Barta24

শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

মাদরাসা ফান্ডের টাকায় গ্যাং চালাতেন সিরাজ

মাদরাসা ফান্ডের টাকায় গ্যাং চালাতেন সিরাজ
সিরাজ উদ দৌলা/ছবি: সংগৃহীত
শাহরিয়ার হাসান
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

সোনাগাজী সিনিয়র ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসার শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যার হুকুমদাতা অধ্যক্ষ এস এম সিরাজ উদ দৌলা। এ ঘটনার আগেও নানা অপকর্ম করেছেন সিরাজ। স্থানীয় প্রশাসন, তথাকথিত রাজনৈতিক চক্র আর বখাটে ছাত্রদের ম্যানেজ করে পার পেতেন তিনি।

সরেজমিনে ঘুরে, বার্তা২৪.কমের অনুসন্ধানে উঠে আসে মাদরাসার সামনের অংশের তিন তলা মার্কেট, পুকুর, মাদরাসার অনুদান আর ওয়াজ মাহফিল থেকে বছরে আসা লাখ লাখ টাকা নিজের কাছে জমা রাখতেন অধ্যক্ষ সিরাজ।

স্থানীয় প্রশাসন ও তথাকথিত রাজনৈতিক নেতাদের মাসিক চাঁদা দিয়ে তাদের নিজের দলে টানতেন তিনি। আর সেই গ্যাংয়ের সমর্থনে যৌন হয়রানি, অর্থ আত্মসাৎ ছাড়াও নানা অপকর্ম করেছেন নুসরাত হত্যার হুমকি দাতা এই অধ্যক্ষ।

এছাড়াও তার গ্যাংয়ে ছিল সোনাগাজীর বখাটে ছেলেরা। যাদের শক্তিতে নিজে ক্ষমতা দেখিয়ে দাপটের সঙ্গে থাকতেন সিরাজ। ২০০১ সালে মাদরাসায় উপাধ্যক্ষ পদে যোগ দেওয়ার পর থেকে নানা অভিযোগ জমা হয় তার বিরুদ্ধে।

সবশেষ গত ২৭ মার্চ নুসরাতকে যৌন হয়রানি, ৬ এপ্রিল তার গায়ে আগুন দেওয়া ও ১০ এপ্রিল নুসরাতের মৃত্যুর পর থেকে চলছে সিরাজের টাকার খেলা।

সোনাগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ আবদুল হালিম বার্তা২৪.কমকে বলেন, অধ্যক্ষ সিরাজ মাদরাসার ছাত্র নুর উদ্দিন ও শামীমসহ ১৫ জনের একটা গ্যাংকে মাসিক টাকা দিয়ে পালতেন। তাদের সঙ্গে আছে তথাকথিত কিছু নেতা।

২০০১ সালের পর কেউ তার অপকর্মের প্রতিবাদ জানালে তারা পাল্টা কর্মসূচি দিতেন। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন গ্যাং ম্যানেজ করে আসছেন তিনি। এসব কর্মসূচিতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের জোর করে নেওয়া হতো। প্রয়োজনে টাকাও দেওয়া হতো।

নুসরাত ২৭ মার্চ সিরাজের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ আনলে একটি পক্ষ সিরাজের পক্ষে মানববন্ধন, মিছিলসহ নানা কর্মসূচি পালন করে। এ ধরনের কর্মসূচি পালন করতে তাদের কোনো বাধা দেননি সোনাগাজী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম। স্থানীয়রা বলছে, এ ঘটনায়ও টাকার খেলা চলেছে।

সম্প্রতি এ বিষয়টি আবার আলোচনায় উঠে আসে। নুসরাতকে শ্লীলতাহানির মামলায় সিরাজ যখন জেলে, তখন তার (সিরাজ) ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে ১৮ লাখ টাকা তোলেন স্ত্রী ফেরদৌস আক্তার। সিরাজ জেলে যাওয়ার পরদিন ২৮ মার্চ জনতা ব্যাংকের সোনাগাজী শাখার সিরাজের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট থেকে এ মোটা অঙ্কের টাকা উত্তোলন করা হয়।

মামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সূত্র বলছে, ব্যাংক থেকে তোলা টাকা সিরাজের মুক্তির আন্দোলন ও নুসরাতকে হত্যার কাজে ব্যয় করা হয়ে থাকতে পারে।

এদিকে মৃত্যুর আগে নুসরাতের দেওয়া ডাইং ডিক্লারেশনে (মৃত্যুশয্যায় জবানবন্দি) শম্পার নাম বলেন। যে চারজন বোরকা পরা নারী/পুরুষ তার শরীরে আগুন ধরিয়ে দেন, শম্পা তাদের একজন বলে জানান নুসরাত।

সোমবার (১৫ এপ্রিল) নুসরাত হত্যা মামলায় উম্মে সুলতানা পপি ওরফে শম্পাকে গ্রেফতার দেখিয়েছে পুলিশ।

ঘটনার পরপরই এজাহারভুক্ত সাতজনকে গ্রেফতার করা হয়। এছাড়া সন্দেহভাজন যে ছয়জনকে আটক করা হয় তার মধ্যে উম্মে সুলতানা পপি ছিলেন। তবে পপিই যে শম্পা তা নিয়ে সে সময় ধোঁয়াশা ছিল।

সার্বিক বিষয়ে মামলার তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার বার্তা২৪.কমকে বলেন, নুসরাত হত্যায় শাহাদাত হোসেন, নুর উদ্দিন ও উম্মে সুলতানা পপি ওরফে শম্পা সরাসরি অংশ নেন। সিরাজ তাদের সবার কাছে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন। মামলা তুলে নেওয়ার জন্য নুসরাতকে চাপ দিতে বলেন। প্রয়োজনে নুসরাতকে হত্যার নির্দেশ দেন।

এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, আমরা সিরাজের বিরুদ্ধে ওঠা অন্য সব অভিযোগও আমলে নিয়েছি। আমাদের তদন্তে তার অবৈধ টাকা পয়সার বিষয় ও গ্যাং পরিচালনার বিষয়টিও উঠে আসবে।

আপনার মতামত লিখুন :

হিমালয় এয়ারে ১৩০০০ টাকায় ঢাকা-কাঠমান্ডু-ঢাকা 

হিমালয় এয়ারে ১৩০০০ টাকায় ঢাকা-কাঠমান্ডু-ঢাকা 
হিমালয় এয়ারলাইন্স

আগামী সোমবার (২২ জুলাই) ঢাকা-কাঠমান্ডু-ঢাকা সরাসরি ফ্লাইট চালু করতে যাচ্ছে নেপালের হিমালয় এয়ারলাইন্স। নতুন রুট খোলা উপলক্ষে টিকেটের মূল্যেও বিশেষ ছাড় দিয়েছে।

মাত্র ১২ হাজার ৬৭৫ টাকায় (ট্যাক্স ছাড়া) ঢাকা-কাঠমান্ডু-ঢাকা রুটে ফ্লাই করা যাবে। এটি নেপালের বেসরকারি এয়ারলাইন্স হিমালয়ের ৬ষ্ঠ রুট। রুটটি চালু উপলক্ষে এই বিশেষ ছাড় থাকবে স্বল্প সময়ের জন্য। এয়ারলাইন্স সূত্রে জানা গেছে, তারা ১৫০ মার্কিন ডলারে রিটার্ন টিকিট করা যাবে। তবে এটি বেজ প্রাইস।  সপ্তাহে তিন দিন ফ্লাইট পরিচালনা করবে হিমালয় কন্যা নেপালের এই এয়ারলাইন্সটি।

ঢাকা থেকে কাঠমান্ডু রুটে এয়ারলাইন্সটির সরাসরি ফ্লাইট চালু উপলক্ষে বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর বারিধারায় নেপালের দূতাবাস এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

