Barta24

রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

শ্রমিক-মালিক ঐক্য গড়ি, উন্নয়নের শপথ করি

শ্রমিক-মালিক ঐক্য গড়ি, উন্নয়নের শপথ করি
ছবি: প্রতীকী
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট ঢাকা বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

জীবনে টিকে থাকার জন্য কাজের কোনো বিকল্প নেই। কাজ করতে হলে শ্রম দিতে হয়, ঘাম ঝরাতে হয়। সেটা হোক কায়িক কিংবা মানসিক। যিনি শ্রম দেন তিনিই শ্রমিক। আর এ শ্রমিকদের জন্যই একটা দিন পহেলা মে। আন্তর্জাতিক শ্রমিক সংহতি দিবস। সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য ‘শ্রমিক-মালিক ঐক্য গড়ি, উন্নয়নের শপথ করি।’

প্রতি বছর যখনই মে দিবস আসে তখন সচেতন মানুষের মাঝে ‘শ্রমিক অনুভূতি’ জাগ্রত হয়। কারণ এ দিনটি শ্রমজীবী মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার দিন, বিশ্বব্যাপী শ্রমজীবী মানুষের আন্দোলন-সংগ্রামে অনুপ্রেরণার উৎসের দিন, মালিক-শ্রমিক সুসম্পর্ক প্রতিষ্ঠা আর শ্রমিকদের শোষণ-বঞ্চনার অবসান ঘটার স্বপ্ন দেখারও দিন। এসবকিছুকে যেন মনে করিয়ে দেয় মে দিবস। সময়ের ভেলায় ভেসে বছর ঘুরে এবারো ফিরে এসেছে শ্রমিক দিবস।

মে দিবসের প্রেক্ষাপট: শ্রমের ন্যায্য অধিকার আদায়ে ১৩৩ বছর আগে শোষণ বঞ্চনার বিরুদ্ধে বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়েছিলেন শ্রমজীবীরা। ১৮৮৬ সালের এ দিন আট ঘণ্টা কাজের দাবিতে যুক্তরাষ্ট্রের সব শিল্পাঞ্চলে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছিলেন শ্রমিকরা। সে ডাকে শিকাগো শহরের তিন লাখ শ্রমিক কাজ বন্ধ রাখেন।

শ্রমিক সমাবেশকে ঘিরে শিকাগো শহরের হে মার্কেট রূপ নেয় লাখো শ্রমিকদের জনসমুদ্রে। সেদিন লাখো শ্রমিক লাল ঝান্ডা হাতে সমবেত হন সেখানে। বিক্ষোভের এক পর্যায়ে পুলিশ শ্রমিকদের ওপর নির্বিচারে গুলি চালালে ১১ শ্রমিক প্রাণ হারান। ওই ঘটনার রেশ ছড়িয়ে পড়ে গোটা বিশ্বে। গড়ে ওঠে শ্রমিক-জনতার বৃহত্তর ঐক্য। অবশেষে তীব্র আন্দোলনের মুখে শ্রমিকদের দৈনিক আটঘণ্টা কাজের দাবি মেনে নিতে বাধ্য হয় যুক্তরাষ্ট্র সরকার।

পরে ১৮৮৯ সালের ১৪ জুলাই প্যারিসে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক শ্রমিক সম্মেলনে শিকাগোর রক্তঝরা অর্জনকে স্বীকৃতি দেয়া হয়। ওই ঘটনার স্মারক হিসেবে ১ মে ‘আন্তর্জাতিক শ্রমিক সংহতি দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করা হয়। ১৯৭২ সালে মে দিবসকে বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয়ভাবে পালনের স্বীকৃতি দেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এরপর থেকে যথাযোগ্য মর্যাদায় মে দিবস পালিত হয়ে আসছে।

রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর বাণী: যথাযোগ্য মর্যাদায় মে দিবস পালনের আহ্বান জানিয়ে পৃথক পৃথক বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী মহান মে দিবস ২০১৯-এর সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।

বাণীতে রাষ্ট্রপতি শ্রমিকের অধিকার ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় ন্যায্য মজুরি, নিরাপদ ও স্বাস্থ্যসম্মত কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করতে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

পৃথক বাণীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মে দিবসের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে পারস্পরিক সুসম্পর্ক বজায় রেখে শ্রমিক ও মালিকদের কলকারখানার উৎপাদন বৃদ্ধিতে নিবেদিত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

কর্মসূচি: আজ সরকারি ছুটি। সরকারি-বেসরকারি অফিস-আদালতের পাশাপাশি বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সব তফসিলি ব্যাংক ও কলকারখানা বন্ধ। বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতারসহ বেসরকারি স্যাটেলাইট টেলিভিশন ও বেতারগুলো বিশেষ অনুষ্ঠানমালা সম্প্রচার করবে এবং সংবাদপত্রগুলোতে বিশেষ ক্রোড়পত্র ও নিবন্ধ প্রকাশ করা হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও অনেকে শ্রমিক দিবসের শুভেচ্ছা জানান। শ্রমিক দিবসের মূল চেতনা বাস্তবায়নের প্রত্যাশা করেন।

