Barta24

বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ৯ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

উইলিয়ামসনের সেঞ্চুরি, প্রোটিয়াদের হারিয়ে শীর্ষে নিউজিল্যান্ড

উইলিয়ামসনের সেঞ্চুরি, প্রোটিয়াদের হারিয়ে শীর্ষে নিউজিল্যান্ড
ঠিক অধিনায়কের মতোই সামনে থেকে দলকে জেতালেন কেন উইলিয়ামসন
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

বোলারদের হাত ধরে জয়ের মঞ্চটা প্রস্তুতই ছিল। বাকী ছিল শুধু ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তা। সেই কাজটাও ঠিকঠাক মতো করে নিয়েছে নিউজিল্যান্ড। বল-ব্যাটের দাপটে বিশ্বকাপে আরো একটা জয় তুলে নিয়েছে কিউইরা। কেন উইলিয়ামসনের অসাধারণ শতরানে তারা হারাল দক্ষিণ আফ্রিকাকে। অধিনায়ক ঠিক অধিনায়কেরই মতো খেললেন!

বার্মিহামে বুধবার প্রোটিয়াদের ৪ উইকেটে সহজেই হারিয়েছে কিউইরা। ৩ বল বাকী থাকতেই ধরা দেয় দুর্দান্ত জয়।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে দক্ষিণ আফ্রিকা তুলে ৪৯ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ২৪১ রান। হাফসেঞ্চুরি করেন হাশিম আমলা ও রসি ফন ডার ডাসেন। জবাব দিতে নেমে কেন উইলিয়ামসনের শতরানে ৪৮.৩ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে জয়ের বন্দরে পা রাখে নিউজিল্যান্ড।

চলতি বিশ্বকাপে পাঁচ ম্যাচে চার জয় তুলে নিয়েছে কিউইরা। ঠিক ফেভারিটের মতো এগিয়ে যাচ্ছে গতবারের রানার্সআপ দলটি। ৯ পয়েন্ট নিয়ে বিশ্বকাপের টেবিলে শীর্ষে আছে তারাই। অন্যদিকে ৬ ম্যাচে মাত্র এক জয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার সেমি-ফাইনালে উঠা মিশন ইমপসিবলই হয়ে গেল।

জবাবে নেমে শুরুটা অবশ্য ভাল ছিল না কিউইদের। দলীয় ১২ রানে সাজঘরের পথ ধরেন ওপেনার কলিন মুনরো (৯)। এরপর মার্টিন গাপটিল ব্যক্তিগত ৩৫ রানে ফিরলে কিছুটা হলেও চাপে পড়ে নিউজিল্যান্ড। এরপরই রস টেলর (১) ও টম লাথাম (১) চটজলদি বিদায় করে ম্যাচে ফেরে দক্ষিণ আফ্রিকা।

কিন্তু তখনই সব দ্বায়িত্ব কাঁধে তুলেন নেন অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। সঙ্গে তাকে সমর্থন দিয়ে গেছেন কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম। দুজনই ম্যাচের দৃশ্যপট ফের পাল্টে দেন। তাদের দাপুটে আর দ্বায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে জয়ের পথ খুঁজে নেয় ফেভারিটরা।

৪৭ বলে ৬০ রান করে ফেরেন গ্র্যান্ডহোম। তবে উইলিয়ামসন ঠিকই দলকে জয় এনে দিয়ে মাঠ ছাড়েন। শেষ ওভারে ছক্কা হাঁকিয়ে তুলে নেন শতরান। শেষ অব্দি ১৩৮ বলে ১০৬ রানে অপরাজিত থাকেন কিউই ক্যাপ্টেন। ইনিংসে ছিল ৯ বাউন্ডারি ও একটি ছক্কা।

এর আগে আউটফিল্ড ভেজা থাকায় খেলা শুরু হয় দেরিতে। এ কারণে ম্যাচের দৈর্ঘ্য এক ওভার কমিয়ে দেওয়া হয়। সেই ম্যাচে টস জিতে প্রোটিয়াদেরই প্রথমে ব্যাটিংয়ে পাঠান নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন।

ভেজা উইকেটে রান তুলতে গিয়ে সংগ্রাম করতে হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার। হাশিম আমলাও ও ফন ডার ডাসেন ছাড়া সবাই ব্যর্থ। আমলা ৮৩ বলে ৫৫ রান করার পথে অভিজাত এক মাইলফলক পেরিয়ে যান। প্রোটিয়াদের হয়ে ওয়ানডেতে দ্রুততম ৮ হাজার রানে পা রাখেন তিনি।

