Barta24

সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

জিতছে ঢাকা, দেখছে দেশ!

জিতছে ঢাকা, দেখছে দেশ!
জয়ের ছন্দে উড়ছে ঢাকা ডায়নামাইটস- ছবি: বিসিবি
স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

বলতে গেলে এই ম্যাচের ফল জানা হয়ে গেল, সিলেট ইনিংসের পাওয়ার প্লেতেই! ব্যাটিংয়ের সব পাওয়ার তো তাদের পাওয়ার প্লে’তেই শেষ। ৬.১ ওভারেই ৩৭ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে সিলেটের ধুঁকে চলা শুরু। বাকি সময় জুড়ে একটাই অপেক্ষায় এই ম্যাচে কত রানে জিতছে ঢাকা ডায়নামাইটস। সেই উত্তর মিললো সিলেটের ইনিংস শেষে। ঢাকা ম্যাচ জিতলো ৩২ রানে।

একা শুধু নিকোলাস পুরান ৯ ছক্কায় ৪৭ বলে ৭২ রানের রানের ইনিংস খেলে ব্যাট হাতে কিছুটা সাহস দেখালেন। আর সিলেটের বাকিরা সবাই মিলে করলেন মাত্র ৬৯ রান!

চার ম্যাচের চারটিতেই জিতে এবারের বিপিএলে সাকিব আল হাসানের ঢাকার শুরুটা হলো স্বপ্নের মতো। হোম ভেন্যুতে টুর্নামেন্টের প্রথম পর্বে ঢাকার সাফল্য শতভাগ। চার ম্যাচেই বড় রান তুলেছে ঢাকা। ব্যাটিং-বোলিং সব বিভাগেই দারুন দক্ষতা দেখিয়ে টুর্নামেন্টের একমাত্র দল হিসেবে অপরাজিত থেকেই দ্বিতীয় পর্ব খেলতে সিলেট যাচ্ছে ঢাকা ডায়নামাইটস।

জিতবে ঢাকা, দেখবে দেশ-ডায়নামাইটসের শ্লোগানের সঙ্গে দারুণ ভাবে মিলে গেলো এবারের বিপিএলের শুরুর অংশ!

ঢাকার ৭ উইকেটে ১৭৩ রানের জবাবে খেলতে নামা সিলেট শুরু থেকেই উইকেট হারায়। দলের প্রথম চার ব্যাটসম্যান ফিরলেন সিঙ্গেল ডিজিটে। সাকিব, নারিন ও শুভগত হোম-ঢাকার তিন স্পিনার প্রত্যেকেই শুরুতেই সাফল্য পেলেন। রুবেল হোসেন ম্যাচে নিজের প্রথম বলেই বিদায় করলেন সাব্বির রহমানকে। সিলেটের ব্যর্থ ব্যাটসম্যানদের মধ্যে নাসির হোসেনের আউটের ধরনটা সবচেয়ে বেশি সমালোচনা কুড়াচ্ছে। বারবার উইকেট ছেড়ে বেরুচ্ছেন কিন্তু শট খেলতেই পারছেন না। যে বলে শটস খেললেন তাতেই ক্যাচ আউট। ৮ বলে ১ রান করে সাকিবের বলে বাউন্ডারি লাইনে আন্দ্রে রাসেলের হাতে ক্যাচ আউট হওয়ার পর নাসির হাতে ধরা ব্যাটের দিকে সন্দেহের নজরে তাকাচ্ছিলেন; যেন সব দোষ তার ঐ ব্যাটের ব্লেডে!

আগের ম্যাচের হ্যাটট্রিকম্যান আলিস আল ইসলাম যখন বল হাতে আক্রমণে এলেন ততক্ষনে সিলেটের ছয় উইকেট নেই! পেছনের ম্যাচ গুলোর মতো এই ম্যাচেও ব্যাটসম্যান হিসেবে সিলেটের একজনকেই দেখা গেল; নিকোলাস পুরান। তার ৭২ বলের ইনিংস সিলেটের হারের সময়কে কেবল একটু দীর্ঘায়িত করলো!

নিজ ভেন্যুতে পরের পর্বে মাঠে নামার আগে সিলেট সিক্সার্সকে যা নিয়ে সবচেয়ে বেশি হোমওয়ার্ক করতে হবে, তার নাম; ব্যাটিং!

