Barta24

মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ১ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

দেশে মাথাপিছু আয় ১ হাজার ৯০৯ ডলার

দেশে মাথাপিছু আয় ১ হাজার ৯০৯ ডলার
মন্ত্রিসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ছবি: ফোকাস বাংলা
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
ঢাকা
বার্তা ২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের মানুষের বার্ষিক মাথাপিছু আয় এখন (২০১৮-২০১৯ অর্থবছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত) ১ হাজার ৯০৯ ডলার। যা গত বছরে ছিল ১ হাজার ৭৫২ ডলার। অর্থাৎ মাথাপিছু আয় বেড়েছে ১৫৭ ডলার।

অন্যদিকে, মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধিও বেড়ে হয়েছে ৮ দশমিক ১৩ শতাংশ যা গতবছর ছিল ৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ।

মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) শেরেবাংলা নগরে পরিকল্পনা কমিশনে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) বৈঠক শেষে ইআরডি সম্মেলন কক্ষে সাংবাদিকদের এ তথ্য দেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এনইসি বৈঠক শুরু হয়।

বৈঠকে এডিপি থেকে আট হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ ছাঁটাই করে সংশোধিত এডিপির আকার প্রস্তাব করা হয়েছে ১ লাখ ৬৫ হাজার কোটি টাকা। বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে মূল এডিপি থেকে এই অর্থ কমানো হচ্ছে বলে জানা গেছে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘মাথাপিছু আয় প্রত্যেক বাংলাদেশির আলাদা বা ব্যক্তিগত আয় নয়। এটি সামগ্রিক আয়, যা মাথাপিছু ভাগ করে দেওয়া হয়।’

অর্থমন্ত্রী কামাল বলেন, ‘দেশের সামগ্রিক আর্থিক অবস্থা ভালো হওয়ায় প্রবৃদ্ধি ও মাথাপিছু আয় বেড়েছে। সবখাতে আয় ভালো হয়েছে। শিল্প, বিনিয়োগ, রেমিট্যান্স- সব কিছুর প্রবৃদ্ধি ভালো হয়েছে। প্রবৃদ্ধি ভালো হওয়ায় মাথাপিছু আয়ও বেড়েছে। গত বছর যেখানে মাথাপিছু আয় ছিল ১ হাজার ৭৫২ ডলার, তা এখন হয়েছে ১ হাজার ৯০৯ ডলার।’

এদিকে পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান জানিয়েছেন, ‘কোন মন্ত্রণালয় মান ঠিক রেখে যদি ব্যয় করতে পারে তবে প্রয়োজন হলে তাদের বরাদ্দ আরো বাড়ানো হবে।’

আপনার মতামত লিখুন :

পানি থাকলে বাঁধ সংস্কার করা যাবে না: পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী

পানি থাকলে বাঁধ সংস্কার করা যাবে না: পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী
বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলছেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী/ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

পানি থাকলে বাঁধ সংস্কার করা যাবে না বলে জানিয়েছেন পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) সকালে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সম্মেলন কক্ষে ডিসি সম্মেলনের তৃতীয় দিনের দ্বিতীয় অধিবেশন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি কথা বলেন।

তিনি বলেন, বাঁধ যেখানে যেখানে ভেঙে যাচ্ছে সেখানে আমরা কাজ করছি। কিছু জায়গায় বাঁধ ভেঙেও গেছে। সেটা আবার মেরামত করব। পানি থাকলে বাঁধ সংস্কার করা যাবে না। পানি কমে গেলে সংস্কার করতে পারব। ফেনীতে পানি কমে যাওয়ায় ইতোমধ্যে কাজ শুরু হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, বর্ষাটা প্রাকৃতিক। পৃথিবীর আবহাওয়াতে একটা পরিবর্তন হচ্ছে। চায়না-আমেরিকায় নদী ডুবে গেছে। এটা আবহাওজনিত কারণ, এখানে কিছু করা যাবে না। তবে যতখানি সম্ভব আমাদের এটি ঠেকাতে হবে। ড্রেজিং করে নদীতে নাব্যতা আনলে এটা কমে আসবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা ভাটির দেশের মানুষ। উজান থেকে পানি নেমে আসবেই, আমাদের কিছু করার নেই। আমাদের নদী অনেক কিন্তু, বড় নদীতে চর পড়ে আছে। এই নদীগুলোতে আমরা ড্রেসিং করব। নদীর যে পরিমাণ ৮-১০ কিলোমিটার চওড়া, সেটাকে আমরা ৪-৫ কিলোমিটারে নিয়ে আসব।

বন্যা পরিস্থিতির অবনতির বিষয়ে তিনি বলেন, যে বন্যা হচ্ছে তাতে আমাদের কিছু করার নেই। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশে বৃষ্টি হচ্ছে। সেই বৃষ্টির পানি প্লাবিত হয়ে বাংলাদেশে নেমে আসছে। এখানে পানির পরিমাণ এতো বেশি যে নরমাল বাঁধে এই পানি ঠেকানো যাবে না। যেখানে যেখানে নদী ভাঙন হচ্ছে, আমরা জরুরি কাজ করে সেটি ঠেকানো চেষ্টা করছি।

বন্যা কবলিত প্রতিটি এলাকায় এমপি ও জেলাপ্রশাসকদের প্রতিনিধি দিয়ে কমিটি করে কাজ করানো হচ্ছে বলে জানান তিনি।

ডিসিদের প্রতি বিশেষ কোন নির্দেশনা ছিল কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রমগুলো সম্পর্কে তাদের অবহিত করেছি। এখন যে বন্যা দেখা দিয়েছে, জেলা প্রশাসকরা এলাকায় গিয়ে তাদের কার্যক্রম শুরু করবে। আমরা সকলে সম্মিলতভাবে বন্যাকে মোকাবিলা করব। এবার বছরের প্রথম থেকেই আগাম বন্যার বিষয়ে নির্দেশনা দিয়েছিলাম। যে সকল এলাকা ঝুঁকিপূর্ণ সেগুলো পরিদর্শন করতে ও সেখানকার সমস্যা চিহ্নিত করার জন্য।

এ সময় পানি সম্পদ উপ-মন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম উপস্থিত ছিলেন।

এজলাসে খুন: গাফিলতি কিনা খুঁজে দেখা হচ্ছে

এজলাসে খুন: গাফিলতি কিনা খুঁজে দেখা হচ্ছে
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল

কুমিল্লায় আদালতের এজলাস কক্ষে ফারুক নামে এক আসামিকে খুন করার ঘটনায় নিরাপত্তাগত দিক থেকে কারো কোনো গাফিলতি আছে কিনা তা খুঁজে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) ধানমন্ডিতে বিজিবি সদর দপ্তরে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

তিনি বলেন, এজলাস কক্ষে এমন একটি ঘটনা অনাকাঙ্ক্ষিত। কিভাবে এজলাস কক্ষে একজন মানুষ ধারালো অস্ত্র নিয়ে আসতে পারে সেটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এতে যদি নিরাপত্তাগত দিক থেকে কারো কোন গাফিলতি থাকে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, তবে আরেকটি বিষয় আদালতে কেমন নিরাপত্তা দেওয়া হবে তা আদালত ঠিক করে পুলিশকে নির্দেশ দেন। আদালতের চাহিদা মতই পুলিশ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করে। তবে এমন ঘটনার পর, আদালত কেন্দ্রিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করার জন্য আমরা নানারকম পদক্ষেপ নিয়েছি। খুব দ্রুত বাস্তবায়ন হবে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র