Barta24

মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯, ৮ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

স্ত্রীকে হত্যার পর কেরোসিন ঢেলে আগুন!

স্ত্রীকে হত্যার পর কেরোসিন ঢেলে আগুন!
ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর মুগদায় হাসি আক্তার (২৩) নামে এক গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যার পর গায়ে কেরোসিন তেল ঢেলে আগুন দেয়ার অভিযোগে তার স্বামী কোমল হোসেনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) দক্ষিণ মুগদাপাড়া ব্যাংক কলোনি থেকে হাসির লাশ উদ্ধার করে মুগদা থানা পুলিশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করে মুগদা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রলয় কুমার শাহা বার্তা২৪.কমকে বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে কোমল হোসেন স্ত্রী হাসিকে শ্বাসরোধে হত্যা করেছেন। এরপর তার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে হাসির শরীরের অনেকাংশ পুড়ে যায়। এরপর হাসি আত্মহত্যা করেছে বলে প্রচারের চেষ্টা  চালায় কোমল।

তিনি বলেন,  কোমল হোসেন ও হাসি আক্তার উভয়েরই দ্বিতীয় বিয়ে এটি। ধারণ করা হচ্ছে, পারিবারিক কলহের জের ধরেই কোমল তার স্ত্রীকে হত্যা করে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ হাসির লাশ উদ্ধার করে। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (ঢামেক) মর্গে পাঠানো হয়।

 

আপনার মতামত লিখুন :

‘ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি প্রশাসনকে মানুষের কাছে নিয়েছে’

‘ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি প্রশাসনকে মানুষের কাছে নিয়েছে’
ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ আয়োজিত অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার

বাংলাদেশকে আগামী দিনের ডিজিটাল পৃথিবীর নেতৃত্বের উপযোগী করে গড়ে তুলতে জনবান্ধব প্রশাসন অপরিহার্য বলে মন্তব্য করেছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি প্রশাসনকে মানুষের কাছে নিতে সক্ষময় হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) রাজধানীতে ডাক অধিদফতর মিলনায়তনে জাতীয় পাবলিক সার্ভিস দিবস-২০১৯ উপলক্ষে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন তিনি।

‘সরকারে যারা কাজ করেন তারা জনগণের সেবক’— জনবান্ধব প্রশাসন গড়ে তুলতে জাতির পিতার ভাষণের এই উদ্ধৃতি তুলে ধরে টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, জনগণ যাতে বিনা ভোগান্তিতে এবং সহজে সরকারি সেবা পান সেই লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রজ্ঞাবান দৃরদৃষ্টিসম্পন্ন নেতৃত্বে সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠাসহ যুগান্তকারী বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করছে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগকে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের সুপার হাইওয়ে নির্মাণসহ বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এই বিভাগের কর্মকর্তা কর্মচারীদেরকেও ডিজিটাল হতে হবে। এই ক্ষেত্রে কিছুটা সীমাবদ্ধতা থাকতে পারে কিন্তু ডিজিটাল যুগে বাস করে এনালগ থাকার সুযোগ নেই।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী নিজ বিভাগের কর্মকর্তাদের আগামী দিনের প্রযুক্তির চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় নিজেদের প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ডিজিটাল যুগে নতুন আরেকটি যুগ শুরু হয়েছে আর তা হলো বাংলাদেশ ফাইভ-জিতে যাচ্ছে। সামনের দিনের প্রযুক্তি একটি নতুন সভ্যতার সুযোগ দেবে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব অশোক কুমার বিশ্বাস। এ সময় ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব শাহাদাৎ হোসেন ও মো. আজিজুল ইসমান এবং ডাক বিভাগের মহাপরিচালক জনাব সুধাংশু সেখর ভদ্র উপস্থিত ছিলেন।

নদী দখলের বিরুদ্ধে স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল চায় নদী কমিশন

নদী দখলের বিরুদ্ধে স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল চায় নদী কমিশন
জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মজিবুর রহমান হাওলাদার