প্রতি বছরের মতো এবারো রাষ্ট্রীয়ভাবে মে দিবস উদযাপন উপলক্ষে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। সকাল ৭টায় মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে শ্রমভবনের সামনে থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালির আয়োজন করা হয়েছে। বিকেল ৪টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে। বাংলাদেশ শ্রমিক ফেডারেশন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে সকাল ১০টায় শ্রমিক সমাবেশ করবে। আগামী ২ মে বিকেল ৩টায় মে দিবস উপলক্ষে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবে একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া দেশের বিভিন্ন জেলায় অবস্থিত শ্রম অধিদপ্তর এবং কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের উদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হবে। মে দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল যেমন আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, বাংলাদেশ পোশাকশিল্প শ্রমিক ফেডারেশন, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) দুই অংশ, জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দল, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র, বাংলাদেশ শ্রমিক ফেডারেশন, জাতীয় শ্রমিক জোটসহ বিভিন্ন সংগঠন নানা কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। সামাজিক, পেশাজীবী ও সাংস্কৃতিক সংগঠন নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। এসব কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে র‌্যালি, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

আপনার মতামত লিখুন :

ঢাকার নদী দূষণ ও দখল রোধে মাস্টার প্ল্যান চূড়ান্ত

ঢাকার নদী দূষণ ও দখল রোধে মাস্টার প্ল্যান চূড়ান্ত
সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, ছবি: বর্তাটোয়েন্টিফোর.কম

চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীসহ ঢাকার চারপাশের নদীগুলোর দূষণ ও দখল রোধ এবং নাব্যতা বৃদ্ধির জন্য প্রণীত দুটি মাস্টারপ্ল্যান চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

রোববার (২১ জুলাই) সচিবালয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীসহ ঢাকার চারপাশের নদীগুলোর দূষণ ও দখলরোধ এবং নাব্যতা বৃদ্ধির জন্য প্রণীত দুটি মাস্টারপ্ল্যান প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন করেছেন। কালক্ষেপণ না করে বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নিতে নির্দেশনা দিয়েছেন। মন্ত্রণালয়, অধিদফতর, সংস্থা এ মাস্টারপ্ল্যান অনুযায়ী নিজ নিজ কার্যক্রম শুরু করেছে।

তিনি জানান, ইতোপূর্বে প্রণীত খসড়া মাস্টারপ্ল্যান দুটি নিবিড়ভাবে পর্যালোচনা পূর্বক সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগের স্ব স্ব দায়িত্ব ও করণীয় মাস্টারপ্ল্যানে যথাযথভাবে প্রতিফলিত হয়েছে কিনা সে বিষয়ে মন্ত্রণালয় ও বিভাগসমূহের বিস্তারিত মতামত গ্রহণ করা হয়। প্রণীত মাস্টারপ্ল্যানে ২৪টি মূল কার্যক্রম এবং এর আওতায় ১৮০টি সহযোগী কার্যক্রম চিহ্নিত করা হয়েছে।

তাজুল ইসলাম আরও জানান, মাস্টারপ্ল্যানটিতে চট্টগ্রামের কর্ণফুলী এবং হালদা নদীর জন্য ৪৫টি মূল কার্যক্রম এবং এর আওতায় ১৬৭টি সহযোগী কার্যক্রম চিহ্নিত করা হয়েছে। দুটি মাস্টারপ্ল্যানই ক্রাশ প্রোগ্রাম, স্বল্পমেয়াদী, মধ্যমেয়াদী এবং দীর্ঘমেয়াদী পদক্ষেপের মাধ্যমে বাস্তবায়ন করা হবে।

সাম্প্রতিক সময়ের ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো এডিস মশার বিস্তার তথা ডেঙ্গু প্রতিরোধে সর্বাত্মক কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। এজন্য নাগরিকদের সচেতনতা বৃদ্ধি জরুরি।’

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ, পানি সম্পদ সচিব কবীর বিন আনোয়ার সহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ।

ঈদের আগে পরে ৮ দিন ফেরিতে ট্রাক-লরি পারাপার বন্ধ

ঈদের আগে পরে ৮ দিন ফেরিতে ট্রাক-লরি পারাপার বন্ধ
নৌ প্রতিমন্ত্রীর সভা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

