Barta24

বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

English

ভোট আসলে সবাই কথা দেয়: ভাতা বঞ্চিত মুক্তিযোদ্ধা

ভোট আসলে সবাই কথা দেয়: ভাতা বঞ্চিত মুক্তিযোদ্ধা
মসলা বিক্রি করছেন মুক্তিযোদ্ধা প্রতাপ, ছবি: বার্তা২৪
নিয়াজ আহমেদ সিপন
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
লালমনিরহাট
বার্তা২৪


  • Font increase
  • Font Decrease

নদীতে ঘর বাড়ি চলে যাওয়ার পর মুক্তিযোদ্ধা প্রতাপ চন্দ্র আশ্রয় নেয় লালমনিরহাট সদর উপজেলার হারাটি ইউনিয়নের কাজিচওড়া গ্রামে। এরপর থেকে তার সংসার কিভাবে চলবে তা ভাবতে থাকেন। স্থানীয় বেশ কয়েকটি দোকান থেকে বাকিতে মসলা কিনে তিনি গ্রামেই বিক্রি করতে শুরু করেন। মুক্তিযোদ্ধা প্রতাপের কাছে থেকে গ্রামের নারী-পুরুষসহ সকলে তার কাছে থেকে মসলা নিতে শুরু করলেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Dec/21/1545392001053.jpg

মুক্তিযোদ্ধা প্রতাপের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, দেশের জন্য জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করে একি ছিল আমার কপালে। ভাতা বঞ্চিত হয়ে মসলা বিক্রি করি। একটু ভাতের জন্য মসলা ফেরিওয়ালা হতে হলো। রাস্তায় চলতে গেলে এখন সব নেতাদের সঙ্গে দেখা হয়। তারা এবার আমাকে ভাতার কার্ড করে দিবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। ভোটের সময় সব নেতারা কথা দিয়ে থাকেন। সব ভাতা পাবো। কই এতদিনেও তো কিছু পেলাম না।  

ভূমিহীন এ মুক্তিযোদ্ধার মূল গ্রামের বাড়ি রংপুরের গংগাচড়া উপজেলার মন্বেয়ার চর গ্রামে। তিনি  মৃত তারিনী চন্দ্রের ছেলে। যুদ্ধের পর থেকেই মৃত নেপাল চন্দ্রের বাড়িতে আশ্রয়ে থাকেন তিনি।

মুক্তিযোদ্ধা প্রতাপ চন্দ্র রায় জানান, জন্মের ৬/৭ বছরের মাথায় বাবা মাকে হারান তিনি। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস মায়ের মৃত্যুর পরে তিস্তার স্রোতে ভেসে যায় তার বসত ঘর। এরপর বাজারে ভবঘুরের মত ঘুরে বেড়ানো এতিম প্রতাপকে নিয়ে যান লালমনিরহাট সদর উপজেলার কাজিরচওড়া গ্রামের নেপাল চন্দ্র। সেখানেই আজ অবধি রয়েছেন প্রতাপ চন্দ্র রায়।

যুদ্ধের ভয়াল স্মৃতি চারনে প্রতাপ চন্দ্র জানান, ১৯৭১ সালের ভয়াল দিনে তিনি ৮ম শ্রেনীর ছাত্র। গ্রামের অনেক বাড়ি পুড়ে দেয়া হয়, পাখির মত গ্রামের নিরস্ত্র মানুষের বুকে গুলি চলায়। মায়েদের গুলি করে যুবতী বোনদের টেনে হেচড়ে নিয়ে নির্যাতন চালিয়েছে পাকিস্তানী হায়েনার দল। এসব দেখে টগবগে যুবক প্রতাপ ছুটে যান ভারতের প্রশিক্ষণ শিবিরে। সেখানে অস্ত্র চালানো ও যুদ্ধের কৌশল আয়ত্র করে দেশমাতৃকার মুক্তির নেশায় যুক্ত হন ৭ নং সেক্টরে। সেখানে সেক্টর কমান্ডার নজরুল ইসলাম হাজীর নেতৃত্বে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন প্রতাপ। দেশের অভ্যন্তরে দুই মাস যুদ্ধে অংশ নিয়েছেন তিনি। এরপর দেশ হানাদার মুক্ত হয়।

