Alexa

মসিকে কাউন্সিলর নির্বাচিত হলেন যারা

মসিকে কাউন্সিলর নির্বাচিত হলেন যারা

মসিক নির্বাচনের ফলাফল ঘোষনা করছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আলীমুজ্জামান, ছবি: বার্তা২৪

ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের (মসিক) প্রথম নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে ৩৩ টি সাধারণ ওয়ার্ড ও ১১ টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডের ফলাফল ঘোষনা করা হয়েছে।

রোববার (৫ মে) নগরীর টাউনহলস্থ এডভোকেট তারেক স্মৃতি অডিটোরিয়ামে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসার মো. আলীমুজ্জামান ফলাফল ঘোষনা করেন।

বেসরকারিভাবে নির্বাচিত সাধারণ কাউন্সিলর যারা:

১ নং ওয়ার্ডে ঘুড়ি প্রতীক নিয়ে আসাদুজ্জামান বাবু ৩৪৭৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে, তার নিকটতম লাটিম প্রতীকের আব্দুল ওয়াদুদ ১৩৮০ ভোট পেয়েছেন।

২ নং ওয়ার্ডে মিষ্টি কুমড়া প্রতীক নিয়ে মোঃ গোলাম রফিক দুদু ১৮১৪ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন, তার নিকটতম টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীকের এম এ মতিন পেয়েছেন ১৫৯৩ ভোট। 

৩ নং ওয়ার্ডে ঘড়ি প্রতীক নিয়ে মোঃ শরীফুল ইসলাম পেয়েছেন ২৯৮১ ভোট, তার নিকটতম রেডিও প্রতীকের মোঃ রফিকুল ইসলাম শাহীন পেয়েছেন ৪২৯ ভোট।   

৪ নং ওয়ার্ডে রেডিও প্রতীক নিয়ে মোঃ মাহবুবুর রহমান ১৯১১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে, তার নিকটতম ঠেলাগাড়ী প্রতীকে মোঃ রাসেল পাঠান ১৪৫৯ ভোট পেয়েছেন।   

৫ নং ওয়ার্ডে রেডিও প্রতীক নিয়ে মোঃ নিয়াজ মোর্শেদ ১৩৭২ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন, তার নিকটতম ঠেলাগাড়ী প্রতীক নিয়ে মোঃ মনিরুল ইসলাম পেয়েছেন ৮২৯ ভোট।

৬ নং ওয়ার্ডে ঠেলাগাড়ী প্রতীক নিয়ে সৈয়দ শফিকুল ইসলাম মিন্টু ২৮৩৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে, তার নিকটতম রেডিও প্রতীকে মোঃ মুস্তাফিজুর রহমান ১৭২ ভোট পেয়েছেন।

৭ নং ওয়ার্ডে ঘুড়ি প্রতীক নিয়ে আসিফ হোসেন ডন ১৪৯০ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন, তার নিকটতম রেডিও প্রতীকের বিপ্লব কুমার সরকার ৩৯৮ ভোট পেয়েছেন।  

৮ নং ওয়ার্ডে ঠেলাগাড়ী প্রতীকের ফারুক হাসান ১৮৫৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম রেডিও প্রতীকে বিকাশ সরকার পেয়েছেন ১৪৭৫ ভোট।

৯ নং ওয়ার্ডে মিষ্টি কুমড়া প্রতীক নিয়ে শীতল সরকার ২২৬১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তার নিকটতম ঠেলাগাড়ী প্রতীকের মোঃ আল মাসুদ পেয়েছেন ১৬৫৯ ভোট। 

১০ নং ওয়ার্ডে ঘুড়ি প্রতীক নিয়ে মোঃ তাজুল ইসলাম ১৮২৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম লাটিম প্রতীক নিয়ে রতন চৌধুরী পন্ডিত পেয়েছেন ১৭৪৪ ভোট।  

১১ নং ওয়ার্ডে লাটিম প্রতীক নিয়ে মোঃ ফরহাদ আলম ১৩৬৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম ঘুড়ি প্রতীকে খন্দকার আনিসুজ্জামান এলিছ ৪২৯ ভোট পেয়েছেন।  

১২ নং ওয়ার্ডে ঘুড়ি প্রতীক নিয়ে ২০১১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন আনিসুর রহমান, তার নিকটতম লাটিম প্রতীকে হানিফ মোঃ ওয়ালিউল্লাহ ১৩৭৭ ভোট পেয়েছেন।  

১৩ নং ওয়ার্ডে ঘুড়ি প্রতীক নিয়ে দেলোয়ার হোসেন ১৬২৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম ঠেলাগাড়ি প্রতীকে মোঃ আব্বাস আলী তালুকদার ১২৬৫ ভোট পেয়েছেন।  

১৪ নং ওয়ার্ডে লাটিম প্রতীক নিয়ে মোঃ ফজলুল হক ১৩৪১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম ঠেলাগাড়ি প্রতীকে মোঃ আাতিকুর হাসান মাসুম ১০৭২ ভোট পেয়েছেন।

