Barta24

রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

English

এবার টার্গেট গডফাদার, প্রস্তুত নতুন ব্যাটালিয়ন

এবার টার্গেট গডফাদার, প্রস্তুত নতুন ব্যাটালিয়ন
ছবি: বার্তা২৪
শাহরিয়ার হাসান
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
ঢাকা
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

জিরো টলারেন্স নীতি নিয়ে দ্বিতীয় দফার মাদক-বিরোধী বিশেষ অভিযান শুরু করেছে র‍্যাবসহ অন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ২০১৮ সালের মে মাস থেকে দেশজুড়ে মাদক-বিরোধী অভিযানে এখন পর্যন্ত ৩০০ জনের মতো মাদক ব্যবসায়ী কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। টানা অভিযানের ফলে মাদক চোরাচালান ও বিক্রি অনেকটা কমে গেলেও গডফাদাররা রয়েছেন ধরা ছোঁয়ার বাইরে।

এবার মাদক সাম্রাজ্যের শীর্ষ গডফাদারদের টার্গেট করে অভিযানে আসছে র‍্যাব। পাশাপাশি ইয়াবার প্রবেশদ্বার খ্যাত কক্সবাজার জেলায় সাঁড়াশি অভিযান চালাবে র‍্যাবের ১৫তম নতুন ব্যাটালিয়ন।

জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় মাদক-বিরোধী অভিযান কিছুটা ভাটা পড়লেও আবারও জোরদার হচ্ছে এই অভিযান। গত ২ জানুয়ারি নির্বাচন পরবর্তী শুভেচ্ছা গ্রহণের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাদক-বিরোধী অভিযান অব্যাহত রাখার ঘোষণার পর প্রশাসন আবারও নড়েচড়ে বসেছে। অন্যদিকে বেশির ভাগ নির্বাচিত সংসদ সদস্যেরা নির্বাচনের আগে নিজ এলাকাকে মাদক মুক্ত করার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছিলেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jan/11/1547177754531.gif

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো থেকে জানা যায়, গত এক বছরের মাদক-বিরোধী অভিযানে এক লাখ ১৫ হাজার মামলায় প্রায় দেড় লাখ মাদক কারবারি ও সেবনকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ১১ মাসে সারা দেশ থেকে তিন কোটি ৪৯ লাখ এক হাজার ৪৩৫ পিস ইয়াবাসহ অন্যান্য মাদকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে। গত বছরের মে মাস থেকে র‍্যাব, পুলিশ, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর (ডিএনসি), বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি), কোস্ট গার্ডসহ গোয়েন্দা সংস্থাগুলো মাদক-বিরোধী অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে। র‌্যাব-পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ সারা দেশে তিন শতাধিক মাদক কারবারি নিহত হয়েছেন। বিগত সরকারের মাদক-বিরোধী অভিযানের ধারাবাহিকতা রক্ষা করা হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

এদিকে জানা গেছে, ইতোমধ্যে একনেক কর্তৃক র‍্যাবের ১৫তম ব্যাটালিয়নের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এ ব্যাটালিয়ন আগামী ফেব্রুয়ারি মাসে মাঠে নামার লক্ষ্য নিয়ে অফিস, নিরাপত্তা সরঞ্জামসহ অন্যান্য প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে।

র‍্যাব সদর দফতর সূত্র জানায়, র‍্যাবের এ ব্যাটালিয়ন ইয়াবার বিরুদ্ধে ব্যাপক অভিযানের মধ্য দিয়ে মাঠে নিজেদের অস্তিত্ব জানান দিতে চায়। এ জন্য ইয়াবার প্রবেশদ্বার খ্যাত কক্সবাজারের মাদক রুটগুলো মাথায় রেখে প্রস্তুতি নিচ্ছে র‍্যাব। এছাড়া তিন পার্বত্য জেলায় বিশেষ মাদক-বিরোধী অভিযান পরিচালনা করবে নতুন এ ব্যাটালিয়ন।

মাদক অভিযানের বিষয়ে র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান বার্তা২৪.কমকে বলেন, 'মাদক-বিরোধী অভিযান র‍্যাবের সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার কার্যক্রমের একটি। এবার মাদকের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক অভিযান চালানো হবে। মাদক নির্মূল করতে কাজ করে যাচ্ছে র‍্যাব।'

