Barta24

বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ৯ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

হতাশার হার দিয়ে কোপা শুরু মেসির আর্জেন্টিনার

হতাশার হার দিয়ে কোপা শুরু মেসির আর্জেন্টিনার
কোপা আমেরিকার শুরুতেই হারল মেসির আর্জেন্টিনা
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

সেই পুরনো আর্জেন্টিনারই দেখা মিলল। একের পর এক গোল মিসের মহড়া। তারই পথ ধরে ছন্দেরও দেখা নেই। হার দিয়েই এবারের কোপা আমেরিকা শুরু হলো লিওনেল মেসিদের। শতবর্ষ পুরনো প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৪ বারের চ্যাম্পিয়নদের শুরুতেই ছন্দপতন!

বাংলাদেশ সময় রোববার ভোরে সালভাদরে ‘বি’ গ্রুপের ম্যাচে আর্জেন্টিনাকে ২-০ গোলে হারায় কলম্বিয়া। ম্যাচের দুই গোলদাতা রজের মার্টিনেস ও সাপাতা।

এই আর্জেন্টিনাকে চেনাই গেল না। খেলা নেই ছন্দ। এলোমেলো, ছন্নছড়া ফুটবলের পসরা যেন সাজালেন তারা। মেসি বলের যোগানও পাননি। বল পেতে আর্জেন্টাইন অধিনায়ক নামতে হয়েছে নিচে। তারপরও পাস পাননি! জাতীয় দলের হয়ে নেমে হতাশই হতে হয়েছে বার্সেলোনার সুপার স্টারকে।

এরমধ্যে অবশ্য ম্যাচের প্রথম সুযোগটা আর্জেন্টিনাই পেয়েছিল। খেলার ৭ মিনিটের মাথায় পাওয়া সেই গোল সম্ভাবনাটা কাজে লাগাতে পারেন নি সার্জিও অ্যাগুয়েরো। মেসির পাস থেকে বল পেয়ে তার নাগালে যখন বল তখন সামনে শুধুই কলম্বিয়ার গোলকিপার ডেভিড আসপিনা। কিন্তু হতাশ করেন অ্যাগুয়েরো।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/16/1560649845809.jpg

খেলার ২৭তম মিনিটে এগিয়ে যেতে পারতো কলম্বিয়া। বল বিপদমুক্ত না করে গোলকিপার ফ্রাঙ্কো আরমানি পাস দেন নিকোলাস ওতামেন্দিকে। তিনি ক্লিয়ার করতে না পারায় বিপদেই পড়ে যাচ্ছিল দল। এরপর কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন গিদো রদ্রিগেস।

৫৫তম মিনিটে ভাল সুযোগ পেয়েছিলেন মেসি। প্রতিপক্ষের এক ফুটবলারকে কাটিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে পড়েন তিনি। কিন্তু সময় মতো শট নিতে পারেন নি। তারপর ৬৬তম মিনিটে আরেকটি সুযোগ আসে আর্জেন্টিনার সামনে। ছোট ডি-বক্সে ফাঁকায় বল পেয়েও ঠিক মতো হেড নিদে পারেন নি মেসি!

এরপরের সময়টুকু কলম্বিয়ার। খেলার ৭১তম মিনিটে কাউন্টার অ্যাটাকে গোল তুলে নেয় তারা। জেমস রদ্রিগেসের লম্বা ক্রস থেকে বল পেয়ে ব্যবধাস গড়ে দেন ফরোয়ার্ড মার্টিনেস। তারপর ৮৬তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন সাপাতা। এই ব্যবধান ধরে রেখেই শেষ অব্দি মাঠ ছাড়ে কলম্বিয়া।   

মধ্যরাতে ‘এ’ গ্রুপের ম্যাচে পোর্তো আলেগ্রেতে ভেনেজুয়েলাকে আটকে দিয়েছে পেরু। গোলশূন্য ড্র হয়েছে ম্যাচটি। এরইমধ্যে বলিভিয়াকে ৩-০ গোলে হারিয়ে শুভ সূচনা করেছে নেইমারকে ছাড়া খেলতে নামা ব্রাজিল!

আপনার মতামত লিখুন :

৩৩ জনের মধ্যে ৩২তম বাংলাদেশের সাঁতারু

৩৩ জনের মধ্যে ৩২তম বাংলাদেশের সাঁতারু
সুইমিং পুলে হতাশ করলেন জুনাইনা আহমেদ

বিশ্ব সাঁতার চ্যাম্পিয়নশিপে ব্যর্থতার পথ ধরেই হাঁটছে বাংলাদেশের সাঁতারুরা। জুয়েল আহমেদের পর হতাশ করেছেন জুনাইনা আহমেদ। দেশে সুইমিং পুলে ঝড় তুললেও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সুপার ফ্লপ! ২০০ মিটার ব্যাকস্ট্রোকের হিটে ৩৩ জনের মধ্যে ৩২তম হলেন জুনাইনা।

অথচ লন্ডন প্রবাসী এই সাঁতারু গত জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে আটটি রেকর্ডসহ জেতেন নয়টি সোনার পদক। সেই অপ্রতিরোধ্য জুনাইনার দেখা মিলল না বিশ্ব সাঁতারে।

