Barta24

বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯, ২ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

সুপার ওভারে চিটাগংয়ের জয়

সুপার ওভারে চিটাগংয়ের জয়
রোমাঞ্চকর জয় পেল চিটাগং
স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

সুপার ওভারে গড়ানো ম্যাচে শেষ হাসি হাসলো চিটাগং ভাইকিংস। টার্গেট ছিলো মাত্র ১২ রানের। ৬ বলে ১২ রান। দুটো ছক্কা হলেই ম্যাচ শেষ! কিন্তু ৬ বলে ১১ রানের বেশি তুলতে পারেনি খুলনা টাইটানস। ১ রানে সুপার ওভার জিতে আনন্দে মেতে উঠলো চিটাগং ভাইকিংস।

সুপার ওভারের শেষ বলে ম্যাচ জিততে খুলনার প্রয়োজন ছিলো ৩ রানের। কিন্তু রোবি ফ্রাইলিঙ্কের করা দুর্দান্ত শেষ বলটা ব্যাটেই লাগাতে পারেননি পল স্টালির্ং। কোন মতে একটা বাই রান নেন। দ্বিতীয় রানটা অসম্ভব ছিলো। সেটা নিতে গিয়ে রান আউট হন তিনি। ১ রানে সুপার ওভারে ম্যাচ জিতে মুশফিক রহিমের দল।

শেষদিকে এসে এই ম্যাচের পরতে পরতে নাটকীয়তার দেখা মিলে। খুলনা টাইটানসের ১৫১ রানের জবাবে চিটাগং ভাইকিংস বেশ ভালভাবেই ম্যাচে ছিলো। মুশফিক রহিম যেভাবে ব্যাটিং করছিলেন তাতে মনে হচ্ছিলো নিশ্চিত জয়ের পথেই আছে চিটাগং। কিন্তু ১৮ নম্বর ওভারে এসে কার্লোস ব্রাথওয়েট দ্বিতীয় বলেই মুশফিক রহিমকে আউট করেন। এই উইকেটই ম্যাচের মোড় ফের ঘুরিয়ে দিলো খুলনার দিকে। ক্রমেই চিটাগংয়ের জন্য শেষের টার্গেট কঠিন হতে লাগলো।

শেষ ১২ বলে চাই ২৩ রান। জুনায়েদ খান ১৯ নম্বর ওভারে মাত্র ৪ রান দিয়ে চিটাগংয়ের কাজটা আরো কঠিন করে দেন। ম্যাচ জিততে শেষ ওভারে চিটাগংয়ের চাই ১৯ রানের বিশাল টার্গেট। তিন ছক্কায় শেষ ওভারে সেই টার্গেটের একেবারে কাছেও পৌছে যায় চিটাগং। কিন্তু শেষ বলে প্রয়োজনীয় ১ রান নিতে পারেনি। আগের দুই বলে দুই ছক্কা হাঁকানো ফ্রাইলিঙ্ক ম্যাচের শেষ বলে রান আউট হয়ে যান। স্কোরবোর্ডে তখন দু’দলের স্কোর সমান। ম্যাচ টাই। নিয়ম অনুযায়ী ফল নির্ধারনের জন্য ম্যাচ গড়ায় সুপার ওভারে।

সুপার ওভারে আগে ব্যাট করে চিটাগং ভাইকিংস ১ উইকেট হারিয়ে ১১ রান তোলে। খুলনা সেই রানের জবাবে করে মাত্র ১০ রান। একেই বলে পয়সা উসুলের ম্যাচ!

