ষার ওপরে ওয়ার্কশপ, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক আলোচনা, মেয়েদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ক আলোচনা, ভ্রমণ সহ বিভিন্ন ধরনের কর্মশালা।

তাদের এই ভ্রমণের মাধ্যমে তারা ৬৪ জেলায় নারীদের মাঝে ছড়িয়ে দিচ্ছেন নিজের স্বাধীন ও সত্ত্বার অস্তিত্ব। তাদের মূল লক্ষ্য সমাজের যে সকল ক্ষেত্রে এখনো পুরুষের তুলনায় নারীরা পিছিয়ে আছে, এই স্বাধীন দেশে এখনো যারা সমাজের বাধা অতিক্রম করতে ভয় পায়, নিজের লালিত স্বপ্ন পূরণে এগিয়ে আসতে পারছে না মূলত তাদের এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। যার জন্য দিন রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন তারা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jan/13/1547383529392.jpg

ভ্রমণকন্যারা হলেন- ঢাকা মেডিকেল কলেজের ডা. সাকিয়া হক, ড. মানসী সাহা তুলি, ইডেন কলেজের শিক্ষার্থী নাজমুল নাহার মুক্তা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সিলভী রহমান।

জানা যায়, ইতোমধ্যে ৩৩টি জেলা পরিদর্শন করেছেন এই ভ্রমণকারীরা। স্থানগুলো হলো- নারায়ণগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা, নড়াইল, যশোর, সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, গোপালগঞ্জ, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, জামালপুর, শেরপুর, মাদারীপুর, শরীয়তপুর, ভোলা, লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালী, ফেনী ও চাঁদপুর। এছাড়াও গত ১১ জানুয়ারি তারা পঞ্চগড় জেলা ভ্রমণ করেছেন। আর ১৩ জানুয়ারি এসেছেন ঠাকুরগাঁওয়ে।

এরপর তারা পর্যায়ক্রমে নীলফামারী, দিনাজপুর, রংপুর, লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, জয়পুরহাট, বগুড়া, নওগাঁ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, নাটোর, পাবনা জেলায় ভ্রমণ করবেন। এছাড়া ১ ফেব্রুয়ারি জামালপুর থেকে গাজীপুরের উদ্দেশে ভ্রমণ করবেন এই ভ্রমণকন্যারা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jan/13/1547383558731.jpg

প্রশিক্ষণ শেষে সিএম আইয়ুব উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মনি জানান, ‘আমরা আগে অনেক কিছুই জানতাম না। আজ এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে অনেক কিছু শিখতে পারলাম, জানতে পারলাম। আমরা ধন্যবাদ জানাই ট্রাভেলেটস অফ বাংলাদেশের মাধ্যমে ভ্রমণকারী এই আপুদের।’

ভ্রমণকন্যা ডা. সাকিয়া হক বার্তা২৪ কে বলেন, ‘ট্রাভেলেটস অফ বাংলাদেশ থেকে আমরা এসেছি। এটি মেয়েদের ভ্রমণের জন্য প্রথম কোনো সংগঠন। আমরা স্কুটিতে ভ্রমণ করে প্রতিটি জেলায় একটি করে স্কুলে গিয়ে সেখানকার মেয়েদের সঙ্গে বিভিন্ন ধরনের কর্মশালা করছি। আমরা চাই দেশের প্রতিটি নারী ট্রাভেলেটস অফ বাংলাদেশের হাত ধরে নিজেদের দেশকে জানুক এবং দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখুক।’

আপনার মতামত লিখুন :

কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুটে ফেরি-লঞ্চ সংর্ঘষ, রক্ষা পেল ৩০০ যাত্রী

কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুটে ফেরি-লঞ্চ সংর্ঘষ, রক্ষা পেল ৩০০ যাত্রী
কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুটে ফেরি-লঞ্চ সংর্ঘষ

মাদারীপুর শিবচরে রোববার (১৯ আগস্ট) রাত সাড়ে আটটার দিকে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে লৌহজং টার্নিং-এ যাত্রী বোঝাই এমভি সুরভী ও এমভি আশিক দুটি লঞ্চের সঙ্গে ফেরির সংর্ঘষ হয়। এতে লঞ্চে থাকা ৫ জন যাত্রী আহত হন। তবে বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে অল্পের জন্য রক্ষা পান প্রায় ৩০০ যাত্রী।

প্রত্যক্ষদর্শী যাত্রী ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, লৌহজং টার্নিং-এ ডাম্ব ফেরি রায়পুরার সঙ্গে এমভি আশিক লঞ্চের ধাক্কা লাগে। ফেরির সঙ্গে লঞ্চের ধাক্কা লাগলে কিছু যাত্রীরা একে অন্যর উপর পড়ে যায়। এতে পাঁচজন যাত্রী আহত হন।