দেশ স্বাধীনের পর ছুটে আসেন বিপদের আশ্রয় দাতা পিতৃতুল্য সেই নেপাল চন্দ্রের কাছে। নিম্ন মধ্যবিত্ত সেই নেপালের সব কিছু ছাই করে দিয়েছে পাকিস্তানের দালাল আল বদর আল সামসের গোষ্ঠীরা। মেরে ফেলেছে গ্রামের অনেক আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধুদের। পুরো গ্রাম জুড়ে ছিল পঁচা লাশ ও আগুনে পুড়ে যাওয়ার বিশ্রী গন্ধ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Dec/21/1545392118490.jpg

বেঁচে থাকার তাগিদে ফেরিওয়ালা হিসেবে স্বাধীন দেশে জীবিকার পথ খুঁজে পান মুক্তিযোদ্ধা প্রতাপ চন্দ্র রায়। আশ্রিত হলেও নিজের সন্তানের মতই প্রতাপের বিয়ে আয়োজন করেন নেপাল চন্দ্র। পার্শ্ববর্তী বেমালা দেবীকে মালা পড়িয়ে স্ত্রী হিসেবে ঘরে তুলেন প্রতাপ চন্দ্র রায়। নেপালের মৃত্যুর পর এক ছেলে এক মেয়ে ও স্ত্রীসহ তার সংসারের দায়িত্ব চেপে বসে প্রতাপ চন্দ্রের কাঁধে। ভাইয়ের ভালবাসায় পিতৃস্নেহে বড় করেছেন নেপালের ছেলে অশোক কুমারকে। এখন দুই ভাইয়ের ফেরি ও দিন মজুরী দিয়ে চলে সংসার। দুঃখে যাদের জীবন গড়া তাদের আবার দুঃখ কি?  যোগ করেন রসিক প্রতাপ চন্দ্র রায়।

সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতা দিচ্ছে শুনে কাগজ পত্র নিয়ে দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের নেতাদের দুয়ারে দুয়ারে নিষ্ফল ঘুরছেন প্রতাপ চন্দ্র রায়। সবাই ভোটের সময় কথা দিয়ে ভোট নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের নেতা হন। কিন্তু কেউ তাকে ভাতার ব্যবস্থা করেননি। সম্মানী এ ভাতার জন্য গত বছর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা বাছাই কমিটিতে আবেদন করেছেন প্রতাপ। কিন্তু কোন কাজে আসেনি বলে জানান তিনি।

দেখতে চাইলে অনায়াসে তুলে দেন মুক্তিযোদ্ধার প্রমাণপত্র। মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তার যথেষ্ট প্রমাণ রয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের লাল মুক্তিবার্তা মতে তার ক্রমিক নং ৩১৪০১০৪৩৬। ২০০৫ সালের ৩০ মে তারিখের প্রকাশিত বেসামরিক গেজেটের ৫১৪৫ নং পৃষ্ঠার ৪৯৭ নম্বরের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে রয়েছেন প্রতাপ চন্দ্র রায়। লালমনিরহাট জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ৩৩৪ নং ভোটার তিনি। সব দিক থেকে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি রয়েছে তার। নেই শুধু সরকারী সম্মানী ভাতাটুকু।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Dec/21/1545392025586.png

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নির্বাচনে ভোট ও রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তাকে সংবর্ধনা দেয়া হলেও সরকারের সম্মানী ভাতা থেকে বঞ্চিত রয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা প্রতাপ চন্দ্র রায়। ৭১ সালে তরতাজা যুবক পরাক্রমশালী প্রতাপ চন্দ্র মুক্তিযুদ্ধে জয়লাভ করলেও জীবনের শেষ সময়ে নাজুক প্রতাপ স্বাধীন দেশে জীবন সংগ্রামে হারতে বসেছেন। ফেরি করে আয় হলে পেটে ভাত, নতুবা অভুক্ত থাকতে হয় তাদের যোগ করেন প্রতাপ চন্দ্র রায়।

