Barta24

বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯, ২ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

নিরাপত্তার শঙ্কায় ঢাবির বৈশাখী কনসার্ট বাতিল

নিরাপত্তার শঙ্কায় ঢাবির বৈশাখী কনসার্ট বাতিল
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মল চত্বরে বৈশাখী কনসার্ট বাতিল
ঢাবি করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

নিরাপত্তার শঙ্কায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মল চত্বরে আয়োজিত বৈশাখী কনসার্ট বাতিল করা হয়েছে। শনিবার সকাল আটটার দিকে দ্বিতীয় দফায় পেট্রোল দিয়ে কনসার্টের সাউন্ড বক্সে আগুন লাগানো হয়। এ ঘটনায় নিরাপত্তাহীনতার কথা জানিয়ে কনসার্ট বাতিল করে আয়োজনের আর্থিক সহায়তাকারি প্রতিষ্ঠান মোজো।  এতে প্রায় এক কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছে আকিজ ফুড এন্ড বেভারেজ লিমিটেড কর্তৃপক্ষ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, শুক্রবার রাত একটার দিকে কনসার্ট আয়োজনে ছাত্রলীগ সভাপতিকে জানানো হয়নি অভিযোগের জেরে ছাত্রলীগের সভাপতি গ্রুপের সমর্থকরা এই আয়োজনে ভাঙচুর চালায় এবং অগ্নিসংযোগ করে। তারপর এ নিয়ে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি হয়। এক পক্ষে ছিলেন ছাত্রলীগের সভাপতি, অন্যপক্ষে ছিলেন ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসু জিএস গোলাম রাব্বানী, ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ও সাধারণ সম্পাদক ডাকসু এজিএস সাদ্দাম হোসাইন। তারা তিনজনই কনসার্টে আয়োজনের দায়িত্বে ছিলেন।

ওই রাতেই রাব্বানী ও সাদ্দামের ইন্ধনে ঢাবির দুই হলে শোভনের সমর্থকদের কক্ষ ভাঙচুর হয়। সাগর নামে স্যার এফ রহমান হল ছাত্রলীগের এক কর্মী আহত হন। এ বিরোধের জের ধরে পুনরায় শনিবার সকাল ৮টার দিকে দুটি বাইকে চারজন এসে পেট্রোল ঢেলে কনসার্টের সাউন্ডবক্সে আগুন দিয়ে যায়। এ ঘটনায় পুনরায় হামলা ও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন আয়োজকরা। সকাল থেকেই তারা কনসার্টের সমস্ত আয়োজন গুটিয়ে নেয়।

কনসার্ট বাতিল ও নিজেদের সরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দেন মোজোর অপরেশন ব্যান্ড হেড মার্কেটিং বিভাগের প্রধান আজম বিন তারেক।

তিনি বলেন, মধ্যরাতে প্রথম অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটার পর আমাকে অনেক রিকুয়েস্ট (অনুরোধ) করা হয়েছে এবং বলা হয়েছে সবকিছু আন্ডার কন্ট্রোলে (নিয়ন্ত্রণে) থাকবে। তাই আমি সবকিছু গুছিয়ে পুনরায় কাজ করা শুরু করলাম। সকাল ৮ টার দিকে চারজন লোক হেলমেট পরে এসে আমাদের সাউন্ড সরানোর যে বক্স (যার দাম তেতাল্লিশ লক্ষ টাকা) সেখানে পেট্রোল দিয়ে আগুন লাগিয়ে চলে যায়। সবকিছু মিলিয়ে আমাদের প্রায় এক কোটি টাকার বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এ অবস্থায় এখানে থাকা আর সম্ভব নয়। আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। কনসার্ট চালিয়ে যাওয়া সম্ভব না।’

সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসুর এজিএস সাদ্দাম হোসেনের আশ্বাসে শুধু কনসার্ট চালিয়ে যাবার কথা বললেও বিকেলে এসে তার উল্টো চিত্র দেখা যায় মল চত্বরে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, সবধরণের সরাঞ্জামাদি গাড়ি ভরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। স্টেজ ছাড়া আর কোনো কিছুই অবশিষ্ট নেই।

মোজোর সিকিউরিটি ফোর্সের এক কর্মকর্তা বলেন,  সব নিয়ে যাওয়া হয়েছে।আমাদেরকে বলা হয়েছে কনসার্ট বাতিল।এখন শুধু স্টেজের জিনিসগুলো বাকি আছে। এগুলোও একটু পরে নিয়ে যাওয়া হবে।এ মুহূর্তে কেউ কনসার্ট হবে বলে দাবি করলেও কোনো লাভ নাই। কারণ এটা এখন সম্ভব নয়।