পবিত্র ঈদুল আজহার আগের পাঁচ দিন ও পরের তিন দিনসহ মোট আট দিন ফেরিতে ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান ও লরি পারাপার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) প্রস্তাবিত ১০ দিন বন্ধ রাখার প্রেক্ষিতে এ সিদ্ধান্ত হয়। তবে পণ্য ও কোরবানির পশুবাহী ট্রাক এ নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবে।

রোববার (২১ জুলাই) বিদ্যুৎ ভবনে নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে ঈদে লঞ্চ, ফেরি, স্টিমার চলাচল ও যাত্রীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বন্যার কারণে পানি বৃদ্ধি ও তীব্র স্রোতের কারণে ফেরি চলাচল ব্যাহত হওয়ার বিষয়টি উঠে আসে। প্রতিমন্ত্রী এ সমস্যা মোকাবিলায় সব প্রস্তুতি রাখার নির্দেশ দেন, পাশাপাশি ঈদে যাতে যাত্রীদের দুর্ভোগ না হয় সে বিষয়েও সতর্ক থাকার পরামর্শ দেন।

এ সময় বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান ও লরি চলাচল ১০ দিন বন্ধ রাখার প্রস্তাব করেন। এর কারণ হিসেবে বলা হয়, বন্যার কারণে বিভিন্ন স্থানে পানি বেড়ে যাওয়ায় ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। এর ওপর ঈদে বাড়তি গাড়ির চাপ পড়লে দীর্ঘ যানজট হতে পারে। তাই ঈদের আগে পরে ১০ দিন ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান ও লরি পারাপার বন্ধ রাখলে দুর্ভোগ লাঘব হবে। তবে ১০ দিন বন্ধ রাখার পক্ষে একমত হওয়া যায়নি। ফলে প্রাথমিকভাবে ঈদের আগে পাঁচ দিন ও পরে তিন দিন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়।

এ বিষয়ে বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান প্রণয় কান্তি বিশ্বাস বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘আমরা বন্যার কারণে নদীতে পানি বৃদ্ধি ও প্রবল স্রোতের বিষয়টি মাথায় রেখে ঈদের আগে ও পরে মিলিয়ে মোট ১০ দিন ফেরিতে পশুবাহী ও নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যবাহী ভারি যানবাহন ছাড়া অন্য সব ট্রাক-লরি পারাপার বন্ধ রাখার প্রস্তাব করেছিলাম। কিন্তু সেটি কমিয়ে ঈদের আগে পাঁচ দিন ও পরে তিন দিন করার সিদ্ধান্ত হয়। তবে এখনও এটি ঘোষণা হয়নি, ঘোষণা হলেই জানা যাবে।’

সূত্র জানায়, রাতে সব ধরনের মালবাহী জাহাজ, বালুবাহী বাল্কহেড চলাচল বন্ধ রাখার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। ঈদের আগে পাঁচ দিন ও ঈদের পরের পাঁচ দিন দিনের বেলায়ও সব বাল্কহেড চলাচল বন্ধ থাকবে। লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী না ওঠানো, বাড়তি ভাড়া না নেওয়া এবং যাত্রীদের জানমালের নিরাপত্তায় পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসনের ভিজিলেন্স টিম গঠনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয় সভায়।

1
ফেরি ঘাটে ট্রাকের দীর্ঘ সারি, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

 

সভায় প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘যাত্রীদের নিরাপদ যাতায়াতে গত ঈদুল ফিতরের সময় নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় একটি টিম ওয়ার্কের মাধ্যমে ভালো কাজ করেছিল। এবারের ঈদুল আজহায়ও সবাই মিলে ঈদ যাত্রাকে আরো নিরাপদ রাখতে চাই। অতিবৃষ্টি ও বন্যার কারণে ফেরি চলাচলে বিঘ্নিত হলেও আমাদের আরো দায়িত্ব নিয়ে কাজ করতে হবে। কোরবানির পশু আসা নিয়ে নৌপথে অনেক সময় অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে থাকে; এসব বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নজরদারি বাড়াতে হবে।’

সভায় অন্যান্যের মধ্যে নৌ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবদুস সামাদ, বিআইডব্লিউটিএ-এর চেয়ারম্যান কমডোর এম মাহবুব উল ইসলাম, নৌ পরিবহন অধিদফতরের মহাপরিচালক কমডোর সৈয়দ আরিফুল ইসলাম, নৌ পুলিশের ডিআইজি মো. আতিকুল ইসলাম, কোস্টগার্ডের ঢাকা জোনের কমান্ডার রেজাউল হাসান, বিভিন্ন জেলার প্রশাসক এবং পুলিশ সুপার, লঞ্চ মালিক শহীদুল ইসলাম ভূঁইয়া, বদিউজ্জামান বাদল, নৌযান শ্রমিক নেতা মো. শাহ আলম ও জাহাঙ্গীর আলম উপস্থিত ছিলেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র