Barta24

রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

English

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীকে ডিপিডিসির কল সেন্টারের বিভ্রান্তিকর তথ্য

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীকে ডিপিডিসির কল সেন্টারের বিভ্রান্তিকর তথ্য
ডিপিডিসির কল সেন্টার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বিদ্যৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ/ ছবি: বার্তা২৪.কম
স্পেশাল করেসপনেডন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

উদ্বোধনী কলে খোদ বিদ্যৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদকে বিভ্রান্তিকর তথ্য দিল ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির (ডিপিডিসি) কল সেন্টার ১৬১১৬।

প্রতিমন্ত্রী মঞ্চে বসেই বলেন, ‘আমি শাহবাগ থেকে ফোন করছি, আমার এলাকায় বিদ্যুৎ চলে গেছে।’

প্রতিমন্ত্রীকে মিনিট খানেক ওয়েটিংয়ে রেখে কল সেন্টার জানায়, ‘কিছুক্ষণের মধ্যে বিদ্যুৎ পাবেন।’ তখন পুরো হল রুমে হাসির রোল পড়ে যায়। প্রতিমন্ত্রীও বিদ্রুপের হাসি দিয়ে বিদায় নিলেন।

এর আগে প্রতিমন্ত্রী বলছিলেন, ‘আমি গত পরশুদিন আপনাদের কল সেন্টারে কল করেছিলাম। প্রথমে চাইল গ্রাহক নম্বর, বললাম মনে নেই, এরপর জানতে চাইল এলাকার কোড বললাম জানি না।’

‘এরপর বললাম ফতুল্লায় বিদ্যুৎ নেই, আব্দুল জলিল তালুকদার নামে একজন জানালেন তিনি ফতুল্লায় লোকমান হোসেনের সঙ্গে কথা বলেছেন, ওখানে তার ছিড়ে গেছে, কিছুক্ষনের মধ্যে বিদ্যুৎ পাবেন।’

‘পরে ফতুল্যায় ফোন দিলাম, ধরলেন মোবারক হোসেন, তিনি জানালেন সেখানে লোকমান নামে কেউ নেউ। বিদ্যুতের তার ছিড়ে যাওয়ার কোনো ঘটনা ঘটেনি, আর বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রয়েছে।’

‘এরপর আমার পিএসকে দিয়ে ফোন করালাম। সে বলল, আমি চকবাজার থেকে বলছি, আমার এলাকায় বিদ্যুৎ নেই। সঙ্গে সঙ্গে কল সেন্টার জানাল, জাতীয় গ্রিড ফেল করেছে কিছুক্ষণের মধ্যে বিদ্যুৎ পাবেন। পরে খোঁজ নিয়ে জানলাম চকবাজারে এ রকম ঘটনা ঘটেনি।

নসরুল হামিদ বলেন, ‘বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে এমন ঘটনা ঘটলে বুঝেন তাহলে সাধারণ গ্রাহকের কী অবস্থা।’

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) বিদ্যুৎ ভবনে ডিপিডিসির কল সেন্টার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

প্রতিমন্ত্রী জানতে চান, যারা উপস্থিত আছেন, সবাই কি বিদ্যুতের গ্রাহক কিনা। সবাই জবাব দিলেন হ্যাঁ। মন্ত্রী জিজ্ঞেস করেন, ‘আপনারা কি নিজে বিল দেন?’ অনেকেই জবাব দিলেন হ্যাঁ। এবার সামনের দিকে বসা ডিপিডিসির এক কর্মকর্তার কাছে জানতে চাইলেন, ‘আপনার গ্রাহক নম্বর কত?’ ঐ কর্মকর্তা কাচুমাচু করছিলেন।

এবার এলাকার কোড জানতে চাইলেন, তাও বলতে পারলেন না। এবার প্রতিমন্ত্রী বললেন, ‘এটা মনে রাখা কঠিন। আর আপনারা কল সেন্টারে এসব নম্বর জানতে চাচ্ছেন। জরুরি নম্বর হতে হবে সহজবোধ্য। আজকে ডিপিডিসি করল, কালকে পিডিবি কল সেন্টার করবে। তাহলে মানুষ কয়টা মুখস্ত রাখবে। আবার আমি অন্য এলাকাতেও যেতে পারি। তখন নম্বর প্রয়োজন হতে পারে।’

‘২০১৪ সালে বলেছিলাম একটি ইন্ট্রিগ্রেটেড নম্বর হতে পারে। যেটার সঙ্গে সবগুলো প্রতিষ্ঠান যুক্ত থাকবে। যেমন ৯৯৯ এ কল করলে হাসপাতাল পুলিশ সবই পাওয়া যায়। সহজ করতে হবে। আপনি নিজে কোড মনে রাখতে পারেন না। কাস্টমার কী করে মনে রাখবে?’

