Barta24

রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

English

মুখোমুখি চেলসি-আর্সেনাল

ইউরোপাতেও অল ইংল্যান্ড ফাইনাল

ইউরোপাতেও অল ইংল্যান্ড ফাইনাল
চেলসি তারকাদের গোল উদযাপন
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের মতো ইউরোপাতেও অল ইংল্যান্ড ফাইনাল। ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবলের দ্বিতীয় সারির এই টুর্নামেন্টে শিরোপার জন্য লড়বে প্রিমিয়ার লিগের দুই জায়ান্ট চেলসি ও আর্সেনাল। বৃহস্পতিবার আইনট্রাখটকে হারিয়ে ফাইনালে উঠে এসেছে চেলসি। আরেক সেমি-ফাইনালে ভ্যালেন্সিয়াকে চমকে দিয়ে শিরোপা লড়াইয়ে আর্সেনাল।

বেশ জমে উঠেছিল চেলসি আর আইনট্রাখটকের লড়াই। প্রথম লেগের পর দ্বিতীয় লেগ ম্যাচটিও ১-১ গোলে ড্র। শেষ অব্দি খেলা গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে। আর সেখানেই বাজিমাত অলব্লুজদের। ৪-৩ গোলের জয়ে ফাইনালে পা রাখে চেলসি।

বৃহস্পতিবার রাতে আরেক সেমি-ফাইনালে ভালেন্সিয়ার বিপক্ষে দুর্দান্ত এক হ্যাটট্রিকে পিয়েরে-এমেরিক আউবামেয়াংয়ের আর্সেনালকে এনে দেন স্বস্তির জয়। ফিরতি পর্বে ৪-২ গোলে জিতে তারা। আর দুই লেগ মিলিয়ে ৭-৩ ব্যবধানে এগিয়ে থেকে ফাইনালের টিকিট পেল গানাররা। এর আগে নিজেদের মাঠে প্রথম লেগে ৩-১ গোলে জিতে মাঠ ছাড়ে তারা।

ইউরোপিয়ান ফুটবলে এবার বিস্ময়কর ঘটনাই ঘটল। ১৯৭২ সালের পর এবারই প্রথম ক্লাব ফুটবলে ইউরোপের শীর্ষ দুই প্রতিযোগিতাতেই ‘অল ইংলিশ’ ফাইনাল দেখা যাবে। ১ জুন মাদ্রিদের উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে লড়বে লিভারপুল ও টটেনহ্যাম হটস্পার। বার্সেলোনাকে দ্বিতীয় লেগে উড়িয়ে ফাইনালের টিকিট পেয়েছে লিভারপুল। আর আয়াক্সের স্বপ্ন ভেঙে শিরোপা লড়াইয়ে পা রেখেছে টটেনহ্যাম।

আর ২৯ মে আজারবাইজানের বাকুতে ইউরোপা লিগের ফাইনালে চেলসির প্রতিপক্ষ আরেক ইংলিশ ক্লাব আর্সেনাল।

ইউরোপিয়ান ফুটবলে এবার বিস্ময়কর ঘটনাই ঘটল। ১৯৭২ সালের পর এবারই প্রথম ক্লাব ফুটবলে ইউরোপের শীর্ষ দুই প্রতিযোগিতাতেই ‘অল ইংলিশ’ ফাইনাল দেখা যাবে। ১ জুন মাদ্রিদের উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে লড়বে লিভারপুল ও টটেনহ্যাম হটস্পার। বার্সেলোনাকে দ্বিতীয় লেগে উড়িয়ে ফাইনালের টিকিট পেয়েছে লিভারপুল। আর আয়াক্সের স্বপ্ন ভেঙে শিরোপা লড়াইয়ে পা রেখেছে টটেনহ্যাম।

আর ২৯ মে আজারবাইজানের বাকুতে ইউরোপা লিগের ফাইনালে চেলসিের প্রতিপক্ষ আরেক ইংলিশ ক্লাব আর্সেনাল।

