Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

গণহত্যা নিয়ে তুরিন আফরোজের গবেষণামূলক বই প্রকাশ

গণহত্যা নিয়ে তুরিন আফরোজের গবেষণামূলক বই প্রকাশ
তুরিন আফরোজের গবেষণামূলক বই / ছবি: সংগৃহীত
Shadrul Abedin


  • Font increase
  • Font Decrease

১৯৭১ সালের পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বরবর নির্যাতনের কথা এখনো আর্ন্তজতিকভাবে স্বীকৃতি লাভ করেনি। তৎকালীন পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী আর এদেশীয় দোসররা যে গণহত্যা ঘটিয়েছে, সেটাকে নানাভাবে অপপ্রচার করার চেষ্টা করছে কিছু কিছু মহল। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের বর্বরচিত কালরাতের উপর বিশেষ তথ্য উপাত্ত ডকুমেন্ট আকারে সংগৃহীত না থাকায় সেই সুযোগটি নিচ্ছিল পাকিস্তানি দোসরা।

সেদিন যে গণহত্যা হয়েছে– তাতে প্রাণ দিয়েছে ৩০ রাখ শহীদ, নির্যাতিত হয়েছে পাঁচ লাখ নারীর অধিক, উদ্ভাস্তু জীবন বেছে নিয়েছে প্রায় এক কোটি মানুষ। সেই গণহত্যার বিচার বাংলার মাটিতে হয়েছে প্রায় ৩৯ বছর পর। আর সেই বিচারের মধ্যে দিয়ে উঠে এসেছে গণহত্যার নানা ঘটনা। আন্তর্জাতিক বিশ্বে এই বিচার নিয়ে সৃষ্টি করা হয়েছে নানা অপপ্রচার।

সম্প্রতি সিঙ্গাপুর থেকে প্যাট্রিজ পাবলিশিং প্রকাশ করল ‘ট্রায়লস অব ১৯৭১ বাংলাদেশ জেনোসাইড: থ্রো অ্যা লিগ্যাল লেনস’ নামক বই। বইটিতে বাংলাদেশে ১৯৭১ সালে সংঘটিত গণহত্যার বিচারিক প্রক্রিয়াকে আইনিভাবে বিশ্লেষণ করা হয়েছে। একটি অনবদ্য সৃষ্টিকর্ম।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফোরজের লেখা বইটি গণহত্যার বিচারিক প্রক্রিয়া নিয়ে নানা বিশ্লেষণ রয়েছে।

ইংরেজি ভাষায় অনূদিত বইটি সম্পর্কে লেখক বলেছেন, ‘বইটি ইংরেজি ভাষায় লেখার অন্যতম কারণ বাংলাদেশের গণহত্যা বিষয়ে আন্তর্জাতিক সংবেদনশীলতা তৈরি করা। বইটিতে বাংলাদেশে সংঘটিত গণহত্যার একটি চিত্র ফুটে উঠেছে গণহত্যার বিচারের বিভিন্ন দিক উন্মোচিত হওয়ার মধ্যে দিয়ে। বাংলাদেশের গণহত্যা নিয়ে একাডেমিক প্রকাশনার সংখ্যা নিতান্তই অপ্রতুল। সেখানে ইংরেজি ভাষায় প্রকাশনা তেমন নেই বললেই চলে। লেখকের বইটি এখানে একটি আবেদন সৃষ্টি করে। বইটিতে মোট ছয়টি অধ্যায় রয়েছে। প্রতিটি অধ্যায়ে আইনি ব্যাখা বিচারিক বিষয়াদি তুলে ধরেছেন লেখক। বাংলাদেশে পাঠক সমাবেশ থেকে বইটি পাওয়া যাচ্ছে। প্রতি কপি বইয়ের মূল্য নির্ধারণ করা আছে ৮৯৫ টাকা।

বইটিতে ১৯৭৩ সালের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল আইন, যার অধীনে বর্তমানের বিচার চলছে, তার উল্লেখযোগ্য অংশ সমূহের আইনি ব্যাখ্যা দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে, আন্তর্জাতিক আইনের জাতীয়করণ, সাংবিধানিক প্রাধান্যকে লঙ্ঘন করে ১৯৭৩ সালের আইনকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া, দেশীয় ট্রাইব্যুনালে গণহত্যার বিচারের বিষয়, গণহত্যার সংজ্ঞায়ন, আসামির জামিনের অধিকার, আসামির অনুপস্থিতিতে বিচারের সুযোগ, দণ্ড নিরূপণের প্রক্রিয়া, আপিল ও রিভিউ করার প্রক্রিয়া, প্রেসিডেন্টের মার্জনা ভিক্ষা করার অধিকার ইত্যাদি। লেখক এ সকল বিষয়ে উত্থাপিত আন্তর্জাতিক সমালোচনার কট্টর জবাব দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ১১ মার্চ গণহত্যা দিবসকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায়ের দাবিতে সংসদে একটি সাধারণ প্রস্তাব উত্থাপন হয়।