ডাম্ব ফেরির চালক মো: হারুন অর রশিদ জানান, শিমুলিয়া থেকে ছেড়ে টার্নিং পয়েন্টে আসার কিছুক্ষণ পরই রং সাইড থেকে আসা একটি লঞ্চ আমার ফেরির পিছনের অংশে ধাক্কা খায় এতে লঞ্চটির সামান্য ক্ষতি হয়। এর কিছুক্ষণ পর আবার একটু সামনে আসলে এমভি সুরভী নামের আরেকটি লঞ্চ আমার ফেরি ডান দিক থেকে বাম দিকে ক্রসিং করতে গেলে আবার ধাক্কা লাগে। কিন্তু লঞ্চ দুটোই অক্ষতভাবে যাত্রী নিয়ে আবার শিমুলিয়া প্রান্তে পৌঁছে যায়।

বিআইডব্লিউটিসির কাঁঠালবাড়ি ঘাটের ব্যবস্থাপক আবদুস সালাম বলেন, রাতে ফেরির সাথে দুটি লঞ্চের সংঘর্ষ হয় তবে কেউ মারাত্মক আহত হননি। বর্তমানে লঞ্চ দুইটি শিমুলিয়া ঘাটেই রয়েছে। দুইটি লঞ্চে মোট ৩০০ যাত্রী ছিলেন।

মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে শিশু নাহিদ

মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে শিশু নাহিদ
নাহিদুজ্জামান নাহিদ, ছবি: সংগৃহীত

সড়ক দুর্ঘটনায় বাবা-মাসহ পরিবারের পাঁচ সদস্যকে হারিয়ে ভাগ্যগুণে বেঁচে যাওয়া তিন বছরের শিশু নাহিদুজ্জামান নাহিদ মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। রাজধানী ঢাকার অ্যাপেলো হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন আছে শিশুটি। দুর্ঘটনায় আহত নাহিদের চোয়ালের হাড় ভেঙে গেছে। আগামী সোমবার (১৯ আগস্ট) তার সার্জারি অস্ত্রোপচার করবেন চিকিৎসকরা।

রোববার (১৮ আগস্ট) রাতে বার্তা২৪.কমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নাহিদের চাচা নুরুজ্জামান।

নাহিদের বাড়ি নেত্রকোনার জেলার দূর্গাপুরে। তার বাবা রফিকুজ্জামান নরসিংদী জেলার একটি টেক্সটাইল মিলের মালিক।

গত ১৬ আগস্ট শুক্রবার নাহিদের পরিবার প্রাইভেটকারযোগে এক আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে ময়মনসিংহ কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের গাও রামগোপালপুর এলাকায় যাত্রীবাহী এমকে সুপার নামের একটি বাস ওভারটেক করতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে প্রাইভেটকারটিকে চাপা দেয়। এ সময় প্রাইভেটকারটি দুমড়েমুচড়ে যায়।

আরও পড়ুন: গৌরীপুরে বাস-প্রাইভেটকার সংঘর্ষ: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫

দুর্ঘটনায় নাহিদের মা শাহীনা আক্তার বাবা রফিকুজ্জামান, বড় ভাই নাদিম মাহমুদ, বোন রওনক জাহান ও মামা জিসান কবীর আশরাফ প্রাণ হারান। ভাগ্যগুণে বেঁচে যায় শিশু নাহিদ ও চালক স্বপন মিয়া।

নাহিদ রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন। চালক স্বপন মিয়া ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

অপরদিকে দুর্ঘটনায় প্রাণ হারানো নাহিদের বাবা-মা, ভাই-বোন ও মামাকে শনিবার নেত্রকোনার দূর্গাপুরে দাফন করা হয়েছে। সব হারানো নাহিদ এখন তার দাদা-দাদির তত্ত্বাবধানেই থাকবে।

নাহিদের চাচা নুরুজ্জামান বলেন, ‘নাহিদ এখনো আইসিইউতে আছে। তার শরীরে বিভিন্ন স্থানে ক্ষত হয়েছে। এখনো জ্ঞান ফেরেনি। চিকিৎসকরা বলেছেন আমাদের ধৈর্য ধরতে। সবাই আমাদের নাহিদের জন্য দোয়া করবেন।’


এদিকে, মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় শুক্রবার রাতে বাসের চালককে (অজ্ঞাতনামা) আসামি করে গৌরীপুর থানায় মামলা করেছেন রফিকুজ্জামানের ছোট ভাই নুরুজ্জামান। কিন্তু পুলিশ রোববার রাত সোয়া ১০টা পর্যন্ত আসামিকে গ্রেফতার করতে পারেননি।

গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামরুল ইসলাম মিয়া বলেন, ‘মামলা দায়ের হয়েছে। পুলিশ আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছে।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র