Barta24

শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

চালকদের জন্য মরণ ফাঁদ ঘোগা ব্রিজ

চালকদের জন্য মরণ ফাঁদ ঘোগা ব্রিজ
ঝুঁকি নিয়েই ব্রিজ পার হচ্ছে দুইটি বাস, ছবি: বার্তা২৪
মনি আচার্য্য
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

শেরপুর (বগুড়া) থেকে: ঢাকা-উত্তরবঙ্গ মহাসড়কের বগুড়া জেলা সীমানার ৬৮ কিলোমিটারের মধ্যে প্রায় সাতটি ব্রিজ ও কালভার্ট রয়েছে। এই সাত সেতু ও কালভার্টের মধ্যে প্রায় সবগুলোই দুর্ঘটনা প্রবণ এবং মারাত্মক ঝুঁকিপূর্ণ। এর মধ্যে সব থেকে বেশি ভয়াবহ ও মরণ ফাঁদ হিসেবে পরিচিত শেরপুরের ঘোগা ব্রিজ।

স্থানীয় বাসিন্দা ও বাস চালকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রতি বছরই ছোট থেকে শুরু করে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে এই ব্রিজে। এই ৬৮ কিলোমিটার রাস্তায় যতোগুলো পয়েন্ট দুর্ঘটনা কবলিত তার মধ্যে শুধু এই ব্রিজেই দুর্ঘটনার হার সবচেয়ে বেশি।

তবে এতো কিছুর পরও ব্রিজটি পরিপূর্ণভাবে নির্মাণ হয়নি। মাঝে মধ্যেই ছোটখাটো কিছু সংস্কার কাজ হলেও তা পর্যাপ্ত নয়। ফলে ঈদযাত্রাকে সামনে রেখে ঘোগা ব্রিজ এখন আতঙ্কের নাম চালকদের কাছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/31/1559314471660.jpg
ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজের উপর দিয়ে দ্রুত গতিতে পার হচ্ছে তেলবাহী গাড়ি, ছবি: বার্তা২৪

 

শুক্রবার (৩১ মে) ঢাকা-উত্তরবঙ্গ মহাসড়কের বগুড়া জেলা সীমানার শেরপুরে অবস্থিত ব্রিজটি সরেজমিনে চালকদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা যায়।

আরও পড়ুন: ঈদযাত্রা: এবারও শেরপুরে যাত্রীদের ভোগান্তি

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মহাসড়কের তুলনায় ব্রিজটি প্রায় অর্ধেক প্রশস্ত হওয়ায় সেটি এখন মরণ ফাঁদ। দুইটি বাস বা ট্রাক ব্রিজটি দিয়ে এক সঙ্গে যাতায়াত করতে পারে না।

এ বিষয়ে যাতায়াত করা বিভিন্ন পরিবহনের চালকরা বলেন, ‘প্রায় ৪০ বছরের পুরনো সেতু, যার প্রশস্ততা ২৪ ফুট। অথচ মহাসড়কের প্রশস্ততা ৪০ ফুট। ফলে এই ব্রিজ পার হতে চালকদের অনেক ঝুঁকি নিতে হয়। তবে ব্রিজটি দিনের বেলার তুলনায় রাতে আরও ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠে। সেই কারণে ঈদ যাত্রাকে সামনে রেখে তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রাখতে হবে চালকদের। না হলে ঘটে যেতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/31/1559314592566.jpg
ব্রিজের এক পাশ দিয়ে গাড়ি চললে অন্য পাশ দিয়ে গাড়ি চলাচল করা বেশ বিপদজনক, ছবি: বার্তা২৪

 

এ বিষয়ে শ্যামলী পরিবহনের চালক মো. জালাল বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘ব্রিজটির সামনে ও পেছনে বড় বড় দুটি বাঁক রয়েছে। সামনে ও পেছনের গাড়ি দেখতে সমস্যা হয়। ফলে হঠাৎ করে দুই গাড়ির মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়ে যায়। এমন অনেক দুর্ঘটনা ব্রিজটিতে ঘটেছে এবং বহু লোক হতাহত হয়েছেন।'

আরও পড়ুন: যানজট আর মৃত্যুঝুঁকি সিরাজগঞ্জ-বগুড়া মহাসড়কে!

