Alexa

উদ্বোধনের ৪ মাসেও নেই খাল খননের অগ্রগতি

উদ্বোধনের ৪ মাসেও নেই খাল খননের অগ্রগতি

শ্যামাসুন্দরী খাল খননের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করে জেলা প্রশাসক / ছবি: বার্তা২৪

বাংলাদেশ ব-দ্বীপ পরিকল্পনা ২১০০ শতবর্ষের ডেল্টাপ্ল্যান কার্যক্রমের আওতায় শ্যামাসুন্দরী খাল খননের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয়েছিল গত বছরের ডিসেম্বরে। দেখতে দেখতে চার মাস ১৭ দিন পার হলেও এখনো খাল খননে হয়নি কোনো অগ্রগতি।

বরং ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান লাভ লোকসানের হিসাব কষে কাজটি করতে অপারগতা প্রকাশ করেছে। এ কারণে রংপুর মহানগরীর পানি নিষ্কাশনের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই খালের খনন ও জলাবদ্ধতা দূরীকরণে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর বিসিক শিল্পনগরীর প্রান্ত চেকপোস্ট থেকে শ্যামাসুন্দরী খালের সাড়ে সাত কিলোমিটার খনন কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক এনামুল হাবীব। এরপর কাজ শুরু না করে নানা অজুহাত দিতে থাকে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বাবু এন্টারপ্রাইজ। পরে জামানতের ৩ লাখ ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করে ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কার্যাদেশ বাতিল করেছে রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)। এখন আরও বড় প্রকল্প নিয়ে নতুন করে দরপত্র আহ্বানের চিন্তাভাবনা করছে কর্তৃপক্ষ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/13/1557759708633.jpg

কাজ না করার কারণ জানতে চাইলে বাবু এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আবু সুলতান মো. সালাউদ্দিন বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘খালের দুই পাড়ের ওয়াকওয়ে এবং সুরক্ষা প্রাচীরের অধিকাংশ আরসিসি পিলারের উচ্চতা চার ফুটের মধ্যে। এখন খাল পাঁচ ফুট খনন করলে দুই পাড় ভেঙে যাবে। বিষয়টি জানালে পাউবো দায়িত্ব নিতে চায়নি। ফলে এর ক্ষতিপূরণ আমাকেই দিতে হতো। এ কারণে কাজটি করা আমার পক্ষে সম্ভব হয়নি।’

রংপুর পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী মেহেদী হাসান বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘শ্যামাসুন্দরী খালটির পুনঃখনন কাজের উদ্বোধন করা হয় গত বছর। এক কোটি ৫০ লাখ টাকা ব্যয়ে খালটি সাড়ে সাত কিলোমিটার পুনঃখননের জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়। দরপত্রে আর কেউ অংশ না নেওয়ায় ১ কোটি ৩৫ লাখ টাকা ব্যয়ে কাজটি পায় বাবু এন্টারপ্রাইজ। কিন্তু পরবর্তীতে ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি ক্ষতির লোকসানের অযুহাত দেখিয়ে কাজ করতে অপরাগতা দেখায়।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/13/1557759794056.jpg

তিনি আরও বলেন, ‘নতুন করে দরপত্র আহ্বান করে পূর্বের পরিকল্পনার চেয়ে একটু বড় পরিসরে খনন কাজ করার কথা ভাবছে পানি উন্নয়নন বোর্ড। সে ক্ষেত্রে আমরা অবৈধ স্থাপনার তালিকা তৈরি করছি। বর্ষা মৌসুমের পরেই খাল খনন, অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও দখলমুক্ত এবং শ্যামাসুন্দরীর সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ শুরু করা হবে।’

এদিকে শুরুতে শ্যামাসুন্দরী খাল যে অবস্থায় আছে, সেভাবেই খনন করার কথা ছিল। কিন্তু এবার জেলা প্রশাসন ও সিটি করপোরেশনের সঙ্গে সমন্বয় করে মৌজা ম্যাপ ধরে খালের প্রকৃত প্রস্থ বের করা হচ্ছে। এবার খাল খননের পাশাপাশি সৌন্দর্য বর্ধনের নানা বিষয়ও অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

জেলা প্রশাসক এনামুল হাবীব বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘পানি উন্নয়ন বোর্ডকে মৌজা ম্যাপ ধরে খালের প্রস্থ বের করতে বলা হয়েছে। নগরীর সৌন্দর্য বৃদ্ধির জন্য শ্যামাসুন্দরী খাল দখলমুক্ত করার কোনো বিকল্প নেই। এটি নিয়ে সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষকে সঙ্গে নিয়ে সমন্বিতভাবে কাজ করা হবে।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/13/1557759825649.jpg

বর্তমানে রংপুর নগরীর বুক চিড়ে প্রবাহিত শ্যামাসুন্দরী খালটি বেদখল হয়ে দুই ধারে বড় বড় স্থাপনা গড়ে উঠেছে। এ সকল স্থাপনার পয়ঃনিষ্কাশনের পাইপলাইন খালটিতে সংযোগ রয়েছে। খালটি দিন দিন সংকীর্ণ হতে থাকায় নর্দমায় পরিণত হয়েছে। ময়লা আবর্জনার স্তূপে বন্ধ হয়ে গেছে পানির প্রবাহ। দূষিত পানিতে মশার মাছি আর আবর্জনার ভাগাড় থেকে ছড়াচ্ছে দুর্গন্ধ। এ কারণে নগরবাসীকে নাকে রুমাল দিয়ে চলা ফেরা করতে হচ্ছে।

আপনার মতামত লিখুন :