Barta24

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ২ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

রাজশাহী বোর্ডে মাধ্যমিকে ঝরে গেল ২৭ হাজার শিক্ষার্থী

রাজশাহী বোর্ডে মাধ্যমিকে ঝরে গেল ২৭ হাজার শিক্ষার্থী
মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ড, রাজশাহী/ছবি: বার্তা২৪
হাসান আদিব
স্টাফ করেসপন্ডেট
বার্তা২৪.কম
রাজশাহী


  • Font increase
  • Font Decrease

প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের বছরের শুরুতে বিনামূল্যে নতুন বই, উপবৃত্তিসহ নানা সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে সরকার। তবুও লেখাপড়ায় মনোযোগী রাখা যাচ্ছে না শিক্ষার্থীদের। রাজশাহী বোর্ডের অধীনস্থ উত্তরাঞ্চলের ৮ জেলায় আশঙ্কাজনকহারে ঝরে পড়ছে মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থী। নবম শ্রেণিতে সফলভাবে রেজিস্ট্রেশন করলেও তারা অংশ নিচ্ছে না এসএসসি পরীক্ষায়।

তবে বোর্ডের দায়িত্বপ্রাপ্তরা বলছেন- নতুন চালু হওয়া স্কুলগুলো ভুয়া শিক্ষার্থীদের নাম রেজিস্ট্রেশন করিয়ে নিজেদের স্কুলের সক্রিয়তা দেখানোর চেষ্টা করছে। ফলে চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে কম পরীক্ষার্থী। আর রাজশাহী অঞ্চলে এখনও উল্লেখযোগ্য হারে বাল্যবিবাহ হওয়ায় মেয়েরা ঝরে পড়ছে বেশি।

তবে বোর্ড কর্তৃপক্ষ মুখে এমন দাবি করলেও ঝরে পড়া ঠেকাতে স্কুলভিত্তিক মনিটরিং কমিটি গঠনের তোড়জোড় শুরু করেছে তারা। আর শিক্ষাবিদরা বলছেন- সরকার ঝরে পড়া ঠেকাতে যে উদ্যোগগুলো হাতে নিয়েছে, তা প্রত্যন্ত অঞ্চলে যথাযথভাবে বাস্তবায়ন হচ্ছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে হবে।

রাজশাহী শিক্ষাবোর্ড সূত্র জানায়, ২০১৭ সালে নবম শ্রেণিতে রেজিস্ট্রেশন করে ২ লাখ ৬ হাজার ৯৭০ জন শিক্ষার্থী। তবে ২০১৯ সালের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে ১ লাখ ৭৯ হাজার ৯০৯ জন। ফলে এক শিক্ষাবর্ষেই ঝরে পড়েছে ২৭ হাজার শিক্ষার্থী। গত বছর রাজশাহী বিভাগে স্কুল বেড়েছে ৩৩টি। আর শিক্ষার্থী বেড়েছে সাড়ে ৩৪ হাজার।

রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক ড. আনারুল হক প্রামাণিক বলেন, দুঃখজনক হলেও সত্য, এই অঞ্চলে বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় এখনও ব্যাপকহারে বাল্যবিবাহ হচ্ছে। ফলে গ্রামের বেশিরভাগ মেয়েদের ১৮ বছর হওয়ার আগেই বিয়ে হয়ে যাচ্ছে। তারা রেজিস্ট্রেশন করলেও চূড়ান্ত পরীক্ষায় আর অংশ নিচ্ছে না।

তিনি আরও বলেন, আরেকটি উল্লেখ করার মতো কারণ হলো- চলতি বছর টেস্ট পরীক্ষায় যারা পাস করেনি, তাদের পরীক্ষায় অংশ নিতে দেওয়া হয়নি। আর নতুন স্কুলগুলো পাঠদানের অনুমোদন পাওয়ার জন্য ভুয়া শিক্ষার্থী রেজিস্ট্রেশন দেখায়। ফলে কাগজে-কলমে এতো ভয়াবহ অবস্থা উঠে আসছে।

রাজশাহী জেলা শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা বলেন, প্রত্যন্ত অঞ্চলের স্কুলগুলোতে আসলে পড়াশোনা নিয়ে কী হচ্ছে, তা দেখভালের কেউ নেই। শিক্ষা অফিসের পক্ষে তা মনিটরিং করাও সম্ভব হয় না। আমি মনে করি- দ্রুত এলাকাভিত্তিক সমাজের সচেতন ব্যক্তিদের নিয়ে স্কুল স্কুলে মনিটরিং কমিটি গঠন করা জরুরি।

জানতে চাইলে উপমহাদেশের প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক হাসান আজিজুল হক বার্তা২৪.কম-কে বলেন, খবরের কাগজে পড়ি সরকার এই সুবিধা, সেই সুবিধা দিচ্ছে। হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করছে প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীদের জন্য। আমি বলি- তা কী যথাযথ প্রক্রিয়ায় প্রত্যন্ত অঞ্চলে পৌঁছাচ্ছে? যদি তা না হয়, তবে জেলা, উপজেলা প্রশাসন কী করছে?

