Alexa

শেষের বোলিংয়ে জিতল অস্ট্রেলিয়া, হারল ইংল্যান্ড

শেষের বোলিংয়ে জিতল অস্ট্রেলিয়া, হারল ইংল্যান্ড

প্রস্তুতি ম্যাচে স্টিভেন স্মিথের ব্যাটে শতরান

শেষ ১৮ বলে ম্যাচ জিততে চাই ২৪ রান। হাতে জমা ৩ উইকেট। দুই ব্যাটসম্যানই উইকেটে জমে গেছেন। কিন্তু সেই ম্যাচও জিততে পারলো না ইংল্যান্ড। মাঝে এতো ভালো ব্যাটিং করেও শেষে এসে ভজঘট বাঁধিয়ে ফেললো তারা। শেষ অংশে অস্ট্রেলিয়া বুদ্ধিদীপ্ত বোলিংয়ে প্রস্তুতি ম্যাচটা জিতলো ১২ রানে।

অস্ট্রেলিয়ার ২৯৭ রান তাড়া করতে নেমে ইংল্যান্ডের শুরুটা ভালো হয়নি। কিন্তু মিডল অর্ডারে তাদের ব্যাটিং সেই সমস্যা কেটে গেলো। ভিন্স করলেন ৭৬ বলে ৬৪ রান। জস বাটলার যথারীতি মারকুটো ভঙ্গিতে করলেন ৩১ বলে ৫২। ৩ ছক্কা ও ৫ বাউন্ডারি হাঁকালেন। মঈন আলী যে কায়দায় আউট হলেন তাকে বলে উইকেট বিলিয়ে দিয়ে আসা। ক্রিস ওকস এই ম্যাচে শুধুমাত্র ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলে দলকে জয়ের কাছে পৌছে দিয়েছিলেন। কিন্তু ৪৪ বলে ৪০ করে তার রানআউটই ম্যাচ থেকে ইংল্যান্ডকে ছিটকে ফেলে। 

শেষের সহজ হিসেব আর মেলাতে পারেনি তারা। দুই অস্ট্রেলীয় বোলার মার্কোস স্টয়নিস ও কেন রিচার্ডসন শেষের হিসেবি বোলিংয়ে অস্ট্রেলিয়াকে জয় এনে দেন।

সাউদাম্পটনে ম্যাচের প্রথমভাগে ব্যাট হাতে শাসন করেন স্টিভ স্মিথ। প্রথম প্রস্ততি ম্যাচেও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হাফসেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি। এবার ইংল্যান্ডের বিপক্ষে করলেন সেঞ্চুরি। তার ১০২ বলের ১১৬ রানের ইনিংস অস্ট্রেলিয়াকে ২৯৭ রানের বড় সঞ্চয় এনে দিলো। দলের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান আসে ডেভিড ওয়ার্নারের ব্যাট  থেকে। ৫৫ বলে ৪৩ রান করেন অস্ট্রেলীয় এই ওপেনার।

ইংলিশ পেসার লিয়াম প্লাঙ্কেট রান খরুচে হলেও চার উইকেট শিকার করেন। ৯ ওভারে ৬৯ রানে পান ৪ উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: অস্ট্রেলিয়া ২৯৭/৯ (৫০ ওভারে, ওয়ার্নার ৪৩, স্মিথ ১১৬, প্লাঙ্কেট ৪/৬৯)। ইংল্যান্ড: ২৮৫/১০ (৪৯.৩ ওভারে, ভিন্স ৬৪, বাটলার ৫২, ওকস ৪০, রিচার্ডসন ২/৫১, বেহরেনড্রফ ২/৪৩)। ফল: অস্ট্রেলিয়া ১২ রানে জয়ী।

আপনার মতামত লিখুন :