চলতি বিপিএলে যাও একটা ম্যাচ জেতার সুযোগ তৈরি হয়েছিলো খুলনা সামনে। সেই সুযোগ দেখা দিয়েও মিলিয়ে গেল! টানা চার ম্যাচের চারটিতেই হেরে খুলনা বিপিএলে এখনো পয়েন্ট শূণ্য। আর তিন ম্যাচে দুই জয় নিয়ে চিটাগংয়ের এবারের শুরুটা বেশ ভালই হয়েছে।

টসে হেরে ব্যাট করতে নামা খুলনা টাইটানসের ইনিংস শেষে একটু আক্ষেপ রয়েই গেলো, ১৫১ রানের স্কোরটা আরেকটু বড় হতে পারতো! শেষের পাঁচ ওভারে যেভাবে ব্যাট হাতে শাসন করার কথা ছিলো, সেটা করতে পারেনি খুলনা। হাতে উইকেট জমা কিন্তু শেষের পাঁচ ওভারে তাদের যোগাড় হলো মাত্র ৪০ রান। ১৮ নম্বর ওভারে স্পিনার সানজামুল ইসলাম টানা দুই বলে ব্রাথওয়েট ও মাহমুদউল্লাহ’র উইকেট তুলে নিলে স্কোরবোর্ডে খুলনার রানের স্বাস্থ্য খুব বেশি সবল হতে পারেনি। তারপরও ১৫১ রানের স্কোরে খুলনা স্বস্তি খুঁজছে, এই প্রথম শুরুর দিকের পাঁচ ব্যাটসম্যানের সবাই অন্তত ডাবল ফিগারে যেতে পেরেছে।

তবে কে জানতে উভয় দলের ১৫১ রানের এই ম্যাচ শেষ পর্যন্ত এত টানটান উত্তেজনা জিইয়ে রাখবে?

সংক্ষিপ্ত স্কোর: খুলনা টাইটানস: ১৫১/৬ (২০ ওভারে, স্টার্লিং ১৮, জুনায়েদ ২০, মালান ৪৫, মাহমুদউল্লাহ ৩৩, ব্রাথওয়েট ১২, নাজমুল হোসেন শান্ত ৬, আরিফুল ৯*, মাইদুল ৪*, সানজামুল ২/৩৭, নাঈম ১/১৬)। চিটাগং ভাইকিংস: ১৫১/৮ (২০ ওভারে, শাহজাদ ১০, ডেলপোর্ট ১৭, ইয়াসির আলী ৪১, মুশফিক ৩৪, মোসাদ্দেক ১২, ফ্রাইলিঙ্ক ২৩, ব্রাথওয়েট ২/৩০, শরিফুল ২/৩১)। ফল: ম্যাচ টাই, সুপার ওভারে ১ রানে চিটাগং ভাইকিংস জয়ী। ম্যাচসেরা: রোবি ফ্রাইলিঙ্ক।

আপনার মতামত লিখুন :

ভাইয়ের মৃত্যুর শোক কাটিয়ে বিশ্বকাপ জয়

ভাইয়ের মৃত্যুর শোক কাটিয়ে বিশ্বকাপ জয়
বন্ধুসুলভ ভাইকে হারিয়ে হতবাক হয়ে পড়েন জোফরা আর্চার

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জয় দিয়ে ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ মিশন শুরুর পরই আসে খারাপ খবরটা। জোফরা আর্চার জানতে পারেন, তার প্রিয় চাচাতো ভাই আশান্টিও ব্ল্যাকম্যান আর নেই। সেন্ট ফিলিপে বাড়ির বাইরে দুর্বৃত্তের গুলিতে নিহত হয়েছেন তিনি। বন্ধুসুলভ ভাইকে হারিয়ে হতবাক হয়ে যান এ তারকা ইংলিশ পেসার।

আর্চারের বাবা ফ্র্যাঙ্ক বলেন, ‘আর্চারের চাচাতো ভাইও তার সমবয়সী এবং তারা খুবই ঘনিষ্ঠ ছিল।  এমনকি মৃত্যুর আগের দিন আর্চারকে বার্তাও পাঠিয়েছিল তার ভাই। তার মৃত্যুতে সত্যিই ভেঙে পড়ে ছিল আর্চার।  কিন্তু পরে শোকটা কাটিয়ে উঠে এগিয়ে যায় ও।’