তিনি আরও বলেন, ঝরে পড়ার দায় তো শুধু শিক্ষাবোর্ড ও শিক্ষকদের ওপর বর্তায় না। সরকারের প্রণোদনা পৌঁছানো, বাল্যবিবাহ বন্ধে পদক্ষেপ গ্রহণ ও সচেতন করার দায়িত্ব সরকারি পয়সায় বেতন নেওয়া কর্মকর্তাদের দায়িত্ব নিয়ে করতে হবে। তবেই সবাই সচেতহন হবে, ঝরে পড়া কমবে বলে আমি মনে করি।

আপনার মতামত লিখুন :

বৃষ্টি কমেছে, বেড়েছে তাপমাত্রা

বৃষ্টি কমেছে, বেড়েছে তাপমাত্রা
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বাংলাদেশের উপর মৌসুমী বায়ুর প্রভাব অনেকটাই কমেছে। এটি এখন উত্তর বঙ্গোপসাগরে দুর্বল অবস্থায় রয়েছে। ফলে সারাদেশে আবহাওয়ার পরিস্থিতিতে উন্নতি ঘটছে।

মাঝে মাঝে অবশ্য আকাশ মেঘলা থাকতে পারে। তবে দেশের দু-এক জায়গা ছাড়া তেমন কোথাও ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। ফলে ধীরে ধীরে তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেতে পারে।

গরমে জনজীবন কিছুটা অতিষ্ঠ হলেও বন্যায় কবলিত পানিবন্দীদের মাঝে স্বস্তি ফিরবে। তারা নিজ ভিটায় ফিরে যেতে পারবেন। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তরা নিজেকে আবারও গুছিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করবেন। তবে নদী ভাঙ্গনে ভিটেমাটি হারানো মানুষদের আর্তনাদ থেকেই যাবে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/18/1563389450967.jpg

আবহাওয়া অফিস বলছে, 'মৌসুমী বায়ু অনেকটাই দুর্বল হয়ে গেছে। এতে মাঝারি থেকে ভারী বর্ষণের আশঙ্কা কমে গেছে। ক্রমান্বয়ে বাড়বে তাপমাত্রা। গত কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিতে তাপমাত্রা সর্বোচ্চ ৩২ থেকে ৩৩ ডিগ্রি ছিল তবে এখন তা ৩৫ থেকে ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত বিরাজ করতে পারে।'

বুধবার ১৭ জুলাই সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় মংলায় ৩৬.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় কুমারখালীতে ২২.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৫.৬ ডিগ্রী সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৬.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বুধবার সকালে রাজধানীতে আকাশ মেঘলা থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রোদের প্রখরতাও বাড়তে থাকে। এতে গরমের তীব্রতাও বাড়ে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/18/1563389436185.jpg

রোদ থেকে বাঁচতে অনেকেই ছাতা ব্যবহার করেছেন। আবহাওয়াবিদ আরিফ হোসেন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, 'গতকাল থেকেই বৃষ্টির প্রভাব কমেছে। তাপমাত্রা বেড়েছে তিন থেকে চার ডিগ্রি সেলসিয়াস। এখন বর্ষা মৌসুম হওয়ায় তিন থেকে চারদিন পর আবারও বৃষ্টির প্রবণতা বৃদ্ধি পেতে পারে। আরও এক থেকে দেড় মাস এভাবেই চলবে।'

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রাজশাহী চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া বাকি বিভাগগুলোতে দু-এক জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

অন্যদিকে, রাজশাহী সাতক্ষীরা চুয়াডাঙ্গা ও যশোরের উপর দিয়ে বেড়ে যাওয়া মৃদু তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে।

জালিয়াতি চক্রকে নিয়ে সতর্ক করলেন বিপ্লব বড়ুয়া

জালিয়াতি চক্রকে নিয়ে সতর্ক করলেন বিপ্লব বড়ুয়া
ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া ও তার নামে ভুয়া চিঠিপত্র।

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ও আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়ার ভুয়া সিল-প্যাড ব্যবহার করে জা‌লিয়া‌তি কর‌েছে এক‌টি প্রতারক চক্র।

এ ভুয়া চক্র থেকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে বুধবার (১৭ জুলাই) রাজধানীর শের-ই-বাংলা নগর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন তিনি। জিডি নং: ৯৮১।

জিডিতে তিনি জানান, আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত আমার সিল-প্যাড ব্যবহার করে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান বরাবর কোন ধরনের পত্র, সুপারিশ বা নির্দেশনা প্রদান করি নাই। অথচ একটি জালিয়াতচক্র আমার নামে ভুয়া চিঠিপত্র বিভিন্ন সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানে প্রেরণ করেছে মর্মে অভিযোগ পেয়েছি। রাষ্ট্রীয় ও রাজনৈতিক কার্যক্রমে বিভ্রান্তি সৃষ্টি এবং আমার ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার জন্য  জালিয়াতচক্র কর্তৃক এ ধরনের মারাত্মক অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/18/1563387562162.jpg

আওয়ামী লীগ উপ-দপ্তর সম্পাদক ও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, ‘ইতোমধ্যে বিষয়টি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে অবহিত করা হয়েছে। এই জালিয়াতচক্র সম্পর্কে সকলকে সতর্ক থাকতে অনুরোধ জানাচ্ছি।’

উল্লেখ্য, গত ১০ জুলাই প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের প্যাডে ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়ার স্বাক্ষর নকল করে গফরগাঁও পৌরসভার মেয়র বরাবর একটি পত্র প্রেরণ করা হয়। যেটি একটি জাল চিঠি ছিল।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র