Barta24

রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

পাসপোর্টবিহীন পাইলট: ইমিগ্রেশন পুলিশের এসআই বরখাস্ত

পাসপোর্টবিহীন পাইলট: ইমিগ্রেশন পুলিশের এসআই বরখাস্ত
ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বহনকারী উড়োজাহাজের পাইলট পাসপোর্ট ছাড়া কাতার যাওয়ার ঘটনায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন পুলিশের সাব ইন্সপেক্টর (এসআই) কামরুজ্জামানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

শনিবার ( ৮ জুন) বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশনের অতিরিক্ত বিশেষ পুলিশ সুপার মো. ইসমাইল হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ইমিগ্রেশন পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের পাইলট ফজল মাহমুদ পাসপোর্ট ছাড়া কাতারে গিয়ে সেখানকার ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে আটক হন। এ ঘটনার সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে চারদিকে সমালোচনা শুরু হয়। যেহেতু পাইলট ফজল মাহমুদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বহনকারী উড়োজাহাজের পাইলট সেই জন্য বিষয়টি নিয়ে আলোচনা আরও বৃদ্ধি পায়।

পরে এ বিষয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন পুলিশের ভূমিকা নিয়েও নানা প্রশ্নে ওঠে। এ জন্য পাসপোর্ট না দেখেই পাইলট ফজল মাহমুদকে কাতারে যাওয়ার অনুমতি দেওয়ার ঘটনায় ইমিগ্রেশনের এসআই কামরুজ্জামানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

আরও পড়ুন: পাসপোর্ট ছাড়াই বিমানের পাইলট কাতারে, তদন্ত কমিটি গঠন

ইসমাইল হোসেন বলেন, ‘পাইলট ফজল মাহমুদ ইমিগ্রেশন পুলিশকে বলেছিল তার পাসপোর্ট রয়েছে। তিনি সিনিয়র পাইলট হওয়ায়, তার কথায় ইমিগ্রেশন পুলিশ বিশ্বাস করে ছেড়ে দেয়। কিন্তু তার পরও তার পাসপোর্ট না দেখে ওই পাইলটকে ইমিগ্রেশন পার করতে দেওয়ায় এসআই কামরুজ্জামানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। আমরা এ বিষয়ে সদর দফতরে রিপোর্ট দিয়েছি।’

এদিকে সাবংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি পাইলট ভুল করে পাসপোর্ট নেননি। যেহেতু এটি প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বিমান ছিল, সেহেতু পাইলটের ভুল করা উচিত হয়নি।’

‘পাইলট ভুল করেই এটা করেছেন। বিমানবন্দরে দুই-তিন জায়গায় চেক হয়। তবে এ বিষয়ে ইমিগ্রেশন পুলিশের দায়িত্ব অবহেলা রয়েছে। আমাদের ইমিগ্রেশন পুলিশের গাফিলতির কারণে পুলিশ প্রধান ইতোমধ্যে তাকে সাসপেন্ড করেছে।’

আপনার মতামত লিখুন :

ঢাকার নদী দূষণ ও দখল রোধে মাস্টার প্ল্যান চূড়ান্ত

ঢাকার নদী দূষণ ও দখল রোধে মাস্টার প্ল্যান চূড়ান্ত
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, ছবি: বর্তাটোয়েন্টিফোর.কম

চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীসহ ঢাকার চারপাশের নদীগুলোর দূষণ ও দখল রোধ এবং নাব্যতা বৃদ্ধির জন্য প্রণীত দুটি মাস্টারপ্ল্যান চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

রোববার (২১ জুলাই) সচিবালয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীসহ ঢাকার চারপাশের নদীগুলোর দূষণ ও দখলরোধ এবং নাব্যতা বৃদ্ধির জন্য প্রণীত দুটি মাস্টারপ্ল্যান প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন করেছেন। কালক্ষেপণ না করে বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নিতে নির্দেশনা দিয়েছেন। মন্ত্রণালয়, অধিদফতর, সংস্থা এ মাস্টারপ্ল্যান অনুযায়ী নিজ নিজ কার্যক্রম শুরু করেছে।

তিনি জানান, ইতোপূর্বে প্রণীত খসড়া মাস্টারপ্ল্যান দুটি নিবিড়ভাবে পর্যালোচনা পূর্বক সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগের স্ব স্ব দায়িত্ব ও করণীয় মাস্টারপ্ল্যানে যথাযথভাবে প্রতিফলিত হয়েছে কিনা সে বিষয়ে মন্ত্রণালয় ও বিভাগসমূহের বিস্তারিত মতামত গ্রহণ করা হয়। প্রণীত মাস্টারপ্ল্যানে ২৪টি মূল কার্যক্রম এবং এর আওতায় ১৮০টি সহযোগী কার্যক্রম চিহ্নিত করা হয়েছে।

তাজুল ইসলাম আরও জানান, মাস্টারপ্ল্যানটিতে চট্টগ্রামের কর্ণফুলী এবং হালদা নদীর জন্য ৪৫টি মূল কার্যক্রম এবং এর আওতায় ১৬৭টি সহযোগী কার্যক্রম চিহ্নিত করা হয়েছে। দুটি মাস্টারপ্ল্যানই ক্রাশ প্রোগ্রাম, স্বল্পমেয়াদী, মধ্যমেয়াদী এবং দীর্ঘমেয়াদী পদক্ষেপের মাধ্যমে বাস্তবায়ন করা হবে।