ডিপিডিসির চেয়ারম্যান অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ শফিকউল্লাহ বলেন, ‘কল সেন্টারের মাধ্যমে সর্বোচ্চ সেবা দিতে হবে। শুধু যেন কলের মধ্যে সীমাবদ্ধ না থাকে।’

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ বলেন, ‘দেশে অনেক কল সেন্টার রয়েছে। কিন্তু প্রয়োজনের সময় তাদের পাওয়া যায় না। আশা করি ডিপিডিসি সর্বোচ্চ সেবা প্রদানে সচেষ্ট থাকবে।‘

ডিপিডিসির বিরুদ্ধে অভিযোগ, জরুরি সময়ে কল করা হলে কেউ রিসিভ করেন না, অনেক সময় বন্ধও পাওয়া যায়। এই দুর্ভোগ দূর করতে পাইলট প্রকল্পের আওতায় নতুন কল সেন্টার ১৬১১৬ চালু করা হলো।

এই নম্বরে কল করে অভিযোগ করার পাশাপাশি বিভিন্ন সেবা সম্পর্কে জানা যাবে। এখানে কল করে নতুন সংযোগ সমস্যার সমাধান, বৈদ্যুতিক ক্রটি, ভোল্টেজ আপ-ডাউন, পেমেন্ট সংক্রান্ত জটিলতা, মিটার সংক্রান্ত যে কোনো সমস্যা, প্রি-পেইড মিটারের ভেন্ডিংয়ে জটিলতা জানা যাবে।

আপনার মতামত লিখুন :

আগস্টের শোককে শক্তিতে রূপান্তর করতে হবে: ভূমিমন্ত্রী

আগস্টের শোককে শক্তিতে রূপান্তর করতে হবে: ভূমিমন্ত্রী
সভা ও দোয়া মাহফিলে বক্তব্য দেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

আগস্টের শোককে শক্তিতে রূপান্তর করতে হবে বলে জানিয়েছেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী।

তিনি বলেছেন, ‘জাতির পিতার আদর্শকে আমাদের বুকে ধারণ করতে হবে। তার যে স্বপ্ন- ক্ষুদামুক্ত, দারিদ্রমুক্ত, দুর্নীতিমুক্ত অসাম্প্রদায়িক সোনার বাংলা গড়ে তুলতে আমাদের সবার একসাথে কাজ করতে হবে।’

রোববার (১৮ আগস্ট) দুপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ভূমি মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ একটি দীর্ঘ আন্দোলনের ফসল, যার নেতৃত্বে ছিলেন বঙ্গবন্ধু। তিনি তাঁর সারা জীবন আমাদের অধিকার আদায়ের লড়াইয়ে উৎসর্গ করেছেন। স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু স্বাধীন বাংলাদেশের দায়িত্ব নেওয়ার সময় এ দেশ সম্পূর্ণরূপে বিধ্বস্ত ছিল। এমনকি ওই সময় বিদেশি অনেকেই বাংলাদেশকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করত, বলত- এ দেশ টিকবে না। সেই দেশ এখন আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ।’

তিনি আরও বলেন, ‘২০০৯ সাল হতে প্রধানমন্ত্রীর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের মহাসড়কে চলছে। এ তিন মেয়াদে বাংলাদেশের যে আমূল পরিবর্তন হয়েছে তা অবিশ্বাস্য। সকল পর্যায়ে মৌলিক চাহিদা পূরণ করে সফলতা অর্জন করার সাথে সাথে, সামগ্রিক অর্থনীতিতে উন্নয়নের ধারা বজায় রাখার জন্য বিশ্বে বাংলাদেশ আজ একটি রোল মডেলে পরিণত হয়েছে। বাংলাদেশ ইতোমধ্যে ৭ দশমিক ৯ শতাংশ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে।’

ভূমী মন্ত্রণালয়ের গণমুখী কাজের কথা উল্লেখ করতে গিয়ে মন্ত্রী গুচ্ছগ্রাম ও ভূমিহীনদের জমি প্রদানের বিষয়গুলো উল্লেখ করেন।

