Barta24

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

কোহলির ম্যাচে নাটকীয় জয় ভারতের

কোহলির ম্যাচে নাটকীয় জয় ভারতের
বোলারদের দুর্দান্ত নৈপুন্যে দারুণ জয় ভারতের
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

জয়ের সম্ভাবনা জাগিয়েও শেষ পর্যন্ত হতাশা নিয়েই মাঠ ছাড়তে হলো অস্ট্রেলিয়াকে। ব্যাট হাতে রেকর্ড গড়া বিরাট কোহলিকে ছাপিয়ে শেষের নায়ক বিজয় শঙ্কর। শেষ ওভারে দুর্দান্ত বল করে ভারতকে নাটকীয় এক জয় এনে দিয়েছেন এই অলরাউন্ডার।

মঙ্গলবার নাগপুরে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ৮ রানে জয় তুলে নিয়েছে স্বাগতিকরা। এই জয়ে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেলো বিরাট কোহলির দল।

যদিও ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ভারত সংগ্রহ করে ২৫০ রান। ক্যারিয়ারের ৪০তম ওয়ানডে সেঞ্চুরি তুলে নেন বিরাট কোহলি। এরপর জবাবে নেমে ২৪২ রানে অলআউট অস্ট্রেলিয়া।

যদিও একটা সময় মনে হচ্ছিল জয়ের পথেই আছে অজিরা। এমন কী শেষ ওভারেও জিততে পারতো অতিথিরা। ৬ বলে ১১ রান করার সুযোগটা কাজে লাগাতে পারলেন মার্কাস স্টয়নিজ ও অ্যাডাম জাম্পা। তাদের ফিরিয়ে দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যান শঙ্কর।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Mar/05/1551807958218.jpg

ভারতের হয়ে ব্যাট হাতে অবশ্য নাগপুরের বিদর্ভ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে একাই লড়লেন কোহলি। টস হেরে নেমে শূন্য রানে ফেরেন রোহিত শর্মা। হতাশা সঙ্গী করে মাঠ ছাড়েন শিখর ধাওয়ান ও অম্বাতি রায়ডুও। এরপরই কোহলি ও শঙ্কর পথ দেখান দলে।

৮১ রানের জুটি গড়ে ফেরেন শঙ্কর। ৪১ বলে ৪৬ রান করেন তিনি। তার পিছু নিতে দেরি করলেন না কেদার যাদব ও মহেন্দ্র সিং ধোনি। এরপর রবীন্দ্র জাদেজাকে নিয়ে লড়েন কোহলি। শেষ অব্দি ১২০ বলে ১১৬ রানে করে সাজঘরের পথ ধরেন কোহলি।

এই ইনিংস খেলার পথে অধিনায়ক হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দ্রুততম ৯ হাজার রানের রেকর্ড গড়েন কোহলি। ষষ্ঠ অধিনায়ক হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৯ হাজার রান ক্লাবে যোগ দিয়েছেন তিনি। ১৫৯ ইনিংসে এই অর্জন যোগ হলো তার নামের পাশে। অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক রিকি পন্টিং ২০৩ ইনিংসে ৯ হাজার রান ক্লাবে পা রেখে রেকর্ড গড়েছিলেন। তাকে পেছনে ফেললেন কোহলি।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Mar/05/1551807991453.jpg

অস্ট্রেলিয়ার প্যাট কামিন্স ২৯ রানে শিকার করেন ৪ উইকেট।

জবাবে নেমে ৮৩ রানের উদ্বোধনী জুটি গড়েন অ্যারন ফিঞ্চ ও উসমান খাজা। মনে হচ্ছিল ম্যাচটি জিতে সিরিজে সমতা আনবে অজিরা। ৫৩ বলে ৩৭ রান করে ফেরেন ফিঞ্চকে। ৩৭ বলে ৬ চারে ৩৮ রান করা খাজাকে আউট করেন কেদার যাদব। এরপর শন মার্শ ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল দ্রুত ফিরলে চাপে পড়ে সফরকারীরা।

তবে পিটার হ্যান্ডসকম লড়ে যাচ্ছিলেন। ৪৮ রান থামেন তিনি। এরমধ্যে স্টয়নিস সামাল দিচ্ছিলেন পরিস্থিতি। কিন্তু শঙ্করের বুদ্ধিমত্তার কাছে হার মানেন তিনি। ৬৫ বলে ৫২ রান করে ফেরেন স্টয়নিস।

