Barta24

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

চীনা সহায়তার প্রকল্পগুলোর গতি বাড়ানোর তাগিদ রেলমন্ত্রীর

চীনা সহায়তার প্রকল্পগুলোর গতি বাড়ানোর তাগিদ রেলমন্ত্রীর
রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন/ ফাইল ছবি
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

রেলপথ মন্ত্রী মোঃ নূরুল ইসলাম সুজন বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূতকে চীনের সহায়তায় বাংলাদেশ রেলওয়েতে চলমান প্রকল্পগুলোর কাজের গতি বাড়াতে সহায়তার অনুরোধ জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) সকালে রেলমন্ত্রী রেলভবনে বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত জাং জুয়াও রেলমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করতে আসলে এ অনুরোধ জানানো হয়।

নুরুল ইসলাম সুজন এ সময় বলেন, ‘বর্তমানে চীনের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্পসহ অনেক বড় প্রকল্পে কাজ করছে। পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্প সরকারের অগ্রাধিকার প্রকল্পের একটি।’

কাজের গুণাগুণ ঠিক রেখে নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ করতে ঠিকাদারকে চাপে রাখার জন্য রাষ্ট্রদূতকে অনুরোধ করেন রেলমন্ত্রী।

রেলমন্ত্রী বলেন, ‘সারাদেশকে পর্যায়ক্রমে ডুয়েলগেজে রুপান্তরের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ জন্য চীন সরকারের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় আর্থিক সহায়তা দরকার।’

তাছাড়া বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের চীনে কারিগরি প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ করেন রেলমন্ত্রী। বিশেষ করে রেলওয়েতে যন্ত্রকৌশল ও পুরকৌশল বিষয়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহণের উপর অগ্রাধিকার দেন।

রেলমন্ত্রী এ সময় রোহিঙ্গাদের দ্রুত ফিরিয়ে নিতে সহায়তার জন্যও চীনা রাষ্ট্রদূতকে অনুরোধ জানান। চলমান ও ভবিষ্যতে চীনের অর্থায়নে গৃহীত সম্ভাব্য প্রকল্প নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়।

বিশেষ করে জি টু জি ভিত্তিতে যে চারটি প্রকল্প চলছে- পদ্মা সেতু রেল সংযোগ, ঈশ্বরদী-জয়দেবপুর সেকশনে ডুয়েলগেজ ডাবল লাইন নির্মাণ, আখাউড়া-সিলেট সেকশনকে ডুয়েলগেজে রুপান্তর প্রকল্প ও জয়দেবপুর-ময়মনসিংহ-জামালপুর সেকশনে ডুয়েলগেজ লাইন নির্মাণ প্রকল্প নিয়ে আলোচনা হয়।

চীনের রাষ্ট্রদূত এ সময় বাংলাদেশে হাইস্পিড ট্রেন নির্মাণে সহায়তার আগ্রহ প্রকাশ করে বলেন, ‘চীন এখন উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে উচ্চ গতির ট্রেন চালাচ্ছে। বাংলাদেশে আমরা দ্রুত গতির ট্রেন নির্মাণে আগ্রহী। এছাড়া চলমান প্রকল্পগুলোর কাজের গতি বাড়ানোর বিষয়ে ঠিকাদারদের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত আছে।’

এ সময় রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ মোফাজ্জেল হোসেন, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক কাজী মোঃ রফিকুল আলম ও একাধিক প্রকল্প পরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :

বার্তা২৪.কমে খবর প্রকাশ: সরকারি গাছ কাটা বন্ধ করলেন ইউএনও

বার্তা২৪.কমে খবর প্রকাশ: সরকারি গাছ কাটা বন্ধ করলেন ইউএনও
গাছ পরিদর্শনে ফারহানা করিম, ছবি: বার্তা২৪.কম

মাল্টিমিডিয়া অনলাইন নিউজপোর্টাল বার্তা২৪.কম সহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশের পর ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার জেলখানা মোড় এলাকায় ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণ প্রতিষ্ঠানের ঠিকাদারকে উক্ত এলাকার সরকারি গাছ কাটা বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ফারহানা করিম।

