Barta24

বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৯, ৬ ভাদ্র ১৪২৬

English

খুলনায় গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি, শেষ মুহূর্তের কেনাকাটায় ব্যাঘাত

খুলনায় গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি, শেষ মুহূর্তের কেনাকাটায় ব্যাঘাত
খুলনায় গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি / ছবি: বার্তা২৪
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
খুলনা


  • Font increase
  • Font Decrease

পুশ্চিমা মৌসুমি বায়ুর চাপে খুলনায় দিনভর গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হয়ছে। এতে বিরাজমান ভ্যাপসা গরমের মাত্রা সহনীয় পর্যায়ে নেমে আসে। তবে ব্যাঘাত ঘটছে শেষ মুহূর্তের ঈদ কেনাকাটায়।

মঙ্গলবার (৪ মে) সকালে হালকা রোদ উঠলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় বৃষ্টিপাত। কখনো গুঁড়ি গুঁড়ি আবার কখনো ভারী বর্ষণে বিপাকে পড়েছেন শেষ মুহূর্তের ঈদ বাজারে কেনাকাটা করতে আসা মানুষেরা।

অপ্রস্তুত অবস্থায় ঈদের কেনাকাটা করতে আসা আইনজীবী পারভেজ হক বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘সকালে রোদ দেখে ঈদের কেনাকাটা করতে বের হয়েছি। হঠাৎ করে বৃষ্টি নামল। ছাতা নিয়ে বের না হওয়ায় হেঁটে যেতে পারছি না। বৃষ্টি শুরু হওয়ায় আমাদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।’

ব্যবসায়ী হোসেন মিয়া বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘সকাল থেকে বৃষ্টি শুরু হওয়ায় ক্রেতারা বাজারে আসতে পারছেন না। তবে বৃষ্টি উপেক্ষা করে যারাই আসছেন, তারাই কেনাকাটা করছেন। আজ মার্কেটে কোনো দর্শনার্থী নেই, যারা আসছেন সবাই ক্রেতা। বৃষ্টির কারণে আশানুরুপ বিক্রি হচ্ছে না।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/04/1559667945863.jpg

খুলনা আঞ্চলিক আবহাওয়া অফিসের সিনিয়র আবহাওয়াবিদ আমিরুল আজাদ বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘খুলনায় আগামী বুধবার (৫ জুন) ভোর থেকে থেমে থেমে সারাদিন হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। বঙ্গোপসাগর থেকে কিছু মেঘমালা ভেসে আসায় ও কালবৈশাখীর প্রভাবে এ বৃষ্টিপাত হচ্ছে। ঈদের দিনও বৃষ্টি হতে পারে।’

এদিকে খুলনায় ঈদের প্রধান জামাতের জন্য নির্ধারিত খুলনা সার্কিট হাউস ময়দানে বৃষ্টিপাতের কারণে কিছু অংশে পানি জমে গিয়েছে। বালু দিয়ে ভরাট করা মাঠে পানি দ্রুত শোষণ হবে। তবে রাতে আরও ভারী বর্ষণ হলে ঈদের জামাত সার্কিট হাউস ময়দানে হবে কিনা তা নিয়ে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। খুলনায় আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ঈদুল ফিতরের প্রথম ও প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায় খুলনা সার্কিট হাউসে এবং দ্বিতীয় ও শেষ জামাত খুলনা টাউন জামে মসজিদে সকাল ৯টায় অনুষ্ঠিত হবে। আবহাওয়া প্রতিকূল হলে টাউন জামে মসজিদে প্রথম ও প্রধান জামাত সকাল ৮টায়, দ্বিতীয় জামাত ৯টায় এবং তৃতীয় ও শেষ জামাত ১০টায় অনুষ্ঠিত হবে। আবহাওয়া প্রতিকূল হলে কোর্ট জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৮টায় একটি জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

আপনার মতামত লিখুন :

সহপাঠীকে ধর্ষণের অভিযোগে শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার

সহপাঠীকে ধর্ষণের অভিযোগে শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার
অভিযুক্ত শিক্ষার্থী শিঞ্জন রায়, ছবি: সংগৃহীত

খুলনায় সহপাঠীকে ধর্ষণের অভিযোগে নর্থ ওয়েস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়‌ের শিক্ষার্থী শিঞ্জন রায়কে (২৫) সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

বুধবার (২১ আগস্ট) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জানানো হয়, সহপাঠীকে ধর্ষণ ও গর্ভবতী করার অভিযোগে নর্থ ওয়েস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শিঞ্জন রায়কে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। একইসঙ্গে ঘটনার তদন্তে ৩ সদস্যর কমিটি গঠিত হয়েছে।

নর্থ ওয়েস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয় খুলনা শাখার উপাচার্য প্রফেসর ড. তারাপদ ভৌমিক বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শিঞ্জণের ঘটনাটি শোনার পর মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকের পর নর্থ ওয়েস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের চেয়ারম্যানের সঙ্গে আলোচনা করে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শিঞ্জনকে সাময়িক বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি ঘটনাটি তদন্তের জন্য ৩ সদস্যর কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. নওশের আলী মোড়লকে তদন্ত কমিটির প্রধান করা হয়েছে।

রাজশাহী চিড়িয়াখানায় বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে শিশু খেলনা!