একই বিষয়ে জানতে চাইলে পুলিশ সদর দফতরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি-মিডিয়া) সোহেল রানা বার্তা২৪.কমকে বলেন, 'মাদকের ভয়াল থাবা থেকে দেশকে রক্ষা করতে পুলিশের অবস্থান সব সময়ই জিরো টলারেন্স। আমরা প্রথম থেকেই কাজ করে যাচ্ছি। মাদক নির্মূলের লক্ষে এ বিশেষ অভিযান অব্যাহত আছে।'

উল্লেখ্য গত বছরের ২৭ ডিসেম্বর থেকে মাদক-বিরোধী নতুন আইন কার্যকর হয়েছে। নতুন এ আইনে ইয়াবা পাচার মামলায় সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড ছাড়াও অন্যান্য ক্ষেত্রে সাজার মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়েছে। এ ছাড়া মাদকের তালিকায় নতুন করে যুক্ত হয়েছে সিসার মতো মাদকদ্রব্য। নতুন আইনের ফলে মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনার ক্ষেত্রে আগের চেয়ে বেশি সুবিধা পাওয়া যাবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

আপনার মতামত লিখুন :

হালদা দূষণ: এশিয়ান পেপার মিলসের উৎপাদন বন্ধের নির্দেশ

হালদা দূষণ: এশিয়ান পেপার মিলসের উৎপাদন বন্ধের নির্দেশ
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

দক্ষিণ এশিয়ার একমাত্র প্রাকৃতিক মৎস্য প্রজনন ক্ষেত্র হালদা নদীতে বর্জ্য ফেলে দূষণের দায়ে চিটাগং এশিয়ান পেপার মিলসের উৎপাদন বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে পরিবেশ অধিদফতর।

রোববার (১৮ আগস্ট) দুপুরে অধিফতরের চট্টগ্রাম মহানগরের পরিচালক আজাদুর রহমান মল্লিক তার কার্যালয়ে শুনানি শেষে এ সিদ্ধান্ত দেন।

তিনি বলেন, 'শুনানির পর জরুরি ভিত্তিতে সঠিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, ত্রুটি সংশোধন করে ইটিপি সার্বক্ষণিক চালু রাখার পদক্ষেপ গ্রহণ ও পরিবেশসম্মত স্লাজ অপসারণের ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। এসব ব্যবস্থা গ্রহণ না করা পর্যন্ত কারখানার উৎপাদন বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।'

এর আগে গত ৩০ মে হালদা দূষণের দায়ে চট্টগ্রামের নন্দীরহাটের এশিয়ান পেপার মিলের বিরুদ্ধে মামলা করার নির্দেশ দিয়েছেন পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব কবির বিন আনোয়ার।

আরও পড়ুন: হালদা দূষণ: হাটহাজারী বিদ্যুৎ কেন্দ্রকে ২০ লাখ টাকা জরিমানা

আরও পড়ুন: হালদা দূষণে এশিয়ান পেপার মিলের বিরুদ্ধে মামলার নির্দেশ

ঢামেকে নার্স ও প্যাথলজি বিভাগের মধ্যে সংঘর্ষ

ঢামেকে নার্স ও প্যাথলজি বিভাগের মধ্যে সংঘর্ষ
ঢাকা মেডিকেল হাসপাতাল, ছবি: সংগৃহীত

টেস্টের রিপোর্ট নিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেক) নার্স ও প্যাথলজি বিভাগের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার (১৮ আগস্ট) দুপুর ১টা ৩০ মিনিটের দিকে ঢামেক হাসপাতালের নতুন ভবনের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো.বাচ্চু মিয়া বলেন, 'একটি টেস্টের রিপোর্ট নিয়ে ঢামেক হাসপাতালের নার্স ও প্যাথলজি বিভাগের লোকজনদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। প্রাথমিকভাবে এই তথ্যই আছে আমার কাছে। তবে ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে কএম নাসির উদ্দিন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছেন।'

 
 
 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র