স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে নিজেদের মাঠে খেলার ২৮তম মিনিটে লিড নেয় চেলসি। ইডেন হ্যাজার্ডের পাসে নিশানা খুঁজে নেন রুবেন লোফ্টাস-চিক (১-০)। তবে দ্বিতীয়ার্ধে আইনট্রাখটক ফ্রাঙ্কফুর্টকে ম্যাচে ফেরান লুকা ইয়োভিচ। শেষ অব্দি দুই লেগ মিলে স্কোর ২-২! অতিরিক্ত সময়েও গোলের দেখা মেলেনি। তারপর টাইব্রেকারে ম্যাচ জিতে নেয় চেলসি।

অন্যদিকে প্রথম লেগে জিতে এগিয়ে থেকে মাঠে নেমেছিল আর্সেনাল। দ্বিতীয় লেগে অবশ্য শুরুতে এগিয়ে যায় স্প্যানিশ ক্লাব ভালেন্সিয়া। কেভিন গামেইরোর গোলে এগিয়ে যায় তারা। কিন্তু এরপরের সময়টুকু আউবামেয়াংয়ের। দুর্দান্ত ফুটবলের পসরা সাজিয়ে হ্যাটট্রিক আদায় করে নেন তিনি। ফর্মে থাকা গ্যাবনের এই তারকার এ মৌসুমে এটি ২৯ নম্বর গোল।

আপনার মতামত লিখুন :

দুর্দান্ত জয়ে লা লিগা শুরু রিয়ালের

দুর্দান্ত জয়ে লা লিগা শুরু রিয়ালের
জয় দিয়েই এবারের লা লিগা মিশন শুরু হয়েছে রিয়াল মাদ্রিদের

নতুন মৌসুমে এরচেয়ে ভাল শুরু বুঝি আর হতেই পারতো না! স্প্যানিশ লা লিগায় শুরুতেই অনায়াস জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ল রিয়াল মাদ্রিদ। শনিবার সেল্টা ভিগোকে উড়িয়ে পথচলা শুরু হলো জিনেদিন জিদানের দলের। আগের দিনই অবশ্য আথলেতিক বিলবাওয়ের কাছে লা লিগা মিশন শুরু হয় চ্যাম্পিয়ন বার্সেলোনার।

এবারের লা লিগায় নিজেদের প্রথম ম্যাচে ৩-১ গোলে জয় তুলে নিয়েছে রিয়াল। ম্যাচে দলটির হয়ে গোল তিনটি করেন করিম বেনজেমা, টনি ক্রুস ও লুকাস ভাসকেস।

তবে এই জয়েও লেগে আছে কলঙ্ক। লালকার্ড দেখে এদিন মাঠ ছাড়েন রিয়াল তারকা লুকা মডরিচ। যদিও দশজন নিয়ে খেললেও তেমন সমস্যা হয়নি তাদের।

খেলার ১২তম মিনিটেই এগিয়ে যায় রিয়াল মাদ্রিদ। গ্যারেথ বেলের ক্রস থেকে বল পেয়ে ব্যবধান গড়ে দেন বেনজেমা। প্রথমার্ধেই মডরিচের গোলে আরও এগিয়ে যেতে পারতো সাবেক চ্যাম্পিয়নরা। কিন্তু তাকে সফল হতে দেননি সেল্টা ভিগোর গোলকিপার রুবেন ব্লানকো।

এরইমধ্যে স্রোতের বিপরীতে রিয়ালের জালে বলও পাঠিয়ে দেয় সেল্টা। যদিও ইয়াগো আসপাসের সেই গোল ভিএআর প্রযুক্তিতে বাতিল হয়ে যায়। খেলার ৫৬তম মিনিটে এসে দশজনের দল হয়ে যায় রিয়াল। প্রতিপক্ষের ফুটবলার দেনিস সুয়ারেসের পায়ে পিছন থেকে আঘাত করেন লুকা মডরিচ। এরপরই ভিএআর প্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে রেফারি লালকার্ড দেখান মরডিচকে। প্রথমবারের মতো লা লিগায় লালকার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন এই তারকা ফুটবলার।