ঢাকায় নিযুক্ত নেপালের রাষ্ট্রদূত ধন বাহাদুর ওলি এ সময় সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, হিমালয় এয়ারলাইন্সের মাধ্যমে দুই দেশের দীর্ঘদিনের সম্পর্ক আরো জোরালো হবে।

হিমালয় এয়ারলাইন্সের কান্ট্রি ম্যানেজার সুশীল কুমার, এয়ারলাইন্সটির জেনারেল সেলস এজেন্ট (জিএসএ) এসএয়ার  বিডি লিমিটেডের পরিচালক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান। 

২০১৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হিমালয় এয়ারলাইন্সের বহরে তিনটি উড়োজাহাজ রয়েছে। ইকোনমি আসনের যাত্রীরা ২০ কেজি ব্যাগেজ বিনামূল্যে ও প্রিমিয়াম ইকোনমি ক্লাসের যাত্রীরা ২৫ কেজি ব্যাগেজ বিনামূল্যে বহন করতে পারবেন।

এয়ারলাইন্স সূত্রে জানা গেছে, হিমালয় এয়ারলাইন্স এয়ারবাস এ৩২০ ন্যারো বডি উড়োজাহাজ দিয়ে ফ্লাইট পরিচালনা করবে। উড়োজাহাজটিতে ১৫০টি ইকোনমি আসন ও ৮টি প্রিমিয়াম ইকোনমি ক্লাস আসন রয়েছে। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বেলা ১১টা ১০ মিনিটে ফ্লাইট কাঠমান্ডুর উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়বে এবং এটি ১ টা ১০ মিনিটে এটি নেপালের একইভাবে কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর পৌঁছাবে।

দশ প্রতিষ্ঠানকে আইএসও সনদ দিলো বিএসটিআই

দশ প্রতিষ্ঠানকে আইএসও সনদ দিলো বিএসটিআই
দশ প্রতিষ্ঠানকে আইএসও সনদ দিলো বিএসটিআই

 

আন্তর্জাতিক মানের ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করায় ১০ (দশ) টি প্রতিষ্ঠানকে আইএসও সনদ বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস এন্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই) কর্তৃপক্ষ।

বিএসটিআই’র প্রধান কার্যালয়ে গত ১৮ জুলাই ১০টি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের কাছে সনদ হস্তান্তর করেন বিএসটিআই’র পরিচালক (পদার্থ) এবং ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম সার্টিফিকেশনের প্রধান প্রকৌশলী শামীম আরা বেগম।

শনিবার(২০জুলাই) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, ১০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৯০০১:২০১৫ (কোয়ালিটি ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম) এর উপর ৮টি এবং ২২০০০:২০০৫ (ফুড সেফটি ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম) এর উপর ২টি প্রতিষ্ঠানকে আইএসও সনদ প্রদান করা হয়।

প্রতিষ্ঠানগুলোর হচ্ছে- ইন্টিগ্রেটেড পাওয়ার এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, ড্রিম মাশরুম সেন্টার, বিডি ফুডস লিমিটেড, জেএমআই হসপিটাল রিকুইজিট ম্যানুফ্যাকচারার লিমিটেড, আলপাইন ফ্রেশ ওয়াটার সিস্টেম লিমিটেড, গার্ডিয়ান নেটওয়ার্ক, ঝলক হাইস্পিড ইন্ডাস্ট্রিজ এবং বাংলাদেশ ইনডেন্টিং এজেন্টস এ্যাসোসিয়েশনের অনুকূলে কোয়ালিটি ব্যবস্থাপনার উপরে আইএসও সদন দেওয়া হয়।

 অপরদিকে রিগস হার্বস  এবং  এটি হক লিমিটেডের অনুকূলে ফুড সেফটি ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের উপর আইএসও সনদ প্রদান করা হয়।

 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র