হাশিম আমলা আট হাজার রান করলেন ১৭৬ ইনিংসে। যা ওয়ানডে ইতিহাসে দ্বিতীয় দ্রুততম। দ্রুততম আট হাজার রানের রেকর্ড বিরাট কোহলির। ভারত অধিনায়কের এই ক্লাবে পা রাখেন ১৭৫ ইনিংস খেলে। এর আগে ২ থেকে ৭ হাজার রানের মাইলফলকে পা রাখার দ্রুততম রেকর্ড আমলারই দখলে।

ফন ডার ডাসেন করেন ৬৪ বলে ৬৭। নিউজিল্যান্ডের পক্ষে তিনটি উইকেট নেন লকি ফার্গুসন। ১টি করে উইকেট শিকার করেন ট্রেন্ট বোল্ট, স্যান্টনার ও কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম। তবে ম্যাচসেরা শতরান করা কেন উইলিয়ামসনই। তিনিই কঠিন দৃঢ়তায় দলকে এনে দিয়েছেন দারুণ এক জয়!

সংক্ষিপ্ত স্কোর-

দক্ষিণ আফ্রিকা: ৪৯ ওভারে ২৪১/৬ (ডি কক ৫, আমলা ৫৫, ডু প্লেসিস ২৩, মারক্রাম ৩৮, ফন ডার ডাসেন ৬৭*, মিলার ৩৬, ফেলুকোয়ায়ো ০, মরিস ৬*; বোল্ট ১/৫৩, ফার্গুসন ৩/৫৯, ডি গ্র্যান্ডহোম ১/৩৩, স্যান্টনার ১/৪৫)
নিউজিল্যান্ড: ৪৮.৩ ওভারে ২৪৫/৬ (গাপটিল ৩৫, মানরো ৯, উইলিয়ামসন ১০৬*, টেলর ১, ল্যাথাম ১, নিশাম ২৩, ডি গ্র্যান্ডহোম ৬০, স্যান্টনার ২*; রাবাদা ১/৪২, এনগিডি ১/৪৭, মরিস ৩/৪৯, ফেলুকোয়ায়ো ১/৭৩)
ফল: নিউজিল্যান্ড ৪ উইকেটে জয়ী
ম্যাচসেরা: কেন উইলিয়ামসন

আপনার মতামত লিখুন :

শ্রীলঙ্কায় গরম, তাই জাতীয় দলে শফিউল

শ্রীলঙ্কায় গরম, তাই জাতীয় দলে শফিউল
শ্রীলঙ্কা সফরে জাতীয় দলে শফিউল ইসলাম

হঠাৎ করেই জাতীয় দলে ডাক পেয়ে গেলেন শফিউল ইসলাম। আনুষ্ঠানিকভাবে সফর শুরু হওয়ার পর তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের দলে অন্তর্ভুক্ত হলেন এই পেসার। সবকিছু ঠিক থাকলে বুধবার কলম্বোতে টাইগার শিবিরে যোগ দেবেন তিনি।

কেউ ইনজুরিতে পড়েনি, তারপরও হঠাৎ কেন দলে শফিউল? এমন প্রশ্নের মুখে মঙ্গলবার গণমাধ্যমে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু জানালেন, ‘দেখুন, শ্রীলঙ্কা থেকে টিম ম্যানেজমেন্ট আরও একজন পেসার চেয়েছে। ওরা জানাল-সেখানে নাকি বেশ গরম। হাতে বিকল্প বোলার রাখতে চাইছে। দল তো ১৪ জনের ছিল। শফিউল যোগ দিলে ১৫ জনে দাঁড়াবে।’

২৯ বছর বয়সী এই পেসার ২০১৬ সালে খেলেন তার সবশেষ ওয়ানডে। ৫৬ ওয়ানডে খেলা শফিউল ২০১৭ সালের পর থেকেই আছেন জাতীয় দলের বাইরে।

ঘরোয়া ক্রিকেটে ভাল খেলে অবশ্য আলোচনাতেই ছিলেন তিনি। গত মৌসুমে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগে নেন ১৯ উইকেট। এছাড়া আফগানিস্তান ‘এ’ দলের বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচে ৫৯ রানে পেয়েছেন ২ উইকেট।

শুক্রবার প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে শুরু হবে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটি। পরের দুটি ওয়ানডে ২৮ ও ৩১ জুলাই।

