Barta24

মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

ঐতিহাসিক তেলিয়াপাড়া দিবস আজ

ঐতিহাসিক তেলিয়াপাড়া দিবস আজ
ছবি: বার্তা২৪.কম
কাজল সরকার
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
হবিগঞ্জ
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

আজ ৪ এপ্রিল, ঐতিহাসিক তেলিয়াপাড়া দিবস। হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার তেলিয়াপাড়া চা-বাগানের ম্যানেজার বাংলোয়  ১৯৭১ সালের এই দিনে স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের ঊর্ধ্বতন ২৭ সেনাকর্মকর্তার উপস্থিতিতে এ বৈঠকে, প্রিয় মাতৃভূমিকে স্বাধীন করার শপথ এবং যুদ্ধের রণকৌশল গ্রহণ করা হয়। মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গণকে ভাগ করা হয় ১১টি সেক্টর ও ৩টি ব্রিগেডে।

ওই দিনের বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক আতাউল গণি ওসমানী, তৎকালীন মেজর সিআর দত্ত, মেজর জিয়াউর রহমান, কর্নেল এমএ রব, রব্বানী, ক্যাপ্টেন নাসিম, আব্দুল মতিন, মেজর খালেদ মোশাররফ, কমান্ডেন্ট মানিক চৌধুরী, ভারতের ব্রিগেডিয়ার শুভ্র মানিয়ম, এমপিএ মৌলানা আসাদ আলী, লে.সৈয়দ ইব্রাহীম, মেজর কেএম শফিউল্লাহ প্রমুখ।

এখান থেকে মুক্তিবাহিনীর বিভিন্ন অভিযান পরিচালনা করা ছাড়াও তেলিয়াপাড়া চা বাগানে মুক্তিযোদ্ধাদের একটি বড় প্রশিক্ষণ ক্যাম্প গড়ে উঠে। মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক জেনারেল এমএজি ওসমানীসহ কয়েকটি সেক্টরের কমান্ডাররা বিভিন্ন সময়ে তেলিয়াপাড়া সফর করেন।

ম্যানেজার বাংলোসহ পাশ্ববর্তী এলাকা ছিল মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও সেনানায়কদের পদচারণায় মুখরিত। ১৯৭১ সালের ২১ জুনের পরে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর আক্রমণের কারণে তেলিয়াপাড়া চা বাগানে স্থাপিত সেক্টর হেড কোয়ার্টার তুলে নেয়া হয়। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের স্মৃতিজড়িত তেলিয়াপাড়া চা বাগান স্মৃতিসৌধ এলাকা বর্তমান সময়ে আকর্ষণীয় পিকনিক স্পটে পরিণত হয়েছে। দৃষ্টিনন্দন বুলেট আকৃতির স্মৃতিসৌধ, ম্যানেজার বাংলো ও চা বাগানের সৌন্দর্য অনেকখানি বাড়িয়ে দিয়েছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/04/1554332080264.jpg

তবে আক্ষেপের বিষয় হলো, স্বাধীনতার ৪৮ বছরেও ঐতিহাসিক এ স্থানটি সঠিকভাবে সংরক্ষণ করা হয়নি। অথচ এই স্থানটিকে সংরক্ষণ করে একটি মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘর নির্মাণ করলে নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস সম্পর্কে জানতে পারবে বলে মনে করেন সচেতন মহল।

এ বিষয়ে জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডার মোহাম্মদ আলী পাঠান বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধে মুজিবনগর সরকারের অস্থায়ি সদরদপ্তর ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের অন্যতম প্রধান স্বাক্ষী তেলিয়াপাড়া ম্যানেজার বাংলো। মুক্তিযুদ্ধের এ স্মৃতিচিহ্নকে সংরক্ষণের জন্য আমরা অনেক কথা বলছি। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি’।