টসে জিতে ঢাকা ডায়নামাইটস রাতের ব্যাটিং বেছে নেয়। ঢাকার ব্যাটিংয়ের সেরা ইনিংস খেলেন মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যান রনি তালুকদার। ৩৪ বলে ৫ বাউন্ডারি ও ৩ ছক্কায় ৫৮ রানে উজ্জ্বল তার ব্যাট।

তাসকিন আহমেদের পেসে ঢাকার ইনিংস মাঝপথে একটু পথ হারালেও ঠিকানা ঠিক করে দেন নিচের দিকের দুই ব্যাটসম্যান নুরুল হাসান সোহান ও মোহাম্মদ নাঈম। দুজনে অষ্টম উইকেট জুটিতে মাত্র ৩৫ বলে যোগ করেন হার না মানা ৪৮ রান। ঢাকাকে ১৭৩ রানের বড় সঞ্চয় এনে দেয়ার অন্যতম কারিগর এই জুটি।

তাসকিন আহমেদ ৩৮ রানে ৩ উইকেট শিকারের আনন্দও উপভোগ করতে পারলেন না। মাত্র ৫ বলের ব্যবধানে পোলার্ড, রাসেল ও শুভগত হোমের উইকেট তুলে নেন তাসকিন। একতরফা ভঙ্গিতে হারা ম্যাচে বিজিত দলের কারোর ব্যক্তিগত পারফরমেন্স কে মনে রাখে!

ক্রিকেটও যে বিজয়ীর গানই বেশি গায়!

সংক্ষিপ্ত স্কোর: ঢাকা ডায়নামাইটস: ১৭৩/৭ (২০ ওভারে, নারিন ২৫, রনি ৫৮, সাকিব ২৩, সোহান ১৮*, নাঈম ২৫*, তাসকিন ৩/৩৮)। সিলেট সিক্সার্স: ১৪১/৯ (২০ ওভারে, পুরান ৭২, সাব্বির ১২, তাসকিন ১৮*, রুবেল ৩/২২, সাকিব ২/৩৪, শুভগত ২/২৮)। ফল: ঢাকা ৩২ রানে জয়ী।

আপনার মতামত লিখুন :

শেষ অনুরোধ রাখবেন মালিঙ্গা?

শেষ অনুরোধ রাখবেন মালিঙ্গা?
ক্যারিয়ারের ইতি টানতে প্রস্তুত লাসিথ মালিঙ্গা

৩৫ ছাড়িয়েছে বয়স। ক্যারিয়ারের শেষ প্রান্তে দাঁড়িয়ে লাসিথ মালিঙ্গা। ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছেন দেশের মাঠে বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলেই সরে দাঁড়াবেন ওয়ানডে ক্রিকেট থেকে। তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটিতে খেলেই গুডবাই বলতে চাইছেন এই পেসার। যদিও তার কাছে শেষ একটি অনুরোধ রাখছেন শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট কর্তারা!

এখনই মালিঙ্গাকে বিদায় বলতে চাইছেন না আসান্থা ডি মেল। শ্রীলঙ্কার নির্বাচক কমিটির চেয়ারম্যান বলছিলেন, ‘প্রথম ম্যাচটি খেলেই অবসরে যেতে চাইছে ও। কিন্তু আমরা তাকে পুরো সিরিজে চাইছি। কারণ সদ্য শেষ বিশ্বকাপে দলের সবচেয়ে সফল বোলার মালিঙ্গা (সাত ম্যাচে ১৩ উইকেট)। যদিও ও আমাদের বলেছে যে শরীর কিছুটা ক্লান্ত। যদি ও সরেই যেতে চায় তবে কিছু করার নেই। কিন্তু আমরা ওকে শেষ অনুরোধটা করে রেখেছি।’

অবশ্য ক্রিকেট ছেড়ে অস্ট্রেলিয়ায় পাড়ি জমানোর কথা ভাবছেন মালিঙ্গা। পরিবারকে নিয়ে সেখানেই ক্যারিয়ার গড়বেন তিনি। অস্ট্রেলিয়ায় পূর্ণ নাগরিকত্বও পেয়ে গেছেন এই পেসার। এখন কোচ হিসেবেই জড়িয়ে থাকতে চান ক্রিকেটে।

এদিকে বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজটাকে বেশ গুরুত্বের সঙ্গেই নিয়েছে শ্রীলঙ্কা। টাইগারদের হারিয়ে আন্তর্জাতিক ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে যেতে চায় তারা। এমনিতে শ্রীলঙ্কার স্থান বাংলাদেশ থেকে একধাপ পরই। রেটিং পয়েন্ট ৭৯ নিয়ে অষ্টমস্থানে তারা। ৯০ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে বাংলাদেশ সপ্তম স্থানে।