আইনি দুর্বলতার কারণে নদী দখলদারদের কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। তাই বিদ্যমান আইন সংশোধনের প্রস্তাব করবে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন। প্রস্তাবিত আইনে নদী দখলকে ফৌজদারি অপরাধ হিসেবে গণ্য করে শাস্তির প্রস্তাব থাকবে। স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল গঠন করে দ্রুত বিচার নিশ্চিত করার প্রস্তাবও রাখা হবে। সম্প্রতি উচ্চ আদালতের একটি রায়ে বলা হয়েছে নদীর অভিভাবক হচ্ছে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন।



বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে নদ-নদীগুলো রক্ষায় নেওয়া নদী রক্ষা কমিশনের পরিকল্পনাগুলো তুলে ধরেছেন কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মজিবুর রহমান হাওলাদার। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট শাহজাহান মোল্লা।


বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: দেশের নদীগুলো রক্ষায় আপনাদের কী ভূমিকা রয়েছে?

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান: দেখুন নদী রক্ষায় ২০১৩ সালে করা জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন আইনের ১২, ১৩ ধারায় আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্যের কথা বলে দিয়েছে। আইনে নদী দূষণ রোধ, নদী উদ্ধার, পানি, পরিবেশ, প্রতিবেশ ও জীববৈচিত্র সংরক্ষণ করার কথা বলা আছে। সেই সঙ্গে নদী রক্ষায় জনসচেতনতা বৃদ্ধির কথাও বলা হয়েছে। আমরা এরইমধ্যে জেলা, উপজেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে সভা সেমিনার করেছি। আমাদের ৬৪টি জেলায় নদী রক্ষা কমিটি আছে। এমনকি উপজেলা পর্যায়েও কমিটি আছে। ওই কমিটিতে পরিবেশবিদ, স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা রয়েছেন। তাদের সুপারিশগুলো নিয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও সংস্থা কাজ করছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/23/1563879894740.jpg

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: দেশের নদীগুলো রক্ষায় আপনাদের পরিকল্পনাগুলো কী কী?

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান: আপনি জানেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী দেশের নদীগুলো রক্ষার জন্য ডেল্টা প্লান করেছেন। সেই ডেল্টা প্লান বা ব-দ্বীপ পরিকল্পনায় প্রধানমন্ত্রী স্বাক্ষর করেছেন। আমরা জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনসহ অন্যান্য মন্ত্রণালয় ও বিভাগ সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ শুরু করেছি।

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: ঢাকার চর্তুদিকের নদীসহ সারা দেশের নদী রক্ষায় কী কী কাজ শুরু করেছেন?

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান: আমাদের ডেল্টা প্লানে আবার স্বল্প মেয়াদী, মধ্য মেয়াদী, দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা আছে। আমরা স্বল্প মেয়াদী পরিকল্পনার অংশ হিসেবে প্রথম এক বছর সারা দেশের নদীর দখল উচ্ছেদ করব। যা এরইমধ্যে কাজ শুরু হয়েছে। এরইমধ্যে কয়েক শ’ একর নদীর জায়গা দখলমুক্ত করা হয়েছে। প্রয়োজনে আমরা নদীর পাড়ে হাঁটার পথ করে দেব, সবুজ বেষ্টনি করে দেব। সবচেয়ে বড় কাজ হবে শক্ত সীমানা পিলার করা যেন চিহ্নিত হয় এটা নদীর জায়গা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/23/1563879912057.jpg

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: নদী দূষণ রোধে আপনাদের পরিকল্পনা কী?

