Barta24

রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

English

রাজশাহীতে আজিজুল হক ও আরিফ টিপুকে সংবর্ধনা

রাজশাহীতে আজিজুল হক ও আরিফ টিপুকে সংবর্ধনা
গোলাম আরিফ টিপু ও হাসান আজিজুল হককে সংবর্ধনা দেয়া হয় রাজশাহীতে, ছবি: বার্তা২৪
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেট
রাজশাহী
বার্তা২৪.কম  


  • Font increase
  • Font Decrease

রাষ্ট্রীয় সর্বোচ্চ সম্মাননা একুশে ও স্বাধীনতা পদকে ভূষিত হওয়ায় ভাষাসৈনিক গোলাম আরিফ টিপু ও উপমহাদেশের প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হককে রাজশাহীতে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে।

রোববার (১৭ মার্চ) দুপুরে রাজশাহী নগরভবনের গ্রিনপ্লাজায় আয়োজিত ১০ দিনব্যাপী বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সাংস্কৃতিক উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তাঁদের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।

জানা গেছে, রোববার দুপুরে নগর ভবনের গ্রিনপ্লাজায় ১০ দিনব্যাপী বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সাংস্কৃতিক উৎসবের উদ্বোধন করা হয়। রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের পৃষ্ঠপোষকতায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সাংস্কৃতিক উৎসব অনুষ্ঠিত হচ্ছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।

প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর অধ্যাপক ড. আতিউর রহমান। উদ্বোধক ছিলেন বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টের সদস্য সচিব কবি শেখ হাফিজুর রহমান। স্বাগত বক্তব্য রাখেন উৎসব উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক ভাষাসৈনিক আবুল হোসেন।

অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সাংস্কৃতিক উৎসবের উদ্বোধনের পর জাতীয় পর্যায়ে গৌরবোজ্জ্বল ও কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক ও যুদ্ধাপরাধী ট্রাইব্যুনালের প্রধান কৌঁসুলি ভাষাসৈনিক গোলাম আরিফ টিপুকে সম্মাননা ক্রেস্ট দিয়ে সংবর্ধিত করেন মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।

উল্লেখ্য, এ বছরের স্বাধীনতা পুরস্কারের জন্য মনোনীতদের তালিকায় রয়েছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ও কথাসাহিত্যিক প্রফেসর হাসান আজিজুল হক। আর যুদ্ধাপরাধী ট্রাইব্যুনালের প্রধান কৌসুলি ভাষাসৈনিক গোলাম আরিফ টিপু এ বছর একুশে পদকে ভূষিত হয়েছেন।

আপনার মতামত লিখুন :

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আসছেন সোমবার

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আসছেন সোমবার
ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর সোমবার (১৯ আগস্ট) তিন দিনের  সফরে ঢাকা আসছেন। এর আগে পররাষ্ট্র সচিব হিসেবে বাংলাদেশ এলেও পররাষ্ট্রমন্ত্রী হওয়ার পর  এটাই হবে তার প্রথম ঢাকা সফর।

জয়শঙ্করের এই সফরে বাংলাদেশ ও ভারতের দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন বিষয় আলোচনা হবে। তবে কোনো চুক্তি হবে না বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন এবং ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে অংশ নেবেন।

সূত্র জানায়, জয়শঙ্কর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। আগামী অক্টোবর মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিল্লি সফরে যাবেন। জয়শঙ্করের ঢাকা সফরকালে প্রধানমন্ত্রীর দিল্লি সফরের দিনক্ষণ চূড়ান্ত হতে পারে।

২১ আগস্ট নয়া দিল্লি ফিরে যাওয়ার কথা রয়েছে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর।

ভারতের বিজেপি সরকার দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর এটাই হবে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রথম ঢাকা সফর।

বরিশাল লঞ্চঘাটে ঢাকামুখী যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়

বরিশাল লঞ্চঘাটে ঢাকামুখী যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়
বরিশাল লঞ্চঘাটে ঢাকামুখী যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়, ছবি:; বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

পবিত্র ঈদুল আজহা পালন শেষে রাজধানী শহর ঢাকার উদ্দেশে বরিশাল ছাড়ছেন কয়েক লাখ মানুষ।

শনিবার (১৭ আগস্ট) বরিশাল নৌবন্দরে ঢাকামুখী যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। দুপুর থেকেই বরিশালের বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা লঞ্চ যাত্রীরা ভিড় করছে নোঙর করা লঞ্চগুলোতে।

বিকেল শেষ না হতেই লঞ্চের ডেক থেকে শুরু করে প্রথম শ্রেণীর কেবিনের বারান্দার কানায় কানায়ও পরিপূর্ণ হয়ে যায়। যার কারণে, বিআইডব্লিউটিএর নির্দেশে নৌ দুর্ঘটনা ও অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই অপরাধ এড়াতে অন্যান্য দিনের চাইতে ২/১ ঘণ্টা আগেই বরিশাল লঞ্চঘাট ছাড়ে কয়েকটি বিলাসবহুল লঞ্চ।

গত শুক্রবারও ছিল যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়। ওই দিনেও নির্ধারিত সময়ের এক ঘণ্টা আগেই বরিশাল নদীবন্দর ছেড়েছিল ঢাকাগামী বিলাশ বহুল কয়েকটি লঞ্চ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/18/1566075739275.JPG

বিআইডব্লিউটিএ’র বরিশালের নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের উপ-পরিচালক আজমল হুদা মিঠু সরকার বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, ‘কোরবানির ছুটি শেষে স্ব স্ব কর্মস্থলে যোগ দিতে বরিশাল ছাড়ছে কয়েক লাখ মানুষ। কোরবানির দ্বিতীয় দিন থেকে ঢাকার উদ্দেশে লঞ্চযোগে বরিশাল নৌ বন্দর থেকে যাচ্ছে লঞ্চযাত্রীরা। তবে কয়েকদিনের চেয়ে শুক্রবার ও শনিবার যাত্রী চাপ অনেকটা বেশি ছিল।

তিনি আরেও জানান, অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই নিয়ে বরিশাল লঞ্চঘাট থেকে কোনো লঞ্চই ছাড়তে দেওয়া হচ্ছে না। বিশেষ করে লোড লাইন দেখে নির্ধারিত সময়ের আগেই লঞ্চগুলোকে ঘাট ত্যাগ করতে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া ঝুঁকি নিয়ে লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই করতে নিষেধ করা হচ্ছে। একই সাথে প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রতিদিনই মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হচ্ছে।

যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড়ের একই চিত্র লক্ষ্য করা গেছে সরকারি জাহাজগুলোতেও। লঞ্চযাত্রীদের নির্বিঘ্নে যাতায়াতের জন্য গত ৮ আগস্ট থেকে শুরু হয়েছে স্পেশাল লঞ্চ সার্ভিস। থাকছে ২০ আগস্ট পর্যন্ত। এর আওতায় পাঁচটি সরকারি জাহাজসহ ব্যক্তি মালিকানা ২০টি বিলাসবহুল লঞ্চ যাতায়াত করছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র