এ ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে ডাকসুর সাংস্কৃতিক সম্পাদক আসিফ তালুকদার বলেন,

আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছিলাম সবাইকে একটা সুন্দর কনসার্ট উপহার দেওয়ার জন্য।কিন্তু যে ঘটনা ঘটানো হয়েছে আমার ভাষা নাই প্রকাশ করার মতো।তবে আমি এখনও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আমি সবকিছু ঠিকঠাক মতো করছিলাম কিন্তু এখানে পেট্রোল দ্বারা যে  ঘটনা ঘটানো হয়েছে তা লজ্জাজনক।

 

আপনার মতামত লিখুন :

পুরান ঢাকায় ভবন ধস: একজনের মরদেহ উদ্ধার

পুরান ঢাকায় ভবন ধস: একজনের মরদেহ উদ্ধার
পুরান ঢাকায় দোতলা ভবন ধসে পড়েছে, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

পুরান ঢাকার পাটুয়াটুলীতে দোতলা ভবন ধসের ঘটনায় নিখোঁজ দুইজনের মধ্যে একজনের মরদেহ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস। 

বুধবার (১৭ এপ্রিল) সন্ধ্যায় এ মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে বলে ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের দায়িত্বরত কর্মকর্তা রাসেল সিকদার বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, 'ভবন ধসের ঘটনায় নিখোঁজ দুইজনের মধ্যে একজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, নিখোঁজ আরেকজন ধ্বংসস্তুপের মধ্যে রয়েছে। উদ্ধার তৎপরতায় ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিট কাজ করছে।'

উল্লেখ্য, বুধবার (১৭ এপ্রিল) বিকেলে পুরান ঢাকার পাটুয়াটুলীস্থ সুমনা হাসপাতালের পাশে ছয় নম্বর লেনের পুরনো একটি দোতলা ভবন ধসে পড়েছে।

আরও পড়ুন: পুরান ঢাকায় দোতলা ভবন ধস

এইচএসসি’র ফলাফলে রাজশাহী মহিলা কলেজের চমক

এইচএসসি’র ফলাফলে রাজশাহী মহিলা কলেজের চমক
রাজশাহী সরকারি কলেজ/ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

রাজশাহী সরকারি মহিলা কলেজে এইচএসসির ফলাফলে চলতি বছর জিপিএ-৫ পাওয়ার হারে শিক্ষার্থীরা চমক দেখিয়েছে। এ বছর কলেজটির বিজ্ঞান, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগ থেকে জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৮২ জন। অথচ গত বছর কলেজটি থেকে মাত্র ১০ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছিল।

শিক্ষাবোর্ড সূত্র জানায়, সরকারি মহিলা কলেজ থেকে এবার ১ হাজার ৩৮৫ জন পরীক্ষার্থী এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। এর মধ্যে পাস করেছে ১ হাজার ৩১৭ জন। পাসের হার ৯৫ দশমিক ০৯ শতাংশ।

এর মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে পাস করেছে ৬১৪ জন। ফেল করেছে ২৭ জন। মানবিকে পাস ও ফেলের সংখ্যা যথাক্রমে ৪৩০ ও ৩৯। আর ব্যবসা শিক্ষা বিভাগে পাস-ফেল যথাক্রমে ২৭৩ ও ২১ জন। এ বছর জিপিএ-৫ পাওয়া ১৮২ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ১৫৯ জন বিজ্ঞান, ২১ জন মানবিক ও দুইজন ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থী।

গত বছর শুধু বিজ্ঞান ও মানবিক বিভাগ থেকে পাঁচজন করে মোট ১০ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছিল। সে বছর ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের কেউ জিপিএ-৫ অর্জন করতে পারেনি।

এর আগে ২০১৭ সালে কলেজটি থেকে ৭০ জন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পায়। ২০১৬ সালে জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৭৭ জন। আর ২০১৫ সালে পেয়েছিল ৫৫ জন। এ বছর জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।

কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর সৈয়দা নীলুফার ফেরদৌস এই ফলাফলে ভীষণ খুশি। তিনি বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, ‘আমাদের এবারের পাসের হার ৯৫ দশমিক ০৯ শতাংশ। এটা খারাপ না। জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যাও এবার অনেক বেড়েছে। তাই আমরা খুশি।’ অধ্যক্ষ আরও বলেন, ‘শিক্ষক-শিক্ষার্থীর সম্মিলিত প্রচেষ্টায় এই ফলাফল অর্জন করা সম্ভব হয়েছে। ভবিষ্যতে যেন আরও ভাল করা যায় সেই চেষ্টাই থাকবে।‘

 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র