Barta24

সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

চেলসির স্বপ্ন ভেঙে লিগ কাপ ম্যানসিটির

চেলসির স্বপ্ন ভেঙে লিগ কাপ ম্যানসিটির
লিগ কাপ জয়ী ম্যানচেস্টার সিটি
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

দুই জায়ান্টের লড়াই বলে কথা। উত্তেজনার কোন কমতিই ছিল ম্যাচে। ফাইনালে আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে দু্ই দলই সমানে সমান। কিন্তু শিরোপা লড়াই বলে কথা। নির্ধারিত সময়ের পর অতিরিক্ত ৩০ মিনিটেও খেলা ড্র, ম্যাচ গড়ায় টাইব্রেকারে। যেখানে বাজিমাত ম্যানচেস্টার সিটির। চেলসিকে হারিয়ে ইংলিশ লিগ কাপের শিরোপা জিতল তারা।

লন্ডনের ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে রোববার ফাইনালে টাইব্রেকারে ৪-৩ গোলে জিতল পেপ গার্দিওলার দল। এনিয়ে লিগ কাপে টানা দ্বিতীয় আর সব মিলিয়ে ষষ্ঠ শিরোপা জিতল সিটি।

ম্যাচের শুরু থেকেই অবশ্য দাপট ছিল ম্যানসিটির। তবে কিছুতেই গোলের দেখা পাচ্ছিলেন না সার্জিও আগুয়েরোরা। বিশেষ করে চেলসির রক্ষণভাগে বারবারই আটকে যাচ্ছিল সিটির ফুটবলাররা। তবে কম যায়নি চেলসিও। বিশেষ করে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে এগিয়ে যেতে পারতো তারা। কিন্তু ইডেন হ্যাজার্ড সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেন নি।

এরইমধ্যে আগুয়েরো বল পাঠিয়েছিলেন চেলসির জালে। কিন্তু ভিএআর প্রযুক্তিতে গোলটি বাতিল করে দেন রেফারি। কারণ সেটি ছিল অফসাইড। এভাবে দুই দলই বারবার হতাশ হয়েছে। অতিরিক্ত সময়ের ১৯ মিনিটে ফের সুযোগ পেয়েছিলেন অ্যাগুয়েরো। কিন্তু এবারো কাজে লাগানো হয়নি!

শেষ অব্দি গোলশূন্য ম্যাচ গড়ায় টাইব্রেকারের। যেখানে ইলকাই গিনদোয়ান, আগুয়েরো, বের্নার্দো সিলভা ও রাহিম স্টার্লিংদের গোলে হাসিমুখেই মাঠ ছাড়ে সিটি। চেলসির স্বপ্ন ভেঙে লিগ কাপ জিতে নেয় ম্যানচেস্টারের ক্লাবটি।

আপনার মতামত লিখুন :

বল হাতে দাপটের পর লিড বিসিবি একাদশের

বল হাতে দাপটের পর লিড বিসিবি একাদশের
২০ রানে ৫ উইকেট নিয়েছেন শহিদুল

ক্যাপ্টেন কে থিমাপ্পাইয়া সর্বভারতীয় স্মৃতি ক্রিকেট টুর্নামেন্টে দারুণ একটা দিন কাটাল বিসিবি একাদশ। বল হাতে রীতিমতো ঝড় তুলেছেন সফরকারী দলের বোলাররা। তিন পেসার শহিদুল ইসলাম, আরিফুল হক ও ইবাদত হোসেনের দাপটে মাত্র ৭৯ রানে অলআউট হয়ে যায় কেএসসিএ সেক্রেটারি একাদশ।

এরপর জবাবে নেমে সাদমান ইসলামের ফিফটিতে প্রথম দিন শেষে ৩ উইকেটে ১৩৫ রান তুলেছে বিসিবি একাদশ। চারদিনের ম্যাচে এরইমধ্যে ৫৬ রানের লিড নিয়েছে মুমিনুল হকের দল। বেঙ্গালুরুর এম চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে সোমবার দিন শেষে জহুরুল ইসলাম ২৮ ও নাজমুল হোসেন শান্ত ২৭ রানে মাঠ ছাড়েন।

এর আগে দাপট দেখালেন বোলাররা। জাতীয় দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ায় ম্যাচটিতে দেখা যায়নি তাসকিন আহমেদ ও তাইজুল ইসলামকে। তবে তাদের অভাবটা বুঝতে দেননি শহিদুল, ইবাদত ও আরিফুল।

ম্যাচে টস ভাগ্যটাও ছিল বিসিবি একাদশের পক্ষে। বোলাররা আস্থার প্রতিদান নিয়ে প্রতিপক্ষের দলীয় ১৫ রানের মধ্যে তুলে নেন ৪ উইকেট। দলীয় সর্বোচ্চ ১৮ রান তুলেন কেএস দেবাইয়া। ২০ রানে ৫ উইকেট নেন শহিদুল। ২২ রানে ৩ উইকেট আরিফুলের। ইবাদত শিকার করেন ৩৬ রানে ২ উইকেট।