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান: নদী দূষণ দুই ধরনের। একটা আছে তরল বর্জ্যের মাধ্যমে দূষণ। আরেকটা ক্লিনিক্যাল বর্জ্য বা গৃহস্থালীর বর্জ্য। বিশেষ করে শহর বা আরবান এলাকায় নদী দুষণের মাত্রা অনেক বেশি। তবে ঢাকার আশপাশে যেমন, গাজীপুর, মুন্সিগঞ্জ, নারায়নগঞ্জ, মানিকগঞ্জ এসব এলাকার নদীতেও ব্যাপক দূষণ হয়েছে। আমাদের শিল্পকারখানাগুলোর ২৪ ঘণ্টা ইটিপি চালু করার কথা আছে। কিন্তু দেখা যায় তারা সব সময় ইটিপি চালু রাখেন না। তাই আমরা বলেছি, পরিবেশ অধিদফতর ও অন্যান্য বিভাগ কাজ শুরু করেছে। পরিবেশ অধিদফতর অন লাইন মনিটরিং ব্যবস্থা চালু করবে। অন্যদিকে ক্লিনিক্যাল বর্জ্য বা গৃহস্থালীর বর্জ্য উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে রিসাইকেলের মাধ্যমে ব্যবহার করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে স্থানীয় সরকারের বিভাগ যেমন সিটি কর্পোরেশন, পৌরসভা, জেলা পরিষদ, ইউনিয়ন পরিষদকে বলা হয়েছে। শুধু বলার জন্য না তারা যেন প্রয়োজনীয় আধুনিক যন্ত্র পায় সেই ব্যবস্থা করতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়কে পরামর্শ প্রদান করা হয়েছে।

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: নদী দখলমুক্ত করতে আপনারা কোনো বাধার সম্মুখীন হচ্ছেন কি না? বিদ্যমান আইন দখলদারদের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নিতে পারছেন?

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান: আসলে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশন আইন-২০১৩ অনুযায়ী আমরা তেমন কোনো শস্তি দিতে পারছি না। তারপরও সিআরপিসিতে এনে শাস্তি দিচ্ছি। এজন্য সংসদের স্থায়ী কমিটি, উচ্চ আদালত ও মন্ত্রণালয় আইন সংশোধনের কথা বলেছেন। আমরা আইনে পেনাল কোডের বিষয়টা সংযুক্ত করতে চাই। নদী দখলকে ফৌজদারি অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত করে দখলদারদের শাস্তি নিশ্চিত করতে চাই। প্রয়োজনে মামলাগুলো নিষ্পত্তি করতে স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল গঠন করার ব্যবস্থা করতে হবে। আমরা সেভাবেই আইনের সংশোধন আনার চেষ্টা করছি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/23/1563879926687.jpg

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: বছরের পর বছর নদীগুলো দখলদারদারে কবলে পড়ে মানচিত্র থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে। সেই নদীগুলো রক্ষার করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন কী?

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান: নদীর প্রকৃত গতিপথ চিহ্নিত করতে বাংলাদেশ মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠানকে (স্পারসো) দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তারা হাইড্রো মফলোজিক্যাল স্ট্যাডি করবে। এতে ১০০ বছর আগে নদী কোথায় ছিল, কোথায় কতটুক জায়গা দখল হয়েছে। এসব বিষয় বেরিয়ে আসবে। বৈজ্ঞানিকভাবে নদীর সীমানা চিহ্নিত হলে পরে উচ্ছেদকাজ সহজ হয়ে যাবে। সেই ম্যাপিং হওয়ার পর সেটা আর্কাইভেও রাখা হবে।

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: নদী রক্ষায় ঢাকার বাইরে থেকে কেমন সাড়া পাচ্ছেন?

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান: একটা বিষয় পরিবর্তন আসছে। এখন যেখানেই যাচ্ছি সবাই নদী রক্ষার জন্য এগিয়ে আসছে। কেউ নদীর জায়গা দখল করলে দেখিয়ে দিচ্ছে। এরইমধ্যে ৫২টি জেলার জেলা প্রশাসক আমাদের জানিয়েছে তাদের কর্ম এলাকায় কতটুক নদী দখল হয়েছে, কে দখল করেছে সব বিস্তারিত চলে এসেছে। এগুলো আমরা অনলাইনে দেব।

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: নদীগুলো হারিয়ে যাওয়ায় বন্যায় কোনো প্রভাব পড়ছে কী?

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান: দেখুন প্রকৃতিগতভাবেই আমরা ভাটির দেশ। উজান থেকে বর্ষার সময় পানি আসবেই। কিন্তু সেই পানি ধারণ করার ক্ষমতা আদের থাকতে হবে। সেজন্য প্রয়োজন ড্রেজিং করা। তবে সেই ড্রেজিং সঠিক...।

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: নদীগুলো হারিয়ে যাওয়ায় বন্যায় কোনো প্রভাব পড়ছে কী?