প্রতাপ চন্দ্র রায় আরও জানান, আগে কাঁধে করে পণ্য নিয়ে পায়ে হেঁটে গ্রামের বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিক্রি করতেন। এখন নাজুক হয়ে পড়ায় বাইসাইকেল চালিয়ে ফেরি করেন। এতে দৈনিক তার আয় হয় দেড় থেকে দুই শত টাকা।  যা দিয়ে সংসারের চাকা সচল রাখার চেষ্টা তাদের। জীবনের শেষ সময় কার দ্বারস্থ হবেন - এ প্রশ্ন তাকে কুঁড়ে কুঁড়ে খাচ্ছে। এ জন্য জীবনের শেষ মুহূর্তে হলেও স্ত্রীর জন্য মুক্তিযোদ্ধার সম্মানী ভাতাটা দেখে যেতে চান তিনি।

প্রতাপ চন্দ্র রায় বলেন, পাকিস্তানীদের বিরুদ্ধে খেয়ে না খেয়ে যুদ্ধ করে মরিনি। স্বাধীন দেশেও না খেয়ে মরবো না। কিন্তু মৃত্যুর পর স্ত্রীর জন্য এ সম্মানী ভাটা খুবই প্রয়োজন। যখন কাজে অক্ষম হব বা মারা যাব তখন কে দেখবে স্ত্রী বেমালা দেবীকে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সাপ্টিবাড়ি এলাকার একজন স্কুল শিক্ষক বলেন, অনেক ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা টাকার বিনিময়ে সরকারী ভাতা ভোগ করছেন। অথচ প্রতাপ মুক্তিযোদ্ধা হয়েও ভাতা পাচ্ছেন না। উন্নয়নশীল দেশে মুক্তিযোদ্ধাদের ফেরি করে জীবিকা নির্বাহ করা স্বাধীন দেশের জন্য লজ্জাজনক। দ্রুত তাকে সম্মানী ভাতার আওতায় আনার দাবি জানান তিনি।

হারাটি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রফিক জানান, প্রতাপ চন্দ্র রায় একজন মুক্তিযোদ্ধা। ভাতা না পাওয়ার কারণ তার জানা নেই। তবে তাকে ভাতার আওতায় আনা খুবই প্রয়োজন বলেও মনে করেন তিনি।

আপনার মতামত লিখুন :

গ্রেনেড হামলার মাস্টার মাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি

গ্রেনেড হামলার মাস্টার মাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি
গ্রেনেড হামলায় আত্মার মাগফেরাত ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনায় দোয়া, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার ঘটনায় জড়িতদের ফাঁসির রায় দ্রুত কার্যকর এবং মাস্টার মাইন্ডদের বিচারের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানিয়েছেন ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা।

বুধবার (২১ আগস্ট) সন্ধ্যায় নগরীর শিববাড়ি রোডস্থ দলীয় কার্যালয়ে মহানগর আওয়ামী লীগের আয়োজনে এক প্রতিবাদ সভায় এ দাবি জানানো হয়।

ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নাজমা ইসলামের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোহিত-উর-রহমান শান্ত'র সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন- ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের মেয়র ও মহানগর আ'লীগের সহ-সভাপতি মো. ইকরামুল হক টিটু।

এতে সংগঠনের সহ-সভাপতি হোসাইন জিল্লু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হোসাইন জাহাঙ্গীর বাবুসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা বক্তব্য রাখেন।