ওয়ানডের বাংলাদেশ দল-
তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), মাহমুদউল্লাহ, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ মিঠুন, তাসকিন আহমেদ, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মুস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন, সাব্বির রহমান, সৌম্য সরকার, ফরহাদ রেজা, মোসাদ্দেক হোসেন, তাইজুল ইসলাম, এনামুল হক, শফিউল ইসলাম।

ওয়ানডে ছাড়লেও টি-টুয়েন্টিতে থাকছেন মালিঙ্গা

ওয়ানডে ছাড়লেও টি-টুয়েন্টিতে থাকছেন মালিঙ্গা
ভক্তদের হতাশই করলেন লাসিথ মালিঙ্গা

অনেক দিন ধরেই লাসিথ মালিঙ্গার অবসর নিয়ে নানা গুঞ্জন উড়ে বেড়িয়েছে। শ্রীলঙ্কার নির্বাচক কমিটির চেয়ারম্যান আসান্থা ডি মেলের পর তার অবসরের খবরটা দিয়ে ভক্তদের হতাশ করেছেন লঙ্কান অধিনায়ক দিমুথ করুনারত্নে। তবে এবার খবরটা নিশ্চিত করলেন মালিঙ্গা নিজেই। বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে খেলেই একদিনের ক্রিকেটকে বিদায় বলে দিচ্ছেন শ্রীলঙ্কার এ তারকা পেসার। তবে খেলে যাবেন টি-টুয়েন্টি ক্রিকেট।

২৬ জুলাই শুক্রবার কলম্বোর আর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে টাইগারদের বিপক্ষে খেলেই ৫০ ওভারের ক্রিকেট থেকে অবসরে চলে যাচ্ছেন মালিঙ্গা। তাই ভক্ত-সমর্থকদের গ্যালারিতে বসে নিজের বিদায়ী ম্যাচ উপভোগের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন লঙ্কান এ তারকা ক্রিকেটার, ‘শুক্রবার শেষবারের মতো আমাকে ওয়ানডে ম্যাচ খেলতে দেখবেন আপনারা। যদি পারেন, দয়া করে ম্যাচটি দেখতে আসবেন।’

স্ত্রী তানিয়া পেরেরার ফেসবুক পেজে এক ভিডিও বার্তা পোস্ট করে সমর্থকদের মালিঙ্গা জানান, যে অফিসিয়াল ও খেলোয়াড়রা তাকে দল থেকে বের করে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন তাদের প্রতি তার কোনো অভিযোগ নেই।

৩৫ বছরের এ বোলার জানান, ‘নির্বাচকরা তাকে সাইডলাইনে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন দুই বছর আগে। কিন্তু সদ্য শেষ হওয়া বিশ্বকাপের মাধ্যমে জাতীয় দলে নিজের মূল্যটা প্রমাণ করতে পেরেছি।’

এবারের ওয়ানডে বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কার সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি ছিলেন মালিঙ্গা। সাত ইনিংসে নেন ১৩ উইকেট।

বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডে সামনে রেখে মঙ্গলবার অনুশীলনের ফাঁকে মালিঙ্গা জানান, একদিনের ক্রিকেট থেকে অবসর নিলেও খেলে যাবেন টি-টুয়েন্টি। তার দৃষ্টি এখন ২০২০ সালে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠেয় টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে।

মালিঙ্গা বলেন, ‘প্রত্যাশা করি, আগামী টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কাকে নিয়ে যেতে পারব।’ টুর্নামেন্টের মূল আসরে খেলার আগে বাংলাদেশের মতো লঙ্কানদেরও পার হতে হবে বাছাই পর্বের বৈতরণী।

গুঞ্জন আছে অবসরের পর অস্ট্রেলিয়ায় পাড়ি জমাবেন মালিঙ্গা। নাগরিকত্বও পেয়ে গেছেন। নতুন ঠিকানাতেই গড়বেন কোচিং ক্যারিয়ার।

২১৯ ইনিংসে ৩৩৫ উইকেট নিয়ে শ্রীলঙ্কার তৃতীয় সর্বোচ্চ উইকেটের মালিক ২০১১ সালে টেস্ট থেকে অবসর নেওয়া মালিঙ্গা। তার আগে আছেন কেবল মুত্তিয়া মুরালিধরন (৫২৩) চামিন্দা ভাস (৩৯৯)।

তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে তামিম ইকবালের নেতৃত্বে এখন শ্রীলঙ্কা সফর করছে বাংলাদেশ। ২৬ জুলাই মাঠে গড়াচ্ছে সিরিজের প্রথম ওয়ানডে। একই ভেন্যুতে পরের দুটি ম্যাচ হবে ২৮ ও ৩১ জুলাই। 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র