Barta24

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

শেষ দিনের মতো বিক্রি চলছে ট্রেনের আগাম টিকিট

শেষ দিনের মতো বিক্রি চলছে ট্রেনের আগাম টিকিট
অগ্রিম টিকিট কাটতে কমলাপুর রেল স্টেশনে যাত্রীদের ভিড়/ ছবি: সুমন শেখ
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন ঈদ-উল ফিতর উপলক্ষে বাংলাদেশ রেলওয়ে শেষ দিনের মতো ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি করছে। রোববার (২৬ মে) দেওয়া হচ্ছে ৪ জুনের আগাম টিকিট। ৪ জুন ঈদের আগে শেষ কর্মদিবস হওয়াই ট্রেনে বাড়ি ফিরতে টিকিট কাটতে ভিড় জমিয়েছেন টিকিট প্রত্যাশীরা।

রোববার কমলাপুর রেল স্টেশন ঘুরে দেখা যায়, ঘরে ফেরার টিকিট কাটতে শেষ দিনের মতো লাইনে দাঁড়িয়েছেন যাত্রীরা। সকাল ৯টা থেকে টিকিট দেওয়া শুরু হয়। কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে পশ্চিমাঞ্চলগামী যমুনা সেতুর উপর দিয়ে যাওয়া সকল আন্তঃনগর ট্রেনের অগ্রিম টিকিট দেওয়া হচ্ছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/26/1558841800663.jpg

শেষ দিনের টিকিট কাটতে আসা ব্যবসায়ী মহসিন আলী বার্তা২৪.কম-কে নলেন, ‘যেহেতু এবার ঈদের লম্বা ছুটি আছে, তাই এক সাথে ঢাকা ছাড়ার চাপটা কম হতে পারে। সেই জন্যই আজকে অগ্রিম টিকিট নিতে এসেছি। ঈদের আগে এটি শেষ কর্মদিবস হবে ৪ জুন। এই দিন আমি রংপুরের উদ্দেশে যাওয়ার জন্য টিকিট কাটতে এসেছি।’

রাফিয়া সুলতানা নামের এক যাত্রী বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘আমি খুলনা যাবার আগাম টিকিট কাটতে এসেছি। অন্যান্য দিনের তুলনায় টিকিট প্রত্যাশীদের ভিড় একটু কম। একাধিক জায়গায় টিকিট দেওয়ার ফলে যাত্রীদের দুর্ভোগ কিছুটা কমেছে। তবে আমরা আশা করব এবারের সমস্যাগুলো সামনের বার আমলে নিয়ে টিকিট দেওয়ার পক্রিয়া আরও সহজ ও দ্রুত হবে।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/26/1558841828442.jpg

বরাবরের মতোই গত চার দিন ধরে রেল সেবা অ্যাপের মাধ্যমে টিকিট কাটতে না পারায় ক্ষোভ প্রকাশ করে চাকরিজীবী হুমায়ুন আজাদ বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘আজকে ট্রেনের টিকিট দেওয়ার শেষ দিন। শত চেষ্টার পরও অ্যাপস-এর মাধ্যমে টিকিট কাটতে না পেরে আজ বাধ্য হয়ে সরাসরি এসেছি। তবে কর্তৃপক্ষের এত ঢাকঢোল পিটিয়ে এই অ্যাপ, অনলাইনে টিকিট পাওয়া যাবে এসব কথা না বলাই ভালো ছিল।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/26/1558841848929.jpg

এদিকে ঈদের ছুটিকে সামনে রেখে কমলাপুর স্টেশনসহ বনানী, বিমানবন্দর, তেজগাঁও, ফুলবাড়িয়া পুরাতন রেল ভবন থেকে রেলের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয় গত গত বুধবার ২১ মে থেকে। গত পাঁচ দিন কমলাপুর রেল স্টেশনে টিকিট প্রত্যাশীদের ভিড় ছিল লক্ষ্য করার মতো।

আপনার মতামত লিখুন :

রংপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

রংপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ
ছবি: বার্তা২৪

রংপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ছাফিয়া খানমের বিরুদ্ধে দুর্নীতি, অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ উঠেছে। বুধবার (২৬ জুন) বিকেলে রংপুর জেলা পরিষদ হলরুমে সংবাদ সম্মেলনে তার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ আনেন।

তাদের দাবি, রংপুর সিটি করপোরেশনের (রসিক) মেয়রের সাথে কোটি টাকার লেনদেন করে ওরিয়েন্টাল সিনেমা হল নিয়ে চলমান মামলা পরিচালনায় অনাগ্রহ দেখাচ্ছেন চেয়ারম্যান। এতে জেলা পরিষদ প্রায় অর্ধশত কোটি টাকার সম্পত্তি বেহাত হতে পারে। এছাড়াও পরিষদের বিভিন্ন উপজেলার গাছ নামমাত্র দামে বিক্রি করে চেয়ারম্যান তার ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিল করেছেন।

