Barta24

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

জাপানের সহযোগিতায় হবে সর্বাধুনিক ক্যানসার হাসপাতাল

জাপানের সহযোগিতায় হবে সর্বাধুনিক ক্যানসার হাসপাতাল
চুক্তি স্বাক্ষরের পর প্রধানমন্ত্রীসহ অন্যান্যরা, ছবি: সংগৃহীত
সেন্ট্রাল ডেস্ক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এবারের জাপান সফরে চিকিৎসা বিষয়ক বেশ কয়েকটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এসব চুক্তির মাধ্যমে চিকিৎসা খাতে বাংলাদেশের ব্যাপক অগ্রগতি ঘটবে এবং দেশবাসীর অনেক কষ্ট লাঘব হবে বলে আশা করছেন দুই দেশের নেতারা।

জাপান গ্রিন হসপিটাল, আইচি হসপিটাল লিমিটেড এবং এথিক্স অ্যাডভান্সড টেকনোলোজি লিমিটেডের মধ্যে (ইএটিএল) একটি ক্যানসার হাসপাতাল, একটি নার্সিং কলেজ এবং একটি ক্যানসার রিসার্চ সেন্টার নির্মাণ বিষয়ক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

চুক্তির আওতায় জাপান সরকার বাংলাদেশে একটি ক্যানসার হাসপাতাল, একটি নার্সিং কলেজ এবং একটি মেডিকেল টেকনোলোজি প্রতিষ্ঠান রিসার্চ সেন্টার প্রতিষ্ঠার জন্য দুই হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে। এই ক্যানসার হাসপাতালে, জাপানের সবচেয়ে উন্নতমানের অত্যাধুনিক প্রযুক্তি প্রোটন থেরাপি দিয়ে ক্যানসার রোগের চিকিৎসা হবে, যা এখন পর্যন্ত দক্ষিণ এশিয়া বা ব্যাংকক, সিঙ্গাপুরের কোনো হাসপাতালে নেই।

অত্যাধুনিক প্রযুক্তি প্রোটন থেরাপি, জাপানে ক্যানসার চিকিৎসায় বিরাট পরিবর্তন দেখিয়েছে, যা এই হাসপাতালের মাধ্যমে প্রথমবারের মত বাংলাদেশে নিয়ে আসা হবে। এই প্রযুক্তি কোনো রকম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই ক্যানসার টিউমারের উপর প্রভাব ফেলতে সক্ষম। মাত্র কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ধীরে ধীরে সব ধরনের ক্যানসারের জীবাণু ধ্বংস করতে কাজ শুরু করে এই প্রোটন থেরাপি।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে আরও উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম ও জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা।

ত্রি-পক্ষীয় চুক্তিটি স্বাক্ষর করেন জাপান গ্রিন হসপিটালের পক্ষ থেকে হিরোয়িকি কোবায়িশি, আইচি হসপিটাল লিমিটেড থেকে ড. মোয়াজ্জেম হোসেন এবং ইএটিএল -এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর এম এ মুবিন খান ।

জাপান গ্রিন হসপিটাল একই গ্রুপ শিপ আইচি মেডিকেল সার্ভিস লিমিটেডের মাধ্যমে ইতোমধ্যে আমাদের দেশের হার্ট এবং কিডনি রোগের চিকিৎসায় এক হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছে। যার আওতায় দেশের উত্তরায় একটি হাসপাতাল নির্মাণাধীন রয়েছে, যা ২০২০ সালের জানুয়ারি মাসে উদ্বোধন করা হবে।

২০০৫ সালের দিকে মাত্র শতকরা সাড়ে সাত ভাগ লোক ক্যানসার ব্যাধিতে মারা যেতেন। কিন্তু ইন্টারন্যাশনাল এজেন্সি ফর ক্যানসার রিসার্চ ধারণা করছে, ২০৩০ সালের মধ্যে এই রোগে মৃত্যুর সংখ্যা দিগুণের কাছাকাছি, প্রায় ১৩% হবে! গত বছর দেড় লাখ নতুন ক্যানসার রোগী ধরা পড়েন এবং প্রায় ১.০৮ লাখ লোক প্রতিবছর বাংলাদেশে ক্যানসারে মারা যান।

জাপান গ্রিন হসপিটাল, আইচি হসপিটাল লিমিটেড এবং ইএটিএল -এর মধ্যে চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশে স্বপ্নের একটি প্রজেক্ট বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে। ঢাকার পূর্বাচলে এই হাসপাতাল নির্মাণের অন্যতম প্রধান উদ্দ্যেশ হচ্ছে- দেশের মানুষের কাছে উন্নত প্রজুক্তির সহজলভ্য ক্যানসার চিকিৎসা পৌঁছে দেওয়া, এই রোগ ব্যবস্থাপনায় দক্ষ মেডিকেল জনশক্তি তৈরি, ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে জনসাধারণের মধ্যে ক্যানসার রোগের ব্যাপারে ব্যাপক জনসচেতনতা সৃষ্টি এবং ক্যান্সার রোগ সংক্রান্ত আরও গবেষণার সুযোগ সৃষ্টি করা।