১৫ নং ওয়ার্ডে ঠেলাগাড়ি প্রতীক নিয়ে মোঃ মাহবুব আলম হেলাল ২০৫০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে, তার নিকটতম লাটিম প্রতীকে মোঃ রফিকুল ইসলাম ১৫৬৪ ভোট পেয়েছেন।  

১৬ নং ওয়ার্ডে ঘুড়ি প্রতীক নিয়ে মোঃ আব্দুল মান্নান ১৯২৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে, তার নিকটতম ঠেলাগাড়ী প্রতীকে মোঃ শরাফ উদ্দিন ১৫৭১ ভোট পেয়েছেন।  

১৭ নং ওয়ার্ডে টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীক নিয়ে মোঃ কামাল খান ২০৫৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন, তার নিকটতম ঘুড়ি প্রতীকের মোঃ নজরুল ইসলাম ১৮৩৭ ভোট পেয়েছেন।  

১৮ নং ওয়ার্ডে ঠেলাগাড়ী প্রতীক নিয়ে হাবিবুর রহমান হবি ২৮১৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম ঘুড়ি প্রতীকে মোঃ জামাল হোসেন রোজ ২২১৫ ভোট পেয়েছেন।

১৯ নং ওয়ার্ডে মিষ্টি কুমড়া প্রতীক নিয়ে মোঃ আব্বাস আলী মন্ডল ৩২০০ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম করাত প্রতীকে মোঃ মাহবুবুর রহমান ২৭৯৭ ভোট পেয়েছেন।  

২০ নং ওয়ার্ডে লাঠিম প্রতীক নিয়ে মোঃ সিরাজুল ইসলাম নির্বাচিত হয়েছেন  ২১১৩ ভোট পেয়ে, তার নিকটতম ঘুড়ি প্রতীকে মোঃ সাইদুর রহমান তারু ১০৫৫ ভোট পেয়েছেন।

২১ নং ওয়ার্ডে লাটিম প্রতীক নিয়ে মোঃ মোস্তফা ফারুক ৯৭১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে, তার নিকটতম ঠেলাগাড়ি প্রতীকে মোঃ লাল মিয়া লাল্টু ৩৯৮ ভোট পেয়েছেন।  

২২ নং ওয়ার্ডে ট্রাক্টার প্রতীক নিয়ে মোঃ মোস্তফা কামাল ১০১১ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন, তার নিকটতম ঠেলাগাড়ী প্রতীকে মোঃ আবুল হাসেম ৬৩৯ ভোট পেয়েছেন।

২৩ নং ওয়ার্ডে করাত প্রতীক নিয়ে মোঃ সাব্বির ইউনুস ১৭৩৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে, তার নিকটতম ট্রাক্টর প্রতীকে মোঃ নাজমুল হাসান ৯৫৩ ভোট পেয়েছেন।  

২৪ নং ওয়ার্ডে টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীক নিয়ে মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম ৯৪৫ ভোট পেয়ে  নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম কাটা চামচ প্রতীকের মোঃ আসলাম হোসেন পেয়েছেন ৫৬৫ ভোট।

২৫ নং ওয়ার্ডে টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীক নিয়ে মোঃ মনোয়ার হোসেন ১১২৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম  মিষ্টি কুমড়া প্রতীকে মোঃ ওমর ফারুক ১০৩২ ভোট পেয়েছেন।

২৬ নং ওয়ার্ডে ঠেলাগাড়ী প্রতীক নিয়ে মোঃ শফিকুল ইসলাম ১৯৪৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীকে মোমিন রুবেল পেয়েছেন ৭৯১ ভোট পেয়েছেন।

২৭ নং ওয়ার্ডে ঠেলাগাড়ী প্রতীক নিয়ে মোঃ শামসুল হক ১৯৭৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীকে মোঃ খায়রুল ইসলাম ১৪৭৮ ভোট পেয়েছেন।

২৮ নং ওয়ার্ডে ঘুড়ি প্রতীক নিয়ে কায়সার জাহাঙ্গীর আকন্দ ১৯৩৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে, তার নিকটতম রেডিও প্রতীকে মোঃ গোলাম হোসেন হামিদ ৮৬৮ ভোট পেয়েছেন।

২৯ নং ওয়ার্ডে এয়ার কন্ডিশন প্রতীক নিয়ে মোঃ রফিকুল ইসলাম ১০২১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছে, তার নিকটতম ঝুড়ি প্রতীকে মোঃ আবুল হোসেন ৭০৯ ভোট পেয়েছেন।

৩০ নং ওয়ার্ডে ঠেলাগাড়ী প্রতীক নিয়ে আবুল বাসার ১৫৭৮ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে, তার নিকটতম এয়ার কন্ডিশনার প্রতীকে মোঃ শাহ আলম ১০২৫ভোট পেয়েছেন।