সাম্প্রতিক সময়ের ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো এডিস মশার বিস্তার তথা ডেঙ্গু প্রতিরোধে সর্বাত্মক কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। এজন্য নাগরিকদের সচেতনতা বৃদ্ধি জরুরি।’

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ, পানি সম্পদ সচিব কবীর বিন আনোয়ার সহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ।

ঈদের আগে পরে ৮ দিন ফেরিতে ট্রাক-লরি পারাপার বন্ধ

ঈদের আগে পরে ৮ দিন ফেরিতে ট্রাক-লরি পারাপার বন্ধ
নৌ প্রতিমন্ত্রীর সভা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

পবিত্র ঈদুল আজহার আগের পাঁচ দিন ও পরের তিন দিনসহ মোট আট দিন ফেরিতে ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান ও লরি পারাপার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) প্রস্তাবিত ১০ দিন বন্ধ রাখার প্রেক্ষিতে এ সিদ্ধান্ত হয়। তবে পণ্য ও কোরবানির পশুবাহী ট্রাক এ নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবে।

রোববার (২১ জুলাই) বিদ্যুৎ ভবনে নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে ঈদে লঞ্চ, ফেরি, স্টিমার চলাচল ও যাত্রীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বন্যার কারণে পানি বৃদ্ধি ও তীব্র স্রোতের কারণে ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ার বিষয়টি উঠে আসে। প্রতিমন্ত্রী এ সমস্যা মোকাবিলায় সব প্রস্তুতি রাখার নির্দেশ দেন, পাশাপাশি ঈদে যাতে যাত্রীদের দুর্ভোগ না হয় সে বিষয়েও সতর্ক থাকার পরামর্শ দেন।

এ সময় বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান ও লরি চলাচল ১০ দিন বন্ধ রাখার প্রস্তাব করেন। এর কারণ হিসেবে বলা হয়, বন্যার কারণে বিভিন্ন স্থানে পানি বেড়ে যাওয়ায় ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। এর ওপর ঈদে বাড়তি গাড়ির চাপ পড়লে দীর্ঘ যানজট হতে পারে। তাই ঈদের আগে পরে ১০ দিন ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান ও লরি পারাপার বন্ধ রাখলে দুর্ভোগ লাঘব হবে। তবে ১০ দিন বন্ধ রাখার পক্ষে একমত হওয়া যায়নি। ফলে প্রাথমিকভাবে ঈদের আগে পাঁচ দিন ও পরে তিন দিন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়।

এ বিষয়ে বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান প্রণয় কান্তি বিশ্বাস বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘আমরা বন্যার কারণে নদীতে পানি বৃদ্ধি ও প্রবল স্রোতের বিষয়টি মাথায় রেখে ঈদের আগে ও পরে মিলিয়ে মোট ১০ দিন ফেরিতে পশুবাহী ও নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যবাহী ভারি যানবাহন ছাড়া অন্য সব ট্রাক-লরি পারাপার বন্ধ রাখার প্রস্তাব করেছিলাম। কিন্তু সেটি কমিয়ে ঈদের আগে পাঁচ দিন ও পরে তিন দিন করার সিদ্ধান্ত হয়। তবে এখনও এটি ঘোষণা হয়নি, ঘোষণা হলেই জানা যাবে।’

সূত্র জানায়, রাতে সব ধরনের মালবাহী জাহাজ, বালুবাহী বাল্কহেড চলাচল বন্ধ রাখার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। ঈদের আগে পাঁচ দিন ও ঈদের পরের পাঁচ দিন দিনের বেলায়ও সব বাল্কহেড চলাচল বন্ধ থাকবে। লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী না ওঠানো, বাড়তি ভাড়া না নেওয়া এবং যাত্রীদের জানমালের নিরাপত্তায় পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসনের ভিজিলেন্স টিম গঠনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয় সভায়।

1
ফেরি ঘাটে ট্রাকের দীর্ঘ সারি, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

 

সভায় প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘যাত্রীদের নিরাপদ যাতায়াতে গত ঈদুল ফিতরের সময় নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় একটি টিম ওয়ার্কের মাধ্যমে ভালো কাজ করেছিল। এবারের ঈদুল আজহায়ও সবাই মিলে ঈদ যাত্রাকে আরো নিরাপদ রাখতে চাই। অতিবৃষ্টি ও বন্যার কারণে ফেরি চলাচলে বিঘ্নিত হলেও আমাদের আরো দায়িত্ব নিয়ে কাজ করতে হবে। কোরবানির পশু আসা নিয়ে নৌপথে অনেক সময় অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে থাকে; এসব বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নজরদারি বাড়াতে হবে।’

সভায় অন্যান্যের মধ্যে নৌ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবদুস সামাদ, বিআইডব্লিউটিএ-এর চেয়ারম্যান কমডোর এম মাহবুব উল ইসলাম, নৌ পরিবহন অধিদফতরের মহাপরিচালক কমডোর সৈয়দ আরিফুল ইসলাম, নৌ পুলিশের ডিআইজি মো. আতিকুল ইসলাম, কোস্টগার্ডের ঢাকা জোনের কমান্ডার রেজাউল হাসান, বিভিন্ন জেলার প্রশাসক এবং পুলিশ সুপার, লঞ্চ মালিক শহীদুল ইসলাম ভূঁইয়া, বদিউজ্জামান বাদল, নৌযান শ্রমিক নেতা মো. শাহ আলম ও জাহাঙ্গীর আলম উপস্থিত ছিলেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র