Alexa

জোফরা আর্চার কে এবং কেন তিনি স্পেশাল?

জোফরা আর্চার কে এবং কেন তিনি স্পেশাল?

জন্ম ওয়েস্ট ইন্ডিজে, কিন্তু ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ দলে জোফরা আর্চার

পুরো নাম জোফরা চিওকে আর্চার। জন্মেছেন বার্বাডোজের ব্রিজটাউনে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ অনুর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে খেলেছেন ২০১৩ সালে। এবারের বিশ্বকাপে খেলবেন ইংল্যান্ডের হয়ে।

সাধারণত কোনো বিদেশি সাতবছর ইংল্যান্ডে বসবাস করার পরই সেদেশের হয়ে খেলার সুযোগ পান। কিন্তু ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি) সম্প্রতি সেই সময়টা তিন বছরে নিয়ে এসেছে। সুযোগটা দারুণ কাজে লেগেছে  আর্চারের।

৩ মে ইংল্যান্ডের হয়ে ওয়ানডেতে অভিষেক হয়েছে তার। এখন পর্যন্ত খেলেছেন মাত্র তিনটি ওয়ানডে ও একটি টি-টুয়েন্টি। অথচ সেই তাকেই বিশ্বকাপ দলে নেয়ার জন্য গোটা ইংল্যান্ডে এমন কোনো জায়গা নেই যে যেখান থেকে দাবি উঠেনি। সাবেক ইংলিশ অধিনায়ক ডেভিড গাওয়ার থেকে শুরু করে এই সময়কার প্রায় সব ক্রিকেটার জোসেফ আর্চারকে ইংল্যান্ড দলে নেয়ার জন্য বেশ জোরেসোরেই দাবি তুলেন।

এই শ্লোগানে সম্ভবত সবাইকে ছাড়িয়ে গেলেন ইংল্যান্ডের সাবেক অলরাউন্ডার অ্যান্ড্রু ফ্লিনটফ। তিনি এক সাক্ষাতকারে বলেন-‘জোসেফ আর্চারকে সঙ্গে রেখে বাকি যে কোনো দশজনকে নিয়ে ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ দল গড়া যেতে পারে!’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/21/1558452824894.jpg

শেষপর্যন্ত সেই দাবির মুখে পড়ে ইংল্যান্ড তাদের বিশ্বকাপ দলে বদল আনে। বিশ্বকাপের প্রাথমিক দলে ছিলেন না আর্চার। চুড়ান্ত দলে সেই তিনি ঠিকই জায়গা করে নিলেন। তাকে জায়গা দিতে গিয়ে অভিজ্ঞ ডেভিড উইলিকে বাদ দিয়েছে ইংল্যান্ড। যে ডেভিড উইলি চার বছর ধরে খেলছেন ইংল্যান্ড দলে। ৪৬টি ওয়ানডে খেলার অভিজ্ঞতা আছে যার। উইকেট শিকারের সংখ্যা ৫২টি।

আর্চারের মধ্যে কি এমন বিশেষ কিছু দেখতে পেয়েছেন ক্রিকেটবোদ্ধারা জানি সেই প্রসঙ্গে। মুলত ইংল্যান্ডের ঘরোয়া ক্রিকেটে সাসেক্সের হয়ে খেলে প্রথম নজরে আসেন আর্চার। তারপর বিগব্যাশ এবং ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটে খেলে ভালো পরিচিতি পান তিনি। পারফেক্ট অলরাউন্ডার আর্চার। একহারা অ্যাথলিট শরীর। ফিল্ডিংয়েও চোস্ত। সঠিক লাইন ও লেন্থে বল রেখে ব্যাটসম্যানকে নাস্তানাবুদ করার দক্ষতা আছে তার। উইকেট শিকারি বোলার। এক্সপ্রেস গতি আছে। সঙ্গে নিশানাও নিখুঁত! ব্যাটসম্যানের গোড়ালিতে ইয়র্কার করতে পারেন। আর্ন্তজাতিক ক্রিকেট খুব বেশি খেলা হয়নি তার। অথচ তাকে নিয়ে যেভাবে আগাম শোরগোল হচ্ছে সেই চাপ কতটুকু নিতে পারেন এই ২৪ বছর বয়সী তরুণ-সেই আশঙ্কাও থাকছে।