প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেন, 'বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে হত্যার মাধ্যমে আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করতেই দানবীয় এ হত্যাযজ্ঞ চালানো হয়েছিল। তবে আল্লাহর অশেষ রহমতে পরিকল্পিত সে হামলায় মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেছিলেন শেখ হাসিনা। ইতোমধ্যে এই গ্রেনেড হামলার যে রায় হয়েছে সেটি দ্রুত সময়ের মধ্যেই বাস্তবায়ন করতে হবে।'

প্রতিবাদ সভা শেষে শহীদদের আত্মার মাগফেরাত ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করে দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

মন্ত্রী-মেয়র ব্যস্ত বক্তৃতায়, সচিবের আয়েশি ঘুম

মন্ত্রী-মেয়র ব্যস্ত বক্তৃতায়, সচিবের আয়েশি ঘুম
মশক নিধন এবং পরিচ্ছন্নতা বিষয়ক পর্যালোচনা সভায় স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের আয়েশি ঘুম/ছবি: শাহরিয়ার তামিম

রাজধানীর স্পেকট্রা কনভেনশন সেন্টারে মশক নিধন এবং পরিচ্ছন্নতা বিষয়ক পর্যালোচনা সভা চলছে। ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের দিক-নির্দেশনা দিচ্ছেন স্থানীয়, সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র সভায় ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলায় ব্যস্ত। তবে অনুষ্ঠানের এ মঞ্চে দুশ্চিন্তামুক্ত ছিলেন একজন। আর তিনি হলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ।

অনুষ্ঠানের শুরু থেকে তিনি দফায় দফায় ঘুম দিচ্ছেন। কখনও ঘুমে দুলুনি খাচ্ছেন, কখনও আবার হঠাৎ চমকে উঠছেন। কোনো কোনো সময় মুখ হা করে বিরাট হাই তুলছেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566400999878.jpg

বুধবার (২১ আগস্ট) বিকেলে রাজধানীর স্পেকট্রা কনভেনশন সেন্টারে আয়োজিত সভায় এমন আয়েশি ভঙ্গিতে ধরা পড়লেন সচিব হেলালুদ্দীন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। মেয়র আতিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন ডিএনসিসি’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল হাইসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলররা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566401016016.jpg

মন্ত্রীর কারণে বিকেল ৪টায় অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার কথা থাকলেও শুরু হয় আরও দেরিতে। এরপর মন্ত্রীর ডান পাশের চেয়ারে বসেন সচিব হেলালুদ্দীন আর বাম পাশে বসেন মেয়র আতিকুল ইসলাম।

সভার শুরুতে মেয়র কথা বলার পর বক্তব্য শুরু করেন মন্ত্রী। তার বক্তৃতার পুরো সময় সচিব কখনো হাই তুলেছেন, আবার কখনো দুই হাত বুকের ওপর রেখে ভঙ্গিতে ঘুম দিয়েছেন। মাঝে মাঝে দুই চোখ খুললেও আবার চোখ বন্ধ করে ফেলেন। মন্ত্রী যখন বক্তৃতা করছিলেন তখন মাঝে মাঝেই সচিব চেয়ারে হেলান দিয়ে ঘুমাচ্ছিলেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566401037611.jpg

সম্প্রতি দেশের ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ে সরকার, সিটি করপোরেশন ও প্রশাসন কর্মকর্তারা বেশ দৌড়ের ওপর রয়েছেন। ডেঙ্গু মৌসুমের শুরুতে পদক্ষেপ না নেওয়ায় সমালোচনাও সইতে হচ্ছে সংশ্লিষ্ট মহলকে। এর মধ্যে এমন জনগুরুত্বপূর্ণ একটি অনুষ্ঠানে সরকারের একজন আমলার এভাবে ঘুমানোকে বেমানান বলছেন সভায় উপস্থিত ব্যক্তিরা।

আরও পড়ুন:  রোববার থেকে চিরুনি অভিযান, লার্ভা পেলে সর্বোচ্চ ৬ মাসের..

ডেঙ্গু আক্রান্তদের জন্য স্থানীয় সরকার মন্ত্রীর দুঃখ..

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র