ক্যানসার সচেতনতা ফাউন্ডেশনের তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে বাংলাদেশে ৩৭টি সেন্টারে ক্যানসার রোগের চিকিৎসার ব্যবস্থা আছে। দেশে মাত্র ১৫০ দক্ষ ক্যানসার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক এবং ১৬ জন শিশু ক্যানসার বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক রয়েছেন। চিকিৎসা পদ্ধতি যা রয়েছে তা হল- Dual energy Linear accelerators, Cobalt, Brachytherapy, ডিপ এক্স রে এবং টিউবারবিম।

রোগ পরীক্ষণ, নিরীক্ষণ সংক্রান্ত Diagnostic ফ্যাসালিটিজের মধ্যে রয়েছে- PET-CT, SPECT-CT, digital mammography, যা stereotactic biopsy -এর মাধ্যমে করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন :

ইতিবাচক দৃ‌ষ্টিভ‌ঙ্গি নিয়ে সংবাদ প‌রি‌বেশন কর‌বেন: মু‌ক্তিযুদ্ধমন্ত্রী

ইতিবাচক দৃ‌ষ্টিভ‌ঙ্গি নিয়ে সংবাদ প‌রি‌বেশন কর‌বেন: মু‌ক্তিযুদ্ধমন্ত্রী
বক্তব্য রাখছেন মু‌ক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণাল‌য়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজ্জা‌ম্মেল হক, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

সাংবা‌দিক‌দের ইতিবাচক দৃ‌ষ্টিভ‌ঙ্গি নি‌য়ে যে কোনো সমস্যা তু‌লে ধ‌রে সংবাদ প‌রি‌বেশন করার আহ্বান জা‌নি‌য়েছেন সরকা‌রের মু‌ক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণাল‌য়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজ্জা‌ম্মেল হক।

বৃহস্প‌তিবার (১৮ জুলাই) জাতীয় প্রেসক্লা‌বের ভিআই‌পি লাউঞ্জে 'গাজীপুর উন্নয়‌নের চ্যা‌লেঞ্জ ও করণীয়: জনপ্র‌তি‌নি‌ধি ও পেশাজীবী‌দের ভূ‌মিকা' শীর্ষক গোল‌টে‌বিল বৈঠক ও মুক্ত আ‌লোচনা সভায় প্রধান অ‌তিথির বক্ত‌ব্যে এ আহ্বান জানান তিনি।

মন্ত্রী তার বক্ত‌ব্যে সামা‌জে সাংবা‌দিকদের গুরুত্ব তু‌লে ধ‌রে ব‌লেন, ‘যেখা‌নে যে সমস্যাই হোক না কেন, তা সাংবা‌দিকরা তু‌লে ধর‌লে, কাজ করা সহজ হয়। সমস্যাগু‌লো কেন্দ্রীয় সরকা‌রের হোক বা স্থানীয় সরকারের হোক। সব সমস্যাই ইতিবাচক দৃ‌ষ্টিভ‌ঙ্গি নিয়ে লিখলে সং‌শ্লিষ্ট বিষ‌য় সরকা‌রের কা‌ছে প‌রিষ্কার হ‌বে, ব্যবস্থা নি‌তে সু‌বিধা হবে। কাউ‌কে হেয় করার জন্য নিউজ করার দরকার আ‌ছে ব‌লে ম‌নে ক‌রি না। জনগণের স্বা‌র্থে ইতিবাচকভাবে সরকা‌রের দৃ‌ষ্টি আকর্ষণ কর‌লে অনেক কা‌জে আ‌সে।’

1
বক্তব্য রাখছেন মু‌ক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণাল‌য়ের মন্ত্রী আ ক ম মোজ্জা‌ম্মেল হক, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

 

‌তি‌নি ব‌লেন, ‘সারা‌দে‌শের নদীর সমস্যা একটি জাতীয় সমস্যা। বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নি‌য়ে সরকা‌রের পক্ষ থে‌কে অ‌নেক প‌রিকল্পনা নেওয়া হ‌য়ে‌ছে। নদীর স্রোত বা নাব্যতা ফি‌রি‌য়ে আনার জন্য কাজ কর‌ছি। সম্পূর্ণ এখনও বাস্তবায়ন হয় নাই। ঢাকার আ‌শপা‌শের চারটা নদী খনন করার প্রকল্প হাতে নেওয়া হ‌য়ে‌ছে। এ কাজটা শেষ করতে সময় লাগ‌বে। প্রকল্পটা বাস্তবায়ন হ‌লে নদী নি‌য়ে সমস্যা সমাধা‌নের প‌থে এ‌গিয়ে যা‌ব আমরা।’

হাসপাতালের উন্নয়ন করার জন্যও কাজ হ‌চ্ছে এবং আগামী এক বছ‌রের ম‌ধ্যে সমস্যাগু‌লো নিরসন হ‌বে ব‌লেও জানান মন্ত্রী।

