Barta24

সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১১ ভাদ্র ১৪২৬

English

রাজশাহীর ৮ জেলায় ২৪ ঘণ্টায় ১৩৫ ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত

রাজশাহীর ৮ জেলায় ২৪ ঘণ্টায় ১৩৫ ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত
রামেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীরা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম
রাজশাহী


  • Font increase
  • Font Decrease

রাজশাহী বিভাগের আট জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১৩৫ জন। এ নিয়ে বিভাগে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে এক হাজার ৮৪৬ জন। যার মধ্যে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল ও পাবনা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুইজন রোগী মারা গেছেন।

রাজশাহী বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. গোপেন্দ্রনাথা আচার্য বুধবার (১৪ আগস্ট) বিকেলে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'ঈদের ছুটি শুরুর পর থেকেই উত্তরাঞ্চলের জেলাগুলোতে বাড়ছে ডেঙ্গু রোগী। মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) সন্ধ্যা থেকে আজ (বুধবার) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত রাজশাহী বিভাগের আট জেলায় নতুন করে ১৩৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন।'

ডা. গোপেন্দ্রনাথ আচার্য বলেন, 'রাজশাহী বিভাগে এ পর্যন্ত এক হাজার ৪২৯ জন রোগী সেবা নিয়ে ফিরে গেছেন। বর্তমানে আট জেলার সরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ৪১৭ জন।'

বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের তথ্যমতে, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রামেক) নতুন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন ২১ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৬ জন। বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ১৩১ জন। জুলাই থেকে এ পর্যন্ত মোট ৩৭৮ জন রোগী ভর্তি হন। রামেকে সোমবার (১২ আগস্ট) একজন যুবক মারা যান। তিনি ঢাকা থেকে আক্রান্ত হয়ে বাড়ি ফিরেছিলেন।

রাজশাহীর ৮ জেলায় ২৪ ঘণ্টায় ১৩৫ ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত

বগুড়া: গত ২৪ ঘণ্টায় বগুড়া জেলায় ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী চিহ্নিত হয়েছেন ৪০ জন। এ পর্যন্ত মোট চিহ্নিত রোগী ৫৫৮ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে ফিরে গেছেন ৪৪৩ জন। হাসপাতালে ভর্তি আছেন ১১৫ জন।

পাবনা: গত ২৪ ঘণ্টায় পাবনা জেলায় ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী চিহ্নিত হয়েছেন ১৮ জন। এ পর্যন্ত মোট চিহ্নিত রোগী ১৩৮ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে ফিরে গেছেন ৮৫ জন। হাসপাতালে ভর্তি আছেন ৫৩ জন। এদের মধ্যে বুধবার একজন যুবক মারা যান।

নাটোর: গত ২৪ ঘণ্টায় নাটোর জেলায় ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী চিহ্নিত হয়েছেন আটজন। এ পর্যন্ত মোট চিহ্নিত রোগী ১১৮ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে ফিরে গেছেন ১০২ জন। হাসপাতালে ভর্তি আছেন ১৬ জন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ: চাঁপাইনবাবগঞ্জে ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হন ১০ জন। এ পর্যন্ত মোট চিহ্নিত রোগী ১২৪ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে ফিরেছেন ৯৮ জন এবং হাসপাতালে ভর্তি আছেন ২৬ জন।

নওগাঁ: গত ২৪ ঘণ্টায় নওগাঁ জেলায় ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী চিহ্নিত হয়েছেন ২০ জন। এপর্যন্ত মোট চিহ্নিত রোগী ১৪৪ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে ফিরে গেছেন ১২৪ জন। হাসপাতালে ভর্তি আছেন ২০ জন।

জয়পুরহাট: গত ২৪ ঘণ্টায় জয়পুরহাট জেলায় ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী চিহ্নিত হয়েছেন তিনজন। এপর্যন্ত মোট চিহ্নিত রোগী ৫১ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে ফিরে গেছেন ৪৭ জন। হাসপাতালে ভর্তি আছেন চারজন।