তারপরও দাপুটে ফুটবল থেকে সরে যায়নি রিয়াল। ৬১তম মিনিটে দলকে আরও এগিয়ে দেন টনি ক্রুস। এরপর ৮০তম মিনিটে বেনজেমার পাস থেকে বল পেয়ে গোল তুলে নেন ভাসকেস (৩-০)। তবে এই ব্যবধান নিয়ে মাঠ ছাড়া হয়নি রিয়ালের। ইনজুরি সময়ে ইকের লোসাদা গোলে কিছুটা হলেও স্বস্তি নিয়ে মাঠ ছাড়ে সেল্টা ভিগো।

লিভারপুলের জয়ের দিনে সিটির ড্র

লিভারপুলের জয়ের দিনে সিটির ড্র
গোল বাতিল হওয়াটা যেন মেনে নিতে পারছেন না জেসুস, ছবি: সংগৃহীত

নিজেদের উদ্বোধনী ম্যাচেই কী দুর্দান্ত পারফরম্যান্সই না উপহার দিয়েছিল ম্যানচেস্টার সিটি। ওয়েস্ট হ্যাম ইউনাইটেডকে রীতিমতো উড়িয়ে দিয়েছিল ৫-০ গোলে। কিন্তু ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচেই হোঁচট খেলো কোচ পেপ গার্দিওলার দল। ঘরের মাঠে তারা ২-২ গোলে ড্র করেছে টটেনহ্যাম হটস্পারের সঙ্গে। তবে সাউদ্যাম্পটনকে ২-১ গোলে হারিয়ে জয়ের ধারায় রয়ে গেল ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন লিভারপুল।

ইতিহাদ স্টেডিয়ামে শনিবার রাতে ম্যাচের ২০তম মিনিটেই সিটিকে এগিয়ে দেন রাহিম স্টারলিং। কিন্তু মিনিট তিনেক বাদেই গোল শোধ করে দেন টটেনহ্যামের এরিক লামেলা।

৩৫তম মিনিটে আর্জেন্টাইন তারকা সার্জিও আগুয়েরো ফের স্বাগতিকদের লিড এনে দেন। কিন্তু ৫৬ মিনিটে লুকাস স্পার শিবিরকে সমতায় ফেরান।

জয়সূচক গোল অবশ্য পেয়ে গিয়েছিল বর্তমান চ্যাম্পিয়ন সিটি। ইনজুরি টাইমে গ্যাব্রিয়েল জেসুস প্রতিপক্ষ টটেনহ্যামের বিশ্বকাপ জয়ী ফরাসি গোলরক্ষক হুগো লরিসের চোখ ফাঁকি দেন নির্ভুল নিশানায়। কিন্তু ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারি (ভিএআর) ব্রাজিলিয়ান তারকার গোলটি বাতিল করে দেন।

কারণ জালে জায়গা করে নেওয়ার আগে বল ছুঁয়ে যায় সিটির সেন্টার ব্যাক আইমেরিক লাপোর্তের হাত। এনিয়ে অবশ্য কোনো আপত্তি নেই কোচ গার্দিওলার। তাই ম্যাচ শেষে জানিয়ে দেন, ‘আমরা ভিএআর সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছি।’

রাতের অন্য ম্যাচে প্রথমার্থের ইনজুরি টাইমে (৪৫+১ মিনিটে) অতিথি লিভারপুলের প্লেমেকার সাদিও মানে গ্যালারির নিরবতা ভাঙেন। ৭১ মিনিটে গোল ব্যবধান দ্বিগুণ করেন রবার্তো ফিরমিনো।

ম্যাচ শেষ হওয়ার ৭ মিনিট আগে স্বাগতিক সাউদ্যাম্পটনের হয়ে একটি গোল শোধ করেন ড্যানি ইংস।

 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র