জাতীয় সংস‌দের সংর‌ক্ষিত সংসদ সদস্য শামসুর নাহার ভূঁইয়ার সভাপ‌তি‌ত্বে অনুষ্ঠা‌নে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন ক‌রেন বঙ্গবন্ধু গ‌বেষণা প‌রিষ‌দের সভাপ‌তি লায়ন মো. গ‌নি মিয়া বাবুল। বি‌শেষ অতিথি হি‌সে‌বে উপ‌স্থিত ছি‌লেন জাতীয় প্রেসক্লা‌বের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন।

ভুটান থেকে ভারতীয় পণ্যবাহী জাহাজ নারায়ণগঞ্জে পৌঁছেছে

ভুটান থেকে ভারতীয় পণ্যবাহী জাহাজ নারায়ণগঞ্জে পৌঁছেছে
ভারত হয়ে ভুটান থেকে বাংলাদেশে প্রথম পণ্যবাহী জাহাজ গ্রহণ অনুষ্ঠানে ভারতীয় হাই কমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ

প্রথমবারের মত পাথরবাহী একটি ভারতীয় জাহাজ ভুটান থেকে পণ্য নিয়ে বাংলাদেশে এসেছে। গত ১২ জুলাই আসামের ধুবরি বন্দর থেকে রওনা দেয় পাথরবাহী জাহাজ এমভি এআই। ইন্দো-বাংলা প্রটোকল রুট ব্যবহার করে ১৬ জুলাই নারায়ণগঞ্জে এসে পৌঁছায় জাহাজটি। 

এ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) নারায়ণগঞ্জে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে ইন্দো-বাংলা প্রটোকল রুট ব্যবহার করে আসা প্রথম চালানটি গ্রহণ করেন ভারতীয় হাই কমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ ও ভুটানের রাষ্ট্রদূত সোনম টি. রাবগি।

ঢাকাস্থ ভারতীয় হাইকমিশন এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে। 

ভারতের নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী শ্রী মনসুখ মাণ্ডব্য ১২ জুলাই ডিজিটালভাবে এমভি এএআই নামের ভারতের অভ্যন্তরীণ নৌ কর্তৃপক্ষের এই জাহাজটির যাত্রা সূচনা করেন। এরপর জাহাজটি আসামের ধুবরি থেকে যাত্রা করে এবং ব্রহ্মপুত্র নদীর উপর দিয়ে নারায়ণগঞ্জে পৌঁছায়। ২০১৮ সালের অক্টোবরে ধুবরিকে নদীবন্দর ঘোষণা করা হয়। এই প্রথমবারের মতো ভারতীয় নৌপথ ও ভারতকে ট্রানজিট হিসেবে ব্যবহার করে দুই দেশের মধ্যে পণ্য পরিবহন করা হচ্ছে।

আসামের ধুবরি বন্দর থেকে ১৬০ কিলোমিটার দূরে ভুটানের ফুয়েন্টশোলিং থেকে ট্রাকে করে পাথর আনা হয়েছে। এখন পর্যন্ত ভুটান স্থলপথ ব্যবহার করে বাংলাদেশে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ পাথর রফতানি করে আসছে। জাহাজটি এক হাজার মেট্রিক টন পাথর পরিবহন করছে, যা স্থলপথে পরিবহন করতে ৫০টিরও বেশিট্রাক প্রয়োজন হতো।

নৌপরিবহন মন্ত্রী মাণ্ডব্য বলেন, এই উন্নয়ন ঐতিহাসিক যার মাধ্যমে অভ্যন্তরীণ নৌপথে পণ্য পরিবহন বৃদ্ধির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির যে লক্ষ্য তা পূরণে হয়েছে। এই উদ্যোগের  মাধ্যমে ভারত, ভুটান এবং বাংলাদেশ উপকৃত হবে এবং প্রতিবেশী দেশগুলির মধ্যকার সম্পর্ক আরও দৃঢ় হবে।

তিনি বলেন, এই রুটের মধ্য দিয়ে পণ্য পরিবহনের ফলে ৮ থেকে ১০ দিন সময় সাশ্রয় হবে, পরিবহন খরচ কমবে ৩০ শতাংশ এবং অন্যান্য খরচও কমবে। শ্রী মাণ্ডব্য আরও বলেন, এটি ভারতের উত্তর-পূর্ব রাজ্যের জন্য একটি বিকল্প পথ উন্মুক্ত করবে, যার মাধ্যমে দেশের অন্যান্য অংশ থেকে এই স্থানে পণ্য পৌঁছানো সহজ ও সাশ্রয়ী হবে।

ভারতের অভ্যন্তরীণ নৌ কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান জানান, ন্যাভিগেশন চ্যানেলে নাব্যতা বজায় রাখার জন্য ড্রেজিং করা হয়েছে এবং রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রয়োজন অনুযায়ী ড্রেজিং করা হবে। এছাড়াও ভারত সরকার অভ্যন্তরীণ ও উপকূলীয় নৌপথ ব্যবহার বৃদ্ধি করে পণ্য পরিবহনের জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করছে। ভারত-বাংলাদেশে ফেয়ারওয়ে উন্নয়ন প্রকল্পের অধীনে আশুগঞ্জ-জকিগঞ্জ রুটের ড্রেজিং কাজও চলমান রয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র