রাজশাহী চিড়িয়াখানায় বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে শিশু খেলনা!
ভেঙেচুরে বিপজ্জনক আকার ধারণ করেছে রাজশাহী চিড়িয়াখানার শিশু খেলনাগুলো, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

রাজশাহী নগরীর কাজীহাটা এলাকার বাসিন্দা আশরাফুল ইসলাম দু’দিন আগে পাঁচ বছর বয়সী মেয়ে তানিয়া আক্তার রিক্তাকে নিয়ে ঘুরতে যান নগরীর প্রধান বিনোদন কেন্দ্র শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান উদ্যান ও চিড়িয়াখানায়। সেখানে শিশুদের জন্য থাকা স্লাইডারে ওঠার বায়না ধরেন শিশু রিক্তা। স্লাইডারে উঠে স্লাইড করতেই উরু কেটে রক্ত ঝরতে শুরু করে শিশুটির। দেখা যায়- স্লাইডারের ভেতরে ভেঙে ধারালো হয়ে ওঠা অংশে লেগে কেটে রক্তাক্ত হয়েছে ওই শিশু।

বুধবার (২১ আগস্ট) সকালে বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে এমন দুর্ঘটনার কথা জানান ভুক্তভোগী শিশুর বাবা আশরাফুল ইসলাম।

তিনি বলেন, 'আমার বাচ্চাকে নিয়ে একজন চিকিৎসকের কাছে যাই। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ওই চিকিৎসক জানান- স্লাইডারের ভাঙা অংশে মরিচা ধরে যাওয়ায় এতে কারো হাত-পা বা শরীরের কোনো অংশ কেটে গেলে ইনফেকশন হওয়ার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে।'

এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে বুধবার বেলা ১১টার দিকে শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যানে গিয়ে দেখা যায়, শিশুদের উন্মুক্ত বিনোদন এবং মানসিক শক্তি বাড়ানোর তাগিদ নিয়ে নির্মাণ করা উদ্যানের খেলনাগুলো পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। রাইডগুলো তার সক্ষমতা হারিয়েছে এবং নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে খেলনা তৈরির জন্য তা ধ্বংস হয়ে গেছে। কোনটির কাঠামোও নেই।

রাজশাহী চিড়িয়াখানায় বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে শিশু খেলনা!

অনেক খেলনা ভেঙে যাওয়ার কারণে আলাদা জায়গায় সরিয়ে রাখা হয়েছে। ভেঙেচুরে একাকার অবস্থা হাইড্রোলিক গাড়িটিও। জাম্পিং রোলারটিও পুরোটাই নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। ভেঙে গেছে সকল স্লাইড। কোনোটির স্লাইডারে চড়ার রাস্তার নেই প্ল্যানসিট। এমনকি সিঁড়িও ভাঙা।

জানা যায়, শিশুদের বিনোদনের জন্য ২০১৩ সালে কেনা হয় এক কোটি পাঁচ লাখ টাকার পাঁচ সেট রাইড। এগুলোতে ফ্রি খেলার সুযোগ পেত শিশুরা। পাঁচ বছর ব্যবধানে অযত্ন-অবহেলায় সবগুলো খেলনা নষ্ট হয়ে গেছে। বিনামূল্যে বিনোদনের কোনো সুযোগ না থাকায় সেই সব ভাঙা খেলনাগুলোতেই খেলে বেড়াচ্ছে শিশুরা। শিশুদের ফ্রি রাইডগুলোগুলো ভেঙে তা বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে। ফলে প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনাও।

অভিভাবকদের দাবি- দীর্ঘদিন থেকেই পরিত্যক্ত অবস্থায় এসব খেলনাগুলো পড়ে আছে। ফলে এখানে খেলতে গেলে শিশুদের শরীর কেটে গেলে মারাত্মক জখম হয়।

রাজশাহী বেতারের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সাইদুজ্জামান তার নাতিকে নিয়ে এসেছেন। তিনি বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'খেলতে গিয়ে সে রাইড থেকে পড়ে গিয়েছিল। ব্যথা পেয়েছে। এখানে স্লিপারসহ বেশিরভাগ রাইডই নষ্ট। আমি মনে করি- এটি দ্রুত সংস্কার করা দরকার'।

রাজশাহী চিড়িয়াখানায় বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে শিশু খেলনা!

রাজশাহীর মোহনপুর থেকে ছেলে ও মেয়ে নিয়ে ঘুরতে আসা রুনা লায়লা বলেন, 'এখানে তো খেলার কিছুই নেই। সব ভাঙা। খেলনাগুলো ভালো থাকলে আরও ভালোভাবে বাচ্চারা খেলতে পারত। মজাও পেত। এখন খেলনা ভাঙার কারণে বাচ্চারা খেলতেও পারছে না মজাও পাচ্ছেন না।'

চিড়িয়াখানার তত্ত্বাবধায়ক মাহবুবুর রহমান বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'দায়িত্ব নেওয়ার পর এটি আমি লক্ষ করছি। বিষয়টি প্রকৌশল বিভাগকে জানানো হয়েছে। তারপরও অতিদ্রুত এটি সংস্কার করার জন্য আবারও তাদেরকে জানানো হবে।' তারা এটি সংস্কার করবেন বলে জানান এই কর্মকর্তা।

তবে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক ডা. ফরহাদ হোসেন বলেছেন ভিন্ন কথা। তিনি বলেন, 'এসব রাইড ফাঁকাস্থানে রাখার জন্যই নষ্ট হয়েছে। অনেকটা ব্যবহারের জন্যও নষ্ট হয়েছে।' তবে এ বিষয়ে সিটি করপোরেশনকে অব্যহতি করেছেন বলেও জানান।

রাসিকের প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল হক বলেন, 'খুব শিগগিরই এগুলো মেরামত করা হবে। দরপত্র আহ্বানের মাধ্যমে নতুন রাইড বসানো হবে।'

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র