সিরাজগঞ্জ: গত ২৪ ঘণ্টায় সিরাজগঞ্জ জেলায় ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী চিহ্নিত হয়েছেন ১৫ জন। এ পর্যন্ত মোট চিহ্নিত রোগী ৩২২ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে ফিরে গেছেন ২৭০ জন। হাসপাতালে ভর্তি আছেন ৫২ জন।

আপনার মতামত লিখুন :

রাজধানীতে শীর্ষ নারী মাদক ব্যবসায়ী আটক

রাজধানীতে শীর্ষ নারী মাদক ব্যবসায়ী আটক
মাদক ব্যবসায়ী আসমা বেগম।

রাজধানীর তুরাগ থানা এলাকা হতে ৪৩ হাজার পিস ইয়াবাসহ এক শীর্ষ নারী মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে র‍্যাব।

সোমবার (২৬ আগস্ট) বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বিষয়টি নিশ্চিত করে র‍্যাব ২ এর মেজর মোহাম্মাদ আলী বলেন, 'রোববার (২৫ আগস্ট) রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে র‍্যাব তাকে আটক করে।'

তিনি আরও বলেন, 'শীর্ষ ওই নারী মাদক ব্যবসায়ীর নাম আসমা বেগম। তিনি ২০/২৫ জন ইয়াবা ব্যবসায়ীকে নিয়ন্ত্রণ করেন। আমরা তাদের নেটওয়ার্কে প্রবেশ করেছি। একে একে এই সিন্ডিকেটের সবাইকে আটক করা হবে।' 

পদ্মার ভাঙনে ঘরহারা ২০০ পরিবার, আতঙ্কে ১৫ চরবাসী

পদ্মার ভাঙনে ঘরহারা ২০০ পরিবার, আতঙ্কে ১৫ চরবাসী
পানির স্রোতে ভাঙছে পদ্মার পাড়, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

রাজশাহীতে উজানের ঢলে নেমে আসা পানিতে ফেঁপে উঠছে পদ্মা। বিপদসীমার মাত্র ৭৮ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে পানি। তবে সেটা রাজশাহী শহররক্ষা বাঁধা এলাকায়। যেটিকে পদ্মার রাজশাহী পয়েন্ট হিসেবে ধরা হয়। পদ্মার মূল পয়েন্টে বিপদসীমা এখনো অতিক্রম না করলেও জেলার বাঘা উপজেলার চকরাজাপুর ইউনিয়নে পদ্মায় পানি বৃদ্ধিতে ব্যাপক ভাঙনের সৃষ্টি হয়েছে।

ভাঙনের কবলে পড়ে এরই মধ্যে বসত-ভিটা ছাড়া হয়েছেন দুই শতাধিক পরিবার। তারা প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে অন্যত্র চলে যাচ্ছেন। চরম আতঙ্কে দিন পার করছেন চকরাজাপুরের ১৫টি চরের মানুষ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/26/1566796058911.jpg

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, পদ্মায় ফুলে ফেঁপে ওঠা পানির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ভাঙছে নদীর পাড়। পদ্মার উত্তাল ঢেউয়ে পাড় ভেঙে চকরাজাপুর ও পাকুড়িয়া ইউনিয়নের আবাদি জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভেসে গেছে গাছপালা। আর ৫০ গজ ভাঙলেই পাকুড়িয়া ইউনিয়নের আলাইপুর নাপিতের মোড় ও কিশোরপুর এলাকার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে গিয়ে ঠেকবে ভাঙন। ভাঙন আতঙ্কে রয়েছে পদ্মা পাড়ের মানুষ। তবে ভাঙন রোধে কোনো তৎপরতা দেখা যায়নি।

