Alexa

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে অল ইংল্যান্ড ফাইনাল

মউরার হ্যাটট্রিকে ফাইনালে টটেনহ্যাম

মউরার হ্যাটট্রিকে ফাইনালে টটেনহ্যাম

গোলের আনন্দে ভাসছে টটেনহ্যামের ফুটবলাররা

লিভারপুলের পর এবার উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে নতুন বিস্ময়ের জন্ম দিলো টটেনহ্যাম হটস্পার। প্রথম লেগে হারের ধাক্কাই নয়, ফিরতি পর্বে ০-২ গোলে পিছিয়ে পড়ে খেলল স্বপ্নের ফুটবল। আয়াক্সের স্বপ্ন ভেঙে ইংলিশ জায়ান্টরা তুলে নিয়েছে অসাধারণ এক জয়। আর এই জয়ের নায়ক লুকাস মউরা। তার হ্যাটট্রিকেই প্রথমবারের মতো ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবলের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ টুর্নামেন্টের ফাইনালে পা রাখল টটেনহ্যাম।

বুধবার রাতে ইয়োহান ক্রুইফ অ্যারেনায় সেমি-ফাইনালের দ্বিতীয় লেগে ৩-২ গোলে জেতে ইংলিশ জায়ান্টরা। প্রথম পর্বে টটেনহ্যামের মাঠে ১-০ গোলে জয়েও শেষ রক্ষা হলো না আয়াক্সের। অ্যাওয়ে গোলে এগিয়ে থেকে ফাইনালে ওঠে গেল মাওরিসিও পচেত্তিনোর দল।

এর অর্থ এবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শিরোপা পাচ্ছে কোন ইংলিশ ক্লাব। আগের দিনই বার্সেলোনাকে উড়িয়ে ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করেছে লিভারপুল।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/09/1557354845639.jpg

আগামী ১ জুন মাদ্রিদের ওয়ান্দা মেট্রোপলিটনে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনাল। অল ইংল্যান্ড শিরোপা লড়াইয়ে মুখোমুখি হবে প্রিমিয়ার লিগের দুই ক্লাব লিভারপুল ও টটেনহ্যাম হটস্পার।

২০০৭-০৮ মৌসুমে অল ইংল্যান্ড ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও চেলসি।

বুধবার রাতে খেলার প্রথমার্ধ দেখে আঁচ করা যায়নি এমন বিস্ময় অপেক্ষায় আছে। দুর্দান্ত ফুটবলের ধারাবাহিকতা ধরে রেখেই খেলে যাচ্ছিল আয়াক্স। নেদারল্যান্ডসের ক্লাবটি ৫ মিনিটেই এগিয়ে যায়। নিজেদের মাঠে দর্শকদের আনন্দে ভাসিয়ে গোলটি করেন মাতাইস দি লিট। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসে চতুর্থ টিনএজার হিসেবে গোল পেলেন তিনি। এর আগে কোয়ার্টার-ফাইনালের জুভেন্টাস বধের অন্যতম নায়কও ছিলেন এই তরুণ ফুটবলার।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/09/1557354876971.jpg

ম্যাচের ৩৫তম মিনিটে আরো এগিয়ে যায় আয়াক্স। হাকিম জাইয়েকের গোলে মনে হচ্ছিল ফাইনালে পা রাখবে ডাচ ক্লাবটি। কেননা, দুই লেগ মিলিয়ে তখন ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় তারা। কিন্তু রোমাঞ্চ ছড়ানো রাতে যে তখনো অনেক গল্প বাকী!

১৯৯৪-৯৫ মৌসুমের চ্যাম্পিয়ন আয়াক্সও নিশ্চয়ই ভাবতে পারেনি দ্বিতীয়ার্ধে হিসাবের ছক এভাবে উল্টে যাবে!

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/09/1557354899118.jpg

৫৫তম মিনিটে এসে প্রথম গোলের দেখা পায় টটেনহ্যাম। ডেলে আলি পাস থেকে গোল করেন মউরা। চার মিনিট না যেতেই আবারও গোল! দলের ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার মউরা তুলে নেন তার দ্বিতীয় গোল। অবশ্য ৭৯তম মিনিটে এগিয়ে যেতে পারতো আয়াক্স। কিন্তু ইয়ান ভার্টোনেনের হেড পোস্টে লাগার পর ফিরতি বলে দারুণ শট নেন তিনি। কিন্তু গোললাইন থেকে ফিরে আসে বল!

ইনজুরি সময়ে এসে সর্বনাশ হয় আয়াক্সের। সেই ডেলে আলি পাস থেকে বল পেয়ে হ্যাটট্রিক করেন মউরা। আর শেষ বাঁশি বাজতেই দল মেতে ওঠে স্বপ্নপূরণের আনন্দে! ইতিহাসে এবারই যে প্রথম ‘স্পার্স’রা পেলো চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালের টিকিট!

রূপকথার এক জয়ে সেরা মঞ্চের সেরা ম্যাচটিতে পা রাখল টটেনহ্যাম হটস্পার! যেখানে তাদের অপেক্ষায় প্রিমিয়ার লিগের আরেক দল লিভারপুল!



আপনার মতামত লিখুন :