কুলদীপ ৫৪ রানে শিকার করেন ৩ উইকেট। জাসপ্রিত বুমরাহ ও শঙ্কর নেন দুটি করে উইকেট। সিরিজে ২-০তে এগিয়ে থাকা ভারত শুক্রবার তৃতীয় ওয়ানডেতে লড়বে অজিদের সঙ্গে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর-

ভারত: ৪৮.২ ওভারে ২৫০/১০ (রোহিত ০, ধাওয়ান ২১, কোহলি ১১৬, রায়ডু ১৮, শঙ্কর ৪৬, কেদার ১১, ধোনি ০, জাদেজা ২১, কুলদীপ ৩, শামি ২* বুমরাহ ০; কামিন্স ৪/২৯, কোল্টার-নাইল ১/৫২, ম্যাক্সওয়েল ১/৪৫, জ্যাম্পা ২/৬২, লায়ন ১/৪২)
অস্ট্রেলিয়া: ৪৯.৩ ওভারে ২৪২ (ফিঞ্চ ৩৭, খাজা ৩৮, মার্শ ১৬, হ্যান্ডসকম ৪৮, ম্যাক্সেওয়েল ৪, স্টয়নিস ৫২, কেয়ারি ২২, কোল্টার-নাইল ৪, কামিন্স ০, লায়ন ৬*, জ্যাম্পা ২; বুমরাহ ২/২৯, জাদেজা ১/৪৮, শঙ্কর ২/১৫, কুলদীপ ৩/৫৪, কেদার ১/৩৩)
ফল: ভারত ৮ উইকেটে জয়ী
ম্যাচসেরা: বিরাট কোহলি

আপনার মতামত লিখুন :

ক্যাচ ধরায় সেরা ভারত, সবচেয়ে বাজে পাকিস্তান

ক্যাচ ধরায় সেরা ভারত, সবচেয়ে বাজে পাকিস্তান
পাকিস্তানি ক্রিকেটাররাই সবচেয়ে বেশি ক্যাচ ড্রপ করলেন বিশ্বকাপে

ক্যাচ মিস তো ম্যাচ মিস। কথাটা পুরনো। কথাটির মাহাত্ম্য আরো অনেক গভীর। একটি ক্যাচ মিস যেমন ম্যাচে ব্যবধান গড়ে দিতে পারে। ঠিক তেমনি ঠিক করে দিতে পারে আপনি বিশ্বকাপ ট্রফি হাতে তুলবেন নাকি খালি হাতে দেশে ফিরবেন।

ক্রিকেট ময়দানের এ বাস্তবতা মেনে নেওয়ার লড়াইয়ে কিন্তু হারেনি অধিনায়ক বিরাট কোহলির দল। মানে এবারের বিশ্বকাপে ক্যাচ ধরায় সেরা দ্য মেন ইন ব্লু।

ক্যাচ ধরার লড়াইয়ে ইতোমধ্যে চ্যাম্পিয়ন হয়ে গেছে ভারত। এখন পর্যন্ত মাত্র একটি ক্যাচ ফেলেছে তারা। পাকিস্তানের বিপক্ষে ক্যাচটি মিস করেন লোকেশ রাহুল। যুবেন্দ্র চাহালের বলে এই একটাই ভুল করেছে ভারতীয়রা।

বিপরীতে ক্যাচ ধরায় সব চেয়ে বাজে পারফরম্যান্স পাকিস্তানের। দশ দলের মধ্যে সর্বোচ্চ ১৪টি ক্যাচ মিস করে লজ্জার এ তকমা নিজেদের করে নিয়েছে অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদের দল। এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপে পাকিস্তান যে ক্যাচ ধরার সুযোগ পেয়েছে তার ৩৫ শতাংশই ফেলে দিয়েছে তারা।

ক্যাচ ধরায় অপ্র্ত্যাশিত ভাবে পাকিস্তানের পরেই সব চেয়ে খারাপ পারফরম্যান্সটা স্বাগতিক ইংল্যান্ডের। মঙ্গলবার অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হারের আগে ১২টি ক্যাচ ফেলেছে ইংলিশরা। আয়োজকদের মতো অনাকাঙ্ক্ষিত ভাবে নিউজিল্যান্ড মিস করেছে ৯টি ক্যাচ।