অনুযোগের সুরে তিনি বলেন, ‘২০১১ সালের মে মাসের ৭ তারিখে তেলিয়াপাড়াতে একটি মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছিল। বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কেন্দ্রিয় কমান্ড কাউন্সিলের চেয়ারম্যান হেলাল মুর্শেদ খান বীর বিক্রম এই তেলিয়াপাড়াকে ভবিষ্যত প্রজন্মের উপস্থাপনের জন্য সেখানে একটি মুক্তিযুদ্ধ কমপ্লেক্স নির্মাণের ঘোষনা দিয়ে ছিলেন। প্রায় ১০ কোটি টাকা ব্যায়ে মুক্তিযুদ্ধ কমপ্লেক্স নির্মাণসহ মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সংরক্ষণের জন্য একটি মহা পরিকল্পনা করেছিলেন। তার পরিপ্রেক্ষিতে পরবর্তিতে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয় এ কমপ্লেক্সটি করার জন্য এলজিইডিকে দায়িত্ব দেয়া হয়। সে অনুসারে পরিকল্পনা করা হলেও পরবর্তিতে ন্যাশনাল টি কোম্পানী (এনটিসি) বোর্ড অব ডাইরেক্টরির সিদ্ধান্ত নেয় এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে পরিবেশ নষ্ট হবে। এমন অজুহাতের মুখে আজ পর্যন্ত এ প্রকল্পটি আলোর মুখ দেখেনি’।

তিনি আরো বলেন, ‘সমগ্র দেশবাসীর কাছে তেলিয়াপাড়া একটি ঐতিহাসিক স্থান। আমাদের প্রাণের দাবী, মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকে সংরক্ষণ করার মাধ্যমে ম্যানেজার বাংলোকে যাদুঘর ঘোষণা করা হোক। আমরা এখনও আশা করি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহ্য সংরক্ষণে বদ্ধপরিকর। ফলে ঐতিহাসিক এই স্থানটিকেও সংরক্ষণের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন তিনি’।

আপনার মতামত লিখুন :

যেভাবে নির্ধারিত হয় ওষুধের মেয়াদ

যেভাবে নির্ধারিত হয় ওষুধের মেয়াদ
ফার্মেসি দোকানে ওষুধ, ছবি: বার্তা২৪.কম

হঠাৎ করেই মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ নিয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে একাধিক নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। ফার্মেসিগুলো থেকে সংরক্ষিত মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ফেরত নিয়ে আগামী ২ জুলাইয়ের মধ্যে সঠিক নিয়মে ধ্বংস করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

এর আগে ঢাকার ৯৩ শতাংশ ফার্মেসিতে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখা হয় বলে তথ্য উঠে এসেছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের এক রিপোর্টে। গত ছয়মাস নিয়মিত বাজার তদারকি করে তারা এ রিপোর্ট তৈরি করে। সংস্থাটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ১০০টি ফার্মেসির মধ্যে ৯৩টি ফার্মেসিতেই মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখা হয়।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের এমন বক্তব্যে দেশজুড়ে আলোচনায় আসে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ। ভোক্তারাও ভাবছেন, আসলে রোগ নিরাময়ের জন্য যে ওষুধ সেবন করছেন, সেটা উল্টা ক্ষতি করছে নাতো?

আলোচনায় রয়েছে, ওষুধের মেয়াদ নির্ণয়ের প্রক্রিয়াও। কীভাবে নির্ধারিত হয় ওষুধের মেয়াদ? বার্তা২৪.কম-এর পাঠকদের জন্য ওষুধের মেয়াদ নির্ণয়ের বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে।

আরও পড়ুন: মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ নিয়ে যা বলছেন ঢাবির ‍দুই শিক্ষক