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান: দেখুন প্রকৃতিগত ভাবেই আমরা ভাটির দেশ। উজান থেকে বর্ষার সময় পানি আসবেই। কিন্তু সেই পানি ধারণ করার ক্ষমতা আদের থাকতে হবে। সেজন্য প্রয়োজন ড্রেজিং করা। তবে সেই ড্রেজিং সঠিকভাবে হচ্ছে কি না সেগুলো মনিটর করা হবে। ড্রেজিং করে নদীর পাড়ে মাটি রেখে দিলে আবার ভরাট হয়ে যাবে এই পদ্ধতিতে আর ড্রেজিং করা যাবে না। এখন সঠিক জায়গায় মাটি নিয়ে যেতে হবে। বন্যা থেকে বাঁচতে আমাদের নদী রক্ষা করতে হবে। নদী সংরক্ষণ করতে হবে। নদী পাড়ের প্লাবন ভূমি সংরক্ষণ করতে হবে। ফ্লাড ফ্লো জোন ধরে রাখতে হবে। এজন্য নদী পাড়ে হাইড্রোলজিক্যাল বাউন্ডারি দিতে হবে। সিএস ম্যাপ অনুযায়ী নদীর সীমানা নির্ধারণ করতে হবে।

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: নদী রক্ষায় আপনাদের গৃহিত পদক্ষেপগুলো দ্রুত দৃশ্যমান হবে কী না?

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান: মাস্টার প্লানে চার ধরণের প্রোগ্রাম নেওয়া আছে। এক বছর মেয়াদী ক্র্যাশ প্রোগ্রাম, এই প্রোগ্রামে এনফোর্সমেন্ট শুরু হয়েছে। এটা ঠিক করার পর দুই বছর দুই বছর ভাগ করে আগামী ৫ বছরের মধ্যে অনেক ভাল কিছু দেখতে পাবেন। সেখানে নদীর পাড়ে বনায়ন, হাটারপথসহ নানাকিছু দৃশ্যমান হবে। তবে এই নদী দখল তো একদিনে হয়নি, একদিনে সমাধানও হবে না। আস্তে আস্তে সমাধানের দিকেই যেতে হবে।

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: নদী যেভাবে বিলিন হচ্ছে তাতে দেশের জন্য কি ধরণের হুমকি হতে পারে?

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান: নদী হচ্ছে মানুষের হৃদপিন্ডের মত। প্রধানমন্ত্রী সেভাবেই নির্দেশনা দিয়েছেন। আমাদের মানুষের শরীরের ধমনীতে যেমন কোথাও ব্লক হলে মানুষের বেঁচে থাকা কঠিন হয়ে যায়, তেমনি নদী যদি কোথাও গতিপথ বন্ধ করা হয়, ব্লক করা হয় তাহলে কিন্তু আমাদের নদী বাঁচবে না। নদী ব্যবস্থাপনায় যদি বাধার সন্মুখিন হয়, দখলের সন্মুখিন হয় তাহলে দেশের অর্থনীতি, দেশের নদী ব্যাবস্থাপনা, পানি সম্পদ বিপর্যয়ের সন্মুখিন হবে। নদী দলমত জাতি ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সবার। নদী বাঁচানোর দায়িত্বও সবার। সকলে মিলে যেভাবে স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিল সেভাবেই সন্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে। তবেই নদী বাঁচবে, দেশ বাঁচবে। বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা যুদ্ধে ডাক দিয়েছিলেন তখন একটা স্লোগান ছিল তোমার আমার ঠিকানা পদ্মা, মেঘণা, যমুনা। এখন সেই পদ্মা মেঘনা যমুনা যদি না থাকে আমাদের স্বাধীনতার স্লোগান ম্লান হয়ে যাবে। তাই সম্মিলিতভাবে নদী রক্ষায় এগিয়ে আসতে হবে। এটা সরকারের একার পক্ষে সম্ভব না।

বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম: আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান: আপনাকেও ধন্যবাদ। বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম এর মাধ্যমে সাবাই জানুক, সবাই ঐক্যবদ্ধ হই নদী রক্ষায়।

 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র