Alexa

সংস্কৃতির বিনিময় পর্যটন বিকাশে সহায়ক: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

সংস্কৃতির বিনিময় পর্যটন বিকাশে সহায়ক: পর্যটন প্রতিমন্ত্রী

নেপালি-বাংলা সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মোঃ মাহবুব আলী/ ছবি: বার্তা২৪.কম

আন্তঃদেশীয় সাংস্কৃতিক বিনিময় পর্যটন বিকাশে সহায়তা করে উল্লেখ করে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মোঃ মাহবুব আলী বলেছেন, ‘বাংলাদেশ ও নেপালের মধ্যকার বিদ্যমান সম্পর্ক ঐতিহাসিক ও ঐতিহ্যগত। সংস্কৃতির বিনিময় উভয় দেশের জনগণকে লাভবান করবে এবং তাদের পারস্পরিক সম্পর্ক আরও দৃঢ় করবে।’

শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) সন্ধ্যায় রাজধানীর জাতীয় জাদুঘরে অনুষ্ঠিত ‘নেপালি-বাংলা সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

মাহবুব আলী বলেন, ‘বাংলাদেশ ও নেপালের জনগণের মধ্যকার হৃদ্যতাপূর্ণ সম্পর্ক হাজার বছরের পুরাতন। নেপালের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা মৈথিলি ভাষার কবি বিদ্যাপতি ও তার কর্ম আমাদের মধ্যযুগীয় সাহিত্যের অন্যতম অনুষঙ্গ। ভৌগলিক ও সাংস্কৃতিক নৈকট্য, বিনিময়কৃত মূল্যবোধ ও বিভিন্ন আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক বিষয়ে দুই দেশের সমমত আমাদের সম্পর্ক গভীর করেছে।’

মুক্তিযুদ্ধে নেপালের ভূমিকা স্মরণ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘নেপাল বাংলাদেশের একজন প্রকৃত বন্ধু। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সময় নেপালের সরকার ও জনগণ তাদের সমর্থন ও সমমর্মিতা নিয়ে আমাদের পাশে ছিল। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে স্বীকৃতি দানকারী সপ্তম দেশ নেপাল।’

তিনি বলেন, ‘পর্যটন খাতের উন্নয়নে বাংলাদেশ ও নেপাল উভয়ই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। রয়েল বেঙ্গল টাইগারকে রক্ষায় দুই দেশই পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে একত্রে টাইগার প্রজেক্ট এ কাজ করছে। পর্যটন ও বাণিজ্যের উন্নয়নে ইতোমধ্যেই ঢাকা-কাঠমান্ডু সরাসরি বাস সার্ভিস চালু করা হয়েছে। ভবিষ্যতে রেল যোগাযোগ স্থাপনের পরিকল্পনাও রয়েছে।’

মাহবুব আলী বলেন, ‘বাংলাদেশ প্রতিবছর চিকিৎসা বিদ্যা অধ্যয়নে নেপালি ছাত্র-ছাত্রীদেরকে বৃত্তি প্রদান করে থাকে। প্রতিবছর প্রায় ২৫০০ জন নেপালি ছাত্র-ছাত্রী চিকিৎসা বিদ্যা, নার্সিং ও প্রকৌশল বিদ্যাসহ অন্যান্য বিষয়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করতে আসেন।’

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশে নিযুক্ত নেপালের চার্জ দ‍্যা আ‍্যফেয়ার্স ডন বাহাদুর ওলি। এছাড়াও অনুষ্ঠানে বেশ কয়েকটি দেশের হাইকমিশনার ও রাষ্ট্রদূতগণ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে নেপাল কালচারাল করপোরেশন ও বাংলাদেশের শিল্পীরা গান ও নাচ পরিবেশন করেন।

আপনার মতামত লিখুন :