তবে এখন পর্যন্ত ক্রিকেটের ভীষণ সুবোধ এবং জিনিয়াস ছাত্র হিসেবেই মর্যাদা পাচ্ছেন জোসেফ আর্চার।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/21/1558452843519.jpg

আইপিএলে টানা দুই মৌসুম রাজস্থান রয়েলসের হয়ে খেলেছেন জোসেফ আর্চার। খুব যে পারফরমেন্স আহামরি ঘরানার তাও কিন্তু নয়। রাজস্থানের হয়ে ২১ ম্যাচে উইকেট পেয়েছেন ২৬টি।

তাকে নিয়ে রাজস্থান রয়েলসের তার তার সতীর্থ লিয়াম লিভিংস্টোন বলেছেন-‘আমি একাদশে তার নামটা সবার আগে লিখে দল গড়বো। জোফরা জিনিয়াস ক্রিকেটার। এখনো সে তার সম্ভাবনার পুরোটা দেখাতে পারেনি। আশা করছি সামনের তিন বছরে সে যদি বিশ্বের সেরা ক্রিকেটার হয়, তবে মোটেও অবাক হওয়ার কিছু নেই! ক্লান্তিহীন ভাবে যে ৯৩ থেকে ৯৫ মাইল বেগে বোলিং করে যেতে পারে। বলের লাইন ও লেন্থের ওপর তার নিয়ন্ত্রণ চমৎকার। ব্যাটিংও ভালো জানে। পুরোদুস্তর পারফেক্ট ক্রিকেটার আর্চার।’

বার্বাডোজে জোসেফ আর্চারের কোচ ছিলেন হ্যামো উইন। উইন জানাচ্ছেন-‘ সে ইংল্যান্ডে তার ক্যারিয়ার গড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তার এই সিদ্ধান্তকে আমি সন্মান জানাই। আমি বলে রাখছি বিশ্বকাপে আমি তার একটা বলও মিস করবো না। তার করা প্রতিটি ডেলিভারি দেখবো আমি। এই পর্যায়ের একজন ক্রিকেটার আমার কোচিংয়ে ছিলো এটা ভাবতেই গর্ব হচ্ছে।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/21/1558452866778.jpg

সাসেক্সে আর্চারের বোলিং কোচ জন লুইস কি বলছেন শুনি তা-‘গতি এবং নিখুঁত নিশানার এমন বোলার পাওয়ার সত্যিই ভাগ্যের ব্যাপার। তার কাঁধের যে গতি সেটাই তার বোলিংয়ের বিশেষত্ব। সে যখন হাঁটু উচু করে দৌড়াতে শুরু করে আমার তখন কার্টলি অ্যামব্রোসের বোলিং অ্যাকশনের কথা মনে পড়ে যায়। অ্যামব্রোসের সেই প্রভাবী বোলিংয়ের ছায়াটা আমি দেখতে পাই তার মধ্যে।’

মুলত ওয়ানডে ক্রিকেট থেকে টি-টুয়েন্টিই এখন পর্যন্ত বেশি খেলেছেন জোফরা আর্চার। তিনটি আর্ন্তজাতিক ওয়ানডে ক্রিকেটে বোলিং করেছেন মাত্র ২২ ওভার। উইকেট শিকার তিনটি।

-তো মানিয়ে নিতে সমস্যা হবে না ওয়ানডেতে?

আর্চার স্মিত হাসলেন। বললেন-‘আমার মতো মনে হয় ওয়ানডেতে সুযোগ আরো বেশি। টি-টুয়েন্টিতে ৪ ওভার বল করতাম। ওয়ানডেতে আরো ৬ ওভার বেশি বোলিংয়ের সুযোগ পাবো। বেশি উইকেট নেয়ার সুযোগও থাকবে।’

পারফেক্ট ইয়র্কার, এই কথার লড়াইয়েও!

আপনার মতামত লিখুন :