‘সব চালককে ব্রিজটি পার হওয়ার সময় সতর্ক থাকতে হবে। কেননা এই ব্রিজে অল্প একটু অসাবধানতা ঘটিয়ে দিতে পারে বড় কোনো দুর্ঘটনা।'

শাহ ফাহতে আলী পরিবহনের চালক সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ‘ঈদ যাত্রার আগে প্রতিবারই শোনা যায় ব্রিজটি পূর্ণ নির্মাণ করা হবে। কিন্তু কোনো কিছুই শেষ পর্যন্ত আর হয় না। ঈদযাত্রা উপলক্ষে গাড়ির পরিমাণ বেড়ে যায়। সেই সঙ্গে ঝুঁকিও বাড়ে অনেক বেশি এই ব্রিজে। তাই সতর্কতা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই এই ব্রিজে।’

আরও পড়ুন: ঈদযাত্রার প্রথম দিনেই মহাসড়কে চরম ভোগান্তি

এ বিষয়ে স্থানীয় বাসিন্দা মো. আকবর আলী বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘প্রতিবারই দুর্ঘটনা হলে ব্রিজটি সংস্কার করা হয়। কিন্তু পূর্ণ নির্মাণ করে প্রশস্ত করা হয় না। ফলে ঝুঁকি থেকেই যায় এই পয়েন্ট। আর এ কারণে ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের এই স্পটে সর্বোচ্চ দুর্ঘটনার শিকার হয়। তাই এবারও ঈদ যাত্রাকে ঘিরে এই পয়েন্টে আতঙ্ক থেকেই গেছে।’

আপনার মতামত লিখুন :

রোহিঙ্গা ইস্যুতে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে সেমিনার

রোহিঙ্গা ইস্যুতে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে সেমিনার
যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে সেমিনারে আলোচকরা/ ছবি: সংগৃহীত

মিয়ানমার থেকে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের টেকসই ও স্থায়ী প্রত্যাবাসনে ভূমিকা রাখতে শিক্ষাবিদ, গবেষক ও উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন।

শুক্রবার (১৯ জুলাই) যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টনে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের হার্ভার্ড কেনেডি স্কুলের ‘অ্যাশ সেন্টার ফর ডেমোক্রেটিক গভর্ননেন্স এন্ড ইনোভেশন’ সেন্টারে অনুষ্ঠিত সেমিনারে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ আহ্বান জানান।

‘ইন্টারন্যাশনাল রোহিঙ্গা অ্যাওয়ারনেস কনফারেন্স’ শীর্ষক এ সেমিনারের আয়োজন করেন বোস্টনস্থ অর্থনীতিবিদ ড. আব্দুল্লাহ শিবলী, ড. ডেভিড ড্যাপাইচ ও সমাজকর্মী নাসরিন শিবলী।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/20/1563639147560.gif

রোহিঙ্গা ইস্যু কিভাবে বাংলাদেশের অর্থনীতি, সমাজ ও পরিবেশের উপর প্রভাব ফেলছে সেমিনারে তা উল্লেখ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘বিশ্বের সবচেয়ে ভাগ্য বিড়ম্বিত, অমানবিক সহিংসতার শিকার এই মানুষগুলোকে আশ্রয় না দিলে তাদের আর যাওয়ার কোনো জায়গা ছিল না।’

মন্ত্রী রোহিঙ্গা সংকটের ইতিহাস তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, ‘মিয়ানমার এই সংকট সমাধানে এগিয়ে আসেনি। কফি আনান কমিশনের সুপারিশ থেকে শুরু করে কোনো পদক্ষেপই তারা বাস্তবায়ন করেনি। রাখাইন রাজ্যে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের ফিরে যাওয়ার আস্থা ও নিরাপত্তা সৃষ্টিকারী কোনো অনুকূল পরিবেশই তারা সৃষ্টি করতে পারেনি। পরিবর্তে মিয়ানমার বিষয়টি নিয়ে ব্লেইম গেম খেলছে।’