এরপর ব্যাটিংয়ে নেমে অবশ্য বিসিবি একাদশ শুরুতেই হারায় সাইফ হাসানকে। অধিনায়ক মুমিনুলও (১০) তেমন কিছুই করতে পারেন নি। তবে এরপরই তৃতীয় উইকেটে প্রতিরোধ গড়েন সাদমান ও জহুরুল। ৯ চার ও এক ছক্কায় ৯৩ বলে ৫৯ রান করেন সাদমান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর-

কেএসসিএ সেক্রেটারি একাদশ ১ম ইনিংস: ৪১ ওভারে ৭৯/১০ (অর্জুন ১২, রোহান ১, শিভম ০, নাগা ২, অভিনব ১২, প্রভিন ১৬, বিনয় ৭, কার্তিক ০, দেবাইয়া ১৮, আনন্দ ৮, বিদওয়াথ ১*; শহিদুল ৫/২০, ইবাদত ২/৩৬, আরিফুল ৩/২২)
বিসিবি একাদশ ১ম ইনিংস: ৪৪ ওভারে ১৩৫/৩ (সাইফ ৩, সাদমান ৫৯, মুমিনুল ১০, জহুরুল ২৮*, শান্ত ২৭*; দেবাইয়া ১/৩১, বিদওয়াথ ১/৪৫, আনন্দ ১/১৫)

১৯ দিনে ৫ স্বর্ণপদক হিমা দাসের

১৯ দিনে ৫ স্বর্ণপদক হিমা দাসের
প্রশংসায় ভাসছেন ভারতের অ্যাথলিট হিমা দাস

টানা ১৯ দিন ইউরোপের ট্র্যাক এন্ড ফিল্ড দাঁপিয়ে বেড়িয়েছেন হিমা দাস। লিখেছেন নতুন এক ইতিহাস। পাঁচটি প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে ছিনিয়ে নিয়েছেন পাঁচটি স্বর্ণ পদক। আসামের এ সোনার মেয়ের অসাধারণ এ কৃতিত্বে গর্বিত পুরো ভারত। তাই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শুভেচ্ছা আর অভিনন্দন বন্যায় ভেসে যাচ্ছেন ভারতীয় এ নারী দৌড়বিদ।

১৯ বছরের হিমার এ অর্জনে যারপরনাই খুশী ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তাদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বার্তা পাঠিয়েছেন কিংবদন্তি ক্রিকেটার শচীন টেন্ডুলকার ও বলিউড অভিনেত্রী আনুশকা শর্মাও।

রাষ্ট্রপতি কোবিন্দ স্প্রিন্টার হিমাকে উৎসাহ দিয়ে টুইটারে লিখেন, ‘তিন সপ্তাহে পাঁচটি স্বর্ণপদক৷ তুমি চমৎকার হিমা দাস৷ দৌড়ে যাও, চমকে দিতে থাকো৷ এ সাফল্য যেন ২০২০ অলিম্পিকে আমাদের জন্য গর্ব বইয়ে নিয়ে আসে।’

প্রধানমন্ত্রী মোদি এক টুইট বার্তায় লিখেন, ‘হিমা দাসের অভূতপূর্ব সাফল্যে পুরো দেশ গর্বিত৷ বিভিন্ন প্রতিযোগিতা থেকে পাঁচটি স্বর্ণ পদক জিতে সবাইকে খুশী করেছো। অভিনন্দন রইল। এবং একই সঙ্গে ভবিষ্যতের জন্য অনেক অনেক শুভ কামনা।’

হিমাকে গোল্ডেন গ্লার্ল উল্লেখ করে টুইটারে আনুশকা লিখেন, ‘১৯ দিন – ৫টি স্বর্ণ পদক – একটি সোনার মেয়ে! অভিনন্দন হিমা দাস! তুমি দৃষ্টান্তের দৃষ্টান্ত৷ তোমার সার্মথ্য ও অধ্যবসায় আগামী প্রজন্মের মেয়েদের প্রেরণা৷’ জবাবে আনুশকাকে হিমা লিখেন, ‘ধন্যবাদ আনুশকা শর্মা। আমি আপনার পাড় ভক্ত।’

হিমার ইউরোপ অভিযাত্রা শুরু হয়েছিল ২ জুলাই। চলে ২১ জুলাই পর্যন্ত। পোল্যান্ডের পোজনান গ্রাঁ প্রি (২০০ মিটার), পোল্যান্ডের কুতনো অ্যাথলেটিকস মিট (২০০ মিটার), চেক প্রজাতন্ত্রের তাবর অ্যাথলেটিকস মিট (২০০ মিটার), চেক প্রজাতন্ত্রের ক্লাদনো অ্যাথলেটিকস মিট (২০০ মিটার) ও প্রাগের নোভ মেস্তো নাড মেটুজি গ্রাঁ-প্রিতে হিমা ৪০০ মিটার স্বর্ণপদক জেতেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র