আরও পড়ুন: বিপদসীমার ৭৮ সেন্টিমিটার নিচে পদ্মার পানি

চকরাজাপুর ইউনিয়নের লক্ষ্মীনগর চরের মান্নান মন্ডল, মিজানুর রহমান, সামাদ মালিথা, হানে ফকির, হাফিজুর রহমান, জাহিদুল ইসলাম, হানু কাজী, সাইদুল ইসলাম, মজনু মোল্লা ও চকরাজাপুর চরের হাসান শেখ, জব্বার মন্ডল, হিরো মন্ডল, শাহিনা বেগম, ফজলু শিকদার, আকতার মন্ডল, রহমান মোল্লা হাফিজুর রহমানসহ শতাধিক পরিবার ভিটে-মাটি হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/26/1566796157103.jpg

তাদের মতো ভাঙন আতঙ্কে ঠিকানা খুঁজছেন চকরাজাপুর চরের আরো শতাধিক পরিবার। ঠিকানা হারিয়ে কোথায় যাবেন তা নিয়েও দুঃশ্চিন্তা তাদের। পানিবন্দি হয়ে গবাদিপশু নিয়ে অবর্ণনীয় জীবন যাপন করছেন কালিদাখালি, চকরাজাপুর, চৌমাদিয়া, আতারপাড়া, চকরাজাপুর, পলাশি ফতেপুর, ফতেপুর পলাশি, লক্ষীনগর, চকরাজাপুর, পশ্চিম চরকালিদাস খালী, পূর্ব চকরাজাপুর, জোতাশি, মানিকের চর, লক্ষিনগর, টিকটিকিপাড়া, দিয়াড়কাদিরপুর, নওশারা-মহদীপুর চরের মানুষ।

স্থানীয় সবুর মল্লিক ও লিটন আলী বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানান, নদী তীরবর্তী বাঁধের পশ্চিমপাড় থেকে এ ভাঙন শুরু হয়েছে। নদী ভাঙন রোধে জরুরি পদক্ষেপ না নিলে অরক্ষিত এলাকার আরও অনেক জমি ও ঘরবাড়ি নদী গর্ভে হারিয়ে যাবে।

চকরাজাপুর চরের মোস্তাক আহম্মেদ শিকদার বলেন, ‘গত কয়েক দিনে পদ্মায় বিঘার পর বিঘা জমির ধান, পাট, আবাদি জমি, গাছপালা হারিয়ে গেছে। মানুষদের সহযোগিতা তো দূরের কথা সান্ত্বনা দেওয়ার মতোও কেউ নেই। বারবার সরকার ও জনপ্রতিনিধিদের পক্ষ থেকে ভাঙন ঠেকানোর আশ্বাস দিলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি।’

আরও পড়ুন: বর্ষায় শান্ত পদ্মা ফুঁসে উঠছে শরতে

পূর্ব চকরাজাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দেওয়ার শওকত জামান বলেন, ‘কয়েক দিনের পানি বৃদ্ধির কারণে ফসলি জমিসহ গাছ-পালা, বাড়ি-ঘর নদীতে বিলীন হয়েছে। বিভিন্ন স্থানে আশ্রয় নিয়ে কোনো রকম বেঁচে আছে দুই শতাধিক পরিবার। তারা এখন ঘরবাড়ি সরাতে ব্যস্ত।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/26/1566796113226.JPG

চকরাজাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজিজুল আযম বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘আমরা এরমধ্যেই ৩০টি পারিবারের তালিকা তৈরি করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে প্রেরণ করেছি। অন্যদের ব্যাপারেও খোঁজ-খবর নেওয়া হচ্ছে। যাদের ঘর-বাড়ি ভেঙেছে তাদের সরকারি সহযোগিতার ব্যবস্থা করা হবে।’

জানতে চাইলে বাঘা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) শাহিন রেজা বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘আমরা স্থানীয় জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে ৩০টি পরিবারের তালিকা পেয়েছি। সেটি উপরমহলে জানানো হয়েছে। ত্রাণ সামগ্রী বরাদ্দ পেলে তাদের পৌঁছে দেওয়া হবে। এছাড়া ভাঙনের বিষয়ে জরুরি ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবগত করা হয়েছে।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র