বাংলাদেশকে হারিয়ে র‌্যাঙ্কিংয়ে এগিয়ে যেতে চাইছেন আসান্থা ডি মেল। বলছিলেন, ‘র‌্যাঙ্কিংয়ে উন্নতি করাই এই সিরিজে আমাদের প্রাথমিক লক্ষ্য। এখন আমরা ৮ নম্বরে রয়েছি। বাংলাদেশ ৭ নম্বরে। তাদের হোয়াইট ওয়াশ করতে পারলে এগিয়ে যাওয়া সহজ হবে।’

বাংলাদেশের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কা তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে মাঠে নামবে ২৬, ২৮ ও ৩১ জুলাই। দিবা-রাত্রির তিন ম্যাচই অনুষ্ঠিত হবে কলম্বোতে।

শ্রীলঙ্কার ওয়ানডে দল-
দিমুথ করুনারত্নে, কুশল পেরেরা, আভিশকা ফার্নান্ডো, কুশল মেন্ডিস, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস, লাহিরু থিরিমান্নে, শিহান জয়াসুরিয়া, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা, নিরোশান ডিকভেলা, দানুশকা গুনাথিলাকা, দাসুন শানাকা, ভানিদু হাসারাঙ্গা, আকিলা ধনাঞ্জয়া, আমিলা আপোন্সো, লাকসান সান্দাকান, লাসিথ মালিঙ্গা, নুয়ান প্রদীপ, কাসুন রাজিথা, লাহিরু কুমারা, থিসারা পেরেরা, ইসুরু উদানা ও লাহিরু মাদুশঙ্কা।

রূপালি পর্দায় আসছে মুরালিধরনের বায়োপিক ‘৮০০’

রূপালি পর্দায় আসছে মুরালিধরনের বায়োপিক ‘৮০০’
মুরালিধরনের চরিত্রে তামিল অভিনেতা বিজয় শেঠুপথী

রূপালি পর্দার ফ্রেমে বাঁধা পড়েছে অনেক সাবেক নামী-দামী খেলোয়াড়ের জীবনী। মহেন্দ্র সিং ধোনি, মিলকা সিং, মোহাম্মদ আজহারউদ্দিন, ম্যারি কম ও শচীন টেন্ডুলকারকে নিয়ে নির্মিত সিনেমা হিটও হয়েছিল। এবার নির্মিত হচ্ছে মুত্তিয়া মুরালিধরনের বায়োপিক।

‘৮০০’ নামের সিনেমাতে শ্রীলঙ্কান কিংবদন্তি স্পিন জাদুকরের ভূমিকায় অভিনয় করবেন তামিল অভিনেতা বিজয় শেঠুপথী।

তবে সিনেমার শ্যুটিং এখনো শুরু হয়নি। আগামী ডিসেম্বরে শুরু হয়ে শ্যুট চলবে ভারত, শ্রীলঙ্কা, ইংল্যান্ড ও বিশ্বের বিভিন্ন জায়গায়। এমন খবরই ছড়িয়ে পড়েছে ভারতীয় গণমাধ্যমে। তবে আনুষ্ঠানিক ভাবে কোনো ঘোষণা এখনো আসেনি।

টেস্ট ক্রিকেটে সবচেয়ে সফল বোলার মুরালিধরন। লাল বলের ক্রিকেটে সর্বোচ্চ ৮০০ উইকেট শিকারের মালিক কেবল তিনিই। দ্বিতীয় স্থানে থাকা অজি স্পিন কিংবদন্তি শেন ওয়ার্নের চেয়ে ৯২ উইকেট বেশি। সেজন্য মুরালিধরনের বায়োপিকের নামও রাখা হয়েছে ‘৮০০’।

একদিনের ক্রিকেটে ৫৩৪ উইকেটের সঙ্গে টি-টুয়েন্টিতে শিকার করে ১৩ উইকেট। সব মিলিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মুরালিধরনের উইকেট ১৩৪৭।

১৯৭২ সালে ক্যান্ডিতে জন্ম নেওয়া সাবেক এ অফ-স্পিনার ১৯৯২ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত খেলেন ১৩৩ টেস্ট, ৩৫০ ওয়ানডে ও ১২টি টি-টুয়েন্টি। বনে যান অন্যতম গ্রেটেস্ট স্পিনার।

তবে অনন্য বোলিং অ্যাকশনের জন্য এমনকি বোলিং পরীক্ষাও দিতে হয়েছে তাকে। ১৯৯৬ সালে শ্রীলঙ্কার হয়ে জেতেন ক্রিকেট বিশ্বকাপ। তার ক্যারিয়ারের এসব বিষয়ই উঠে আসবে সিনেমাটিতে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র