মনের মাঝে ভাই হারানোর বেদনা নিয়েও আর্চার খেলে গেছেন বিশ্বকাপে। শুধু খেলে যাননি, ইংল্যান্ড হিরো শোককে শক্তিতে রূপান্তর করে পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে রীতিমতো দ্যুতি ছড়িয়ে গেছেন আগুনে বোলিংয়ে।

১১ ইনিংসে ২০ উইকেট নিয়ে বার্বাডিয়ান বংশোদ্ভূত এ পেসার বনে গেছেন বিদায়ী বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি। সুবাদে ইংল্যান্ডের প্রথম বিশ্বকাপ শিরোপা জয়ে রেখেছেন অগ্রণী ভূমিকা।

লর্ডসে নির্ধারিত ৫০ ওভারের খেলা শেষে ফাইনালটা ২৪১ রানে হয়ে যায় টাই।  ফলে ফাইনালের ভাগ্য গড়ায় সুপার ওভারে। সেই সুপার ওভারে বল করে নিউজিল্যান্ডকে জিততে দেননি আর্চার।  প্রতিপক্ষকে নিজেদের সমান ১৫ রানে আটকে রাখেন। ফলে সুপার ওভারেও টাই হলে বেশি বাউন্ডারি হাঁকানোর সুবাদে শিরোপা জিতে নেয় স্বাগতিক ইংল্যান্ড।

ক্ষমা চাইলেই শাস্তি থেকে বাঁচবেন মেসি!

ক্ষমা চাইলেই শাস্তি থেকে বাঁচবেন মেসি!
বিপাকেই আছেন লিওনেল মেসি

দক্ষিণ আমেরিকান ফুটবলের অভিভাবক সংস্থা কনমেবলের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে বেকায়দায় পড়ে গেছেন লিওনেল মেসি। আর্জেন্টাইন ফুটবল মহাতারকা রয়েছেন দুই বছরের নিষেধাজ্ঞার শঙ্কায়। তাহলে শাস্তি থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায় কি? 

উপায়টা বাতলে দিয়েছেন- কোর্ট অব আর্বিট্রেশন ফর স্পোর্টের আর্জেন্টাইন কনমেবল সদস্য গুস্তাভো আব্রু।  বার্সেলোনা সুপারস্টারকে ক্ষমা চাওয়ার পরামর্শই দিয়েছেন তিনি, ‘মেসিকে আমি ক্ষমা চাওয়ার পরামর্শ দেবো। কারণ সংস্থাটি তাকে শাস্তি দিতে যাচ্ছে!’

সেমি-ফাইনালে ব্রাজিলের কাছে হেরে কোপা আমেরিকা থেকে বিদায় নিয়ে মেসি দাবী করেন, ব্রাজিলকে চ্যাম্পিয়ন করতে সব রকম ব্যবস্থা করে রেখেছে কনমেবল।

অন্যায় না করেও চিলির বিপক্ষে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে এলএম টেন দেখেন লাল কার্ড। এরপর মেসি ফের দাবী করেন, বেফাঁস মন্তব্যের জন্যই তাকে এ শাস্তি দিয়েছে কনমেবল।

এদিকে বিশ্ব গণমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে একটি খবর, মেসির লাল কার্ডের শাস্তি বাতিলের জন্য কনমেবলের কাছে আপিল করেছে আর্জেন্টিনা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (এএফএ)। এজন্য মেসির স্বাক্ষর সম্বলিত একটি লিখিত চিঠি পাঠিয়েছে তারা।

টানা দুই ফাইনালে চিলির কাছে ধরাশায়ী হওয়ার পর এবার শেষ চারেই ভাঙে মেসির দেশের হয়ে মেজর শিরোপা জয়ের স্বপ্ন। তারওপর এখন সামনে ঝুলছে শাস্তির খড়গ। তাই স্বাভাবিকভাবেই মন ভালো নেই পাঁচবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী এই তারকা ফুটবলারের।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র