Alexa

খেলাধুলায় কমল ৩১ কোটি টাকা

খেলাধুলায় কমল ৩১ কোটি টাকা

ছবি: বার্তা২৪

ক্রীড়াঙ্গনের জন্য সুসংবাদ নিয়ে আসতে পারেনি ২০১৯-২০ অর্থবছরের পেশকৃত বাজেট। গত অর্থ বছরের চেয়ে এবার ক্রীড়াখাতে বরাদ্দ কমেছে।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) বিকেলে প্রস্তাবিত বাজেটে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের জন্য বরাদ্দ হয়েছে ১ হাজার ৪৮৮ কোটি টাকা। এর আগে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এ খাতে সংশোধিত বাজেট দাঁড়ায় ১ হাজার ৫১৯ কোটি টাকা। যারে গত অর্থ বছরের তুলনায় কমল ৩১ কোটি টাকা।

যদিও নতুন অর্থ বছরে ব্যস্ত সময় কাটবে ক্রীড়াঙ্গনের। ২০২০ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী। এরইমধ্যে আগামী বছরটিকে ‘মুজিববর্ষ’ হিসেবে ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বছরব্যাপী নানা আয়োজনে উদযাপন করা হবে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী। যারমধ্যে থাকবে খেলাধুলাও। এজন্য বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) জন্য আলাদা করে ২০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। যদিও তারা চেয়েছিল ৬০ কোটি টাকা।

২০১৯-২০ অর্থবছরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের জন্য করা বাজেট ব্যয় হবে যেসব খাতে, তা বার্তা২৪.কম-এর পাঠকদের জন্য দেওয়া হলো

ক. নাটোর ও গাইবান্ধা জেলা সদরে ইনডোর স্টেডিয়াম নির্মাণ প্রকল্প
খ. ঢাকাস্থ রমনা এবং রাজশাহী জাফর ইমাম টেনিস কমপ্লেক্সের সংস্কার ও উন্নয়ন প্রকল্প
গ. শেরপুর শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি স্টেডিয়াম উন্নয়ন এবং ইনডোর স্টেডিয়াম নির্মাণ প্রকল্প
ঘ. সিলেট বিভাগীয় ক্রিকেট কমপ্লেক্সের আউটার স্টেডিয়ামের উন্নয়ন এবং মাগুরা বীর মুক্তিযোদ্ধা আছাদুজ্জামান আউটার স্টেডিয়াম উন্নয়নসহ জাতির পিতার মুর‌্যাল স্থাপন প্রকল্প
ঙ. নেত্রকোনা জেলা সদরে ইনডোর স্টেডিয়াম, খেলোয়াড়দের জন্য ডরমিটরি ভবন নির্মাণ এবং বিদ্যমান টেনিস কমপ্লেক্সের উন্নয়ন প্রকল্প
চ. ঢাকাস্থ পল্টন কাবাডি ও ভলিবল স্টেডিয়ামের সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধিসহ উন্নয়ন প্রকল্প
ছ. বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আওতায় চট্টগ্রাম ও রাজশাহীতে ক্রীড়া স্কুল প্রতিষ্ঠা প্রকল্প
জ. বিকেএসপি’র প্রমিলা প্রশিক্ষণার্থীদের ক্রীড়ার মান উন্নয়ন প্রকল্প

যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের মূল কার্যাবলির মধ্যে রয়েছে-দেশের ক্রীড়াক্ষেত্রে সামাজিক নিরাপত্তা সম্প্রসারণ এবং ক্রীড়াবিদদের সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধি। ক্রীড়া সংগঠকদের জন্যও থাকছে অনুদান। থাকবে ক্রীড়াস্থাপনা নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ। ক্রীড়া পুরস্কার প্রদান এবং দুস্থ ক্রীড়াবিদদের জন্য কল্যাণ ভাতার ব্যবস্থাও থাকছে নতুন অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজটে।

একইসঙ্গে মুজিববর্ষ উপলক্ষে দেশের তৃণমূল পর্যায়ে খেলাধুলায় পরিবর্তন আনতে ব্যয় হবে অর্থ।

সংসদ ভবনে প্রস্তাবিত বাজেটে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা। এর মধ্যে উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছে ২ লাখ ১১ হাজার ৬৮৩ কোটি টাকা। আর পরিচালন ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ লাখ ১০ হাজার ২৬২ কোটি টাকা। যা মোট জিডিপির ৫ শতাংশ।

টাকার অংকে বর্তমানে দেশের মোট জিডিপির পরিমাণ ২৮ লাখ ৮৫ হাজার ৮৭২ কোটি টাকা। এটিই দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় আকারের বাজেট।

আপনার মতামত লিখুন :