সোমবার (২৪ জুন) বার্তা২৪.কমে ‘সরকারি গাছ কাটছে এমডি ফরিদ উদ্দিন কনস্ট্রাকশন’ শিরোনামে খবর প্রকাশিত হয়। সংবাদ প্রকাশের পর মঙ্গলবার (২৫ জুন) বিকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফায়ার সার্ভিস স্টেশন এলাকায় গাছ কাটার ঘটনা তদন্ত করতে যান। খবর পেয়ে  গাছ কাটার শ্রমিকরা ও করাতকলের মালিক ইজ্জত আলী পালিয়ে যান।

এসময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার সরকারি গাছ কাটার অনুমতিপত্র আছে কিনা জানতে চাইলে নির্মাণাধীন প্রতিষ্ঠান এমডি ফরিদ উদ্দিন কনস্ট্রাকশনের ঠিকাদার বাপ্পীদের ছোট ভাই কোনো ধরনের কাগজপত্র দেখাতে ব্যর্থ হয়। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার গাছকাটা বন্ধের নির্দেশ দেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফারহানা করিম বলেন, ‘ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। অনুমতি না থাকায় গাছকাটা বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।’ 

বাংলাদেশের আমের স্বাদে মুগ্ধ ব্রিটিশ হাইকমিশনার

বাংলাদেশের আমের স্বাদে মুগ্ধ ব্রিটিশ হাইকমিশনার
বাগান ঘুরে আম দেখছেন ব্রিটিশ হাইকমিশনার, ছবি: বার্তা২৪.কম

একদিনের সফরে মঙ্গলবার (২৫ জুন) রাজশাহীতে এসেছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ডেপুটি ব্রিটিশ হাইকমিশনার কানবার হোসেন বর। সকালে পূর্বনির্ধারিত কাজ শেষে বিকেলে বের হয়েছিলেন রাজশাহীর আম বাগান পরিদর্শনে। উদ্দেশ্য বাগানে বসে গাছপাকা আম খাওয়া।

বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত রাজশাহী মহানগরীর জিন্নাহনগরের একটি আম বাগানে ঘুরে ঘুরে বিভিন্ন গাছের আমের স্বাদ নেন তিনি। রাজশাহী অ্যাগো ফুড প্রডিউসার সোসাইটির চেয়ারম্যান মো. আনোয়ারুল হকের বাগানের ল্যাংড়া, আম্রপালি ও রাজভোগ আম খেয়ে মুগ্ধতার কথা জানান কানবার হোসেন বর।

বাগান ঘুরে গাছ থেকে নিজে আম পেড়ে সঙ্গে নিয়েও গেছেন বর্তমান ভারপ্রাপ্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনারের দায়িত্বে থাকা কানবার।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/25/1561484344215.jpg

যাওয়ার সময় বলে গেলেন, ‘অসাধারণ আম! গাছ পাকা এমন স্বাদের আম আমি আগে কখনও খাই নি। বাংলাদেশে যতদিন আছি, আমের মৌসুমে বারবার এখানে আসতে মন চাইবে নিশ্চয়। চেষ্টা থাকবে প্রতিবছর রাজশাহীতে এসে তৃপ্তি সহকারে আম খাওয়ার।’

অ্যাগ্রো ফুড প্রডিউসার সোসাসাইটির চেয়্যারম্যান আনোয়ারুল হক জানান, ব্রিটিশ হাইকমিশনার কানবার হোসেন বর মঙ্গলবার বিকেলে আমার বাগানে আম দেখতে এবং খেতে এসেছিলেন।

তিনি গাছ থেকে ল্যাংড়া, আম্রপালি ও রাজাভোগ আম পেড়ে খেয়েছেন। রাজশাহীর আমের প্রেমে পড়ে গেছেন বলে আবার আসার কথা জানিয়ে গেছেন হাইকমিশনার।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র