লিখিত বক্তব্যে পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ও সদস্য মোহসিনা বেগম বলেন, চেয়ারম্যান ছাফিয়া খানম গত দুই অর্থবছরে অসহায় দরিদ্রদের চিকিৎসা ও শিক্ষা অনুদান দেওয়ার নামে লাখ লাখ টাকা আত্নসাৎ করেছে। সড়কের দু'পাশ থেকে গাছ অপসারণের নামে সদস্যদের না জানিয়ে রাতারাতি গাছ কেটে তার মেয়ের জামাইকে দিয়ে বিক্রি করে প্রচুর অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন। ভুয়া প্রকল্পের মাধ্যমে রাজস্ব খাত থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা হেরফের করেছেন। গত দুই অর্থবছরে এডিপি ৪০% কাজ বাস্তবায়িত করতে পারেননি। বরং প্রকল্পের টাকা ব্যাংকে জমা রেখে চেয়ারম্যান ব্যক্তিগত স্বার্থসিদ্ধি করার পাশাপাশি মাসিক লভ্যাংশ নিচ্ছেন।

তিনি অভিযোগ করেন, জেলা পরিষদের প্রত্যেকটি উন্নয়ন কাজে পরিষদ সদস্যদের সম্পৃক্ত থাকার বিধান আছে, কিন্তু চেয়ারম্যান তা মানেন না। সাতটি স্থায়ী কমিটি থাকার পরও তিনি কারো সুপারিশ বা পরামর্শ গ্রাহ্য করেন না। নিয়মিত মাসিক সভা না করেই নিজের মন মত করে ভুয়া বিল ভাউচার তৈরি করে অর্থ আত্মসাৎ করেছেন।

সংবাদ সম্মলনে পরিষদের সদস্য সিরাজুল হক প্রামানিক, পারভীন আকতার, সৈয়দ দিলনাহার, রিয়াজুল, রফিকুল ইসলাম, সেলিনা খাতুন, রফিকুর রহমান, ফিরোজ হোসেন, আনোয়ার হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

পরিষদ সদস্যরা বলেন, আমরা জনগণের কল্যাণ ও উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি নিয়ে নির্বাচিত হয়েছি, কিন্তু চেয়ারম্যানের স্বেচ্ছাচারিতায় পরিষদ আজ অকার্যকর।

এসব অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ছাফিয়া খানমের সাথে একাধিকবার মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

মাদক নির্মূল আইন-শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীর একার কাজ না: র‍্যাব ডিজি

মাদক নির্মূল আইন-শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীর একার কাজ না: র‍্যাব ডিজি
ইউল্যাবে বক্তব্য দিচ্ছেন র‍্যাব ডিজি, ছবি: সংগৃহীত

দেশ থেকে মাদক নির্মূল করা, আইন-শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীর একার কাজ না। এটি একটি জাতীয় সমস্যা, এ সমস্যা সমাধানে সমাজের সবার একত্রিত হয়ে কাজ করতে হবে বলে মনে করেন র‍্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ।

বুধবার (২ জুন) ধানমন্ডিতে ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ (ইউল্যাব) অডিটোরিয়ামে আয়োজিত মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচার বিরোধী আন্তর্জাতিক দিবসের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

র‍্যাব মহাপরিচালক বলেন, ‘মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধে আমরা কতটুকু জয়ী হয়েছি, সেটি বিচারের সময় এখনও আসেনি। এখন সময় সবাইকে সম্পৃক্ত করে সবাই মিলে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলা। আর এ সমস্যা থেকে দেশকে মুক্ত করা।’

র‍্যাব মহাপরিচালক আরও বলেন, ‘মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান বা মাদক নির্মূল অভিযান কোনো ছোট অপারেশন না। এটি বৈশ্বিক সমস্যা, আমরা এ সমস্যা সমাধানের চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছি, কাজ করে যাচ্ছি। তবে আমাদের পাশে সমাজের সর্বস্তরের মানুষকে প্রয়োজন।’

বেনজির আহমেদ বলেন, ‘এখন পর্যন্ত ৭০০ কোটি টাকার বেশি মাদক দ্রব্য জব্দ করতে সক্ষম হয়েছি। মাদক কতটুকু নিয়ন্ত্রণ হয়েছে জানি না। তবে আগে যেখানে রাস্তাঘাটে প্রকাশ্যে ইয়াবা বিক্রি হতো, সেগুলো বন্ধ হয়ে গেছে। সময় লাগলেও আমরা আপনাদের সঙ্গে নিয়ে মাদক নির্মূল করে ছাড়ব।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র