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়য়ের (ঢাবি) ক্লিনিক্যাল ফার্মেসি এন্ড ফার্মাকোলজি বিভাগের প্রফেসর মনিরুদ্দিন আহমেদ বার্তা২৪.কম-কে জানান, ১৯৭৯ সালের আমেরিকার খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসনের একটি আইন অনুযায়ী, এই তারিখ দেওয়ার সিস্টেম চালু হয়। অর্থাৎ ওষুধ কোম্পানিগুলো, ল্যাবে বিভিন্ন পরিস্থিতিতে কিছু জটিল পরীক্ষা করা হয়ে থাকে। যেখানে নির্দিষ্ট তাপমাত্রায়-জলীয়বাষ্পে ও আলোর ভেতরে রাখাসহ অনেক পরিস্থিতিতে ওষুধগুলোকে পরীক্ষা করতে হয়। সেক্ষেত্রে আবার ওই তাপমাত্রা বা পরিস্থিতির ওষুধের অবস্থানের ডাটা সংগ্রহ করার প্রয়োজন পড়ে।

তিনি বলেন, 'এমন পরিস্থিতিতে, সময়ে সময়ে ওষুধের কার্যকারিতা দেখতে হয়। মানব শরীরে কেমন কাজ করছে ওষুধটি। তিনদিন, পাঁচদিন, একমাস, সাতমাস, একবছর, তিনবছর এইভাবে দেখতে হয়। একটা সময় এসে দেখা যায়, ওই ওষুধের গুণগত মান কমে গেছে। কমে যখন ৫০ শতাংশের পর্যায়ে আসবে তখন মার্ক করে রাখতে হয়। তবে গভীরভাবে লক্ষ্য রাখতে হবে, কতদিন পর একই পরিস্থিতিতে ওষুধের কার্যকারিতা শূন্য শতাংশে নেমে আসে। যেদিন নেমে আসবে সেদিন হবে মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ।'

মনিরুদ্দিন বলেন, 'মেয়াদোত্তীর্ণ তারিখের অর্থ হলো, এই সময়ের মধ্যে ওষুধটি সেবন করলে কার্যকারিতা ও নিরাপত্তা শতভাগ থাকবে। এর পরে যদি কেউ ওই ওষুধ সেবন করেন তার কার্যকারিতা ও নিরাপত্তা শতভাগ পাওয়া যাবে না।'

ওষুধ নিয়ে দীর্ঘ ৪০ বছর পড়াশোনা করা এই প্রফেসর বলেন, 'তবে এটা ভাবার কোন দরকার নেই যে, কয়েকটি সংবেদনশীল ওষুধ ছাড়া, অন্য কোনো মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ সেবন করলে কেউ মারা যাবে। তবে ওষুধের কার্যকারিতা পাওয়া যাবে না। অর্থাৎ অসুখ ভাল হবে না। আবার তরল জাতীয় এমন অনেক ওষুধই আছে, যা মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই কার্যকারিতা হারাতে পারে।'

অন্যদিকে বাংলাদেশের ওষুধ শিল্পের প্রেক্ষাপট নিয়ে তিনি বলেন, 'আমাদের দেশের বেশকিছু ওষুধ কোম্পানি আন্তর্জাতিক মানের ওই পরীক্ষা নিরীক্ষার মধ্যে দিয়ে যেতে পারে না। যার ফলে ওষুধের কার্যকারিতা শুরু থেকেই শতভাগ থাকে না।'

মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ নিয়ে যা বলছেন ঢাবির ‍দুই শিক্ষক

মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ নিয়ে যা বলছেন ঢাবির ‍দুই শিক্ষক
রাজধানীর বেশিরভাগ ফার্মেসিতেই রয়েছে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ, পুরনো ছবি

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়মিত অভিযানে দেশের বিভিন্ন হাসপাতাল ও ফার্মেসি থেকে জব্দ করা হচ্ছে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ। আর এসব ওষুধ বিক্রির দায়ে ফার্মেসি মালিকদেরও অর্থদণ্ড দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া সম্প্রতি মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ধ্বংস করার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এতে নড়েচড়ে বসেছে ওষুধ প্রশাসন।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ক্লিনিক্যাল ফার্মেসি এবং ফার্মাকোলজি বিভাগের অধ্যাপক ড. মনিরুদ্দিন আহমেদ ও অধ্যাপক আ.ব.ম.ফারুক বার্তা২৪.কম-কে জানিয়েছেন, ওষুধের মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ নিয়েও অনেক প্রশ্ন আছে। তবে এসব ওষুধ ধ্বংসের পক্ষে তারা।

মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধের কার্যকারিতা ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার বিষয়ে অধ্যাপক ড. মনিরুদ্দিন বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'আমরা গবেষণায় দেখেছি, ওষুধের মেয়াদ নিয়ে প্রশ্ন আছে। অনেক ওষুধের ক্ষেত্রে মেয়াদ কোনো অর্থই বহন করে না। সম্প্রতি আমেরিকার ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের একটি গবেষণায় দেখা গেছে, কিছু কিছু ওষুধের কার্যকারিতা মেয়াদ শেষ হওয়ার ১৫ বছর পর্যন্ত থাকে।'

তিনি আরও বলেন, 'প্রতিটি ওষুধের রাসায়নিক ধর্ম ও কার্যকারিতা সমান নয়। প্রত্যেকটি ওষুধের সক্রিয়তা ও নিজস্ব ধর্ম আছে। প্রত্যেক ওষুধ কিভাবে কাজ করবে এবং ধ্বংস হবে সেটার প্রক্রিয়া আলাদা। যেসব ওষুধের কার্যকারিতা ১৫-৩০ বছর পর্যন্ত থাকে সেসব ওষুধের ক্ষেত্রে মেয়াদ গুরুত্বপূর্ণ নয়। তবে সংবেদনশীল কিছু ওষুধ আছে যেগুলো নির্দিষ্ট সময়ের আগেই গ্রহণ করতে হয়। কারণ এসব ওষুধের কার্যকারিতা দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়। তবে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। যেহেতু দেশে আইন আছে, তাই এসব ওষুধ অবশ্যই ধ্বংস করতে হবে।'

দেশে ওষুধ কোম্পানিগুলোর ভূমিকার বিষয়ে তিনি বলেন, 'অনেকের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে, যদি কিছু ওষুধের কার্যকারিতা অনেক বছর পর্যন্ত থাকে তাহলে গায়ে মাত্র ৩-৪ বছর মেয়াদ লেখা থাকে কেন? হতে পারে, ওষুধের পরিপূর্ণ কার্যকারিতা লাভের নিশ্চয়তা দিতে অথবা ওষুধের কাটতি ও চাহিদা বাড়াতে এমনটা করা হতে পারে।'

ঢাবির একই বিভাগের আরেক অধ্যাপক আ.ব.ম. ফারুক বার্তা২৪.কম-কে বলেন, 'মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ অনেকটা বিষাক্ত। কিছু মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ খেলে যকৃত ও কিডনি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। ওষুধ বানানোর সময় অণু তৈরি করা হয় যেগুলো যকৃত ও কিডনির জন্য ক্ষতিকর নয়। যেহেতু কোনো কিছু চিরস্থায়ী নয়। তাই মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে এসব অণু শরীরে প্রবেশ করে ক্ষতি করে। তবে সব ওষুধ এক নয়। কিছু ওষুধের মেয়াদ শেষে কার্যকারিতা কমে গেলও শরীরের জন্য ক্ষতিকর নয়।'

তিনি আরও বলেন, 'মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ ধ্বংস করতে হবে। এসব ওষুধ যাতে কেউ না খায় সেটা নিশ্চিত করতে হবে। কারণ কিছু ওষুধের মেয়াদ শেষ হলে সেটা যে বিষে পরিণত হয় তা অনেকে জানেন না।'

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি 'বিশ্ব নিরাপদ খাদ্য দিবস' উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মঞ্জুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার জানান, শহরের ৯৩ শতাংশ ফার্মেসিতে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ রাখা হয়। এরপর মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ জব্দ করতে মরিয়া হয়ে ওঠে প্রশাসন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র