Alexa

ঈদের আগে দৌরাত্ম্য বেড়েছে জাল নোট চক্রের!

ঈদের আগে দৌরাত্ম্য বেড়েছে জাল নোট চক্রের!

ফাইল ছবি।

বছর জুড়েই রাজধানীসহ সারা দেশে কমবেশি সক্রিয় থাকে জাল নোট তৈরির বেশ কয়েকটি চক্র। চলমান সব ধরনের নোট জাল করে নানা কৌশলে তা বাজারে ছাড়ছে চক্রগুলো। আর এসব চক্রকে রুখতে সারা বছরই অভিযান পরিচালনা করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

তবে ঈদকে সামনে রেখে জাল নোট তৈরির চক্রগুলো সব থেকে বেশি সক্রিয় থাকে। যেকোনো উৎসবকে প্রাধান্য দেয় এই চক্রগুলো। এ সময় তারা নানা কৌশল অবলম্বন করে বাজারে মোটা পরিমাণে জাল নোট ছড়ানোর চেষ্টা করে।

পুলিশের ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি) সূত্রে জানা গেছে, চলতি মাসে ইতোমধ্যে তিনটি অভিযানে এক কোটি ৩৩ লাখ ১৮ হাজার টাকার জাল নোট জব্দ করা হয়েছে। একই সঙ্গে চক্রের ৯ সদস্যকেও গ্রেফতার করা হয়েছে।

এদিকে, জাল নোট চক্রের কারণে ঈদকে সামনে রেখে আতঙ্ক বিরাজ করছে ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের মধ্যে। কারণ ঈদকে সামনে রেখে বিভিন্ন মার্কেটের ব্যবসায়ী ও ক্রেতাদের টার্গেট করে চক্রটি।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সূত্রে জানা গেছে, বছর জুড়ে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে এই চক্রের সদস্যরা ছড়িয়ে থাকে। কিন্তু ঈদের আগে তারা রাজধানীর বিভিন্ন আবাসিক এলাকায় অবস্থান নেয়। বাসা ভাড়া নিয়ে গোপনে জাল টাকা তৈরির কারখানা স্থাপন করে। সেখানেই কোটি কোটি টাকার জাল নোট তৈরি হয়। তবে গ্রেফতার হওয়ার ভয়ে তারা নিয়মিত বাসাও পরিবর্তন করে।

আরও জানা গেছে, কয়েকটি স্তর অবলম্বন করে জাল নোট তৈরি ও সেটা বাজারে ছড়িয়ে দেওয়া হয়। চক্রগুলোর মূল হোতা বা প্রথম সারিতে যারা থাকেন তারা বিভিন্ন কারখানায় এসব নোট তৈরি করে। পরে দ্বিতীয় স্তরে বিভিন্ন কায়দায় এসব টাকা বাজারে ছড়িয়ে দেওয়া হয়। এই স্তরের অধিকাংশ সদস্য নারী। আর তারা গ্রেফতার হলে মূল হোতারা আইনি সহায়তার মাধ্যমে তাদের ছাড়িয়ে নিয়ে আসে।

জাল নোটের চক্রদের বিরুদ্ধে অভিযানে অংশ নেওয়া কয়েকজন ডিবি কর্মকর্তা জানান, অভিযানে জাল নোট চক্র সদস্যদের গ্রেফতার করা হলেও কিছুদিন পর তারা জামিনে মুক্তি পায়। পরে তারা আবার সক্রিয় হয়ে ওঠে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের যুগ্ম-কমিশনার (ডিবি) মাহবুবুর আলম বার্তা২৪.কমকে জানান, ঈদকে সামনে রেখে প্রতারক চক্র জাল টাকা বাজারে ছড়িয়ে দেয়। এবারো তারা নানা কায়দায় জাল নোট বাজারে ছড়ানোর চেষ্টা করছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করছে। ডিবি পুলিশ প্রতিনিয়ত বিভিন্ন জায়গা থেকে জাল টাকা ও তৈরির সরঞ্জাম জব্দ করেছে। এই চক্রকে প্রতিহত করতে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। তবে এ বিষয়ে সাধারণ মানুষকেও সচেতন হতে হবে।

এদিকে ঈদের আগে জাল নোট চক্রদের দৌরাত্ম্য বাড়ায় নড়েচড়ে বসেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও বাংলাদেশ ব্যাংক। সম্প্রতি সচিবালয়ে এক বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জাল টাকার বিস্তার রোধে পুলিশ ও র‌্যাবকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল ওই বৈঠকে জানান, ঈদকে কেন্দ্র করে যেকোনো বে-আইনি কাজ রুখে দিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বিশেষ নজরদারি ও অভিযান পরিচালনা করবে। ঈদে ঢাকাসহ সারাদেশে নিরাপত্তা জোরদার করা হবে। বিভিন্ন শহরে ব্লক রেইড দেওয়া হবে। ঢাকায় প্রবেশ ও বাহির পথে চেকপোস্ট থাকবে। এছাড়া চুরি-ডাকাতি, ছিনতাই, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড রোধে ইউনিফর্মধারী পুলিশের পাশাপাশি গোয়েন্দা সদস্যরা মোতায়েন থাকবে।

অন্যদিকে বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, আসন্ন ঈদ উপলক্ষে জাল টাকার বিষয়ে ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে বিশেষ নির্দেশনা দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। নির্দেশনায় দেশের ৫৬টি বাণিজ্যিক ব্যাংককে আসল নোটের নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য সংবলিত ভিডিও চিত্র প্রদর্শনের জন্য বলেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

আপনার মতামত লিখুন :