ভূমি মন্ত্রণালয়ে কর্মরতদের প্রতি মন্ত্রী দুর্নীতিমুক্ত জনসেবা প্রদানের আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘দুর্নীতির কারণে আমাদের প্রবৃদ্ধি আমাদের প্রাপ্য থেকে অনেক কম হচ্ছে। দুর্নীতিমুক্ত জনসেবা প্রদান দেশকে ভালোবাসার নামান্তর।’

আলোচনা অনুষ্ঠানের সভাপতি ভূমি সচিব মো. মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারী বলেন, ‘সরকারি কর্মচারী হিসেবে সেবা করাই আমাদের ধর্ম। স্বাধীনতার চেতনা ও জাতির পিতার চেতনা কেবল আনুষ্ঠানিকতার মধ্যে থাকলে হবে না। সারা বছর আমাদের কাজের মধ্যে তা প্রমাণ করতে হবে।’

আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন ভূমি আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. আবদুল হান্নান, ভূমি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আনিস মাহমুদ, আতাউর রহমান ও সিরাজ উদ্দিন এবং প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. হযরত আলী।

এফআর টাওয়ার দুর্নীতি, কাসেম ড্রাইসেলের এমডি গ্রেফতার

এফআর টাওয়ার দুর্নীতি, কাসেম ড্রাইসেলের এমডি গ্রেফতার
বনানীর এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডে ২৭ জনের প্রাণহানি ঘটে/ ফাইল ছবি

এফআর টাওয়ার দুর্নীতি মামলার আসামি কাসেম ড্রাইসেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তাসভির-উল-ইসলামকে গ্রেফতার করেছে বাংলাদেশ দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

রোববার (১৮ আগস্ট) তার গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন দুর্নীতি দমন কমিশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য।

আরও পড়ুন: ভবন নির্মাণে নিয়ম মানেনি রূপায়ণ, চেয়ারম্যানকে খুঁজছে..

তিনি বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, রোববার বিকেল পৌনে ৪টার দিকে রাজধানীর সেগুনবাগিচা এলাকা থেকে তাসভির-উল-ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার ৩ নম্বর মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

আরও পড়ুন:রূপায়ণের মুকুলসহ ২৩ জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

গত ২৮ মার্চ  বনানীর এফআর টাওয়ারে আগুন লাগে। এতে ২৭ জন মারা যান। অগ্নিকাণ্ডের পরপরই বনানীর এফআর টাওয়ারের নকশা অনুমোদনে জমির মালিক এসএমএইচআই ফারুক হোসেন এবং কাশেম ড্রাইসেল ব্যাটারির মালিক ও এফআর টাওয়ারের বর্ধিত অংশের মালিক তাসভির-উল-ইসলাম এবং রাজউকের সংশ্লিষ্ট ইমারত পরিদর্শকসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয় দুদক।

ফারুক হোসেন ১৯৯৬ সালে তার মালিকানাধীন ১০ কাঠা জায়গাতে ১৮ তলা ভবন নির্মাণের জন্য রাজউকে আবেদন করেন। প্রথমে ১৫ তলার অনুমোদন পেলেও পরবর্তীকালে রাজউকের সংশ্লিষ্টদের যোগসাজশে অবৈধভাবে ১৮ তলা ভবন নির্মাণ করেন। কিন্তু পরবর্তীকালে অবৈধভাবে ২৩ তলা পর্যন্ত নির্মাণ করা হয় বলে মামলায় অভিযোগ আনা হয়।

২০০৭ সালে বিষয়টি তদন্ত করে অনুমোদিত নকশায় অতিরিক্ত পাঁচতলা নির্মাণের প্রমাণ পেয়েও কোনো আইনি ব্যবস্থা নেয়নি রাজউক।

পরে নকশা জালিয়াতির মাধ্যমে অবৈধভাবে ১৬ থেকে ২৩ তলা ভবন নির্মাণের অভিযোগে এফআর টাওয়ারের মালিক, রাজউকের সাবেক দুই চেয়ারম্যানসহ ২৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

আরও পড়ুন:আগুন নিয়ন্ত্রণে, উদ্ধার কাজ চলছে

টাকার বান্ডিল ছড়িয়ে ছিটিয়ে এফআর টাওয়ারের ভেতরে

পুলিশ অফিসার হতে চায় ভাইরাল হওয়া নাঈম

 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র