তাদের পরে দক্ষিণ আফ্রিকা ৮টি, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৬টি, অস্ট্রেলিয়া ৪টি, বাংলাদেশ ৪টি, শ্রীলঙ্কা ৩টি ও আফগানিস্তান ২টি ক্যাচ ফেলে।

ক্যাচ ধরায় তো চ্যাম্পিয়ন ভারত। টুর্নামেন্ট শেষে শিরোপা হাসি কী হারাই হাসবে? নাকি অন্য কোনো দল? এ উত্তরের অপেক্ষায় এখন ক্রিকেট দুনিয়ার অনুরাগীরা।



১৬৯৩ নারী ফুটবলারের চেয়ে দ্বিগুণ বেতন মেসির!

১৬৯৩ নারী ফুটবলারের চেয়ে দ্বিগুণ বেতন মেসির!
মেসির বিশাল বেতন নিয়ে উদ্বেগ জাতিসংঘের

লিওনেল মেসিকে নিয়ে সমালোচনা করার মতো মানুষের অভাব নেই। কোনো সংস্থা আর্জেন্টাইন ফুটবল জাদুকরকে নিয়ে সমালোচনামুখর হবে তা কিন্তু ভাবাই যায় না। অতীতে এমনটা না হলেও এবার তেমন তিক্ত অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হতে হল বার্সার এ মেগাস্টারকে।

মেসির সমালোচনা করেছে জাতিসংঘের সহযোগী সংস্থা ইউনাইটেড ন্যাশনস উইমেন। পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী ফুটবল মহাতারকা মেসির প্রতি তাদের অভিযোগ তার মাঠের পারফরম্যান্স নিয়ে নয়। তার বিশাল অঙ্কের বেতনই বাধিয়েছে যত গন্ডগোল।

আসলে সেটাও কোনো সমস্যা নয়। সমস্যাটা নারী-পুরুষ ফুটবলারদের বেতন বৈষম্য। বৈষম্যের উদাহরণ টান গিয়ে মেসির বেতনের কথা উঠে এসেছে সংস্থাটির অভিযোগে।

নারী ফুটবল থেকে পুরুষ ফুটবলে বেতন বৈষম্যটা আকাশ-পাতাল তফাত। নারী ফুটবলকে সমান গুরুত্ব না দেওয়া ও বেতন বৈষম্যের কারণে চলতি বিশ্বকাপে দর্শক হয়ে আছেন অ্যাডা হ্যাজারবার্গ। যা নরওয়ের জন্য বড় এক ধাক্কা। কারণ হ্যাজারবার্গ শুধু এবারের ব্যালন ডি’অর জয়ীই নন, লিঁওর হয়ে টানা চারটি চ্যাম্পিয়নস লিগও জিতেছেন এ তারকা ফুটবলার।

বিশ্বে ক্লাব ফুটবল থেকে সবচেয়ে বেশি বেতন পান বার্সেলোনার মহা তারকা মেসি। কর ছাড়া বছরে তার বেতন ৮৪ মিলিয়ন ডলার।

জাতিসংঘের ফেসবুক পেজের এক ছবি পোস্ট করাতেই স্পষ্ট হয়েছে তা। ইউরোপের ৭টি সেরা লিগে খেলা ১৬৯৩ জন নারী ফুটবলারদের সবার যে বেতন পান। তার দ্বিগুণ পান মেসি একাই!

ওই নারী ফুটবলারদের মোট বাৎসরিক বেতন ৪২.৬ মিলিয়ন ডলার। আর মেসি একাই পান ৮৪ মিলিয়ন ডলার!

ফিফা নারী বিশ্বকাপ চলার সময় খেলাধুলায় মেয়েদের সমান বেতনের দাবি করে আন্দোলনের ডাক দিয়েছে ইউনাইটেড নেশনস উইমেন।

বেতন বৈষম্য নিয়ে এমনিতেই সরব নারী ফুটবলাররা। বিশ্বকাপের শেষ আটে উঠা যুক্তরাষ্ট্রের ২৮ জন ফুটবলার মামলা করেছেন তাদের ফুটবল ফেডারেশনের বিরুদ্ধে। ক্ষতিপূরণের দাবি বিশ্বকাপ শেষে সমাধানের আশ্বাস দিয়ে অ্যালেক্স মরগান,মেগান র‍্যাপিনু ও কার্লি লয়েডদের আপাতত শান্ত রেখেছে ফেডারেশন।


এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র