৩১ নং ওয়ার্ডে টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীক নিয়ে মোঃ আসাদুজ্জামান ৩১০৯ ভোট পেয়ে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছে, তার নিকটতম ট্রাক্টর প্রতীকে মোঃ সেলিম উদ্দিন ২৭৪৪ ভোট পেয়েছেন।

৩২ নং ওয়ার্ডে রেডিও প্রতীক নিয়ে মোঃ এমদাদুল হক মন্ডল ২৩৮৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে, তার নিকটতম ঝুড়ি প্রতীকে আবু বক্কর সিদ্দিক ১৬১৩ ভোট পেয়েছেন।

৩৩ নং ওয়ার্ডে ট্রাক্টর প্রতীক নিয়ে মোঃ শাহজাহান ৪৫১৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছে, তার নিকটতম মিষ্টি ঘুড়ি প্রতীকে মোস্তফা কামাল পেয়েছেন ২২১১ ভোট।

সংরক্ষিত ওয়ার্ডে নির্বাচিত যারা:

১/২/৩ সংরক্ষিত ওয়ার্ডে স্টীল আলমারী প্রতীক নিয়ে সেলিনা আক্তার ৩৮০৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে, তার নিকটতম চশমা প্রতীকে আকিকুন নাহার ৩৭৫২ ভোট পেয়েছেন।

৪/৫/৬ সংরক্ষিত ওয়ার্ডে বই প্রতীক নিয়ে শাম্মী আক্তার মিতু ৪৮৫৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম আনারশ প্রতীকে খোদেজা আক্তার ৩২৭৫ ভোট পেয়েছেন।

৭/৮/৯ সংরক্ষিত ওয়ার্ডে বই প্রতীক নিয়ে মোছাঃ হামিদা পারভীন ৩৩০৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছে, তার নিকটতম ডলফিন প্রতীকে আরতী গুপ্তা ২৯৭০ ভোট পেয়েছেন।

১০/১১/১২ সংরক্ষিত ওয়ার্ডে হেলিকপ্টার প্রতীক নিয়ে রোকসানা শিরিন ২৩১০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছের, তার নিকটতম জীপগাড়ি প্রতীকে রীতা পাল ২১০৭ ভোট পেয়েছেন। 

১৩/১৪/১৫ সংরক্ষিত ওয়ার্ডে চশমা প্রতীক নিয়ে রোকেয়া হোসেন ৪৫৯১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম আনারশ প্রতীকে স্বপ্না খন্দকার ৩৪৬৩ ভোট পেয়েছেন। 

১৬/১৭/১৮ সংরক্ষিত ওয়ার্ডে বই প্রতীক নিয়ে রোকসানা পারভীন কাজল ৪৪০৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম মোবাইল ফোন প্রতীকে মোছাঃ রানী বেগম ৩৫৭৪ ভোট পেয়েছেন। 

১৯/২০/২১ সংরক্ষিত ওয়ার্ডে চশমা প্রতীক নিয়ে শামীমা আক্তার ৯৫৫৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম বই প্রতীকে ইসমত আরা বানু  ৩৬৮৪ ভোট পেয়েছেন। 

২২/২৩/২৪ সংরক্ষিত ওয়ার্ডে বই প্রতীক নিয়ে শাহনাজ বেগম ৪৩০৯ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম আনারশ প্রতীকে মোছাঃ হাজেরা খাতুন ৩৮০৬ ভোট পেয়েছেন। 

২৫/২৬/২৭ সংরক্ষিত ওয়ার্ডে চশমা প্রতীক নিয়ে আইরিন আক্তার ৪৯৬৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম মোবাইল ফোন প্রতীকে মোছাঃ রিনা আক্তার ৪৭৫৮ ভোট পেয়েছেন। 

২৮/২৯/৩০ সংরক্ষিত ওয়ার্ডে মোবাইল ফোন প্রতীক নিয়ে কাউসার ই জান্নাত ৫৭২১ ভোট পেয়ে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছে, তার নিকটতম বেহালা প্রতীকে মোছাঃ হামিদা ৫০১৫ ভোট পেয়েছেন।

৩১/৩২/৩৩ সংরক্ষিত ওয়ার্ডে বই প্রতীক নিয়ে মোছাঃ ফারজানা ববি কাকলী ৬৫৬৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন, তার নিকটতম হেলিকপ্টার প্রতীকে মোছাঃ কুলসুম বেগম ৪৮৯৩ ভোট পেয়েছেন। 

আর আগে, ১২৭ টি কেন্দ্রে ইভিএম পদ্ধতিতে সকাল ৮ টা থেকে শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে বিরতিহীনভাবে চলে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত। এতে ৩৩টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৪২জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৭০জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।  

মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বি কোনো প্রার্থী না থাকায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাবেক পৌর মেয়র ও মসিক প্রশাসক ইকরামুল হক টিটু বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় মেয়র নির্বাচিত হওয়ায় ভোট হয় শুধুমাত্র কাউন্সিলর পদে।

আপনার মতামত লিখুন :

জাতীয় এর আরও খবর