আপনার মতামত লিখুন :

গাইবান্ধার বন্যার্তদের জন্য জরুরি শুকনো খাবার

গাইবান্ধার বন্যার্তদের জন্য জরুরি শুকনো খাবার
গাইবান্ধার উদ্দেশে যাত্রার পূর্বে ডেপুটি স্পিকার ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

গাইবান্ধা থেকে: 'আমার এলাকায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। বন্যা দুর্গত মানুষদের জন্য প্রয়োজন পর্যাপ্ত শুকনো খাবার। কারণ সকলের ঘরেই কমবেশি খাবার আছে, কিন্তু রান্না করে খাবার ব্যবস্থা করার উপায় নাই।'

নিজের নির্বাচনী এলাকা গাইবাান্ধায় যাওয়ার সময় আকাশ পথে বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে এমনটাই বলছিলেন গাইবান্ধা-৫ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়া।

শুক্রবার (১৯ জুলাই) সকালে তেঁজগাও বিমান বাহিনীর ঘাঁটি বাশার থেকে হেলিকপ্টারে করে নিজ জেলার বন্যা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে যান ডেপুটি স্পিকার।

তার সঙ্গে রয়েছেন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় উপমন্ত্রী, একেএম এনামুল হক শামীম, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে সিনিয়র সচিব মো. শাহ্ কামাল, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী।

গাইবান্ধার বন্যার্ত মানুষদের জন্য জরুরি শুকনো খাবার

ফজলে রাব্বী মিয়া বলেন, 'গাইবান্ধায় এবারের বন্যা পরিস্থিতি ১৯৮৮ সালের বন্যাকেও ছাড়িয়ে গেছে। জেলা শহর সবসময় সুরক্ষিত থাকলেও এবার সেটাও নাই। কারণ, পানি উন্নয়ন বোর্ডের বাঁধ এমনভাবে ভেঙে গেছে যে, পুরো এলাকাই বন্যায় প্লাবিত।'

তিনি আরও বলেন, 'আমার জেলায় দুর্গত মানুষদের ঘরে ঘরে খাবার আছে। তবে তারা খেতে পারছে না রান্না করার অভাবে। শুকনো খাবারটাই এই মুহূর্তে জরুরি প্রয়োজন। আমি নিজ উদ্যোগে বগুড়া থেকে চিড়া সংগ্রহ করেছি।’

সংসদের ডেপুটি স্পিকার বলেন, ‘আমি দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমানকে অনুরোধ করেছি, জিআর নগদ অর্থের পরিবর্তে যদি শুকনো খাবার হিসেবে চিড়া কিনে দেওয়া হয় তাহলে বন্যার্তদের জন্যে কিছুটা হলেও উপকার হবে।'

এডিস মশা নিধনে সব প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

এডিস মশা নিধনে সব প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
র‌্যালিতে যোগ দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বর্তমান সময়ে সবচেয়ে ডেঙ্গুর প্রকোপটা বেশি। এই ডেঙ্গু রোগ বহনকারী এডিস মশা নিধনে সরকারের সব ধরনের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

শুক্রবার (১৯ জুলাই) রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউয়ের সামনে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া সচেতনতা র‍্যালিতে অংশ নিয়ে তিনি এ কথা জানান।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/19/1563514435926.jpg

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘ডেঙ্গু রোগ বহনকারী এডিস মশা নিধনে আমাদের যার যার অবস্থান থেকে সচেতন হতে হবে। ২০০০ সালের প্রথম দিক থেকেই এ রোগের সঙ্গে আমাদের পরিচয় হয়। গেল বছরের আগ পর্যন্ত এটি নিয়ে আমরা তেমন একটা চিন্তিত ছিলাম না। কিন্তু এবার চিন্তার বিষয় আছে। আর তাই এই এডিস মশা নিধনে সরকারের যে সকল প্রচেষ্টা ছিল। সকল প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বৃষ্টিতে কোথাও পানি জমে থাকলে এই মশা সহজে বিস্তার লাভ করে। আমাদের নিজ নিজ আঙিনা পরিষ্কার রাখতে হবে। নিজেদের আগে সচেতন হতে হবে। তাহলেই এই রোগ ও মশা থেকে আমরা মুক্তি পাব।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র