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে যা সম্ভব তার সব সবকিছুই বাংলাদেশ করে যাচ্ছে উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘এই সংকটের সমাধানে আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক পদক্ষেপের পাশাপাশি শিক্ষাবিদ, গবেষক ও বিশ্বের খ্যাতনামা উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহকে ভূমিকা রাখতে হবে, যাতে জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের টেকসই ও স্থায়ী প্রত্যাবাসন নিশ্চিত হয়।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/20/1563639181228.gif

সেমিনারে অন্য আলোচকদের মধ্যে ছিলেন জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশনের নিউইয়র্কস্থ কার্যালয়ের পরিচালক নিনেথ কেলি ও হার্ভার্ড কেনেডি স্কুলের ভিয়েতনাম ও মিয়ানমার কর্মসূচির সিনিয়র ইকোনমিস্ট ও প্রফেসর ইমেরিটাস ডেভিড ড্যাপাইচ।

অনুষ্ঠানটির মডারেটর ছিলেন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ও হার্ভার্ডের অ্যাশ সেন্টার ফর ডেমোক্রেটিক গভর্নন্যান্স এর পরিচালক এন্থনি সাইচ।

নিনেথ কেলি রোহিঙ্গা সঙ্কটে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও জনগণের উদারতা, সহানভূতি ও মানবিকতার প্রশংসা করেন। বক্তব্যের শুরুতে তিনি একটি ভিডিও চিত্রের মাধ্যমে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বিভিন্ন দৃশ্যপট তুলে ধরেন।

ডেঙ্গু পরিস্থিতি উদ্বেগজনক তবে নিয়ন্ত্রণের বাইরে নয়

ডেঙ্গু পরিস্থিতি উদ্বেগজনক তবে নিয়ন্ত্রণের বাইরে নয়
ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশে ডেঙ্গু পরিস্থিতি উদ্বেগজনক তবে নিয়ন্ত্রণের বাইরে নয় বলে জানিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিওএইচও) দেশীয় প্রতিনিধি ডা. এডউইন স্যালভাদর।

তিনি বলেছেন, ‘এই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের সঙ্গে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা একযোগে কাজ করবে।’

শনিবার (২০ জুলাই) ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকনের নিজ বাসভবনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

সভায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে তারা প্রতিবেদন দেবেন যার সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করবে ডিএসসিসি।

সাঈদ খোকন বলেন, ‘ডেঙ্গু কখনো বাইরের ময়লায় বা ড্রেনে হয় না। এটা হয় পরিষ্কার সাদা পানিতে। তাই এই রোগ প্রতিরোধে সচেতনতার বিকল্প নেই।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা গত ফেব্রুয়ারি মাসে ঢাকার ৩৩ হাজার বাড়িতে ডেঙ্গু মশার উৎপত্তিস্থল ধ্বংস করি এবং এটি ধ্বংস করার উপায় শিখিয়ে দিয়ে আসা সত্ত্বেও দুঃখজনক বিষয় হচ্ছে পরে সেই বাড়িতে পরিদর্শনে গেলে পূর্বের সেই একই পরিস্থিতি দেখতে পাই যা অত্যন্ত দুঃখজনক।’

বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন- অন্যান্যের মধ্যে হেলথ ইমার্জেন্সির দল প্রধান হাম্মাম এল সাক্কা, আইভিডি ইম্যুনাইজেশন ভ্যাক্সিন ডেভেলপমেন্টর রাজেন্দ্র বোহরা, ঢাকার বিভাগীয় সমন্বয়ক ডা. মো. জাহাঙ্গীর আলম, করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান প্রমুখ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র