দক্ষিণ কোরিয়ার গুয়াংজুতে ২০০ মিটারে তিনি সময় নেন ২ মিনিট ৩৪ দশমিক ৯৫ সেকেন্ড। অথচ দেশে ২ মিনিট ৩৪ দশমিক ১৪ সেকেন্ড সময় নিয়ে রেকর্ড গড়েন জুনাইনা।

তারও আগে বিশ্ব সাঁতার চ্যাম্পিয়নশিপে হতাশ করেন দুই সাঁতারু জুয়েল আহমেদ ও আরিফুল ইসলাম। দুজনই হিট থেকেই বিদায় নেন। ১০০ মিটার ব্যাকস্ট্রোকে ১ মিনিট ৫ সেকেন্ড টাইমিংয়ে ৬৩ প্রতিযোগীর মধ্যে জুয়েল হয়েছেন ৬২তম! অথচ তিনি জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে রেকর্ডসহ জেতেন পাঁচটি সোনার পদক।

আবার ১০০ মিটার ব্রেস্টস্ট্রোকে ৮৭ প্রতিযোগীর মধ্যে ৭৮তম হয়েছিলেন বাংলাদেশের আরেক সাঁতারু আরিফুল ইসলাম। ১ মিনিট ৭ দশমিক ৭৪ সেকেন্ড সময় নিয়েছিলেন তিনি। তিনি দেশ থেকে পাঁচটি সোনার পদক জিতে গিয়েছিলেন গুয়াংজুতে!

সোয়া লাখ টাকায় রক্ষা মেসির

সোয়া লাখ টাকায় রক্ষা মেসির
বড় শাস্তি হয়নি লিওনেল মেসির

অল্পতেই রক্ষা পেলেন লিওনেল মেসি। বলা হচ্ছিল দক্ষিণ আমেরিকার ফুটবল নিয়ন্ত্রক সংস্থা কনমেবলকে আক্রমণ করায় দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ হতে পারেন তিনি। অনেকে আবার বলছিলেন আর্জেন্টিনার এই মহা তারকার ক্যারিয়ারটাই শেষ হয়ে যাবে। কিন্তু শেষ অব্দি তেমন কোন শাস্তিই হয়নি মেসির।

কনমেবলকে ‘দুর্নীতিবাজ’ বলার পরও লঘু শাস্তি হলো আর্জেন্টাইন অধিনায়কের। তাকে মাত্র দেড় হাজার ডলার জরিমানা করেছে কনমেবল। বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ১ লাখ ২৭ হাজার টাকা। বিশ্বের অন্যতম ধনী ফুটবলারের জন্যে এটা কোন জরিমানাই নয়!

কোপা আমেরিকার সেমি-ফাইনালে ব্রাজিলের কাছে হারের পর মুখ খুলেছিলেন মেসি। তার দাবী ছিল- স্বাগতিক ব্রাজিলকে শিরোপা জেতাতেই নাকি কাজ করেছে কনমেবল। তৃতীয়স্থান নির্ধারণী ম্যাচে চিলির বিপক্ষে লালকার্ড দেখেন তিনি। এরপর আরো বেশি প্রতিবাদী হয়ে উঠেন মেসি। বলেন কনমেবলের সমালোচনা করাতেই লালকার্ড দেখতে হয়েছে তাকে। এমন কী কোপায় তৃতীয় হওয়ার পদক পর্যন্ত হাতে নেননি মেসি।

এরপরই লাতিন আমেরিকার ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থাকে উদ্দেশ্য করে মেসি বলেন, ‘দেখুন, বাধ্য হয়েই আমি তৃতীয় হওয়ার পুরস্কারটা নেইনি। এমন দুর্নীতিগ্রস্ত আয়োজনের অংশ হতে চাইনি। বলতে আপত্তি নেই আমাদের ফাইনালে যেতে দেওয়া হয়নি। দুর্নীতি, রেফারিং আরও কিছু বিষয়ের জন্য ফুটবল উপভোগ করতে পারে না ভক্তরা।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/24/1563950483885.jpg

মেসির এমন কথার পরই নড়েচড়ে বসে কনমেবল। যদিও বেফাঁস সেই মন্তব্যের জন্য মেসি পর ক্ষমা চান মেসি। আর এ কারণেই অল্পতে রক্ষা। চিলির বিপক্ষে তৃতীয়স্থান নির্ধারণী ম্যাচে লালকার্ড দেখায় এক ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা ছিলই সঙ্গে শুধু মামুলি অঙ্কের জরিমানা যোগ হয়েছে।

এদিকে মেসিকে জরিমানার পাশাপাশি আর্জেন্টিনা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের (এএফএ) প্রধান ক্লদিও তাপিয়াকেও শাস্তি দিয়েছে কনমেবল। ফিফা কাউন্সিল থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে তাকে। তিনিও লাতিন আমেরিকার সর্বোচ্চ সংগঠনটির সমালোচনায় মুখর ছিলেন।

এমন লঘু শাস্তিতে নিশ্চয়ই স্বস্তি পাবেন পাঁচবারের ‘ব্যালন ডি'অর’ মেসি। তার চোখ এখন ২০২২ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে। তবে সেই লড়াই শুরু হবে ২০২০ সালের মার্চে। অন্যদিকে লা লিগা মৌসুমও শুরু হয়নি। তাইতো বন্ধু আর পরিবারের মানুষদের নিয়ে এখন ছুটি কাটাচ্ছেন লিওনেল মেসি!

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র